সম্প্রতি কি সিনেমা দেখলাম

স্টিকি পোস্টে আপনাকে স্বাগতম 🙂
এই পোস্টের উদ্দেশ্য খুব মহৎ। কটি সিনেমা দেখলাম এবং কি সিনেমা দেখলাম তার হিসাব রাখা। সম্ভব হলে এই সব সিনেমার একটা একটা ছোট্ট সিনোপসিসও দিতে পারি যদি সময় এবং ইচ্ছা হয়। আপনিও শেয়ার করুন।
এই পোস্টটি পাঠকদের জন্য অন্যান্য পোস্টদের তুলনায় বেশী উন্সুক্ত। কারণ আপনারাও আপনাদের প্রিয় সিনেমা সম্পর্কে বলে যেতে পারেন এখানে, যে কোন সময়। আমার প্রতি আপনার সাজেশনও এখানে যুক্ত হতে পারে। কেউ কেউ রিকোয়েস্টও করেন সিনেমা নিয়ে লেখার জন্য, যদিও এটা তাদের বিনয় এবং উৎসাহ প্রদানের একটা মাধ্যম, তারপরেও এটা আমার ভালো লাগে। তাই রিকোয়েস্টও চলতে পারে।
সুতরাং আপনাকে স্বাগতম “সম্প্রতি কি মুভি দেখলাম” শিরোনামের এই স্টিকি পোস্টে।


দারাশিকো

নাজমুল হাসান দারাশিকো।
চলচ্চিত্র বিষয়ক লেখক ও ব্লগার।
কোঅর্ডিনেটর, বাংলা মুভি ডেটাবেজ (বিএমডিবি)
যোগাযোগ – [email protected]

You may also like...

ফেসবুক মন্তব্য

370 Responses

  1. The Usual Suspects:
    কেভিন স্পেসি অভিনীত সিনেমা। ১৯৯৫ সালের সিনেমা, কিছু সিনেমা আছে যার এন্ডিং খুব টুইস্টিং। বোধহয় এই সিনেমাটা তার গুরু। সিম্পলি অসাম মুভি। মাস্ট অ্যান্ড মাস্ট সি।

    The Isle:
    কোরিয়ান সিনেমা। কিম কি দুকের প্রেমে পড়ে এই সিনেমাটা দেখা। বিস্তারিত পোস্টে আছে।

    Old Boy:
    এই সিনেমাটাও কোরিয়ান সিনেমা। এই সিনেমাটা নিয়ে আমার সাম্প্রতিক মন্তব্য: “আজগুবি সিনেমা- এমন কমেন্ট করাটা নেহায়েতই আজগুবি হবে।” ক্রাইম আর রিভেঞ্জে এর সিনেমা

  2. Irnine says:

    Ami last dekhsi ’13-the conspiracy’ movie ta. Valo lage nai 🙁

  3. critic says:

    Watched “The Truman show”.
    http://www.imdb.com/title/tt0120382/

    Just blinded with the acting skill of Jim Carry.

  4. তারিক মাহমুদ says:

    গতপরশু দিন রাতে ‘The Book Of Eli’ সিনামাটা দেখলাম। মানে দেখা শেষ করলাম আর কি। মানে, তার আগের দিন রাতে খাইয়া দেখতে বসছিলাম, বাট, পুরাটা শেষ করতে পারি নাই। তাই গতপরশুদিন বাকিটা জোড়া দিয়া দেখা শেষ করলাম।

    কেমন লাগলো? হাতাশ হইছি। ডেন্জাল ওয়শিনটনের এই টাইপ মুভি করার ঠেকা কেন পরলো বুঝলাম না। ওরে আছে দেইখাই মুভিটা দেখতে বইছিলাম।

    অভিনয়ের কিছুই নাই। মানে অভিনয় করার মত কিছু এই মুভিতে নাই। কিছু মারা-মারি আছে। আর আছে একটা ফ্লাট কাহীনি। সিনামার মেকিংও সোজা-সাপটা।

    কহীনি হলো, ভবিষ্যতের। যখন পৃথিবীতে আবার মধ্য যুগ চইলা আসছে। সভ্যতার পতন হইছে। আর মানুষ হইয়া গেছে বন্য। মানে সাই-ফাইগুলিতে/ফ্যান্টসিগুলি এমন কিছুই দেখাতে চেষ্টা করে। যাই হোক, এ্যালাই (ডেন্জাল), একজন nomad in a post-apocalyptic world; যার কাছে একটা বই থাকে – বিশেষ একটা বই – সে ওই বাইটাকে হেফাজত করে রাখে। কোন এক সময় তার গভীর ঘুমের ভেতরে এক অলৌকিক কন্ঠ তাকে বলে, বইটা নিয়ে ওয়েস্টের দিকে যাত্রা করতে। এবং সে পথে নামে। রুক্ষ, ধুধু প্রান্তরের পর প্রান্তর সে পার হয়। নানান প্রতিকুল অবস্থায় আত্বরক্ষার্থে সে বিশেষ দক্ষতা অজর্ণ করে।

    মোটামুটি এই হলো সামারি। তো সেই বিশেষ বইটা কি? The last remaining ‘পবিত্র বাইবেল’।

    কেন ‘পবিত্র বাইবেল’ নিয়ে এ্যালাইকে যাত্রা করতে হলো ওয়েস্টে দিকে – সেইটা যে দখতে চান, দেইখা নিতে পারেন।

    সিনামার প্রিন্টা ডার্ক টাইপ। না কি আমার প্রিন্টাই এমন – কে জানে? তবে এই সিনামা টাকা তো মনে হয় ভালোই কামাইছে।

    Budget: $80 million
    Gross revenue: $157,091,718

    উইকিপিডিয়া থেকে পাওয়া তথ্য।

    যাই হোক, আপনারা দেখেন। আমার ভালো লাগে নাই তো কি হইছে। আমার একার ভালো না লাগায় কার কি আসে যায়।

    ভালো থাকেন

    • shah says:

      এটা ভাই রূপ কথা গল্প আপনি da Vinci code and angle and demon movie দুটি দেখবেন ৫০/৫০ সত‍্য অধের্ক
      আসলে সম্পুর্ন সত‍্য না দেখার কারন আসে আসল উওর ছবি দেখে বুঝবেন

  5. জসিলা রিভিউ হৈসে তারিক ভাই, চালায়া যান, আছি আপনার সাথে

  6. shuvo says:

    আমি দেখেছি বেশকিছুদিনের মধ্যে……।।

    ১। the girl with dragoon tattoo
    2. the horse whisperer
    3.public enemy
    4.the fountain
    5. butterfly effect

    the more i will update later..

  7. আসিফ আল হাই (মুভি পাগলা) says:

    মেঘদূত ভাইয়ের ব্লগ পড়ে দেখলাম মঙ্গোলিয়ান পিংপং । ভালো মুভি । সাতোশি কুন এর দুইটা মুভি দেখবো । জাপানিজ ডিরেক্টর । মুভির নাম মিলেনিয়াম অ্যাকট্রেস এবং পাপরিকা ।
    http://www.imdb.com/title/tt0851578/
    পাপরিকার আইএমডিবি লিংক পড়ে মনে হইল ইনসেপশান এর কনসেপ্ট অরিজিনাল না । তাই পাপরিকা ডাউনলোড দিসি ।

  8. ধন্যবাদ শুভ, খুব ভালো লাগলো আপনার কমেন্ট দেখে।

    আসিফ মুভি পাগলা, বলেন কি? শুনে বেশ রোমাঞ্চ হচ্ছে, ইনসেপশন এর আইডিয়াও ধার করা? না হলেই ভালো

  9. বাউন্ডুলে says:

    http://toysrevil.blogspot.com/2010/07/paprikas-inception-similarities-between.html
    লিঙ্কটি এসম্বন্ধে কিছু বলছে..

  10. ধন্যবাদ বাউন্ডুলে আপনার লিংক সহায়তার জন্য। অন্য মুভিটা দেখার পরে কিন্তু অবশ্যই জানাবেন, ওকে?

  11. আসিফ আল হাই (মুভি পাগলা) says:

    দারাশিকো ভাই । কমেন্টগুলা সাবস্ক্রাইব করব কেমনে? মানে যদি কেউ কমেন্ট করে আমি কেমনে টের পাবো?

  12. আসিফ ভাই, একটা ভালো দিক তুলে ধরেছেন। কিভাবে করা যাবে সেটা তো জানি না, তবে ডেভলপার ভাই-র সাথে কথা বলে দেখতে পারি…
    আশা করছি খুব শীঘ্রই হয়ে যাবে।
    অনেক ধন্যবাদ।
    ঈদ মোবারক।

  13. পরিবেশবাদী ঈগল says:

    OLD BOY (2003)

    INCEPTION (2010)

  14. Nezam says:

    থ্রি আয়রন দেখলাম। এককথায় চ্রম মুভি। মাস্ট সি।

  15. alomelorocks says:

    দুইদিন আগে দেখলাম far and away. দিত্বীয়বারের মত, অসাধারন সুন্দর প্রেমের ছবি।
    টম ক্রুজ আর নিকোল কিডম্যান,চমতকার অভিনয়।
    এই দুইজন বাস্তবে কাপল ছিলেন এখন ডিভোসর্ড

  16. ধন্যবাদ এলোমেলো, আইএমডিবি দেখলাম। ক্রুজের বক্সিং নিশ্চয়ই খুব জোস ছিল, তাই না?

  17. ইস্তিয়াক says:

    the expendables
    oti joghonno movie.vai eto baaje sobi ei bosor ey r mone hoy dekhi nai.director s.stalone k police er haate uthaiya dewa uchit.আরে ব্যটা,এক টা মুভি তেই এত মানুষ মারবি………পরের গুলার জন্য কিছু ত রাখ………………।।

  18. ভাই ইস্তিয়াক, জটিল মন্তব্য করেছো দেখি।
    এই কমেন্টা জটিল হৈসে .. “আরে ব্যটা,এক টা মুভি তেই এত মানুষ মারবি………পরের গুলার জন্য কিছু ত রাখ………………”
    আসলেই.. ব্যটারা যত মানুষ মারে তাতে দুনিয়ায় মানুষ অর্ধেক হয়ে যেত।

  19. আরেকটা কিম কি দুক। নাম দ্য বো, ১৯৯৯ সালের সিনেমা। এইটাও মাথার উপ্রে দিয়া গেছে। অবশ্য সিনেমাটা দেখছি সাউন্ড ছাড়া, সাউন্ড ইন্সটল করা হয় নাই এখনো।

  20. English: Harry Potter and The Deathly Hollows (7/10), Skyline (3/10 – worst sci-fi horrow ever), Due Date (7.5/10), Jack Ass (6.5/10 – too gross), You Again (5.5/10 – sweet comedy), Red (5.5/10), Despicable Me (6/10)

    Hindi: Guzaarish (6.5/10), Action Reply (5/10), Golmaal 3 (5/10), Rakht Ch…arit (7.5/10)

  21. ধন্যবাদ ধ্রুবতারা। খুব ভালো লাগলো আপনার মন্তব্য এবং রেটিং দেখে.. নি:সন্দেহে বাজে মুভিগুলো এড়ানো যায় রেটিং অনুযায়ী ..
    আবারো আসবেন। 🙂

  22. ফ্রয়ডের অবচেতনা says:

    ঈদের আগেই শেষ মুভি দেখেছিলাম।”Flipped”

    http://www.imdb.com/title/tt0817177/

    খুব ইন্টারেস্টিং কিছু মনে হয় নাই কিন্তু মেকিং ভালো লেগেছে।

  23. কাউসার রুশো says:

    1. Lemon Tree (Israel) মাছুম ভাইয়ের রিকমেন্ডশন। অনেব ভালো লাগছে
    2. Gentleman’s Agreement (1947) গ্রেগরি পেক অভিনীত অস্কারজয়ী হলিউড মুভি। সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে খুবই শক্তিশালি সংলাপনির্ভর মুভি
    3. All The King’s Man (1949)অরেকটি অস্কারজয়ী হলিউড মুভি। মুভিটির প্রাণ শক্তিশালী সংলাপ এবং কাহিনী বিন্যাস এবং অভিনয়। দেখেই আমাদের দেশের রাজনীতিবিদদের কথা মনে পড়ে গেছে। রাজনীতির নোংরা দিক চমৱকারভাবেই ফুটে উঠেছে। হলিউডেই এর একটা রিমেক আছে। শনপেন অভিনীত।

  24. @বস রুশো, আপ্নি কি বস সিনেমা ছাড়া আর কোন সিনেমা দ্যাখেন না ? ক্যান দ্যাখেন না? ক্যান? ক্যান? ক্যান?

    অট: লাখো ধন্যবাদ, কমেন্টের এই ধারা জারি রাইখেন। 😉

    @ ধন্যবাদ ফ্রয়েডের অবচেতনা। আবারও আসবেন।

  25. muntasir shovon says:

    The Killer(Korian)
    21 grams
    Up In The Air
    The Prestige
    All The King’s Men এর রংগিলা ভার্সন(শন পেন চরম অভিনয় করছে,আমি পুরাই টাশকিত বসের অভিনয় দেইখা)
    Twelve Monkeys(মেজাজ গরম হয়া গেছে এডা দেইখা)।

  26. @ধন্যবাদ মুনতা, কমেন্টের এই ধারা জারি রাইখেন 😉

    Madly Bangali দেখলাম। জীবনমুখী গায়ক অঞ্জন দত্তের পরিচালনা, অসাধারণ সিনেমা। চারটে ছেলে মিলে একটা বাংলা রক ব্যান্ড গড়েছিল একসময়, তাদের সাথে জুটে গিয়েছিল স্যান নামে এক পাগলাটে লোক। সেই ব্যান্ডটাকে একটা প্রতিযোগিতায় পার্ফম করতে নিয়ে গিয়েছিল ….
    জটিল সব গান আছে সিনেমাটায়। রক মিউজিক পছন্দ করেন এমন সবাই সিনেমাটা পছন্দ করবেন এটা বলা যায়।
    রেটিং: ৪/৫

  27. কাউসার রুশো says:

    আমি যেগুলা ভালা পাই মানে সবাই ভালো কয় বা পুরস্কারপ্রাপ্ত বা নমিনেটেড সেগুলো বেশি দেখি। এগুলা ছাড়া দেখি ভাই। তয় কম।
    জীবনতো একটাই। আউল-ফাউল মুভি দেখতে গিয়া পরে ভালো মুভি দেখা শেষ হোয়ার আগেই মইরা যাইতে হবে। বিরাট আফসোসের ব্যাপর হইবো। 🙁

  28. গতকাল দেখলাম Ondine (2009)
    http://www.imdb.com/title/tt1235796/
    সমস্যা করে ফেলছি, মুভিটা টেনে দেখার সময় এর মূল প্যাচটা দেখে ফেলছি, ফলে মজা নষ্ট হয়ে গেছিল। আয়ারল্যান্ডের ব্যাকগ্রাউন্ড মুভিটা খারাপ লাগবে না হয় তো….. একটা ডায়ালগ পছন্দ হইছে..

    “This city is sartorially challenged….. what does that mean?….that means this city is a supermodel’s nightmare”

  29. Kuntal_a says:

    প্রিয় লেখক কেন ফলেটের এপিক ঐতিহাসিক উপন্যাস দ্য পিলার অভ দ্য আর্থ নিয়া ৮ পর্বের এক টিভি মিনি সিরিজ দেখা শুরু করছি। মাত্র ১ম পর্ব শেষ হয়েছে। অসাধারণ মনে হচ্ছে।

  30. ধন্যবাদ কুন্তুল, অনুরোধ রাখার জন্য।
    নতুন অনুরোধ করছি, আবারো আসেবন।

  31. ম্যাডিল বাঙ্গালি দেখলাম। প্রথম বাংলা রক মিউজিক্যাল মুভি
    রেটিং ৪.৫ / ৫

  32. আরও দুইটা কিম কি দুক।
    টাইম – একই ফেস দেখতে দেখতে বয়ফ্রেন্ড ক্লান্ত হয়ে যাবে এই ভয়ে মেয়েটা তার ফেস পরিবর্তন করে ফেললো বয়ফ্রেন্ডকে না জানিয়েই … কিন্তু নতুন কোন মেয়েকে ভালো লাগছে না সেই ছেলের, কারণ পুরানো গার্লফ্রেন্ডকেই তার বেশী করে মনে পড়ছে… ৪/৫
    ড্রিম – একটা ছেলে স্বপ্নে যা দেখে ঠিক একই সময়ে সেই কাজটাই করে একটা মেয়ে… ৪.৫/৫

  33. ইদানীং দেখলাম –

    Inception
    Orphan
    A Crismass carrol
    Agora

    Inception নিয়ে তো অনেক রিভিউ হয়ে গেছে। কারো কাছে দারুণ। কেউ দেখার পূর্বেই অনেক জেনে ফেলায় মুভি দেখে আশাহত। তবে মুভিটি যে একটানে, এক বসায় দেখা যায় এতে সন্দেহ নেই। মেকিং আরো আরো হাই-সাইফাই করতে পারা যেত। তবে মনে হয় মুভিতে স্বপ্ন তত্বেটা বোঝানোর উপরই জোর দিয়েছে বেশী।

    Orphan হরর আবহ মনে হলেও এটা সাইকো থ্রিলার মুভি। টান টান উত্তেজনায় দেখার মত।

    A Crismass carrol , চার্লস ডিকেন্সের অনবদ্য উপন্যাস , তার এর মুভি সংস্করণে জিম ক্যারী থাকায় সোনায় সোহাগা। দারুণ দারুণ এনিমেশনে দারুণ মুভি।

    Agora মুভিটিও বেশ ভাল। ঐতিহাসিক পটভূমির পরিসর আরো বড়। এটার মূল চরিত্র হাইপেশিয়াকে পুরো মাত্রায় তুলে ধরতে পারেনি মুভিটি।

  34. ধন্যবাদ আইরিন সুলতানা। রিকোয়েস্ট রাখার জন্য।
    সামনে নিশ্চয়ই আরও মন্তব্য পাবো আপনার কাছ থেকে, কি বলেন?

  35. সবাক says:

    সম্প্রতি অনেক সিনেমা দেখলাম।

    Solomon Kane
    Ocean 13
    The Town
    Despicable Me (Animation)
    13 Hrs (হরর গররররররর)
    Resident Evil: Afterlife
    Green Zone

    আরো কি কি দেখেছি। কিন্তু নামতো মনে থাকে না। 🙁

  36. আসিফ আল হাই (মুভি পাগলা) says:

    পাপরিকা এবং মিলেনিয়াম একট্রেস দেখলাম । মেঘদূত ভাই ও স্বাধীনতার বার্তার রিকমেন্ডেশন । দুটোই ভাল লেগেছে ।

  37. muntasir shovon says:

    Escape to victory(pele) daklam.joss.rating r ki dimu,amar to 5/5 e dite icca kortase
    Point of No Return daklum(French movie NIKITA er হলিউডি ভার্সর্ন)। মুটামুটি-3/5.

  38. Life In a Metro দেখলাম, ভিন্ন ধরনের স্বাদ আছে হিন্দী এই মুভিতে। জেমস, প্রীতম আর ওই ব্যাটার ব্যান্ডটার আইডিয়া জটিল হৈসে… ৪/৫

  39. GhumRaj says:

    Inception দেখছি গত রাতে।ভাল লাগছে

  40. দ্য বাটারফ্লাই এফেক্ট:
    সাইকোলজিক্যার থ্রিলার, ড্রামা। ২০০৪ সালের সিনেমা। টুইস্টিং, আমাকে কনফিউজ করে দিয়েছে। আ বিউটিফুল মাইন্ড সিনেমার মতোই।
    এই সিনেমায় একটা ডায়লগে বাংলাদেশের কথা বললো।
    ৪/৫

  41. muntasir shovon says:

    clerks
    keeping mum
    12 angry men
    the beautiful teacher in torching hell(korean)

  42. muntasir shovon says:

    রেটিং হইল-


    ৪.২৫
    ১.৫

  43. স্বপ্নের দিন: ভারত, ২০০৪
    কবি বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের আরেকটি তৃপ্তিদায়ক সিনেমা। প্রসেনজিত মূল চরিত্র, গ্রামে গ্রামে ঘুরে প্রজেক্টরে কন্ডম ব্যবহারের সিনেমা দেখানোই তার কাজ। পথে দেখা হয়ে গেল বেগম আমিনা খাতুনের ((রিমি সেন) সাথে। তাকে বর্ডারে পেীছে দিতে গিয়ে ঘটনাপ্রবাহে পরেশ নিজেই বর্ডার পাস করে যায়। আমাদের মোর্শেদুল ইসলামের ‘চাকা’ সিনেমার সাথে দৃশ্যায়নে মিল পাওয়া যায়…রেটিং ৪/৫

    The Illusionist: ইউএসএ, ২০০৬
    নেইল বার্গারের পরিচালনায় এডওয়ার্ড নর্টনের অভিনয়। ম্যাজিক নিয়ে সিনেমা, সময়টা শতকের গোড়ার দিকে। বেশ ভালো লাগলো, তবে দ্য প্রেস্টিজের মতোন নয় 😉
    রেটিং ৪/৫

  44. muntasir shovon says:

    entrapment(জেটা জনস,শন কনারি)-2.5
    p.s. I love you-3.5
    The book of Eli-1.5
    অন্তহীন-৪.৫(দারুণ লাগল। ইন্ডিয়ান বাংলায় এত সুন্দর ছবি হয়!!!!)

  45. The Ghost Writer: ২০১০, ইউএসআ
    রোমান পোলানস্কির আরেকটি ভালো সিনেমা, পলিটিক্যাল ড্রামা। গুড ডেপিকশন, আই লাইক ইট। টনি ব্লেয়ারের দিকে আঙ্গুল তুলে আছে এই সিনেমাটি … ৪.৫/৫

    Valkyrie: ২০০৮, ইউএসআ
    জার্মান সৈন্যদের পক্ষ থেকে দেখানো সিনেমা। হিটলারকে সরিয়ে দেবার চেষ্টা করেছিল জার্মানিরই কিছু সেনা… টম ক্রুজের অভিনয় … ৪/৫

  46. GhumRaj says:

    1.Devil’s Playground-চরম ভুয়া জম্বী মুভি
    2.Devil-চলে।
    3.Zatoichi-বেশি জোশ। Japan এর মুভি।দেইখেন সবাই
    4.Knight and Day- মাসালা মুভি
    ৫।The Sorcerer’s Apprentice-মাসালা মুভি

  47. The Spanish Inn: ২০০২, ফ্রান্স
    জেভিয়ার নামে ফ্রান্সের একটা ছেলে বার্সেলোনায় যায় উচ্চশিক্ষার্থে, সেখানে এমন একটি ফ্ল্যাটে তার জায়গা হয় যেখানে বাসিন্দারা ইংল্যান্ড, স্পেন, জার্মানী, ইটালী এবং ডেনমার্ক থেকে আগত তার মতোই শিক্ষার্থী। একটা ফ্ল্যাটে মিলেমিশে থাকা, নানা রকম ঘটনা নিয়েই সিনেমাটা । কমেডি, ড্রামা ধাচের।
    রেটিং ৩.৫/৫

    Bad Guy, ২০০১, কোরিয়া
    আরও একটা কিম কি দুক। একটা নিষ্পাপ মেয়েকে জোর করে বেশ্যাবৃত্তিতে বাধ্য করে যে ছেলেটি তার প্রতিই একটা অন্যরকম আকর্ষন গড়ে উঠে মেয়েটির, কারণ কি? ছেলেটা তাকে বাধ্য করলেও সে কিন্তু শুরু থেকেই তার প্রতি অনুরক্ত ছিল।
    এটা দেখার পরে কিম কি দুকের থ্রি আয়রনের সাথে তুলনা করে দেখছি, কোনটা বেশী রোমান্টিক।
    রেটিং ৪/৫

    V for vendetta, ২০০৬, ইউএসআ
    বহুল আলোচিত এই সিনেমাটা আবারও দেখলাম। ভালোই লাগলো এবারো। প্রতিশোদপরায়নতা নিয়ে একটি ভালো গল্প।
    রেটিং ৩.৫/৫

  48. GhumRaj says:

    All Good Things (2010)

  49. কাউসার রুশো says:

    Clint Eastwood এর Invictus & Gran Torino দেখলাম।
    দিনকে দিন ডিরেক্টর Eastwood এর প্রতি শ্রদ্ধা বেড়ে যাচ্ছে।
    স্যালুট Clint Eastwood 🙂
    কয়েকটা এন্টারটেইনিং মুভি দেখলাম
    Inception- ভালো লাগছে
    The Sorcerer’s Apprentice- যদিও কিছু কিছু জায়গায় দুর্বল তারপরও মজা পাইছি
    Iron Man 2- ১ নংটাই বেশি ভালো লাগছে।
    The Last Airbinder- বাজে
    Alice in Wonderland- Tim Burton এর মুভিটা বেশ ভালো লাগছে। Fantasy টাইপের এ মুভিটা বার্টনের Charlie & the chocolate factory এর চেয়ে ভালো লাগছে।
    A Christmas Carol- Robert Zemeckis
    এ লোকটার অ্যনিমেশনগুলো ভালো কিন্তু গ্রেট কিছু না।
    Forrest Gump & Cast Away এর মত মুভি যিনি বানাইছেন তার কাছ থেকে এরপর তেমনভাবে আর কোন মুভিই পেলাম না। হতাশাজনক 🙁
    Dear John- রোমান্টিক। ভালা পাই নাই।
    মুভর নায়িকা অ্যামান্ডারে ইদানিং বেশ ভালা পাইতাছি। 😛

  50. Following, ইউকে, ১৯৯৮
    ক্রিস্টোফার নোলানের পরিচালিত প্রথম ফিচার ফিল্ম। সাদা-কালো। লেখক হতে চাওয়া এক ভদ্রলোক তার উপন্যাসের চরিত্র সৃষ্টির জন্য এক চোরের সাথে গাঁট বাধলেন, কিন্তু জড়িয়ে গেলেন ভিন্ন এক ঝামেলায়।
    স্টোরী টেলিংটা মেমেন্টো, প্রেস্টিজের মতোই। ভালো লাগবে। রেটিং ৪/৫

    Angel A, ফ্রান্স, ২০০৫
    লুক বেসোর পরিচালনা, মিথ্যা আর দেনায় জর্জরিত আন্দ্রে যখন মুক্তির জন্য আত্মহত্যা করতে উদ্যত, তখনই এক লম্বু সুন্দরী মেয়ের সাথে পরিচয় এবং সব ঝামেলা থেকে উদ্ধার করে।কে এই সুন্দরী? সে একজন অ্যাঞ্জেল, কাজ শেষে ফিরতে হবে তাকে, কিন্তু আন্দ্রে যে তাকে ভালোবেসে ফেলেছে?
    সাদা-কালো, দারুন ফটোগ্রাফি.. রেটিং ৪/৫

  51. sakibshahriar says:

    আজ দেধলাম মমেনত খুব ভাল বুজলাম না কি হল। ফিনিশিং খুব হথাত করে হয়।

  52. ashim says:

    কিম কি দুক এর নিম্নলিখিত মুভিগুলার ডাউনলোড লিঙ্ক চাই দিতে হবে।
    Breath
    The Coast Guard
    Address Unknown
    Real Fiction
    Birdcage Inn
    Wild Animals
    Crocodile

  53. Frida, ইউএসআ, ২০০২:
    মেক্সিকান স্যুরয়েলিস্ট পেইন্টার ফ্রিদা কাহলোর বায়োগ্রাফিক সিনেমা। ছবির সাথে আছে সমকালীন রাজনীতিও। ফ্রিদা চরিত্রে অভিনয় করেছে সালমা হায়েক।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Duck, You Sucker ইউএসআ, ১৯৭১:
    দ্য গুড, দ্য ব্যাড অ্যান্ড দ্য আগলি খ্যাত সার্জিও লিওনির টাইম ট্রিলজির সেকেন্ড পার্ট হলো এই সিনেমা। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে গঠিত এক ডাকাত দলের নেতা হুয়ান, ঘটনাক্রমে পরিচয় হয়ে যায় জন নামের এক বিপ্লবীর সাথে। জনের ডাইনামাইটকে কাজে লাগাতে চায় হুয়ান, কিন্তু ঘটনাক্রমে সে হয়ে যায় বিপ্লবী। জটিল সিনেমা।
    রেটিং ৪/৫

    Once upon a time in America, ইউএসআ, ১৯৮৪:
    এটাও সার্জিও লিওনির সিনেমা, টাইম ট্রিলজির থার্ড পার্ট। আমেরিকার জুইশদের কিছু কিভাবে আন্ডারওয়ার্ল্ড এ যোগ দেয়, বন্ধুতা আর প্রতারণার কাহিনী নিয়ে এই সিনেমা। ৩ঘন্টা ২৯ মিনিটের এই সিনেমা একটা মাষ্টারপিস, মাস্ট সি।
    রেটিং ৫/৫

  54. Cinderella Man, ইউএসআ, ২০০৫:
    এই সিনেমাটা না দেখার কারণে বেশ কয়েকবার গঞ্জনা শুনতে হয়েছে। এবার দেখা হলো, আসলেই বেশ। রাসেল ক্রো যদিও জেমস জে ব্র্যাডক নামে এক বিখ্যাত হেভিওয়েট বক্সারের ভূমিকায় অভিনয় করেছে, আমি এই সিনেমায় দেখেছি মহামন্দার ভয়াবহ চিত্র আর পরিবারের প্রতি আপত্য স্নেহ, ভালোবাসা। রন হাওয়ার্ড পরিচালিত।
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

  55. Neelpoddo says:

    আজ দেখলাম কোরিয়ান The Housemaid.১৯৬৩ সালের একই নামের ছবির রিমেক এটি।ইম সাং সু হলেন এর ডিরেক্টর।কানাস জয়ী অভিনেত্রী Jeon Do-yeon অভিনয় করেছেন হাউসমেইডের চরিত্রে।ব্রোকেন ওমেন চরিত্রে যিনি এক কথায় অসাধারন।ক্লাস ডিফারেন্স হতে শুরু করে লাভ ট্রায়াংগাল সবই আছে মুভিটিতে।সবাই দেখবেন।আশা করি ভাল লাগবে।

  56. A moment to Remember, সাউথ কোরিয়া, ২০০৪
    এই সিনেমাটা সম্পর্কে এত বার রিকমেন্ড পেয়েছি যে না দেখে থাকা গেল না। অবশ্যই পুরোটাই উসুল হয়েছে। চমতকার একটা রোমান্টিক সিনেমা। মিষ্টি মিষ্টি প্রেম ভালোবাসা শেষ পর্যন্ত কত দিকেই না গড়িয়ে যায়।
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

  57. Neelpodd says:

    A moment to remember দেখেছি আগেই।এরকম মিষ্টী প্রেমকাহিনী কোরিয়ানরা খুব ভাল বানায়। The classic টি দেখুন।ভাল লাগতে পারবে।আসিফ মুভি পাগলার পাল্লায় পরে আমার পিসিও কোরিয়ানে ভরপুর হয়ে গেছে।

  58. ইস্তিয়াক says:

    বান্ড বাজা বারাত নামক এক খানা মুভি দেখলুম………কাজ না থাকলে খই না ভেজে এটা দেখতে পারেন………..২ ঘন্টা কাটানর জন্য সেরম জিনিষ………খারাপ লাগ্লে কলাম আমার দোষ নাইক্কা………

  59. ইস্তিয়াক says:

    50 first date ,my sassy girl দোনোটাই দেখসি…মারাত্তক ভাল লাইগসে………বাংলাদেশ এ অরম ডিরেটর কিম্বা অভিনেতা কিছুই নাই……রমান্টিক সবি এর নামে জা বানায় তা পুরাটাই অখাদ্য

  60. istiaq says:

    127 hours dekhsi…….must see…………………oshomvob rokom er joss……………

  61. Neelpodd says:

    ১২৭ ঘন্টা খুব ভাল লেগেছে।শুধু একজন ক্যারেক্টার এবং একটি নির্দিষ্ট সেট নিয়ে নির্মিত এধরনের মুভি খুব কমই ভাল হয়।কিন্তু এই ছবিটি আমার অসাধারন লেগেছি।এক্টর তার চমৎকার অভিনয় দিয়ে মাতিয়ে রেখিছেন পুরো ছবি।

  62. The Ninth Gate, ইউএসআ, ১৯৯৯
    আইএমডিবির রেটিং ভালো না, মনে হয় থ্রিলার আর হরর এর মিশেল রোমান পোলানস্কির কাছে থেকে কাম্য ছিল না .. এনিওযে বেটার সিনেমা।
    রেটিং: ৩.৫/৫

  63. তিন ইয়ারী কথা, ভারত, ২০০৮
    কোলকাতার সিনেমা। সমস্যায় জর্জরিত এক রুমের বাসিন্দা তিন ধরনের তিন বন্ধু এবং তাদের আশেপাশের পৃথিবী নিয়ে সিনেমাটা। প্রোমাকাঙ্খা, যৌনাকাঙ্খা, হাসি-কান্না আর সুরা – কিভাবে তিন বন্ধুকে বারবার আলাদা করে আবার এক সূত্রে বাধে সে গল্প এখানে। স্বপ্নের দৃশ্যায়নগুলো চমৱকার এখানে।
    রেটিং: ৩/৫

    Sympathy for Mr Vengence,কোরিয়া,২০০২
    ওল্ডবয় খ্যাত পার্ক চ্যান উক এর ভেনজেন্স ট্রিলজির প্রথম পর্ব এটি। বোবা একটি ছেলে তার বোনের চিকিতসার জন্য কিডন্যাপ করে একটি ফুটফুটে সুন্দর মেয়েকে। কিন্তু ঘটনাচক্রে মারা যায় মেয়েটি। বোবা ছেলেটিকে খুজছে মেয়েটির ধনাঢ্য বাবা অন্যদিকে বোবা ছেলেটি একে এক হত্যা করে যাচ্ছে সেই চক্রটিকে যারা তার কাছ থেকে কিডনী কিনে নিয়েছিল এবং সেই সাথে জমানো অর্থও। বেশ ভায়োলন্ট সিনেমা এটি।
    রেটিং: ৪/৫

    Sympathy for Lady Vengeance, কোরিয়া, ২০০৫
    ভেনজেন্স ট্রিলজির থার্ড পর্ব। মাঝের পর্ব ওল্ড বয়। এবার মূল চরিত্র একটি মেয়ে, শিশু হত্যার দায়ে যার ১২ বছরের জেল। কিভাবে সে তার জেলমেটদের সহযোগিতায় আসল হত্যাকারীকে খুজে বের করে এবং তাকে হত্যা করে তারই গল্প। বেশ ভায়োলেন্ট সিনেমা, দৃর্বল চিত্তরা না দেখলেই ভালো্ এবং বেশ মনযোগ সহকারে দেখা উচিত।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The exorcist, ইউএসআ, ১৯৭৩
    এই সিনেমাটা না দেখে হরর সিনেমা দেখাটা বোধহয় এক ধরনের পাপ। ১২ বছরের একটি মেয়ের মধ্যে বাসা গাড়ে শয়তান, তাকে উদ্ধার করার জন্য এগিয়ে আসে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এক ফাদার। বাস্তবেই এমন একটি ঘটনা ঘটেছিল ওয়াশিংটনে, ১৯২৪ সালে। মাস্ট সি ফিল্ম
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Exorcist II: The Heretic (1977), ইউএসআ,১৯৭৭
    এক্সরসিস্ট সিনেমার দ্বিতীয় পর্ব যদিও পরিচালক থেকে শুরু করে সবাই পরিবর্তিত। সেই ছোট্ট মেয়েটি এখন বড় হয়েছে, কিন্তু পিছু ছাড়েনি শয়তানের দল। বিজ্ঞানের অনেক অগ্রগতি হয়েছে যদিও কিন্তু অশরীরী বিষয়গুলোতে এখনও কিছু অজ্ঞতা রয়ে গেছে। সমাধানে ফিরতে হলো সেই বাড়িতে, এবার নতুন একজন ফাদার।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Exorcism of Emily Rose, ইউএসআ, ২০০৫
    হরর এবং কোর্টরুম ড্রামা। এমিলি রোজকে চিকিতসা থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দিয়ে তাকে হত্যা করতে সাহায্য করেছেন ফাদার, তাই তিনি আসামী। তার আইনজীবি এরিন কে সাহায্য করবেন একটাই শর্তে – এমিলি রোজের কাহিনী সবার সামনে বলার সুযোগ দিতে হবে তাকে। তবেই পৃথিবীর মানুষ জানতে পারবে, সব কিছুই বিজ্ঞান দিয়ে ব্যাখ্যা করা যায় না।
    রেটিং: ৪/৫

    Fight Club, ইউএসআ, ১৯৯৯
    ডেভিড ফিঞ্চারের সাইকোলজিক্যাল ড্রামা। সব দিক দিয়ে ভিন্ন এমন দুই বন্ধু সামান্য বিনোদনের জন্য মারামারি শুরু করেছিল, দিনে দিনে সেটাই হয়ে গেল একটা ফাইট ক্লাব, যার সদস্যরা ছড়িয়ে আছে সবজায়গায়, স-ব-খা-নে। কিন্তু যে দুই বন্ধু মিলে শুরু করেছিল, তারা কি আসলেই দুইজন? নাকি এক ব্যক্তিই? ডিস্টার্বিং মুভি, মনযোগ দিয়ে না দেখলে বোঝা কষ্ট।
    রেটিং: ৪/৫

  64. I’m a cyborg but that’s ok, Korea, 2006
    আরেকটা পার্ক চ্যান উক ফিল্ম। অন্যান্য সিনেমাগুলোর মতোই বেশ ডিস্টার্বিং সিনেমা, কিন্তু শেষ করার পর বুঝলাম অন্যতম একটা কমেডি সিনেমা দেখলাম। নায়িকা মানসিক রোগী, নিজেকে সাইবর্গ মনে করে, তার সাথে প্রেম হয় আরেক রোগীর।
    রেটিং: ৪/৫

    The last exorcism, USA, 2010
    এক ডকুমেন্টারী টিম একটা এক্সরসিজম শ্যুট করার জন্য যায়, উদ্দেশ্য – এখানে যে জালিয়াতিটা হয় সেটা ফাস করে দেয়া। কিন্তু ঘটনা মোড় ঘুরে যায় যখন দেখা গেল মেয়েটি সত্যিই অসুস্থ্য এবং প্রেগনেন্ট। তবে কি সে শয়তানের সন্তান গর্ভে ধারণ করছে?
    পুরোটাই ডকুমেন্টারী ট্রিটমেন্টে করা হয়েছে, ফলে আরও বেশী জীবন্ত মনে হয়েছে।
    রেটিং: ৪/৫

    Requiem of a dream, USA, 2000
    ড্যারেন অ্যারোনফস্কির সিনেমা। ড্রাগ অ্যাডিক্ট একটা পরিবার নিয়ে সিনেমা। এত অসাধারণ সিনেমা আমি খুব কমই দেখেছি। মাস্ট মাস্ট সি সিনেমা
    রেটিং: ৫/৫

    নটবর নট আউট, কলকাতা, ২০১০
    কমেডি সিনেমা। মূল আগ্রহ ছিল এর নায়ক, সে নাকি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। বেশ চমতকার হয়েছে সিনেমাটা, তবে সিনেমা না বলে থিয়েটারের সিনেভার্সন বললে ঠিক হয়। এনজয়েবল সিনেমা।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Gunless, Canada, 2010
    দেখার পেছনে মূল আকর্ষন ছিল চমতকার কিছু শট, ঝকঝকে ছবি। পরে বুঝলাম এটা কমেডি সিনেমা, এমন কমেডি না দেখলেও চলে।
    রেটিং: ৩/৫

    There will be blood, USA, 2007
    আরেকটা মাস্ট সি সিনেমা। ‘আই অ্যাম আ অয়েলম্যান’ – কিভাবে এক লোক একাই তেলের ব্যবসা গড়ে তুললো সেটা নিয়ে সিনেমা। চমতকার ফটোগ্রাফি। অস্কারজয়ী সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

    Notting hill, USA, 2009
    চমতকার রোমান্টিক সিনেমা, হিউ গ্রান্ট আর জুলিয়া রবার্টস অভিনীত। সিজন চেঞ্জ এর একটা বেশ আকর্ষনীয় উদাহরন আছে এখানে। স্টুডিও সিনেমা যে কতটা কন্ট্রোলড – সেটা বোঝার জন্য এই সিনেমাটা বেশ পারফেক্ট।
    রেটিং: ৪/৫

  65. ইশতিয়াক তামিম says:

    Daisy [2006] কোরিয়ান
    The Road Home [2000] চীন
    দেখলাম। দুটো মুভিই অসাধারণ।
    The Road Home এ Zhang Yimou এর পরিচালনা সত্যিই প্রশংসনীয়।

  66. নিয়ম ভাঙার কারিগর says:

    এখন True Grit দেখতে বসতেছি।
    দেখে এসে মন্তব্য করে যাব কেমন লাগল।

  67. Trainspotting, Britain, 1996
    স্লামডগ মিলিয়নিয়ার খ্যাত ড্যানি বয়েল এর সিনেমা। বিষয় মাদক। যারা রিকুয়েম অব আ ড্রিম দেখেছেন তাদের জন্য আরেকটি ভালো সিনেমা।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The Notebook, USA, 2004
    রোমান্টিক। সিনেমাটোগ্রাফির জন্য অবশ্যই দেখনীয়। কাহিনী গতানুগতিক।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Devil’s Advocate, USA, 1997
    আল পাচিনো আর কিয়ানু রিভস অভিনীত, টাইলর হ্যাকউড পরিচালিত। দারুন সিনেমা। মাস্ট সি।
    রেটিং: ৫/৫

    12 Angry Man, USA, 1957
    অনবদ্য স্টোরী। লিডারশিপ মুভির অন্যতম এই সিনেমা। সাদাকালো যুগে নির্মিত।
    রেটিং: ৫/৫

    True Grit, USA, 2010
    কোয়েন ব্রাদার্সের আরেকটি সিনেমা। ওয়েস্টার্ন ক্যাটাগরী। ছোট্ট মেয়েটির প্রথম অভিনয়, কিন্তু সাফল্য আশাতীত।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The sea Inside, Spain, 2004
    একজন প্যারালাইসড রোগী সম্মানের সাথে মৃত্যুর আবেদন করছেন, কিন্তু উপেক্ষা করা হচ্ছে সে আবেদন। প্রচন্ড ব্যক্তিত্ব দু-দুজন নারীকে এ অবস্থায়ও তার প্রেমে পড়তে বাধ্য করে।
    মাস্ট সি ফিল্ম।
    রেটিং: ৫/৫

    Kick Ass, USA, 2010
    উড়াধূড়া সিনেমা। দেখে নাইম নষ্ট করা ঠিক হবে না। তবে অ্যাকশন দৃশ্যুগুলো দেখো যেতে পারে। আমিও তাই দেখেসি।
    রেটিং: ২/৫

    Heat, USA, 1995
    রবার্ট ডি নিরো, আলপাচিনো, ভ্যাল কেলমার অভিনীত। দুর্দান্ত সিনেমা। মাস্ট মাস্ট সি সিনেমা।
    ৫/৫

  68. alomelorocks says:

    আজকে একটু আগে দেখলাম French Kiss,অনেক আগের মুভি আজ দেখলাম
    মুভি কতটা ভাল লেগেছে তা ব্যাপার না
    ব্যাপার হল I just love Meg Ryan
    প্রতিদিন রাতে একটা মুভি দেখি, নাম দিয়ে যাবো

  69. অটোগ্রাফ, ভারত, ২০১১
    সত্যাজিতের নায়ক অবলম্বনে শুভব্রত মিত্রের প্রথম পরিচালনা। উঠতি এক যুবক সিনেমা নির্মান করে ইন্ডাস্ট্রির সুপারস্টার তরুণ চ্যাটার্জীকে নিয়ে। নায়িকা পরিচালকেরই লিভিং পার্টনার শ্রনন্দিতা। সিনেমা নির্মান শেষ কিন্তু প্রচার হবে কিসে? তরুণ চ্যাটার্জীর গোপন স্ক্যান্ডালটি হয়ে উঠতে পারে সাফল্যের হাতিয়ার।
    চমৎকার সব গান। ভালো লাগবে। তরুন চ্যাটার্জি চরিত্রে প্রসেনজিত। লিখেছিলাম এ নিয়ে, রাজনৈতিকে প্রকাশিত: http://goo.gl/HJnpv
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Chalo Lets Go, ভারত, ২০০৮
    অঞ্জন দত্তের পরিচালনা। তিন বন্ধু একটা ট্রাভেল এজেন্সি খুলে বসে। সেখানে বারোয়ারি যাত্রী। এক এক জনের এক এক রকম চরিত্র। যাত্রাপথে নানা রকম কাহিনী। মজার সিনেমা।
    রেটিং: ৪/৫

    Gran Torino, ইউএসআ, ২০০৮
    গ্রেট ক্লিন্ট ইস্টউড পরিচালক। একাকী এক বুড়ো যার কাছে দুনিয়ার সব কিছু্ই প্রচন্ড বিরক্তিকর, বিশেষত টিনএজ জেনারেশন, কিভাবে যেন পাশের বাড়ির জাপানীজ একটা ফ্যামেলির ছেলেটা এবং মেয়েটার সাথে খাতির হয়ে গেল। কিন্তু ঝামেলা বেধে গেল উঠতি বয়সের বখাটে ছেলেদের সাথে। ওরাই একদিন রেপ করে পাশের বাড়ির মেয়েটাকে। প্রতিশোধ নিতে উঠে দাড়ায় বুড়ো লোকটা, তার বয়স প্রায় নব্বুই !
    রেটিং: ৪.৫/৫

    থানা থেকে আসছি, ভারত, ২০১০
    ১৯৬৬ তে উত্তম কুমার এর সিনেমার রিমেক। এবার তার জায়গায় সব্যসাচী চক্রবর্তী। ধনাঢ্য এক ব্যবসায়ীর মেয়ের এনগেজমেন্ট অনুষ্ঠানের রাতে কোন এক বস্তিতে আত্মহত্যা করলো একটি মেয়ে, তার কাছে পাওয়া গেল একটি ডায়েরী, সেখানে ধনাঢ্য ব্যবসায়ীর পরিবারের সকলের নামই লেখা। ইন্সপেক্টর তিনকড়ি হালদার এলেন সবাইকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে। বেরোতে লাগলো একটি একটি অজানা কাহিনী। রিমেকে সব্যসাচী সাফল্যের সাথে উতরে গেছেন।
    রেটিং: ৫/৫

    কালপুরুষ, ভারত, ২০০৫
    বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের পরিচালনা। সকল ক্ষেত্রে ব্যর্থ রাহুল বোস জীবনের কোথাও কোন প্রভাব রাখতে পারে না, কিন্তু তার বাচ্চাকাচ্চাদুটোর সাথে তার ভারী ভাব। মাঝে মাঝে সে শৈশবের সেই বাশী শুনতে পায়। স্ত্রী সুপ্রিয়া তার সামনেই পরকীয়া করে আরেকজনের সাথে। সবাইকে ফেলে দুমাস আমেরিকায় কাটিয়ে আছে। অসাধারণ এক কবিতা।
    রেটিং: ৫/৫

    বিবর, ভারত, ২০০৮
    যৌবনে কমুনিস্ট আন্দোলন করা বিরেশ ঘোষ চাকরী করতে এসে দুর্নীতির পরিবেশে হাসফাস করে, রাতে মদ খায়, একটা কলগার্লের সাথে সম্পর্ক। এনআরআই হরলাল ভট্টাচার্যকে ফাসাতে একদিন খুন করে বসে তাকে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত হরলাল আটকা পড়ে না। বড়দের মুভি।
    রেটিং: ৩/৫

    Conviction, ইউএসআ, ২০১০
    অসাধারন এক সিনেমা, বাস্তব ঘটনার উপর নির্মিত। কেনি ওয়াটার্স এর মাথা একেটু গরম, তাই বলে সে খুন করেনি, কিন্তু সাজা হয়ে গেল সারা জীবনের জন্য। বোন অ্যানি বেটি ওয়াটার্স সব রকমের চেষ্টা করলো, টাকার অভাবে একজন ভালো অ্যাটর্নি দিতে পারলো না, তাই নিজেই ল পরা শুরু করলো। ততদিনে আবিস্কার হয়েছে ডিএনএ টেস্ট। জটিল সিনেমা, হিলারী সোয়াংক অভিনয় করছে।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The Truman Show, ইউএসআ, ১৯৯৮
    একটা লোকের পুরো জীবনটাই সিনেমার সেটে, সেখানে বাকী সবগুলো মানুষ একএকটি চরিত্র। আর তাদের কর্মকান্ড দেখছে সারা বিশ্বের মানুষ। দারুন কনসেপ্ট। ব্রিলিয়ান্ট। জিম ক্যারি অভিনীত।
    রেটিং: ৫/৫

    Udaan, ভারত, ২০১০
    বাবা যদি বাবা না হয়ে অফিসের বস হয় তবে কেমন লাগে? চমতকার এই সিনেমাটা কিছুদিন আগে পুরস্কার পেল। দারুন সিনেমা।
    রেটিং: ৪.৫/৫

  70. raj mukit says:

    the silence of the lamb…ekhon valo mone nei k director,but must seee…oshadharon

  71. Shallow Grave, ইউএসআ, ১৯৯৪
    স্লামডগ মিলিওনেয়ার খ্যাত ড্যানি বয়েলের প্রথম দিকের সিনেমা। দুটো ছেলে আর একটা মেয়ে যে বাসাটায় ভাড়া থাকে সেখানে একজন নতুন রুমমেট দরকার। নতুন যে লোকটি উঠল, দুদিন পরে তার মৃতদেহ পাওয়া গেল বিছানায়, আত্মহত্যা। কিন্তু তার ট্রাঙ্কভর্তি টাকা, অনেক টাকা। সেই টাকা আর লোকটার খোজে এল পুলিশ, তার দলের সদস্যরা। সেই টাকার দখল আর ভাগ বাটোয়ারা তিনটে মানুষকে কেমন পাল্টে দিলো। দারুণ সিনেমা। স্বল্প বাজেটে টানটান উত্তেজনা। ড্যানি বয়েলের প্রথম দিকের সিনেমার সাথে বর্তমানের সিনেমা তুলনা করতে বেশ প্রয়োজনীয় সিনেমা। রেটিং: ৪.৫/৫

    No mans land, বসনিয়া, ২০০১
    ঘটনাচক্রে একটি নো ম্যানস ল্যান্ডের ট্রেঞ্চে আটকা পড়ে একজন বসনিয়ান একজন সার্ব যোদ্ধা। ক্ষমতার লড়াই, মিডিয়ার আধিপত্য আর রক্ষাকারীর অক্ষমতার এক অপূর্ব সমন্বয় এই সিনেমায়। অসাধারণ এক গল্প, যুদ্ধবিরোধী দারুন এক সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

    Juno, ইউএসআ, ২০০৭
    বারো বছরের এক মেয়ে সেক্স কি জিনিস সেইটা জানতে চেয়ে সহপাঠির সাথে মিলন এবং অকাল প্রেগন্যান্সি নিয়ে কাহিনী। আমি বুঝি নাই, এইটা কি খুব কমেডি কোন সিনেমা নাকি? এই সিনেমা দেখার সময় মনে হচ্ছিল আমি বোধহয় এই যুগের না, কোন ভাবে প্রস্তরযুগ থেকে চলে আসছি – কারণ এই স্টোরি মেনে নিতে আমার কষ্ট হচ্ছিল।
    রেটিং: ৪/৫

    A walk to remember, ইউএসআ, ২০০২
    এই রোমান্টিক সিনেমাটার নাম এত এত শুনছি যে কান ঝালাপালা। সিনেমাটা দেখতে দেখতে আমি মনে মনে বাংলায় ট্রান্সলেশন করে ফেললাম – এক হুজুরের বোরকা পড়া মেয়ের সাতে হঠাৎ লাফাঙ্গা টাইপের এক ছেলের প্রেম হয়া গেল। হুজুর কোন ভাবেই মেনে নিবে না, কিন্তু একদিন হঠাৎ বোরকা পড়া মেয়েটা তারে গিয়া বুঝাইল – বাবা আমি কি বুঝি না, ডেটিং এ গেলেই কি আমি খারাপ হয়া যাবো? আমরা দর্শকরা কি সাধারণ, তাই না? সিনেমার পরিচালকরা যাই দেখান, তাই দেখি আর আহা উহু করি। ডিসগাস্টিং।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Seventh Seal, বেলজিয়াম, ১৯৫৭
    ইঙ্গমার বার্গম্যানের বিশ্ববিখ্যাত সৃষ্টি। যম যখন দুয়ারে, নাইট তখন তাকে প্রস্তাব দেয় দাবা খেলার জন্য। যদি যমদূত জিতে যায়, তবে নিশ্চিন্তে জান নিয়ে যেতে পারবে, অন্যথায় নয়। শুরু হলো খেলা।
    সাদাকালোয় নির্মিত এই সিনেমাটা তার থিমেটিক বক্তব্যের জন্য বিখ্যাত হয়ে আছে। সিনেমা শিক্ষার্থীদের মাস্ট সি সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

    Laboratory, ভারত, ২০১০
    রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ল্যাবরেটরি গল্প অবলম্বনে নির্মিত সিনেমা। পরিচালক চেষ্টা করেছেন ভালোই, সিনেমার প্রয়োজনে রবীনা টেন্ডনকে দিয়ে ভাঙ্গা বাংলায় কথা বলিয়েছেন সত্য, কিন্তু নজর টানতে পারেন নাই। আমি হতাশ।
    রেটিং: ৩/৫

    Mr Bean’s holiday, ইউএসআ, ২০০৭
    অলটাইম কমেডি সিনেমা। কার্সন ক্লে রচিত, প্রযোজিত, পরিচালিত, অভিনীত সিনেমাটার কথা মনে থাকবে সবসময়। আনন্দ দেয়ার যে উদ্দেশ্য নিয়ে সিনেমাটা নির্মিত, তা শতভাগ অর্জিত হয়েছে।
    রেটিং: ৫/৫

    Ice Age 3, ইউএসআ, ২০১০
    অ্যানিমেশন সিনেমা। এনজয়েবল।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    My Japanese Wife, ভারত, ২০১০
    অপর্না সেনের সর্বশেষ সিনেমা। চিঠির মাধ্যমে জাপানী এক মেয়ের সাথে প্রেম-পরিণয়। অথচ এখন পর্যন্ত মুখ দর্শন হলো না। কঠিন রোগে আক্রান্ত জাপানী বউ, চলে ভারতীয় চিকিৎসা, অথচ শেষ পর্যন্ত মরে গেল জামাইটা। দারুন গল্প। অপর্নার অন্যান্য কাজগুলোর মতোই এখানে লোকেশন এবং সিনেমাটোগ্রাফি দারুন।
    রেটিং: ৫/৫

    Peepli [live], ভারত, ২০১০
    বহুল আলোচিত সিনেমা। দারিদ্রের যাতনা সইতে না পেরে দুই ভাইয়ের একজন আত্মহত্যায় রাজী হয়, কারণ তাহলে সরকার থেকে পাওয়া যাবে ১ লাখ রূপী। লোকাল সাংবাদিকের কান থেকে সেই কথা চলে যায় মুম্বাইয়ের টিভি ইন্ডাস্ট্রিতে। তাদের আগমনে মেলা বসে দরিদ্রের পর্ণকুটিরে, আসে সার্কাস, খাবার বিক্রেতারা। রাজনৈতিক নেতারাও আসে – এ যে তাদের জন্য বিশাল ইস্যূ। দারুন পটভূমি। দারুন সিনেমা
    রেটিং: ৫/৫

    The day of the jackle, ফ্রান্স, ১৯৭৩
    গতমাসে দেখা ১৮ টি সিনেমার মধ্যে সবচে’ পছন্দের সিনেমা। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট চার্লস দ্য গলকে হত্যা করার জন্য নিয়ে আসা হয় এক ভারাটে খুনীকে, নিজেকে সে জ্যাকল বলে পরিচয় দেয়। ধীরে ধীরে অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে প্রেসিডেন্টকে হত্যার জন্য একটু একটু করে এগোয় সে, ওদিকে তাকে ধরার জন্য পুলিশ ছুটিতে থাকা এক ডেপুটি কমিশনারকে ডেকে পাঠায়।
    ফ্রেডারিক ফোরসাইথের গল্প অবলম্বনে নির্মিত সিনেমা। তার এই জ্যাকল চরিত্রটি পরবর্তীতে এক বাস্তব মানুষের সাথে জড়িত হয়ে যায়, একজন ভারাটে খুনী হবার অপরাধে সে এখন জেল খাটছে। থ্রিলারপ্রেমিদের জন্য মাস্ট সি সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

    Grosse Point Blank, ইউএসআ, ১৯৯৭
    দ্য ডে অব দ্যা জ্যাকল দেখার পরে ‘হিটম্যান’ সিনেমা দেখার আগ্রহ জন্মায়। এই সিনেমাটার হিরো অনেকের সেরা হিটম্যানের তালিকায় রয়েছে, তাই দেখা হলো সিনেমাটা। এটা যতটা না অ্যাকশন সিনেমা তারচে বেশী কমেডি আর রোমান্টিক সিনেমা। খুব একটা ভালো লাগে নি, দেখার মতো নয়।
    রেটিং: ৩/৫

    The Killer, হংকং, ১৯৮৯
    মিশন ইম্পসিবল খ্যাত জন উ’র সিনেমা। এটিও একটি হিটম্যান সিনেমা। পেছনে পুলিশ অফিসার, সামনে একদল মাফিয়া। এই টাইপের কাহিনী নিয়ে বোধহয় বাংলাদেশেও সিনেমা হয়েছে। জন উ’র পরিচালনায় এটা আরও উপভোগ্য হয়েছে এই যা। না দেখলেও চলে।
    রেটিং: ৩/৫

    Tokhon 23, ভারত, ২০১০
    সিনেমা নিয়ে লেখার সুবাদে মাঝে মধ্যে রিকোয়েস্ট পাই কোন নির্দিষ্ট সিনেমা নিয়ে লেখার জন্য। ‘তখন তেইশ’ সেই অনুরোধে দেখা। শৈশব থেকে শুরু করে এক পুরুষের জীবনে নারীর উপস্থিতি বিভিন্নরকম উপস্থাপন এই সিনেমায়। পাওলী দাম অভিনীত, আর আছে ইন্দ্রানী হালদার। সাইকোলজিক্যাল সিনেমার দিকে ভারতের এক ধাপ।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The Proposition, অস্ট্রেলিয়া, ২০০৭
    চার ভাইয়ের সম্মিলিথ গ্যাং, পুলিশের কাছে ধরা পড়লো দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ভাই। তৃতীয়জনকে ছেড়ে দেয়া হলো এই শর্তে আগামী ক্রিস্টমাসের আগে বড়ভাইকে নিয়ে ফিরতে হবে, তাহলে ছেড়ে দেয়া হবে তৃতীয়ভাইটিকে, অন্যথায় ফাসিতে ঝুলবে। পুরোটাই ভিন্ন ধরনের ওয়েস্টার্ন সিনেমা।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The Sting, ইউএসআ, ১৯৭৩
    গ্রুপ জালিয়াতি কি জিনিস সেটা বুঝতে হলে এই সিনেমাটা অবশ্যই দেখতে হবে। নেতা পল নিউম্যান কিভাবে মন্দার সময় কতটা প্রফেশনালভাবে ঠকাতে পারে তার জন্য এই সিনেমার তুলনা নেই। রবার্ট রেডফোর্ট আছেন নিউম্যানের সাথে।
    রেটিং: ৫/৫

    August Rush, ইউএসআ, ২০০৭
    মিউজিক নিয়ে এই সিনেমাটার কথা এতবার শুনেছি, তার ইয়ত্তা নেই। হয়তো এ কারণেই কিনা জানি, আমি প্রচন্ড হতাশ সিনেমাটা দেখে। কাহিনীটাই অবাস্তব, তবে মিউজিক আর গিটার বাজানোর নতুন পদ্ধতি জানতে এই সিনেমা দেখতে হবে। প্রত্যেকের কাছে জীবন সংক্রান্ত ধারনাটাও বোঝা চাই।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    It’s a wonderful Lifeইউএসআ, ১৯৪৫
    এটাও বন্ধুর অনুরোধে দেখা। ফ্রাঙ্ক কাপরার শেষ সময়ের ফ্লপ কিন্তু অন্যতম সেরা ক্ল্যাসিক সিনেমা। সমাজে ভালো মানুষরা কিভাবে গুরুত্বপূর্ন তার একটা সুন্দর উদাহরণ এই সিনেমা। দেখার পর আমার উপলব্ধি: সমাজে ভালো মানুষরা হলো মেয়েদের চুলের কাটার মতো, যাদের অবর্তমানে সবাই অবাধ্য আর উশৃংখল হয়ে যায়।
    রেটিং: ৫/৫

  72. sumon says:

    ami ai post ti prothome lokkho korini,akhon dekhe khub valo lagche,apnak e dhonnobad j pathokder o likhar sujog kore dewar jonno ami aikhane notun so sob kichui valo lagche.apnar kache akta prosno apni indian films i mean hindi films niye somvoboto kom likhen,ami chai indian parallal abong commercial both types of chobi niye apni likhun,accha arekta prosno ami ki akhane amar dekha chobi niye review likhte pari?

    • ধন্যবাদ সুমন। খুব ভালো লাগলো আপনার মন্তব্য পড়ে।
      ভারতীয় সিনেমা বিশেষত: বলিউডের সিনেমার প্রতি আমার সামান্য অ্যালার্জী আছে – এত আবেগঘন আর সব কিছু একটু ‘বেশী বেশী’ দেখতে ভালো লাগে না, তাই দেখা হয় না। তবে – অলটারনেটিভ ফিল্মগুলো দেখি – যেমন পিপলি লাইভ দেখলাম, উড়ান দেখলাম। যেহেতু দেখা হয় না, তাই লেখাও হয় না। লিখতে পারলে সত্যিই ভালো হতো, কিন্তু দেখার আগ্রহই যে পাই না 🙁
      সম্ভবত আপনিই প্রথম যিনি এই সাইটে কিছু লেখার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন – এবং দু:খিত যে আমি এখন পর্যন্ত এই সাইটে পাঠকদের লেখার জন্য আলাদা কোন পেইজ তৈরী করিনি। তবে আপনার মন্তব্য আমাকে এ ব্যাপারে উৎসাহিত করছে – হয়তো এ সপ্তাহের মধ্যেই ‘পাঠকদের জন্য’ একটা আলাদা পেইজ খোলা যাবে যেখানে আপনি এবং আপনার মতো আরও উৎসাহি ব্যাক্তিরা তাদের লেখা শেয়ার করতে পারবে। তবে আপাতত, ‘সম্প্রতি কি সিনেমা দেখলাম’ – পোস্টে মন্তব্য আকারে আপনার রিভিউ প্রকাশ করতে পারেন, যেমনটি এর আগে কয়েকজন পাঠক করে গিয়েছেন। 🙂
      আশা করছি – লেখক পাঠকে মিলে একটা সুন্দর সম্পর্ক তৈরী হয়ে যাবে খুব শীঘ্রই। ভালো থাকবেন সুমন 🙂

  73. ishtiak zico says:

    x men-1st class dekhlam……ei type er mv kokhonoi kharap laage na…r aita mone hoy ai series er best
    midnight sun (korean) dekhlam…….deikha kadlam…..
    sad movie (korean) dekhlam…..abaro kadlam……protidin raat e korean mv deikha mon kharap koira ghumaite jai r chinta kori aitai ses…..r jiboneo na…..nxt abar ekta dekhi…eki chinta koira ghum dei
    Fallen : mv ta besh bhalo lagse….denzel washington ekai jomaya dise
    Cholo paltai (tollywood)…..abar kandon disi…..seiram mv
    notobor not out…(tollywood) raima sen re dekhlei baki sob painsha laage\
    doshor (tollywood)…..valo mv
    Games of throne (tv series)………purai jotil…..1 taane dekhar moto
    battle royale (Japan) ….last e mathe aulaya gese…..
    tell no one (france)…..awsome
    let the right one in (swedish)…..best of d best
    mindhunter..physco mv…bhaloi
    i saw d devil (korean)..bhalo thriller…..kopa samsu
    the man from no where (korean)..aidao bhala mv
    elephant white…..last 2 years e dekha sobchey kharap mv…..bhalo mv j asole kototuku bhalo seita bujhte eirokom baaje mv sobar e dekha uchit

    • জিকো ভাইকে স্বাগতম 🙂
      আপনার মুভি দেখার লিস্ট দেখে নিজেরই লজ্জা লাগতেসে … বিভিন্ন দেশের ভালো সিনেমাগুলো।
      এখন কি করছে বস? নিজের ডিরেকশন কবে?

  74. ishtiak zico says:

    bhai….ami nitantoi opodartho manush……purai bekar…..khb nogonno cgpa nia pass kora civil engg…chakri pawar kono chance e nai..tai mv dekhi…..prem koira dhora khawar por gf ke vulte mv dekha suru korsilam…..ekhn mv er jnno duniar sob meye ei bhuila gesi…tobe ami shudu viewer…r kono kisu korar joggota nai….r amar nijer collection o kharap na….j gula liksi sob e amar kase ache….karo lagle awaz diyen….r amar o review likhte iccha kore….but bangla type pari na..tai apnar review pori onekdin dhoirai..aijka sahos koira ekkhan coment o dia dilam..ei r ki

    • বস আপনি কিন্তু দারুন বললেন, এইটাই কয়জন পারে? 🙂
      বাংলা লেখা পারেন না এই কথা কিন্তু এখন একদম মানায় না। অভ্র কিবোর্ড ডাউনলোড করে নিলে কোন সমস্যাই হবে না। আপনি এখানে ইংরেজী টাইপে যা লিখলেন, অভ্রে ঠিক সেভাবেই (কিছু এদিক ওদিক হবে, সে্ইটা ব্যাপার না) লিখলে বাংলায় হয়ে যায় – এইটারে বলে ফোনেটিক। ট্রাই করে দেখেন।
      বাংলায় লেখা শুরু হয়ে গেলে রিভিউ লেখাও শুরু হয়ে যাবে অটোম্যাটিক্যালী… অপেক্ষায় থাকলাম 🙂
      সাজেস্টেড মুভিটা দেখি নাই, এনিমেশন একটু কমই দেখা হয়। এটা দেখার চেষ্টা থাকবে 🙂

  75. ishtiak zico says:

    o bhai….apnare ekta animated mv recommend kori…..5 centemetres per second…..aita dekhen…..eitar praise korar vhasa amar nai

  76. ishtiak zico says:

    Mongol dekhlam…(russian mv) chengish khan er chengish khan hoye uthar mv……valo mv……heavy sob dialogue ache

    The great reid: war mv……eigula generally bhjaloi hoy…..r eita based on a true story…..kharap howar chance r o kom

    Hall pass: owen wilson er comedy……dekhle somoy ta bhaloi kaita jaabe

    The bank job: amar mone hoy eita statham er one of d best mv….kin2 manus eita dekhe na…..ajaira action biborjito…..typical statham sulov na…..based on true story

    Kisses: Irish masterpiece

    Leap year: halka kahinir romantic comedy…..kin2 ken jani mv ta dekhle khb bhalo laage…location o chomotkar

    Delli belly: (bollywood)……mv ta chorom lagse……edaning to biroktir karone hindi mv dekhai hoy na……but eitate ektu o birokto hoi nai…….borong mone hoise mv ta r o boro hoile moja paijam

    • এক ব্যাংক জব ছাড়া আর কোন মুভিই দেখা হয় নাই 🙁
      আপনারে হিংসা হৈতেসে।

      কোন মুভিটা দেখবেন সেটা ঠিক করেন কিভাবে?

  77. Kawser Rhuso says:

    Korean:
    The Isle
    3 Iron
    Samaratian Girl
    The Vengeance Trilogy (Old Boy, Lady Vengeance, Sympathy for Mr. Vengeance)
    My Sassy Girl

    English:
    A Clockwork Orange
    The Boy in the Striped Payjama
    Paper Moon

    French:
    Au Revoir, Les Enfants (Goodbye, Children) (1987)

    Animation:
    Spirited Away
    Grave of the Fireflies

    Swedish:
    The Millenium Trilogy

    • কোরিয়ান সবগুলোই দেখছি। 🙂 🙂
      মিলেনিয়াম ট্রিলজি আর গ্রেভ অব দ্য ফায়ারফ্লাইস 🙂
      বাকীগুলো দেখি নাই 🙁

  78. ishtiak zico says:

    asole non eng mv max bhalo gulai site gulate upload kore…ajaira mv kom kore…..tai dhora khawar chance kom…….r kichu mv khor polapan ache……die hard mv khor ek boro bhai er fb te ekta close grp o ase……seikhane onek bhalo kisur naam jansi…..r er faake to onek baaje mv o deksi…..seigular kotha to likhi na……shudu motamuti bhalo gular naam dei………….r sobar moto imdb o to ektu idea dey

    1)Confession (korean)…………..bhalo twist ache

    2) Cool hand luke (80’s er mv)…..bhalo mv…prison brk niya

    3)Khela (tollywood)………..khb valo lagse mv ta

    4) R o ekti prem er golpo…….ami ei mv ta dekhi nai…kin2 ami dekhte chai…..paitesi na….sob dokan khuja ses…..ekhn kew jodi namaya dito

    5) Kanchivarma (Tamil)………..orao j bhalo kisu banaite paare dharona chilo na………..chomotkar mv

    6) Boys (telegu) ……eita kono masterpiece na……kin2 mv ta dekhle besh bhalo lagar kotha…..amar mv ta prottashar cheye onek besi bhalo lagsilo….tobe onek aage deksi…r o ekbar dekhte monchay

    • একমাত্র কুল হ্যান্ড লিউক দেখছি, লিখেছিলাম এই নিয়ে: http://goo.gl/pSfcr

      ফেসবুকে আমিও একটা গ্রুপের মেম্বার, ক্লোজ গ্রুপ, নাম সিনেমাখোর। প্রচুর মুভি নিয়ে আলোচনা হয়, কিন্তু যত নাম পাই তত দেখার সুযোগ পাই না, সময়ও না। তাছাড়া, বিরতি ছাড়া সিনেমা দেখা আমার সয় না 🙁
      আপনার গ্রুপের নাম কি?

  79. sumon says:

    amar priyo film makerder moddhe akjon rituporno ghosh …gotokal dekhlam tar”noukadubi”….oshadharon cinema……r rabindranath tini to sobsomoy mathar upore……age uponnasta pora hoyni…oshadharon golpo….

  80. সম্প্রতি দখলাম, দ্যা এডজাস্টমেন্ট ব্যুরো। ভালই লাগল। ম্যাট ডেমনকে একটু মোটা মোটা লাগল। এরকম আরেকটি ছবির নাম ‘ডার্ক সিটি’। রেটিং- ৩.৫/৫

  81. কাউসার রুশো says:

    1. Once Upon a time in the west- sergio leon er arekta western classic
    2. Memento- nolan saheber chobi..ghazni j movie ta thke nokol..jodio ghazni o amr kace khrp lage nai
    3. Pi- darren arronofosky er 1st cinema..psychological…ekjn mathematician k niye
    4. Requiem for a dream- darren arronofosky..drug addiction niye..must see masterpiece
    5. The Fountain-darren arronofosky..arekta psychological movie
    6. The Wrestler-darren arronofosky..valoi lagce..tobe etai sobcheye weak work darren arronofosky er

    • Once Upon a time in the west – লা জওয়াব সিনেমা। এই সিনেমাটা তার ‘টাইম’ ট্রিলজির প্রথম পর্ব। দ্বিতীয়টা হলো – Duck, you sucker!, তৃতীয়টা হলো Once upon a TIme in America . রবার্ট ডি নিরো আছে এইটায়, দারুন মাস্টারপিস একটা সিনেমা। পারলে দেখবেন।
      মেমেন্টো দেখছি, এত ভালো লাগছে যে গজিনি দেখার আগ্রহই পাই নাই।
      ড্যারেন অ্যারোনোফস্কির একটাই দেখলাম, রিকুয়েমে অব আ ড্রিম। 🙂

  82. কাউসার রুশো says:

    হুম ‘টাইম’ ট্রিলজি সম্পর্কে শুনেছি। ঐ দুটো এখনো আমার কাছে নাই। তবে দেখে ফেলবো শীর্ঘ্যই 🙂

  83. জীবন says:

    আপনি তো মহা উপকার করলেন । সামুতে আপনার পোস্ট গুলো খউব ভালো লাগতো । এখন আপনার নিজস্ব ব্লগ! কোরিয়ান মুভির (রোমান্টিক) মুভির ভক্ত হয়ে যাচ্ছি । সময়ের অভাবে পারি না । তারপরও প্রতি সপ্তাহে অন্তত একটা কোরিয়ান মুভি দেখার আশা রাখি । কি আছে জীবনে , বাচুম বা আর ক’দিন ।

    নিরন্তর শুভকামনা আপনার জন্য ।

    • কি আছে জীবনে 😉 🙂 🙂
      আপনার জন্যও শুভকামনা, আসবেন মাঝে মধ্যে 🙂

      • জীবন says:

        প্রতিদিন একবার আসবোই ।

        অ.ট. : টেকটিউনস্ ব্লগ কি বন্ধ হয়ে গেল? কিছু কইতে পারেন?

        • বস, প্রতিদিন আসার মতো তেমন কিছু এখনো নাই, অবশ্য গেস্ট রাইটাররা যদি লেখা শুরু করেন, এবং নিয়মিত কমেন্টান, তবে সেই সুযোগ তৈরী হয়ে যাবে অবশ্যই 🙂

          টেকটিউনস নিয়া কোন আপডেটই জানা যাচ্ছে না, তারাও কোন রিপ্লাই দিচ্ছে না 🙁

  84. SHAJID says:

    দারাশিকো ভাই কোরিয়ান মুভির ডিভিডি কোথায় পাওয়া যাবে ।নির্দিষ্ট কোন দোকান এর নাম দিন ..

    • ভাইরে, এই জায়গায় তো মাফ করতে হবে। আমি ডাউনলোড ছাড়া সিনেমা দেখি না বললেই চলে। নির্দিষ্ট দোকানের নাম বলতে পারবো না, তবে রাইফেলস স্কোয়ার ডিভিডির কালেকশনের জন্য ভালো জায়গা – এটুকু বলতে পারি।
      সহযোগিতা করতে পারলাম না, তারপরও আইসেন মঝে মধ্যে 🙂

      • SHAJID says:

        ASBO TO OBOSSOI…….
        AMI OBOSSO 2I DIN POR POR ASAR CHESTA KORI……
        ACCA APNI NET ER KON LINE USE KOREN…AKTU JANABEN……VAI AAPNAR FACEBOOK USER NAME KI DAOWA JABE…IF YOU DON’T MIND

        • স্যরি বস, উত্তর দিতে এট্টু দেরী হয়া গেল 🙂
          নেট লাইন যেটা ইউজ করি সেইটা কোন পরিচিত লাইন না, একটা প্রাইভেট ওয়াই-ফাই থেকে ব্রাউজ করি। ফেসবুক ইউজার আইডি কেন দেয়া যাবে না? নাজমুল হাসান দারাশিকো নামে পাবেন, ইমেইল – দারাশিকো অ্যাট জিমেইল 🙂

  85. ishtiak zico says:

    dus experiment…(german)….eitar english remake ase…the experiment..adrian brody r forest whitaker…oita dekhlei cholbe
    autograph (indian bangla)….
    in the land of women ……meg ryan r kirsten dirnst….valo mv
    stepmom….julia roberts……chomotkar mv
    addicted to love…..meg ryan…..bhaloi l;agse..comedy mv
    swat 2………..joghonno mv
    audition (korean mv)….
    city of men (brazilian)………..masterpiece

    • এক অটোগ্রাফ ছাড়া আর কোনটা কমন পড়লো না 🙁
      আছেন কেমন?

      • SHAJID says:

        এক অটোগ্রাফ ছাড়া আর কোনটা কমন পড়লো না 🙁
        হাহাহাহাহাহাহাহাহাহাহাহা……………………….আমার ও :(:(

  86. JFK (1991)
    ডিরেক্টর’স কাট ভার্সনে মোট ৩ ঘন্টা ২১ মিনিট।অথচ আমার সময় লেগেছে প্রায় ৭ ঘন্টা-কারণ ভালো করে সিনেমাটা বুঝতে চেয়েছি।
    ইতিহাস স্বীকৃত, জন এফ কেনেডিকে হত্যা করেছে লি অসওয়াল্ড নামের এক লোক-তিনটে বুলেট খরচ করে।ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি জিম গ্যারিসন তার বাহিনী নিয়ে পেছনের সত্যিটা উদ্ধারে নামলেন। সত্যিটা কি? তিনটে নয়, সাতটি বুলেট, একজন নয়, অন্তত: তিনজন হিটম্যান, কোন মাফিয়া বা বিদেশী রাষ্ট্র নয়, খোদ আমেরিকাই হত্যা পরিকল্পনাকারী।
    রেটিং: ৫/৫

    The Untouchables (1987)
    ১৯৩০-এ আমেরিকায় যখন মদ নিষিদ্ধ, আল-কাপোন তখন গ্যাংস্টার লিডার। ফেডারেল এজেন্ট এলিয়ট নেস আরও তিনজনকে নিয়ে একটি দল বানালো প্রায় দুর্ভেদ্য কাপোনকে ধরতে। তারা আনটাচেবলস।
    ব্রায়ান ডি পালমা’র স্কারফেস আর মিশন ইম্পসিবল ভালো লেগেছিল -এই সিনেমাটা বাকী দুটোকে ছাড়িয়ে গেল। সত্যি কথা হলো আল কাপোন চরিত্রে শুধু নয়, যে কোন গ্যাংস্টার চরিত্রে রবার্ট ডি নিরো ইজ রিয়েলি আনটাচেবল।
    রেটিং: ৫/৫

    Kaalbela – Calcutta My Love (2009)
    দুরুদুরু বুকে আমি ‘কালবেলা’ দেখতে বসেছি-জানি, সেই কৈশোর থেকে বুকে পুষে রাখা জীবনের একমাত্র আরাধ্য নারী ‘মাধবীলতা’ ভেঙ্গে যাবে আর একটু পরেই, তারপরও না দেখে পারি না।
    কৈশোরের মাধবীলতার বয়স হয়েছে, যৌবনের মাধবীলতারূপী পাওলী দামের সামনে সেই ঔজ্জ্বল্য নিয়ে দাড়াতে তার কষ্ট হয়, তারপরও আমি কৈশোরের মাধবীলতাকেই আরাধ্য মানি – এখনো।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    In Bruges (২০০৮)
    দুজন হিটম্যানকে ব্রুজেস নামের এক শহরে আত্মগোপনে পাঠানো হয়, কারণ নতুন হিটম্যানটি একটি মিশনে একটি ছোট্ট ছেলেকে ভুলক্রমে হত্যা করে। তার সাথীটিই তাকে হত্যা করা দায়িত্ব পায়। ভুলের শাস্তি তাকে পেতেই হবে।
    পুরা সিনেমাটা ‘ফাক’ শব্দে পরিপূর্ণ। মোট ১২৬ বার, গড়ে ১.৮ মিনিটে একবার করে। ব্ল্যাক কমেডি। সিনেমার ডায়লগগুলো দারুন। ব্ল্যাক কমেডি যেমন হয়, একটু পাগলাটে, অভ্যাস না থাকলে এর মর্ম বোঝা কঠিন বৈকি।
    রেটিঙ: ৪/৫

    The Silence of the Lambs (১৯৯১)
    বিখ্যাত উপন্যাসের বিখ্যাত চরিত্র ড: হ্যানিবল। একজন উচু মানের সাইক্রিয়াটিস্ট কিন্তু সিরিয়াল কিলার, তার সাথে কথা বলে আরেকজন সিরিয়াল কিলারকে খুজে বের করার দায়িত্ব পড়ে ক্ল্যারিস স্টার্লিঙ নামের শিক্ষানবীশি এফবিআই এজেন্টের উপর। অসাধারন এক থ্রিলার, হ্যানিবল চরিত্রে অ্যান্থনি হপকিন্সের অভিনয় ভয় লাগিয়ে দেয়।
    এই হ্যানিবল চরিত্রটিকে নিয়ে এ পর্যন্ত বেশ কটি সিনেমা হয়েছে – প্রথমে মাইকেল মান বানিয়েছেন ‘ম্যানহান্টার’ নামে – ১৯৮৬ সালে।১৯৯১ সালে জোনাথন ড্যম অ্যান্থনি হপকিন্সকে নিয়ে বানান এই সিনেমাটি, ২০০১ সালে নির্মিত হয় ‘হানিবল’ নামের সিনেমা, ২০০৬ সালে ড: হ্যানিবল রাইজিঙ সিনেমাটি।
    বাকীগুলোর কোনটাই দেখিনি, তবে এটা বেশ লেগেছে। জুডি ফস্টার অভিনয় করেছেন ক্ল্যারিস চরিত্রে।
    রেটিঙ: ৫/৫

    The Black Dahlia (২০০৬)
    ব্রায়ান ডি পালমার সিনেমা দেখার একটু আগ্রহ হয়েছিল, তাই এই সিনেমাটা দেখা। খুব একটা শান্তি পাইনি দেখে। বাস্তব ঘটনার উপর ভিত্তি করে নির্মিত এই সিনেমাটা। এলিজাবেথ শর্ট নামের এক মেয়ের বেশ কয়েক খন্ডের লাশ পা্ওয়া যায়, তদন্তে নামেন দুজন এলএপিডি অফিসার।
    সিনেমাটোগ্রাফির জন্য সিনেমাটা ভালো, ফিল্ম নয়ার বলা হয় এই ধরনের সিনেমাকে।
    রেটিঙ: ৪/৫

    Children of Men (2006)
    সাই-ফাই সিনেমা কম দেখা হয়। ২০২৭ সালের পটভূমির এই সিনেমায় পৃথিবীর শোচনীয় অবস্থা। মানুষের জন্ম দেয়ার ক্ষমতা নেই। সারা পৃথিবী জুড়ে দুরাবস্থা, নৈরাজ্য। কি নামের আফ্রিকান মেয়েটি প্রেগন্যান্ট, তাকে পৌছে দিতে হবে শেষ সভ্য রাষ্ট্র ব্রিটেনে, দায়িত্ব থিও ফারোনের উপর।
    সুন্দর কনসেপ্ট। দু’টি বেশ লম্বা টেক আছে সিনেমাটিতে। আলফনসো কারন এর পরিচালনা, ক্লাইভ ওয়েন অভিনয় করেছে।
    রেটিঙ: ৪/৫

    Daisy (2006)
    দক্ষিন কোরিয়ার রোমান্টিক-অ্যাকশন সিনেমা। একই মেয়ের প্রেমে পড়ে দুইজন ভিন্ন চরিত্রের মানুষ – একজন ছদ্মবেশী পুলিশ অফিসার অন্যজন পেশাদার খুনি। ঘটনাচক্রে মেয়েটি বোবা হয়ে যায়, এগিয়ে আসে খুনি ব্যক্তিটি। এদিকে বেশ কিছুদিন পরে ফিরে আসে প্রেমিক পুলিশটি, তার দায়িত্ব খুনিকে ধরার। সুন্দর সিনেমা, রোমান্সটুকু হৃদয়ছোয়া।
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

  87. ishtiak zico says:

    black dahlia dekhi nai…baki gula deksi…..daisy amar khb fav ekta mv……asi bhai motamuti…kete jacche…rokto porche na type…..2 din dhoira war mv dektasi
    letters from iwo zima (japan)…..ei mv ta onekei dekse..r jara dekhe nai tader jnno must see mv

    downfall….second world war er mv….valo mv

    the beast of war

    the best fortress (belarus)…oder mv nia age kono idea chilo na….bhalo dharona hoise

    • ডাউনফল দেখছি, কিন্তু বাকীগুলা না 🙁
      আইয়ো জিমা নামায়া রাখছি দেখা হয় নাই এখনো, দেখে ফেলবো

  88. গত তিনদিনে যা দেখলাম:
    ইতি মৃনালিনী।মোটামুটি চলে। কংকনা সেন শর্মার অভিনয় ভালো লেগেছে।
    রাইজ অব দ্যা এপস। অসাধারণ কাজ।
    ব্যাটম্যান বিগিনস। ব্যাটম্যান এন্ড রবিন দেখার ক্ষতি পুষিয়ে গেছে। নোলান । আহা।

  89. জীবন says:

    গত পক্ষে (১৫দিনে) ছয়টা মুভি দেখছি
    ১। কালবেলা (ইউটিউব থেকে) উপন্যাস টা পড়া হয় নাই তাই মুভিটা অনেক ভালো লাগছে ।
    ২ । লিটল ম্যানহাটন (নামানো ছিল) এই মুভিটা আমার মুভি দেখার স্বাদটা অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে ।
    ৩। A Moment to Remember ( কোরিয়ান) তারা এ রকম গল্প যে কোথায় পায় । অসাধারণ গল্পের দারুন একটা মুভি ।
    ৪। My Little Bride এটাও কোরিয়ান । মুভিটা অনেক ভালো । নাইকাডা ও 🙂
    ৫ । 3-Iron ( কোরিয়ান) কাহিনীটা এত্য ভাল্লাগছে যে কি বলবো! অমায়িক সুন্দর একটা মুভি ।
    ৬। Aao Wish Karein (হিন্দী) আমার প্রিয় নায়ক আফতাবের অন্যরকম গল্পের একটা মুভি।

  90. ১,৩,৫ দেখা। বাকিগুলো দেখি নাই। লিটল ম্যানহাটন সম্পর্কে লাস্ট দু মাসে অন্তত ছ’বার প্রশঙসা শুনলাম, কিন্তু কেন জানি দেখার আগ্রহ হচ্ছে না।
    থ্রি আইরন আসলেই অসাধারণ সিনেমা। কিম কি দুকই অসাধারণ। বাকী সিনেমাগুলো্ও দেখে নিবেন, ঠকবেন না। কিম কি দুক কে নিয়ে আমার একটা বিস্তারিত পোস্ট আছে, দেখতে পারেন
    ইদ মোবারক

    • জীবন says:

      থেঙ্কু বস্ । অবশ্যই দেখব । সময় বের করা কঠিন । তার পরও কোরিয়ান মুভির ভক্ত অলরেডি হয়ে গেছি তো । আপনাকেও ঈদের শুভেচ্ছা 🙂

  91. Kawser Rhuso says:

    Roman Polanski er The Apartment Trilogy deklam
    (Repulsin, Rosemary’s Baby, The Tenant)
    joshhhh!!!
    Repulsion is too good

    • ট্রিলজি যে সেটা জানা ছিল না, তাই রোজমেরির বাবুকে আগেই দেখে ফেলেছি। রিপালসিন এর কথায় গুরুত্ব দিতেই হচ্ছে 🙂

  92. Afrna says:

    সম্প্রতি অনেক সিনেমা দেখা হয়ে গেছে! বেকারের movie fight!!! যা যা দেখলাম গত এক মাসেঃ
    Kick ass, Malena, Once, One flew over cuckoo’s nest, Pirate radio, The time traveler’s wife, Water for elephants, It’s a wonderful life, A beautiful mind, Roman holiday. The notebook. The fall, The illusionist, Love me if you dare, when harry met sally.

    Animated:
    grave of the fireflies, howl’s moving castle, mary and max, ponyo, spirited away.

    • সিনেমা দেখার সময় অনেক বাছবিচার করি, যেমনটি মাছ খাওয়ার সময়, তাই অনেক সিনেমা হাতের কাছে পেয়েও দেখা হয় না। কিকঅ্যাস দেখেছিলাম পিচ্চিমেয়েটার অ্যাকশন দেখার জন্য, অ্যাকশনটাই দেখেছি-সিনেমা নয়। অনেকগুলো সিনেমাই দেখা হয় নাই – ওয়ান্স, পাইরেট রেডিও, টাইম ট্রাভেলারস ওয়াইফ (হাতের কাছে পেয়েও আগ্রহ হয় নাই), ওয়াটার ফর ইলিফ্যান্টস, লাভ মি ইফ ইউ ডেয়ার।

      এ মাসে দেখা সিনেমার লিস্টি আসছে শীঘ্রই – খুব বেশী দেখতে পারি নি, গোটা তেরো হবে 🙂

      ধন্যবাদ ঠিক মনে রেখে কমেন্ট করে যাওয়ার জন্য – আবারও আসবেন 🙂

  93. Afrna says:

    দেখার অপেক্ষায়ঃ sybil, never let me go, no country for old man, requiem for a dream, the painted veil, the king’s speech, the visitor, the way back, the whistle blower,
    before sunset, before sunrise আর এক গাদা animated movie. একটা কমেন্টে দেখলাম animated খুব একটা দেখেন না। recommend করবো studio ghibli-এর মুভিগুলি দেখতে। grave of the fireflies না দেখে থাকলে দেখে ফেলুন 🙂 অসাধারণ! চোখে পানি আসবেই!

    • হুম, অ্যানিমেটেড মুভি খুব একটা দেখা হয় না – পিওর এন্টারটেইনমেন্টের দরকার হলে তখন এনিম দেখা হয়, ফায়ারফ্লাইস দেখেছি – আমিও একই কথা বলে রিকমেন্ড করি 🙂
      রিকুয়েম ফর আ ড্রিম দেখার সাথে ট্রেইনস্পটিং আর বাস্কেটবল ডায়রীস দেখে নিতে পারেন, একই বিষয় নিয়ে হৃদয়কাড়া তিনটি সিনেমা। বাস্কেটবল ডায়রীতে ডিক্যাপ্রিও অভিনয় করেছে – ক্ল্যাসিক সেই অভিনয়।
      🙂

  94. Afrna says:

    irani kichu movie suggest korte paren?

    • ইরানী মুভি সম্পর্কে বেশী কিছু বলতে পারি না আপু – সবাই যা জানে, বলে আমিও তাই জানি, বলি – ডিরেক্টর ধরে সিনেমা দেখা শুরু করতে পারেন।
      আব্বাস কিয়ারোস্তামি, মোহসেন মাখমালবাফ, সামিরা মাখমালবাফ, মাজিদ মাজিদি, জাফর পানাহি ইত্যাদি ইত্যাদি 🙂

  95. The Fall, ইউএসআ, ২০০৬
    ভারতীয় পরিচালক তারসেম সিঙ এর দ্বিতীয় সিনেমা। হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে সিনেমার স্টান্টম্যান, আপাত পঙ্গু রয় চারবছরের ছোট্ট আলেক্সান্দ্রিয়াকে এমন একটি গল্প শোনায় যার পাচজন চরিত্রই একজন মানুষৈর উপর প্রতিশোধ নিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। রয় এর বলা গল্পের চরিত্রগুলো তৈরী হয় আলেক্সান্দ্রিয়ার চোখে। অসাধারণ এক সিনেমা, দারুন তার চিত্রায়ন।
    রেটিঙ: ৫/৫

    The Shining, ইউএসআ, ১৯৮০
    স্ট্যানলি কুব্রিকের হরর মুভি। শীতের সময়টা লেখালেখি করে কাটানোর জন্য জ্যাক টরেন্স তার স্ত্রী আর ছেলেকে নিয়ে একটি হোটেলের দায়িত্ব নেয় – পুরো হোটেলেই মাত্র তিনজন। অনেক আগে সেই হোটেলে এক লোক তার দুই কন্যা সন্তানকে হত্যা করেছিল – সেই অশুভ প্রভাব এখনো রয়ে গেছে।
    খুবই ভয়াবহ সিনেমা – স্ট্যানলি কুব্রিকের আর সিনেমাগুলোর মতোই অসামান্য চিত্রায়ন, মিউজিক। জ্যাক নিকলসনের ভীতিকর অভিনয়।
    রেটিঙ: ৫/৫

    My Fair Lady, ইউএসআ, ১৯৬৪
    জর্জ কুকার এর পরিচালনায় অড্রে হেপবার্নের অসাধারণ অভিনয়। একজন ফোনেটিক বিশেষজ্ঞ বাজী ধরে একজন ফুলবিক্রেতার উচ্চারণ শুধরে দেয়ার দায়িত্ব নেয়। কিন্তু রাস্তার সেই ফুল বিক্রেতা যে ধীরে ধীরে অধ্যাপকের প্রতি অনুরক্ত হয়ে পড়ে তার কি হবে?
    অড্রে হেপবার্নের এই অভিনয় দেখে আমি মুগ্ধ – কি চমৎকার তার এক্সপ্রেশন, গানগুলো্ও দারুণ।
    রেটিঙ: ৫/৫

    Roman Holiday, ইউএসআ, ১৯৫৩
    এই কাহিনী নিয়ে সিনেমা হয়েছে অনেক। একজন রাজকন্যা একাকী তার প্রাসাদ থেকে পালায়, পথে ঘটনাচক্রে দেখা হয়ে যায় একজন সাংবাদিকের সাথে – দারুন রোমাঞ্চকর আর ঘটনাবহুল একটি দিন কাটে রাজকন্যার। গ্রেগরি পেক আর অড্রে হেপবার্নের সিনেমা। অড্রে হেপবার্নকে কি নিষ্পাপ মনে হয়েছে বোঝানো যাবে না।
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

    The Apartment, ইউএসআ, ১৯৬০
    সিসি ব্যাক্সটারের একটা গুন আছে, সে দ্রুত চাকরীতে প্রমোশন পায়। তবে গোপন কারনটি তার কর্মদক্ষতা নয়, তার ফ্ল্যাটের চাবী যা বিভিন্ন অফিসাররা সুবিধানুযায়ী বুকিঙ দেয়। লিফটের পরিচালিকা মিস কিউবেলিককে ভালো লাগলেও সাহস করে বলে হয়ে উঠেনি ব্যাক্সটারের। কিন্তু ঘটনাক্রমে একদিন মিস কিউবেলিককে পা্ওয়া গেল ব্যাক্সটারের রুমেই, কোন এক বসের প্রেমিকা হিসেবে তার আগমন।
    চরম রোমান্টিক আর কমেডি সিনেমা। কিন্তু উপভোগের পুরোটা মেরে দিয়েছে হিন্দী সিনেমা লাইফ ইন আ মেট্রো। হুবহু কপি করার ব্যাপারে তাদের জুড়ি নেই – ফলে প্রতিটা দৃশ্যের পরেই কি হবে সেটা জানা ছিল 🙁
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

    High Noon, ইউএসআ, ১৯৫২
    অলটাইম ক্ল্যাসিক ওয়েস্টার্ন মুভি। মার্শাল উইল কেইন যেদিন বিয়ে করলো সেইদিনই পুরোনো এক খুনি ছাড়া পেয়ে শহরে হাজির হবে বলে তার সাগরেদরা জড়ো হলো। এতদিন ধরে যে মার্শাল শহরের সবাইকে রক্ষা করলো, নিরাপত্তা নিশ্চিত করলো – আজ তাকে শহর ছেড়ে পালানোর জন্য উপদেশ দিলো সবাই, খুনির সাথে এই বিরোধকে ব্যক্তিগত বলে চালিয়ে দিতে চাইল। নববিবাহিত স্ত্রী-ও উদ্ধুদ্ধ করলো, অন্যথায় তাকে ছেড়ে যা্ওয়ার হুমকী। কিন্তু মার্শাল কেইন একাই রুখে দাড়ালো – হারবে না সে।
    ফ্রেড জিনেম্যানের সিনেমায় গ্যারি কুপারের অভিনয়। আপনি অবশ্যই ভালোবাসবেন।
    রেটিঙ: ৫/৫

    The Chaser, কোরিয়া, ২০০৮
    বেশ্যাদের দালালে পরিণত হ্ওয়া ডিটেকটিভ পুলিশ জঙ হো তার এক মেয়েকে পাঠায় এক সাইকো খুনি কাস্টমারের কাছে যে কিনা হিংস্র উপায়ে হত্যা করে নারীদেরকে। মেয়েটিকে বাচাতেই হবে কারণ তার ছোট্ট একটি মেয়ে রয়েছে, শাস্তি দিতে হবে সেই সাইকো খুনিকে।
    কোরিয়ান সিনেমা বেশ উন্নত হয়েছে বলতেই হবে। গল্প বলার ঢঙটা ভালো লেগেছে, অভিনয় তো অবশ্যই। এই সিনেমাটা দেখার সময় আমি প্রতি মুহূর্তে বিড়বিড় করে কামনা করছি খুনিটার যেন কঠিন শাস্তি হয়, অত্যন্ত কষ্টদায়ক মৃত্যূ যেনো হয় – পরিচালকের সাফল্য তো এখানেই তাই না?
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

    Man of the west, ইউএসআ, ১৯৫৮
    গ্যারি কুপার অভিনিত আরেকটা ওয়েস্টার্ন সিনেমা। প্রাক্তন এক আউটল ঘটনাচক্রে অনেক বছর বাদে তার কুখ্যাত ক্যারিয়ারের শুরু যার হাত ধরে সেই ডক টবিনের দলে ভিড়তে বাধ্য হলো – একটা ব্যাঙ্ক ডাকাতি করতে হবে এবার। কিন্তু এবার তার সাথে আছে সুন্দরী এক ড্যান্সার, জিম্মি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে সে। সাম্প্রতিক ওয়েস্টার্নের সাথে তুলনায় খুব এগোতে পারবে না সিনেমাটি, কিন্তু ভালো লাগবে গল্পের গতি, সাধারণত্ব, আর গ্যারি কুপারের অভিনয়।
    রেটিঙ: ৪/৫

    Taken, ইউএসআ, ২০০৮
    একটু বেশীই বাজে সিনেমা। হিন্দী মারদাঙ্গা সিনেমার সাথে এর একটাই তফাত, এখানে অভিনয় করেছে লিয়াম নিসনের মতো নামী অভিনেতা।
    রেটিঙ: ২/৫

    Up, ইউএসআ, ২০০৮
    আহা চমৎকার একটি এনিমেশন সিনেমা। নির্মল বিনোদন।
    ৪.৫/৫

    Gone Baby Gone, ইউএসআ, ২০০৭
    বেন অ্যাফ্লেকের প্রথম পরিচালিত এই সিনেমাটি অস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিল, অভিনয় করেছে তারই ভাই ক্যাসি অ্যাফ্লেক। দুইজন প্রাইভেট ডিটেকটিভ একটি শিশুকে খুজে বের করার দায়িত্ব নেয়, শিশুটির মা খুবই উদাসীন সন্তানের প্রতি, মাদকাসক্ত কিন্তু প্যাট্রিক কেনজি নামের গোয়েন্দা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ তাকে খুজে বের করার। আপাত সমাধান হয়ে যা্ওয়া কেসের কেচো খুড়তে সাপ বের হয়ে গেল – শিশুটি অপহৃত হয়নি, তাকে পরিকল্পনামাফিক অপহরণ করা হয়েছিল।
    গল্পের গতিটা অন্যরকম, খুব উত্তেজনাকর নয়। সংলাপের দিকে খেয়াল করে সিনেমা দেখতে হবে, অন্যথায় কাহিনী না্ও বোঝা যেতে পারে।
    রেটিঙ: ৪/৫

    Mr Bean- the movie
    বিট্রিশ মিউজিয়ামে একটি ছবির রক্ষী মি. বিন হাজির হলো আমেরিকায় সদ্য ফেরত পা্ওয়া বিখ্যাত একটি ছবি উন্মোচন করতে। কিন্তু নানা রকম বিপত্তি রয়েছে তাতে।
    যথারীতি মি. বিনীয় অভিনয়। নির্মল বিনোদন।
    রেটিঙ: ৪/৫

    Limitless, ইউএসআ, ২০১১
    এতবার রিকমেন্ড পেলাম যে দেখতেই হলো। নতুন এক ড্রাগ মগজকে শতভাগ ব্যবহার করার ক্ষমতা দেয় – ফলে লেখক হতে চা্ওয়া এডি মোরা পরিণত হয় একজন ব্যবসায়ীতে। ওষুধ ফুরোবার আগেই নিজের অবস্থানকে শক্ত আর টেকসই করে নিতে হবে, কারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে ইতিমধ্যেই।
    গল্পটা দারুন, সাই ফাই হলেও বিশ্বাসযোগ্য, শুধু শেষটুকু বাদে। ওটা আমার পছন্দ হয়নি। সাউন্ডট্র্যাকের কারণে ইতিমধ্যেই সিনেমাটি অনেকের প্রিয় তালিকায় ঢুকে পড়েছে।
    রেটিঙ: ৪/৫

  96. SHAJID says:

    The Fall ,Up, Mr Bean- the movie, High Noon, The Apartment, My Fair LadY, Limitless……..এই গুলা দেখছি । বাকি গুলা দেখি নাই । :'(
    দেখতে হবে । রিভিউ দেখে দেখতে ইচ্ছা করছে । খুব তারাতারি দেখবো ইনশাআল্লাহ্ ।দেখে জানাবো ।

  97. Puspita Hossain says:

    darashiko bhai….r zico bhai..apnaderke hajar salam..eto movie dekhar shomoy pan kibhabe??:(

    onek guloi dekhechi..onek guloi nam shunechi kintu dekhini..aro onek guloi namano ache dekha hocche na..onek gulor nam o shunini..kobe j dekhbo!!!!january te graduation final er jonno opekkha korchi…shesh hole jhapie porbo inshallah!!

    aro beshi beshi movie dekhen..jate amader moto nadan baccha ra khobor pay!!

    tana cinema dekha hocche na onekdin…tai apatoto series diei kaj chalate hocche..:S

    ekdom recently dekha cinema hocche jane eyre..amar ottonto priyo classic golpo…motamuti legeche..r ekta musical dekhlam.. funny girl(1968)..broadway r film star fanny price er life nie movie…ovinoy korechen Barbra Streisand,Omar Sharif..

    limitless er idea ta bhaloi chilo…but eitar kahini expand korar possibility chilo onek..shei stock exchange r russian mafia te golpo atke jawate ektu hotash…

    the fall besh kichudin age dekha..oshadharon chobi..

    gone baby gone..motamuti legechilo..

    audrey hepburn ononno…kicchu bolar nai ei bapare r!!

    the apartment age dekha…bhaggish life in a metro dekhini!!!

    ro oenkgulo movie nie bolar chilo….kintu apatoto biday nite hocche.

    bhalo thakben.

    • হাজার সালামের লাখো জবাব আপু। কেন লাখো জবাব? হাজার সালামের হাজার জবাব এবং আপনিও যে মোটেও কম সিনেমা দেখেন না তার প্রমান পেয়েই বাকী সালাম 🙂
      অনেক সিনেম দেখি ঠিক তা নয়, তবে ভালো সিনেমাগুলো দেখি। ফলে যে সিনেমাগুলো নিয়ে লোকে কথা বলে সেগুলো কমন পড়ে যায় আরকি ! বাজারী সিনেমার তালিকা দেখান, একটাও দেখিনি সেটা তালিকা না দেখেও বলে দিতে পারবো।
      ফাইনালের পরে আপনার দেখা সিনেমার লিষ্টি নিয়ে হাজির হয়ে যাবেন কিন্তু। মাঝে মাঝে ঢু তো অবশ্যই দিবেন। আর ভালো থাকবেন সবসময় – দারাশিকো ব্লগে পা দেয়ায় ধন্যবাদ।
      হ্যাপি মুভিটাইম 🙂

  98. বেশী সিনেমা দেখা হয় নি কদিনে। অল্প যে কটা দেখলাম সেগুলোই –
    Lock, Stock and Two Smoking Barrels, England (1998)
    গাই রিচির ক্রাইম-কমেডি। সম্ভবত হিন্দী ফির হেরা ফেরি এই গল্প থেকে চুরি করা। কতগুলো ছেলে তাদের সঞ্চিত অর্থ দিয়ে একটি জুয়া খেলে এবং বড় অংকের টাকা ঋন করে হারে। এই টাকা পরিশোধের জন্য এবার তারা একটি ডাকাতির প্ল্যান করে তাদের প্রতিবেশীর বাসায়। কয়েকটি ক্রিমিনাল গ্রুপের ক্ল্যাশ। গাই রিচির চিরপরিচিত গান এবং মিউজিক, সেই সাথে ডার্ক কমেডি, আর অ্যাকশন তো আছেই। তবে এই সিনেমা আসলে সবার মাথায় ধরবে না।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The Man from Nowhere, Korea (2010)
    অসাধারন কোরিয়ান সিনেমা। যারা Leon দেখেছেন তারা হয়তো এত মজা নাও পেতে পারেন। এখানেও একজন ভয়ানক লোকের সাথে বন্ধুত্ব হয়ে যায় পিচ্চি একটি মেয়ের, সেই মেয়ের মা আবার ড্রাগ স্মাগলারদের কিছু জিনিস চুরি করে সেই লোকটার কাছে গচ্ছিত রেখেছে। মা-মেয়ে দুজনেই কিডন্যাপড। কিন্তু লোকটা তার বন্ধুর জন্য তাদেরকে ছেড়ে দিল না।
    কোরিয়ানরা দারুন সিনেমা বানাচ্ছে, এখন পর্যন্ত তাদের কোন সিনেমাই আমার খারাপ লাগে নাই। হলিউডকে বাদ দিয়ে তারা নিজস্ব একটি স্টাইল তৈরী করছে – এটা আনন্দজনক।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Taxi Driver, USA (1976)
    এই সিনেমা সম্পর্কে কে না জানে। বস ডি নিরো’র বিখ্যাত সিনেমা। পাগলাটে এক ট্যাক্সি ড্রাইভার যার ইনসমনিয়া আছে তার গল্প। সিনেমার ইতিহাসে এই সিনেমাটা অনেকদিন টিকে থাকবে।
    রেটিং: ৫/৫

    Revanche, Austria (2008)
    অস্ট্রিয়ার এই সিনেমাটা দেখার কারণ ছিল ২০০৯ এ অস্কার নমিনেশন পেয়েছিল বলে। লোকটা চেয়েছিল একটা ব্যাংক ডাকাতি করে তার গার্লফ্রেন্ড যে কিনা একজন প্রস্টিটিউট তাকে নিয়ে অনেক দূরে পালিয়ে যাবে এবং নিরাপদ জীবন যাপন করবে। কিন্তু যেই পুলিশের গুলিতে বান্ধবী মরে গেল সেই পুলিশের পাশের বাড়িতেই আশ্রয় নিল লোকটা। বান্ধবী হত্যার প্রতিশোধ নিতে চায় লোকটা, তার ক্রোধ তাকে পোড়ায়।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Memories of Murder, Korea (2003)
    অসাধারণ সাসপেন্স আর মিস্ট্রিতে ভরপুর এই সিনেমাটাও কোরিয়ান। সিরিয়াল এক কিলারকে ধরার চেষ্টা করেছিল দুইজন পুলিশ অফিসার, কিলার খুন করতো মেয়েদেরকে। সাসপেক্ট ছিল অনেক কিন্তু শেষ পর্যন্ত খুনীকে ধরা কি সম্ভব?
    আমি এই সিনেমাটার জন্য রেটিং বাড়িয়ে দিলাম – ১০/১০

    খোজ দ্যা সার্চ, বাংলাদেশ, ২০১০
    বাংলাদেশী সিনেমা। সবাই হাসাহাসি করে, আমি করি না। এই সিনেমার মধ্যে অনেক পজেটিভ ব্যাপার আছে। আমি সেই নিয়ে একটি রিভিউ লিখেছি। তবে সিনেমা হিসেবে খুব ভালো নয়। আরও ভালো করার দরকার আছে।
    রেটিং: ৩/৫

    রঞ্জনা আমি আর আসবো না, ভারত, ২০১১
    অঞ্জন দত্তের সর্বশেষ সিনেমা। একটি মেয়েকে ধীরে ধীরে স্টারে পরিনত করার সিনেমা। অনেকগুলো গান আছে সিনেমাটায়, অঞ্জন নিজেই অভিনয় করেছে। তবে সিনেমাটা এতটা ভালো লাগে নি।
    রেটিং: ৪/৫

    • Puspita Hossain says:

      ronjona ami r ashbo na,memories of a murder r the man from nowhere gulo bade baki gulo dekha…

      lock stock dekhe byapok e legechilo..:)..baki gulo shomporke apnar shathe ekmot..:)

      bhai..apni to korean movie dekhe gule kheye felechen..apnake bolteo lojja lage…apni ki castaway on the moon(2009) dekhechen??interesting bhabe weird ekta movie!!

      r arekta movie shobaike dekhte onurodh korbo..jarai foreign language movie dekhte bhalobashen..Binjip(2004)….oshadharon legechilo…(ami sure apanr onek agei dekha hoye geche!)

      korean romantic jara dekhen..tara shobai mone hoi Innocent Steps dekhe felechen…

      oh amar arekta pochonder foreign language movie “After The Wedding” (Danish: Efter brylluppet) (2006)..jara dekhen ni taderke dekhar onurodh korbo..

      majhe majhe eshe movie nie smriti charon kore jabo..(notun movie to r dekha hocche na..tai r ki!!)

      • বিনীত ভাবে আবারও মনে করিয়ে দিচ্ছি – আমি আসলে খুব বেশী সিনেমা দেখি নি, বলা যায়, খুব কমই সিনেমা দেখেছি। 🙂
        যে কোরিয়ান সিনেমাগুলোর নাম বললেন, প্রথমে ভেবেছিলাম একটাও দেখিনি। পরে দেখা গেল থ্রি আয়রন (বিনজিপ) দেখা হয়েছে। বাকীগুলো নয়। দেখবো আশা করি।
        কিম কি দুক কোরিয়ান সিনেমা নির্মাতাদের মধ্যে বেশ প্রিয়। তার নির্মানশৈলীতে এতটাই মুগ্ধ যে তার নির্মিত প্রায় সব সিনেমাই দেখে ফেলেছি, দু-তিনটে বাদে। একটা বিশাল লেখাও লিখে ফেলেছিলাম তাকে নিয়ে। সেলুলয়েড হলো তার ‘যেমন ইচ্ছে তার কবিতার খাতা’।
        মাঝে মাঝে এমন মুভির আলোচনা হলে ভালোই হবে – আপনি যে পাড় মুভিখোর – সেটা কিন্তু ধীরে ধীরে প্রকাশ পাচ্ছে – বেড়াল আর কতদিন ব্যাগে থাকবে বলুন 😉

  99. Puspita Hossain says:

    oh bhai..apnar kacheo A walk to remember overrated legeche shune ami jar por nai khushi..aj porjonto manush k bujhate parlam na cinema ta koto rokom bhabe lame!r amra shudhu shudhui bangla r hindi cinema k gali dei!!

    • এক্সাক্টলি। হলিউডে প্রচুর ফালতু সিনেমা তৈরী হয়। ধুমাধুম অ্যাকশন সিনেমার সবগুলোই যে খুব ভালো বেজের উপর নির্মিত তাও নয়। কিন্তু নির্মান শৈলী এতটাই আচ্ছন্ন করে রাখে যে ওসব আর খেয়াল করা হয় না।
      ইয়ে – পুষ্পিতা, বাংলা লেখাটা শিখে নিন না – এখন তো খুব সহজ হয়ে গেছে 🙂
      শুভকামনা 🙂

  100. Puspita Hossain says:

    ভাই,নেন বাংলা লেখা শুরু করলাম!বিস্তারিত কমেন্ট পরে দেব…একটু দৌড়ের উপরে আছি!আপাতত একটা সিনেমার নাম মনে পড়ে গেল…তাই বলতে আসলাম

    spring,summer,fall,winter…and spring..যাদের দেখা নাই অবশ্যই দেখবেন। এইটাও foreign language film..:)

  101. Puspita Hossain says:

    a quick comment…captain haddock amar oti oti oti priyo character..infact tintin e amar shobcheye priyo character..:D..koti koti jolonto foshka..geri guglir jhak..:D..shutorang bujhtei parchen apnar chobi ta amar koto pochondo hoyeche!!

    quick comment korte holo dekhe banglay kora gelo na!!porer bar abaro banglay korbo..:)

  102. Afrna says:

    ‘kama sutra: a tale of love” দেখলাম। নগ্নতা আর sex – এ দুটোকে খুব বড় করে না দেখে থাকতে পারলে আমার মতে এটা খুব জোড়ালো একটা love story!!! জানি না একমত হবেন কিনা…

    • এই সিনেমাটার নাম দুদিন আগেই পুশকিনের বড়দের সিনেমার তালিকায় দেখলাম। দুদিন পরেই আবার দেখবো – ইন্টারেস্টিং লাগছে।
      সিনেমাটা দেখিনি আপু। এখনই আইএমডিবি, উইকিপিডিয়া এবং রোটেনটম্যাটোস সার্চ করে দেখলাম। যদিও পরিচালক মীরা নায়ার এবং তার নেমসেক আমার খুব পছন্দের সিনেমা, সিনেমাটার রেটিং দেখছি বেশ দুর্বল। কি সমস্যা ছিল আল্লাহ মালুম।
      স্টোরীটা দারুন এবং টুইস্টিং মনে হচ্ছে, কিন্তু যৌনতাই যেখানে উপজীব্য সেখানে বাদ দিয়ে দেখার কি সুযোগ হবে? বার্নার্দো বার্তালুসির একটা সিনেমা আছে না, দি ড্রিমারস? সিনেমাটা ভাবানোর মতো হয়তো, কিন্তু সামলানোর মত নয়। ব্যক্তিগত মত, দ্বিমত করার সুযোগ আছে।
      যদি কখনো দেখি, তবে অবশ্যই নগ্নতা এবং যৌনতাকে বাদ দিয়ে দেখার চেষ্টা করবো।
      ভালো আছেন তো আপু? মাঝে মধ্যে ঘুরে যাবেন প্লিজ 🙂

  103. Puspita Hossain says:

    কয়েকটা মুভি র নাম মনে আসল আজকে…তাও আবার পড়তে পরতে…কি পড়াশোনা হচ্ছে আল্লাহ মালুম! যাই হোক, নাম গুলো হল-

    wag the dog- dustin hoffman and robert de niro এর মুভি…আশা করি ভাল লাগবে
    about a boy- hugh grant অভিনীত, আমার অত্যন্ত পছন্দের মুভি
    vozvrashcheniye(the return)- নাম শুনেই বুঝতে পারছেন বিদেশি ভাষা…এটা সবার ভাল নাও লাগতে পারে!
    a pure formality(Una pura formalita)- রোমান পোলান্সকি র মুভি…
    don juan de marco- johnny depp এর আজব এবং সুন্দর মুভি র একটা।।আমার খুব পছন্দের…আপনাদের কেমন লাগে জানার অপেক্ষায় থাকলাম।
    edward scissorhand- এটাও johnny depp…আমার দেখা তার প্রথম মুভি…খুব ই পছন্দের
    the painted veil- এডওয়ার্ড নরটন এর এই মুভি টা আমার কেন ভাল লাগে আমি ঠিক নিশ্চিত না!

    • 🙁
      মাত্র একটা কমন পড়ল – দ্য রিটার্ন। জনিডেপ খুব বেশী দেখা হয়নি, হয়তো এ কারণেই তার সিনেমাগুলো বাদ পড়ে গেছে।
      তালিকা লম্বা থেকে লম্বাতর হচ্ছে 🙁 🙁

  104. Afrna says:

    আছি ভালোই ভাই 🙂 অফিসের যন্ত্রণায় সিনেমা দেখা একদম কমে গেছে। আপনার আর বাদবাকিদের কমেন্ট থেকে নাম নিয়ে বেশ অনেকগুলি সিনেমা নামিয়ে রেখেছি। ল্যাপটপ, হার্ডডিস্ক সব ভরে গেছে! কিন্তু দেখা আর হচ্ছে না 🙁 আবার বেকার হওয়া লাগবে!! তবে বেশ ক’দিন টিভি সিরিয়াল ‘castle’ নিয়ে পড়ে ছিলাম। এখন আবার একটু একটু করে সিনেমার দিকে ফিরে যাচ্ছি! ভালো কিছু দেখা হলে অবশ্যই জানিয়ে যাবো। 🙂

    • ইস, আপু, আপনাদের মত চাকুরী-করনেওয়ালাদের দেখে আমি তো ভয়ই পাচ্ছি – আমারও কি একই হাল হবে শেষ পর্যন্ত?
      আল্লাহ না করুক 🙂
      আপনার কাছ থেকে ভালো সিনেমার নামের অপেক্ষায় থাকলুম। ভালো থাকবেন আপু 🙂

  105. Puspita Hossain says:

    হে হে …কি খবর ভাই?দেখা সাক্ষাৎ নাই মেলা দিন তাই একটু ঘুরে গেলাম…কারন এই মুহূর্তে মাথায় কোন ভাল মুভি র নাম আসছে না।

    সরি, মনে পড়েছে…:D
    valentin…argentine movie..a must see….
    mulan..animation movie…those who love animations and japani animes will like this..one of my pesonal fav..:)
    lawrence of arabia…কে বলবে এইটা পিটার ও টুল এর প্রথম মুভি!
    all the president’s men…redford/hoffaman..it speaks for itself.
    the fighter…was amazed by christian bale in this movie..though mark wahlberg plays the lead role..
    the hurricane…by denzel washington…

    • ভালো নাই, ইন্টারনেট থেকে বিচ্ছিন্ন দিন দুয়েক হলো – কবে আবার রেগুলার কানেক্টেড হবো জানি না 🙁

  106. sumon says:

    bohut din por chobi dekhklam….jeheto ami aktu indian chobir ghoranar tai oiguloi besi dekha hoy…..ja dekhlam KALBELA….goutom ghosher cinema…..valo chobi tobe jodi kew uponnaser sathe melate jan…tobe mone hobe onimesh[main character ] chorittrer dik diye arektu shokti shali hote parto…. SIKKIM….satyajeet ray…muloto documentory…inar somporke r ki bolbo bolun……….MUJHSE FRAANDSHIIP KAROGE……good entertainer …..RA ONE……anuvab sinhar chobi…sobcheye boro kotha shah rukh khan….aita j ki banailo……bujlam na….srk chara kisui nai….

    • কালবেলা দেখা হয়েছে। দারুন সিনেমা, তবে পাঠকের কাছে হতাশাজনক। উপন্যাসকে অনুসরন করতে চাইলে এমনভাবে অনুসরন করতে হবে যেন উপন্যাসকে ছাড়িয়ে যায়। নতুবা অনুসরন না করে নতুন কিছু সৃষ্টি করতে হবে। এই সিনেমায় দুটো্র কোনটাই হয় নাই। তাই হতাশ।
      বাকীগুলা দেখি নাই – হিন্দী দেখা হয় না, আর সত্যজিতেরটা পাই নাই 🙁

  107. Puspita Hossain says:

    bhai,,,,,quick comment…romantic but oshadharon cinema…ralph fiennes,kirsten scott thomas r collin firth er..”the English Patient”..bhalo na lagle comment ferot!!likum e na ar ami!!

    • ইস, কারো ভালো লাগা না লাগার জন্য কমেন্ট নাকি? :p
      সিনেমাটা দেখেছি। ভালো না লাগার মতো কিছু ছিল না 🙂

  108. নিশিযাপন, ভারত, ২০০৫
    সত্যজিত রায়ের পুত্র সন্দীপ রায়ের পরিচালিত সিনেমা বলেই দেখার তালিকায় অন্তর্ভূক্তি। পাহাড়ী এক এলাকায় হঠাৎ পাহাড়ধ্বস হওয়ায় পরিবারের সবাই একজন অতিথিসহ আটকা পড়ল। বাহিরের পৃথিবীর সাথে যোগাযোগ সম্পূর্ন বিচ্ছিন্ন। দুর্যোগপূর্ন এই পরিস্থিতি একে একে সকলের চরিত্রের নোংরা দিকটি প্রকাশ করে দিতে লাগল – এই হলো সিনেমার গল্প। বেশ দুর্বল স্ক্রিপ্ট – বিশেষত: আটকে পড়া পাহাড় থেকে মুক্তির উপায় সংক্রান্ত অংশটুকু একেবারে যাচ্ছেতাই – এই গল্প মানুষের হতে পারে না, শিশুদের জন্য প্রযোজ্য হতে পারে।
    রেটিং: ৩/৫

    এক মুঠো ছবি, ভারত, ২০০৫
    ছয়টি ভিন্ন ভিন্ন পরিচালকের ভিন্ন ভিন্ন বিষয়ের উপর নির্মিত শর্টফিল্ম নিয়ে এক মুঠো ছবি। অর্ঘ্যকমল মিত্রের পরিচালনায় ‘জন্মদিন’, পার্থ সেনের পরিচালনায় ‘পক্ষিরাজ’, ইন্দ্রনীল রায়চৌধুরীর ‘তপনবাবু’, প্রভাত রায়ের ‘রাগুনবাবুর গপ্পো’, অঞ্জন দত্তের ‘তারপর ভালোবাসা’ এবং কৌশিক গাঙ্গুলীর ‘প্রগ্রেস রিপোর্ট’। এর মধ্যে জন্মদিন, তপনবাবু এবং তারপর ভালোবাসা তিনটিই ভালো করেছে। তপনবাবুর গল্পটি দারুন, তারপর ভালোবাসার বর্ণনাভঙ্গি। সব মিলিয়ে মন্দ নয়।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Hire, ইউএসআ, ২০০০
    এইটাও একটা শর্টফিল্ম কালেকশন। বিএমডব্লিউ তাদের গাড়ির প্রচারণার জন্য ২০০০-০১ সালে মোট আটটি শর্টফিল্ম নির্মান করে – সবগুলোই গাড়িকেন্দ্রিক, ড্রাইভার একজনই, কাহিনী ভিন্ন ভিন্ন এবং সেরা আটজন সিনেমা পরিচালককে দিয়ে। ৮-১০ মিনিটের এই সিনেমাগুলোয় প্রত্যেক পরিচালকের নিজস্ব মুন্সিয়ানা দারুনভাবে ফুটে উঠেছে। মাস্ট সি ফিল্ম।
    রেটিং: ৫/৫

    The Looser, ভারত, ২০১১
    এখনো মুক্তির অপেক্ষায় এ সিনেমাটি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা তুঙ্গে। বিষয়বস্তু – এই সিনেমা শিল্প নাকি পর্ন? এমন কোন সিনেমা নয় যা দেখতে হবে। যার দেখার মতো কোন সিনেমা বাকী নেই এবং টাইম পাস করার মতো কোন কাজ নেই এবং উচ্চমার্গীয় নামের ফালতু সিনেমা দেখতে চান তারা দেখতে পারেন।
    রেটিং: ০.৫/৫

  109. Puspita Hossain says:

    ki jani movie er nam mone korsilam..bhuile gesi bashay ashte ashte..:S

  110. Alfred Hitchcock এর The Birds এবং Vertigo দেক্লাম। পুরাই মাথা নষ্ট অবস্থা।

    • বার্ডস সিনেমাটা দেখা হয় নাই – ভার্টিগো সত্যিই চ্রম।
      দারাশিকোর ব্লগে স্বাগতম লালকমল 🙂

  111. Puspita Hossain says:

    porte porte jibon noshto…:S..mathay movie er nam ashtese na..:S

    btw bhai..amare kintu apni shagotomo den nai…khelum na!

    • :p
      ভুল হয়া গেসে আফু। পুনরায় স্বাগতম 🙂
      মুভির নাম মাথায় না আসলে নাই – জোর করার দরকার কি?
      দ্য লিঙ্কন লইয়ার দেখছেন? এইমাত্র দেখে শেষ করলাম – সিনেমাটা আরও জটিল ফিনিশিঙ দেয়া যেত – হতাশ হৈসি 🙁

    • < <দারাশিকো ব্লগে পা দেয়ায় ধন্যবাদ।>> প্রথম কমেন্টে কিন্তু এই কথা বলসিলাম – এইটাও একরকম স্বাগতবার্তা 🙂

      স্লিপ টাইট- গুড নাইট 🙂

  112. sumon says:

    GUERRILLA….nasiruddin yousuf bacchu…..khub somvoboto amar dekha kono bangladeshi cinemar moddhe sobcheya best…..according to me the best making bangladeshi film i have ever seen…..cimemar protiti frame jeno 71 a niye jay….director onek nikhoot kore ak ak ti frame shajiyechen…..osomvob valo ovinoy.valo direcrion,aboho songeet,cinematography,,,,specially onimesh aicch er art direction…ba….shimul yousuf er costume khub ee bastob……shudu ferdous er ovinoy aktu dhalliwoody…seita avoid kora jai ochirei…….ak kothai valo cinema…asa jagay…..boro kichur……boss parle guerrila niya akta lekha liikhiyen

    • গেরিলা – নিয়ে লেখার কথা আরও অনেকেই বলেছে। সিনেমাটা আমি দেখেছি। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের সিনেমা নিয়ে কিছু বলার জন্য ভয়ানক সাহস লাগে। পজেটিভ এর বাইরে কিছু বললেই অবস্থা মেহেরজানের মতো হতে হবে।
      সিনেমা হিসেবে গেরিলা সত্যিই দারুন সিনেমা। যদিও একজন মঞ্চনাটক অভিনেতা এবং নির্দেশক সিনেমার নির্দেশক হয়ে উঠতে পারেন নি অনেক ক্ষেত্রে, কিন্তু সে ক্ষতি পুষিয়ে দিয়েছে আরেক মঞ্চ অভিনেতা শতাব্দী 🙂
      আপনাকে ধন্যবাদ সুমন।

      অট: বাংলায় লেখার চেষ্টা করেন – হয়ে যাবে।

  113. Puspita Hossain says:

    To kill a mocking bird

  114. Puspita Hossain says:

    হারপার লি এর উপন্যাস অবমলম্বনে বানানো ও গ্রেগরি পেক অভিনীত এই মুভি টার আগে ও পরে কিছু বলার ধৃষ্টতা আমার নাই…সবাইকে দেখার অনুরোধ করব।

    • ধৃষ্টতা না থাকলে দেখানোর দর্কার নাই 😉

      • Puspita Hossain says:

        এর লাইগাই ত দেহাই নাই…কি কমু এই মুভি লইয়া বুঝতাসিলাম না…!!আমি ত মুভি দেইখা কতা কওনের শক্তি হারায়া ফেলসিলাম!! সিরাম!!

  115. Puspita Hossain says:

    ki bapar bhai??apni ki ei sheet e r kombol theke ber hoben na bole protigga korsen???:S…obossho i can imagine..komboler bhitore dhuke laptop e movie dekh shiram lagar kotha..pora kopal amar..porikkha..:S

    • নাহে ভাই, কম্বলের ভেতরে বসে সিনেমা দেখা হয় না। আমি সবসময়ই চেয়ারে বসে সিনেমা দেখি – শুয়ে বা আধশোয়া হয়ে সিনেমা দেখতে গেলে সিনেমার পর্দা কেমন বাকাচোরা লাগে – শান্তি পাই না 🙂
      পরীক্ষা আমারও চলছে, তাই সিনেমাও কম দেখছি। অন্যদিকে ব্যস্ত ছিলাম ক’দিন। তাই রিপ্লাই দেয়া হয়নি – স্যরি ভাই 🙂
      পরীক্ষা শেষে পূর্নোদ্যমে ঝাপিয়ে পড়ুন। আপনার জন্য একটা দাওয়াত। আগামী ২৩ তারিখ সামহোয়্যারইনব্লগের সিনেমাখোর ব্লগাররা একত্রিত হচ্ছি টিএসসি-তে। আড্ডাবাজি হবে এবং সিনেমার আদান-প্রদান। হার্ডডিস্ক-পেনড্রাইভ-ফ্লপিডিস্ক যা আছে নিয়ে আসতে পারেন। আর আপডেটের জন্য এই গ্রুপে যুক্ত থাকবেন … শুভকামনা। 🙂
      https://www.facebook.com/groups/somewhereinblog.cinemakhor/

      • Puspita Hossain says:

        ভাই, পরীক্ষা শুরু হবে পহেলা জানুয়ারী থেকে…।মা বাপের বেকার সন্তান হওনের পথে শেষ পরিক্ষা…জান নিয়া টানাটানি অবস্থা। পুরাই মাথার ঘায়ে কুত্তা পাগল হয়ে ঘুরতেসি…কিছুই মনে থাকে না। পরীক্ষা শেষ হতে হতে ফেব্রুয়ারী …আল্লাহ আল্লাহ করতেসি যাতে বইমেলা টা মিস না হয়। :S… যদি ফেব্রুয়ারী র পরে দম থাকে মানে আল্লাহ বাঁচায় রাখে তাহলে পূর্নোদ্যমে ঝাপায় পরব মুভি আর গল্পের বই নিয়ে। ২৩ তারিখের ব্যাপারে বলতে পারতেসি না ভাই…মনে হয় পারবনা আসতে…তার উপরে আমি ত ব্লগার না ভাই, আমি কমেনটার…:P

        বহুদিন পর ফ্লপিডিস্ক এর কথা বলল কেউ…হেহেহেহে… ফ্লপিডিস্ক এ মুভি ধরলে তো কাম ই হইসিল… 😛

        • ফাইনাল প্রফ? তারপর তো ইন্টার্নশীপ না?
          ব্লগার কমেন্টার সবাই আসবে। বাধা নাই, শুধু সিনেমা নিতে চাইলে ল্যাপটপ নিয়া চৈলা আইসেন, রাউটারে শেয়ার করার ব্যবস্থা থাকবে আশা করা যায়।
          পরীক্ষার জন্য শুভকামনা 🙂

          • Puspita Hossain says:

            ভাই, কি যে বলেন…পরিক্ষা দিলেই যে পাশ করব এমন কথা কে কবে বলসে! ইন্টার্নশিপ এখন অনেক দূরের কথা! ল্যাপটপ ত নাই ভাই…দুনিয়া আগাইতেসে… মানুষ এখন আইফোনে মুভি দেখে কিন্তুক আমি এখনও ডেক্সটপ এই দেখি…গরিব মানুষ ফড়িং খায়… ইত্যাদি! দেখি ভাই.. আসার চেষ্টা করব। দোয়া রাইখেন।

  116. jemsbond says:

    গতকালেই দেখলাম Real Steel মুভিটি ,ভাল লাগল । বরাবরের মতই আমার প্রিয় অভিনেতার মধ্যে একজন হলেন Hugh Jackman যাকে আমার অসম্ভব ভাল লাগে । Real Steel সম্প্রকে আরো জানতে উইকি থেকে – http://en.wikipedia.org/wiki/Real_Steel
    ছবি আমি প্রতিদিন ই দেখি । একদিন ছবি না দেখলে মনে হয় কি যেন মিস হয়ে যাচ্ছে । তবে দেশে থাকাকালিন ছবির এত বড় পোকা আমি কখন ই ছিলাম না । তখন ছিলাম বইখোর । এখানে তো বই পাইনা তাই ছবির উপর চালিয়ে দিলাম । এখানে এসে হল/থিয়েটারে গিয়া অভ্যাসটা বদে পরিনত হয়েছে । যাই হোক তবে ভাল ছবি আমি বরাবরই হলে গিয়ে দেখে থাকি । প্রতি মাসে আমি একটা লিস্ট করে তারপর হল/থিয়েটারে হামলা চালাই। তবে Classic মুভি গুলো বাসায়/রুমে একলা দেখে থাকি তাতে করে ছবির গল্পগুলো স্পস্ট বোঝা যায় । যাক অনেক প্যচাল পারা হল এবার এই সপ্তাহে আমি যে কয়টা মুভি দেখেছি তার একটা তালিকা নিচে দিলাম –

    ১/ Ladies vs Ricky Bahl- ছবিটি হলে গিয়ে দেখেছি আগে থেকেই আশা ছিল হলে দেখব তাই শুরুর ৫দিন প[র দেখার সুযোগ মিল্লল ।থিয়েটারে আমরা সবমিলে দর্শক ছিলাম মাত্র ২০ জন (এত বড় হলে ) যাক ছবিটি আমার কাছে ভাল লেগেছে । বিশেষ করে নতুন একটা মুখ দেখার পর আরও ভাল লাগল আশা রাখি তার আগামি ছবিটি ও হলে গিয়ে দেখব । কার কথা বলছি উইকি থেকে জানুন -http://en.wikipedia.org/wiki/Ishaqzaade

    ২/ Horrible Bosses – ছবিটি আমারে বহুত হাসাইছে হাসি থামাইতে পারি নাই । মনে হলে এখন ও হাসি পায় । IMDb rating এখন ও ৭.১।

    ৩/ Ice.Age.A.Mammoth.Christmas – এনিমেশন মুভি বা কার্টুন যে আমার কত প্রিয় তা এই বড় বাচ্চাটাকে না দেখলে বুঝতে পারবেন না । যাই হোক Ice.Age এর এই ছবিটা ছবি না বলে একটা ছোট্ট গল্প বলা যায় তবে কমিডি আছে যা আপনাকে না হোক আপনার বাচ্চাকে অবশ্যই আনন্দ দেবে ।

    ৪ এবং ৫ নাম্বার ছবি দুটোর নাম বললাম না কারন ছবি দুটো বেশি ভয়ঙ্ক্রর এবং একটু Erotic মুভি টাইপ যদি এখানের এডমিন প্যনেল অনুমতি দেয় তবে নাম দুটি বলা সম্বভ ।

    শেষ ছবিটি দেখলাম যার নাম হল – Real Steel ।

    এই সপ্তাহে আর ও যে মুভিগুলো দেখব তা হল – Ice Age3 , Crazy.Stupid.Love ,Animals.United , Conan The Barbarian এবং Raw Meat *1973* ।

    (কিছু কথা – দারাশিকো আমি আগে আপনার ব্লগটি দেখিনি যার দরুন লেখাগুলো মিস করলাম। আশা রাখি আরো সুন্দর লেখা পাব আপনার কাছ থেকে । )

    • সুস্বাগতম বন্ড, জেমস বন্ড 🙂
      সামুতে একজন জেমসবন্ড লিখেন, আপনিই কি সেই?
      কি কি সিনেমা দেখলেন সে ব্যাপারে কোন মডারেশন নেই, মডারেশন থাকবে যদি কন্টেন্ট আপত্তিকর হয়, বা আক্রমনমূলক হয়। আগের কমেন্টগুলোতে দেখবেন এক আপু মীরা নায়ারের একটা সিনেমার কথা বলেছে যা অ্যাডাল্ট কন্টেন্টযুক্ত, কিন্তু মডারেশন করা হয় নাই – সুতরাং চলতে পারে।
      কোন দেশে থাকেন সেটা তো বললেন না বন্ড, সিনেমা দেখার অভিজ্ঞতা শুনে লোভ হয় 🙂
      ভালো খাকুন, আবার আসবেন 🙂

      • jemsbond says:

        জি জনাব সেই আমি যে কিনা Avatar নিয়া একটা লেখা লিখছিলাম সামুতে । কিছু ব্লগে যাওয়া হয়না তবে এখন প্রজন্মেতে বেশি থাকা হয় । সামুতে আগের মানুষজন ও নাই তাই
        থাকি – বাহরাইনে ।

  117. Puspita Hossain says:

    areh darashiko bhai…..darashikor blog e apnake shagotomo…:P

    kal porshu hall e chole jabo…tai bhablam ekbar dhu mere jai…”abar hobe to dekha..e dekhai shesh dekha noi to”..!!

    baiche thakle ferot ashbo….btw, “the hobbit” movie r promo amar bapok agroho jagaise.

    jwar age koekta cinema r nam bole jai..

    cinema paradiso
    the boy in striped pyjamas
    sleepers
    tootsie
    the memoirs of a geisha

    ektar shathe arektar kono mil nai..ami nishchito apni shob guloi dekhsen…ami ashole jonosharthe comment kori..:P..jara dekhen nai tara dekhle asha kori bhalo lagbe..:)

    • এইমাত্র আপনি আমার চোখ ভিজিয়ে দিলেন, এত আদর করে কেউ আমাকে আমার সাইটে স্বাগতম জানায় নাই, কোনদিন জানাবে সেইটাও ভাবি নাই, কিন্তু আপনি আমার কল্পনাশক্তিকে দুর্বল প্রমাণ করেছেন – আমার কল্পনাশক্তির দুর্বলতা ফাস হয়ে যাওয়ায় আমার চোখ ভিজে উঠেছে, যে কোন মুহুর্তে কিবোর্ডে পানি পড়ে যেতে পারে …. 🙁 :'(

      শুনুন, কালকে আমাদের আড্ডা, টিএসসিতে। সাড়ে তিনটায়। আসবেন কিন্তু।
      হলবাস ভালো হোক,পড়াশোনাময় হোক। শুভকামনা 🙂

  118. Puspita Hossain says:

    bhai..kainden na..jibone erokom aro turning point ashbe..protibar pani fele keyboard noshto korle kemne hobe bolen!

    5-6 din por por nijer blog e pa dile shagotomo janano chara upay ase!!!

    ghum katatite eshe dekhi apni amontron janaisen..ekhon to oporadhbodh jagtese…erokom antorik amontron asholei asha kori nai..kintu kalke mone hoi parbo na bhai…mirpur theke TSC jawa ektu dushkor..adday hoito adha ghonta thakte parbo kintu jawa ashay 2 ghonta shesh.:S…hall e thakle kuno shomossha chilo na..TSC hata poth hall theke..:(

    ekdike boltesen hall bash bhalo hok(jeno oita adou konodin possible..:S) ar porashona moy hok..arekdike adda marte daktesen…boroi bichitro obostha!!:(

    • ইসস, ৫/৬ দিন পর পর আসি এই অভিযোগ তো শত্রুও দিবে না (মিত্ররা দিতে পারে 😉 )
      ডাক্তার বিড়ি খাইতে নিষেধ করে নিজেই বিড়ি ধরায় – জানেন তো? 😉
      ভালো থাকুন খোড়া হাস 🙂

  119. Puspita Hossain says:

    adda kamun hoilo bhai?

  120. Puspita Hossain says:

    dekhlam bhai..purai mardanga obostha..ekdik die bhaloi hoise jai nai..shobai dekhi shobaire virtually chine!!:)

    • খুব ঠিক হলো না – প্রত্যেক ব্লগারই অল্প কিছু ব্লগারকে চেনে। বাকীদের নাম জানে হয়তো, অনেকেরই নামও জানে না, ব্লগও পড়ে নি। আড্ডা বলেই এসেছে, পরিচিতি একটা উদ্দেশ্য। এটাই আমার প্রথম কোন ব্লগাড্ডায় যোগদান 🙂

  121. Puspita Hossain says:

    ghotona ki??jhimaya porsen naki??:S

    • একদম না। আপনি তো শুধু একটা পোস্টে নজর রাখেন, এর মাঝে নতুন পোস্ট লিখেছি, সামু ব্লগে সিনেমার বাইরে পোস্ট দিসি 🙂
      সিনেমা দেখাও চলতেসে অল্প অল্প 🙂

  122. Puspita Hossain says:

    bhalo thaiken bhai.albida.bachbo na r beshidin…doa koiren.

    • আলবিদা।
      যেভাবে দাম বার্তেছে, তাতে বাচার কথা না 😉
      ইয়ে, বেশীদিন বাচবেন না, তারপরও দোয়া করার কষ্ট দিতে চাচ্চেন?
      আলবিদা।
      আবার আইসেন

  123. ইতি মৃণালিননী, ভারত, ২০১০
    অপর্না সেনের সিনেমা। মা এবং মেয়ে একই সিনেমায় একই চরিত্রে অভিনয় করেছে। সিনেমার অভিনেত্রীর জীবনের বেশ কিছু বাক বিশেষত প্রেম নিয়ে এই সিনেমা। অপর্ণা সেন যথারীতি পরিচালনায় মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন। সিনেমাটি নিয়ে একটি রিভিউ লিখেছি।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    দ্য লিংকন লইয়ার, ইউ এস আ, ২০১১
    ব্র্যাড ফারম্যানের পরিচালনা। একজন দূর্নীতিগ্রস্থ লইয়ার কিভাবে একজন মানুষকে নির্দোষ প্রমাণ করতে গিয়ে নিজেকে ঝুকির মধ্যে ফেলে দেন সেই সিনেমা। দারুন শুরু ছিল সিনেমাটার, কিন্তু শেষটা হতাশাজনক। গল্প যেভাবে গড়ে উঠেছিল, তাতে শেষটা যেন জোর করে হয়েছে। উকিলের ভূমিকায় ম্যাথু ম্যাকনটি বেশ দারুন অভিনয় করেছেন।
    রেটিং: ৪/৫

    দ্য টাউন, ইউএসআ, ২০১১
    বেন অ্যাফ্লেকের পরিচালনা এবং অভিনিত সিনেমা। একটি শহর যার কুখ্যাতি রয়েছে ব্যাংক ডাকাতদের আশ্রয়স্থল হিসেবে। সেই শহরের কিছু তরুন ব্যাংক ডাকাতি করে বেড়ায়। একটি ডাকাতির সময় যে মেয়েটিকে জিম্মি করেছিল তারই প্রেমে পড়ে যায় মূল প্ল্যানার। ঘাঘু এক পুলিশ অফিসার তখন খুজে বেড়াচ্ছে এই দলটিকে। দুর্দান্ত সিনেমা।
    সিনেমার এন্ডিংটা অন্য কোন সিনেমায় ছিল, মনে করতে পারতেসি না, হেল্প করুন প্লিজ।
    রেটিং: ৫/৫

    কিল দ্য আইরিশম্যান, ইউএসআ, ২০১১
    ড্যানি গ্রিন নামের একজন শ্রমিক নেতা থেকে শুরু করে মাফিয়া লিডার হয়ে যাওয়া এবং তার মৃত্যুর ঘটনা। কিভাবে একের পর এক বাধা দূর করে সে এই পর্যায়ে উঠে, কিভাবে তাকে হত্যার অনেকগুলো প্রচেষ্টা থেকে বেচে যায় সেই গল্প এখানে। মাস্ট সি সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

    অপরাজেয় বাংলা, বাংলাদেশ, ২০১১
    স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতীক অপরাজেয় বাংলার নির্মান ইতিহাস এবং এর সাথে জড়িত আন্দোলন চেতনা নিয়ে নির্মিত ডকুমেন্টারী। সকল বাংলাদেশীর অবশ্যই দেখা উচিত। দেশেই ফ্রি শো চলছে। এইনিয়ে রিভিউ দেখতে পারেন।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    ষা ফেমি নিকিতা, ফ্রান্স, ১৯৯০
    লুক বেসোর সিনেমা। মাদকাসক্ত এক তরুনীকে গায়েব করে ফেলে সরকারী বাহিনী, তারপর তাকে প্রশিক্ষন দিয়ে নতুন পরিচয়ে তৈরী করা হয়। তারপর আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে দেয়া হয় – শর্ত, নির্দেশ পাওয়ামাত্রই কাজে নেমে পড়তে হবে। কিন্তু মেয়েটা পড়ে গেল একটি লোকের প্রেমে। এর মাঝে একদিন বেজে উঠল ফোন – নির্দেশ এসে গেছে।
    চমৎকার সাউন্ড ট্র্যাক এই সিনেমায়। লিও দ্য প্রফেশনাল যারা দেখেছেন তাদের অবশ্যই ভালো লাগবে।
    রেটিং: ৫/৫

    মিউনিখ, ইউএসআ, ২০০৫
    স্টিভেন স্পিলবার্গের এই সিনেমাটা মিউনিখ অলিম্পিকের সময় ইহুদী খেলোয়ারদের হত্যা এবং পরবর্তীতে ইজরায়েল কতৃক হত্যা অভিযান নিয়ে। সত্যিই খুব দারুন সিনেমা। ইহুদী দৃষ্টিকোন থেকে দেখা হয়েছে বলে ইহুদীদের প্রতি সহানূভূতি জাগতে পারে। সত্যিটা মাথায় রাখবেন তাহলেই চলবে 🙂
    রেটিং: ৫/৫

  124. বছরের শেষ দিনে দেখলাম Warrior (2011) এবং এটা আমার দেখা ২০১১ সালের সেরা মুভি। দুঃখজনক হলো, দারাশিকো জানালেন, এই মুভি কোন ধরনের পুরষ্কারের জন্য দৌড়ে নেই।

    • সামুতে কাউসার রুশো ভাইয়ের বছরের শেষ দুটো পোস্ট দ্রষ্টব্য। হয়তো তালিকার কিছু সিনেমা এটার চেয়েও ভালো 🙂

  125. sourav says:

    you dont mess with the zohan

    • দারাশিকো’র ব্লগে স্বাগতম সৌরভ 🙂
      জোহানকে যদিও আমি চিনতে পারতেসি না, তবে আপনার কথা মনে থাকবে 😉
      সাবধান করার জন্য ধন্যবাদ
      আবারও আসবেন 🙂

      • sourav says:

        oikhane adam sandler odvut accente english bole.oi accente ekhon amio boli

      • sourav says:

        http://en.wikipedia.org/wiki/You_Don%27t_Mess_with_the_Zohan

        ধন্যবাদ।
        জনি ইংলিশ রিবরন দেক্সিলাম কিসুদিন আগে।প্রথমটার মত ভাল হয়নাই।তবে শেষ করসে হাসি দিএ।
        ডন২ dvdscrদেখলাম।শেষ ৪৫ মিনিত ছরম।মিউজিক চ্রম খ্রাপ। শাহরুখ ভক্তরা অবশ্যই দেখবেন।রা ওয়ানের মত বাল ছালের চেয়ে ভাল।মিউজিক আর প্রোমোশন ভাল হলে আর জমতো।রেটিং ৩/৫।
        এক্স ম্যান ফার্স্ট ক্লাস ।এক্স ম্যান চতুরলজির 😉 সবচেয়ে ভাল ছবি। আমি ত ইয়ং ম্যাগনিটোর দিওয়ানা হয়ে গেসি।রেতিং ৪.৫/৫।

        • sourav says:

          অভ্র ফনেটিকের মায়রেবাপ

        • জোহান দেখি নাই, এইটাইপের কমেডি সিনেমা খুব একটা ভালো লাগে না।
          ডন ২ দেখবো কিনা জানি না, ১ নাম্বারও দেখি না।
          এক্সমেন দেখতে হবে

  126. Puspita Hossain says:

    দিনকাল বালা নি বাইজান?

    • এমন দিনে জিগাইলেন 🙁
      সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে দেখি হার্ডড্রাইভ ক্রাশ করসে। গরীব মানুষ, সামলানো কষ্টকর। ভেতরে যা ছিল সেইগুলার জন্য বেশী কষ্ট।
      আপনি কেমন আছেন?

      • Puspita Hossain says:

        i feel u man..:(…harddrive crash korle ami mone hoi debdash hoye jaitam..:(:|

        আমি এখনো বাইচা আছি…কদ্দিন থাকুম কইতে পারিনা…ফেব্রুয়ারী ১৪ এ পরিক্ষা শেষ…ভাইভা র আগে আমাগো ফাযিল স্যার গুলান বলতে গেলে কুন ছুডি ই দেয় নাই…মাবুদ ই জানে কেমন হইব পরীক্ষা…ভ্যালেন্টাইন্স ডে দিয়া আমার কুন কাম নাই…মাছি মারা ছাড়া…হুদাই ফেল মারা লাহান পরীক্ষা না দিয়া আর কদিন ছুডি পাইলে একটা চান্স ছিল…:S

        • হার্ডডিস্কের ডাটা উদ্ধার প্রক্রিয়া জারি আছে। খুব সম্ভবত হার্ডডিস্কটা এবারের মতো বেচেঁ যাবে 🙂

  127. Afrna says:

    হ্যালো, কেমন আছো ভাই? সিনেমা দেখার জন্য কলিজা কান্দে  আবার ধুমায় সিনেমা দেখতে চাই। ফেসবুক বিরতি দিয়ে দিলাম। দেখি এবার সময় বের হয় কিনা। এর মধ্যে ভালো কোন সিনেমাই দেখা হয়নি! যত্তোসব মুড়িমুড়কি মার্কা জিনিসপাতি দেখে সময় নষ্ট করেছি। তাও তার মধ্যেও কিছু জাতের ছিল। Lolita(1997), 50/50 দেখলাম। প্রথমটা ভালো লেগেছে, পরেরটা মাঝামাঝি। জাপানিজ সিনেমা nobody knows শুরু করেছি। আরো বাকি in july, last tango in paris(সাবটাইটেল-ওয়ালা পেলাম না), the bridge on the river kwai, run lola run, unfaithful.

    • আপুকে আবারও স্বাগতম, বেশ কিছুদিন পরে এলেন বলে।
      ফেসবুক কিন্তু সত্যিই থ্রেট হযে গেছে, অন্যান্য কাজগুলোকে আটকে দিচ্ছে বেশ শক্ত ভাবে। সিদ্ধান্তটা তাই সঠিক হৈসে। আমার ঈমান দুর্বল, এই সিদ্ধান্ত নিয়া বেশী সময় দূরে থাকতে পারি না 🙁
      ট্রি অব লাইফ নিয়ে সিনেমাখোর গ্রুপে আপনার আলোচনাটা ফলো করেছিলাম, এ কারণে সিনেমাটা নামাইসিলাম। কিন্তু গতকাল সকালে হার্ড ডিস্ক ক্রাশ করেছে 🙁 পিসি ঠিক হলে দেখে ফেলবো আশা করছি।
      রান লোলা রান দেখেছি, দারুন সিনেমা। এই ভদ্রলোকই কিন্তু পারফিউম দ্য স্টোরি অব আ মার্ডারার তৈরী করেছিলেন।
      ভালো থাকুন আপু। 🙂

      • Afrna says:

        ঈমানে আমারও টান পড়ে যাচ্ছে 🙁 তবে ‘সিনেমাখোর’ গ্রুপটা কাজের! ট্রিভিয়া-ট্রিভিয়া খেলা একটু বিরক্তিকর হয়ে যাচ্ছে! পারফিউম দ্য স্টোরি অব আ মার্ডারার দেখেছি। জটিল!!! আমার কেন জানি পরিচালক ধরে সিনেমা দেখা হয় না। রেটিং দেখে সিনেমা নামাই :s অতি রোমান্টিক, অতি অ্যাকশন টাইপ কম দেখি। আর থ্রিলারের ১০০০ হাত দূর দিয়ে চলাফেরা করি 🙁

        যাই হোক, ‘nobody knows’ অসাধারণ। আরেকটা মুড়িমুড়কি মার্কা সিনেমা দেখলাম ‘it’s a wonderful afterlife’. সিনেমা দেখার চেয়ে Sendhil Ramamurthy-কে দেখার আগ্রহ বেশি ছিল এখানে!!! :”> দেখি আজকে লোলাকে নিয়ে বসবো!

        ভালো থেকো, পিসি দ্রুত সুস্থ হোক! 🙂

        • ধন্যবাদ আপু, পিসির পূর্ণ সুস্থ্যতা দেরী হবে। মেজর অপারেশন এন্ড ট্রান্সপ্লান্টেশন দরকার হবে। সে ব্যয়সাপেক্ষ। আপাতত টিকিয়ে রাখার ব্যবস্থা হচ্ছে। 🙂
          সিনেমাখোর গ্রুপটা সত্যিই দারুন কাজ করছে। এখানে সিনেমার রিকমেন্ডেশন বিশ্বাস করা যায়। ট্রিভিয়াটা এনজয় করতেসি, কিন্তু পার্টিসিপেট করতে পারতেসি না – পারি না তো কিছুই 🙁
          আপনি নিয়মিত আসছেন দেখে বেশ ভালো লাগছে আপু 🙂 আপনার জন্য ভোলার কাচা দই 🙂

  128. Afrna says:

    ওহ! the tree of life-এর কথা তো ভুলে গেলাম! ওটাও দেখেছি!

  129. sumon says:

    cinema dekhsi onek gulan….jehetu ami aktu bollywood premi tai cinemagulan o bollywoody…..
    DON2….chole tobe farhan akhtarer kase aro asa chilo….
    LADYS VS RICKY BAHL…vua…,
    SHAITAN…notun director…making a vinnota ase….,
    arekta chobir nam bolbo ROCKSTAR…..ami jani darashiko vaier mumbai cinemar proti bod hoy allergy ase tobe ami apnake ai chobi ta dekhte bolbo…..imtiaz alir vokto ami tar…’jab we met’chobi theke……..loktar making a akta jadu ase ……ami janina apnar valo lagbe kina……tobe amar kase ooooshadharon akta chobi rockstar

    • হিন্দী সিনেমা আসলেই কম দেখা হয়, এত ইমোশনাল সিনেমা ভালো লাগে না, তাছাড়া হিন্দী ভাষাটাও বুঝি না, সাবটাইটেল ছাড়া হিন্দী সিনেমা দেখলে আমি বুঝি না 🙁 হিন্দী সিনেমা না দেখার ফলাফল 🙂

      রকস্টার দেখার ইচ্ছে ছিল। কে যেন একটা রিভিউ লিখেছিল রকস্টার নিয়ে, সম্ভবত রাজিন, ওটা পড়ার পর আগ্রহ মিইয়ে গেছে। তাছাড়া, রকস্টার সিনেমার গানগুলো রক হয়নাই বলে আমি বেশ কষ্টিত। সাম্প্রতিক আলোচিত সিনেমাগুলোর মধ্যে রকস্টার, দিলি বিলি, আমির খানের কি যেন একটা সিনেমা এসেছে ওগুলো দেখার ইচ্ছা আছে, তবে আগ্রহ এত বেশী না যে অন্যগুলো বাদ দিয়ে দেখবো। তবে আপনার কথা মাথায় থাকবে বস।
      দেখে ফেললে লাভই বেশী 🙂
      পিসি অসুস্থ্য হয়ে পড়েছে বলে রিপ্লাই দিতে একটু দেরী হলো, দু:খিত। ভালো থাকুন সুমন 🙂

  130. Puspita Hossain says:

    লিখিত পরীক্ষা শেষ করে বাসায় আসলাম… একটা রবার্ট রেডফোরড এর মুভি দেখি…১৯৭৫ এর…থ্রী ডেইজ অফ দা কন্ডর…স্পাই থ্রিলার হিসেবে খারাপ না।

    তো ভাইজান ভালা নি?

    • ভাইজান পিসি নিয়া একটু ঝামেলায় আছে। হার্ডডিস্ক ক্রাশ করসে, এখন উবন্টু চালাইতে হৈতেসে। ফলে বাংলা লেখাটা একটু ঝামেলার।

      ভাইজান ভালোই আছে, কারণ সে এক সপ্তাহ ট্যুর দিয়া আসছে, বাবা মায়ের সাথেও দেখা করছে। এইবারের স্পেশাল ট্যুর হৈল ভোলার চর কুকুরি মুকড়ি – সে খুবই চমৎকার জায়গা। জংগলটা দারুন:)

  131. sumon says:

    UNKNOWN…moja paisi deikha,….
    22 SHE SHRABON…ai movie tar directorer prothom chobita chilo autograph..valo lagchilo tai ata dekha…atao valoi lagse bangla cinemai serial killing…mone hoi prothombar…tobe arektu teka poisa khoroch korle bod hoi aro valo hoito……
    GANDU…aitao bangla cinema….sadakalo…purai paglate chobi…akhon aita normal cinema naki porn seita niye sondeho ase dujon bes porichito tv actress kolkatar …r ki komu kon……..
    AGNEEPATH….sompurno dhundumar comercial cinema…boss lagse…bises koira sanjay dutt er acting r look

  132. Afrna says:

    কি ভাই ডুব দিছো??? সিনেমা দেখা হচ্ছে না। আবার বইও জমা হচ্ছে কতগুলি! কোনটা রেখে কোনটা ধরি? 🙁 এ কয়দিনে দেখলাম The Goonies, The Truman Show, Atonement আর হিন্দি rockstar. তুমি Where the Wild Things Are দেখছো? সিনেমা মেকিংটা সুন্দর, গল্পটা বেশি মাথায় ঢুকে নাই!

    • ডুব দিতে হল। পারিবারিক প্রোগ্রাম, না থাকলে হয় না – সুতরাং সব কিছু থেকে ডুব। তাছাড়া পিসিটা ঝামেলা করছে কিছুদিন – গরীব মানুষের দুর্বল পিসি – ধুকে ধুকে চলে 🙁

      গুনি দেখি নাই, Where the Wild Things Are ও দেখি নাই … দ্বিতীয়টা দেখার আগ্রহ বোধ করছি … তবে কবে যে দেখবো সেইটাই বুঝতে পারতেসি না 🙁

      মনে করে কমেন্ট করে গেলেন – তাই ধইন্যা 🙂

  133. Afrna says:

    ওহ আর আজকে দেখলাম Raise the Red Lantern

  134. Puspita Hossain says:

    বাইজান…পরিক্ষা শেষ …বাংলাদেশ! এখন কন কি কি মুভি দেখুম…২০১১ এবং ২০১২ এর…গত এক বছরে মুভি দেখার পরিমান খুব আশংকা জনক ভাবে কমে গেসে… সুতরাং সব কটা ভালা ভালা মুভি র নাম দিবেন কইলাম!

    • গুড। আপনাকে মিস করছিলাম বেশ কিছুদিন ধরে। আপাতত বিভিন্ন তালিকায় পুরস্কারপ্রাপ্ত সিনেমাগুলো দেখে ফেলুন। আমার দেখা হয়নি ওগুলো। আপনার মন্তব্য পড়ে দেখবো 🙂

      • Puspita Hossain says:

        বাইজান দিকি ফাঁকিবাজ হয়া গেসেন!!আমার উপ্রে দিয়া চালাইতে চান।।আমি আরো কই আশা করসিলাম যে আপনে আমারে শর্ট লিস্ট কইরে দিবেন!হতাশ!!

        রানওয়ে নরসুন্দর আর একুশ পাবলিক লাইব্রেরি তে দেখাইতেসে…৫০ টাকা টিকিট। ১৭ তারিখ দেখে আসছি…রান ওয়ে থেকে আরেকটু বেশি আশা ছিল । নরসুন্দর ভালই । তবে আরেকটা মিশুক মুনির আসলেই এই দেশে তৈরি হবে না বহুদিন!

        বাইজান…রাই অ্যালবাম টা শুনসেন? না শুনলে অবশ্যই শুনেন…বহুদিন পর আনুশেহ র কাজ অসাধারন হইসে।

        • শাহবােগ যাওয়া হচ্ছে না বহুদিন – এ কারণেই জানা হয়নি তারেক মাসুেদর সিনেমার কথা। দেখি আজ দেখা যায় কিনা।

          আপনােক শর্ট লিস্ট করে দেবো আমার কি সেই যোগ্যতা আছে? আপনি তো আমার চেয়েও বড় সিনেমাখোর 🙂
          রাই অ্যালবাম শুনি নাই – শোনার ইচ্ছা রাখছি। দেখি ডাউনলোড করা যায় কিনা 🙂

          • Puspita Hossain says:

            বাইজান আজকে গেলে ৩ টার শো এ যান, নয়ত ৫ তার শো এর জন্য ৪ টা থেকে লাইন দেওয়া লাগবে, অমানুষিক ভিড় হয় ।

            হেহ…আপনিও বললেন কথা, আমিও নাড়লাম মাথা! আমি আপনার থেকে বড় সিনেমাখোর হইতে পারিনি এখনও । দেরি আসে!

            রাই মাই স্পেস আর সাউন্ডলোড এ ছাড়সে…ডাউনলোড করতে গেলে একটু ঝামেলা আসে…তবে সব কিছুই তো সিস্টেম করা যায়!

            • ৩টার শো-তে যাওয়ার নিয়ত করতেসি। ইনশাল্লাহ থাকবো সেখানে।

              ডাউনলোড করার জন্য অপেক্ষা করতে হয় তবে। পারলে ডাউনলোড লিঙ্ক দিয়েন 🙂

              http://www.mediafire.com/?n0s7trajnc3n6er
              ব্লগারদের সিনেমাব্লগ নিয়ে ইবুক একমুঠো চলচ্ছবির দ্বিতীয় পর্ব বের হল। আপনি এটা ডাউনলোড করে নিন। ভালো সিনেমাগুলো এখান থেকেই জানতে পারবেন। সাথে রিভিউ। সুতরাং ঠকার কোন আশঙ্কা থাকবে না।

              ভালো থাকুন পুষ্পিতা 🙂

  135. The Classic, Korea,
    কোরিয়ান রোমান্টিক সিনেমা। একই সাথে দুটো সময়ের প্রেম তুলে ধরা হয়েছে সিনেমায়। সিনোমাটোগ্রাফি দারুন, রোমান্সটাও ছুয়ে যাবে।
    রেটিঙ: ৪/৫

    Tree of Life, USA, 2011
    এই সিনেমাটা দুর্দান্ত, তবে দুর্বোধ্যও বটে। সিনেমাটোগ্রাফি অসাধারণ, আর গল্পের ইনার মেসেজটা। ব্রাড পিট অভিনয় করেছে। এরকম সিনেমা ২০-৩০ বছরে একটা দুটো তৈরী হয়। এতটাই প্রভাবিত যে একটা রিভিউ লেখার চেষ্টা করতেই হল।
    রেটিঙ: ৫/৫

    The Adjustment Bureau, USA, 2011
    ম্যাট ডেমন এর এই সিনেমাটা ভাবাতে সাহায্য করবে। অন্তত: এই সিনেমা থেকে একটা বিষয় আমি পজেটিভলি নিয়েছি। যোগ্য লোকদের প্রেমে জড়ানোর আগে স্রষ্টার দৃষ্টিকোণ থেকে চিন্তা করা যেতে পারে।
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

    Reservoir Dogs, USA,
    টরান্টিনোর প্রথম সিনেমা। ডার্ক কমেডি, দারুন ভায়োলেন্স। টরান্টিনো বোঝার চেষ্টা করতেছি।
    রেটিঙ: ৪/৫

    Chinatown, USA, 1974
    এই সিনেমাটা নিয়া ব্লগ লেখার চেষ্টা চলছে, মাস্টারপিস সিনেমা।
    রেটিঙ: ৬/৫

  136. কাউসার রুশো says:

    ১. রানওয়ে, নরসুন্দর, একুশ
    রানওয়ের ক্যামেরার কাজ দেখে মুগ্ধ
    ২. ফিরে এসো বেহুলা
    বেশ ভালো কাজ। তবে স্ক্রিপ্ট এ গল্প নিয়ে কিছুটা আপত্তি আছে
    ৩. মিশন ইম্পসিবল ফোর
    স্টার সিনেপ্লেক্সে দেখে দুর্দান্ত লেগেছে
    ৪. কিম কি দুকের ‘ব্যাড গাই’
    আস্তে আস্তে কিম কি দুকের উপর বিরক্ত হয়ে উঠছি। এ ব্যাপারে আলোচনার আমন্ত্রণ থাকলো
    ৫. এ সেপারেশন
    দুর্দান্ত
    ৬. ইমমোর্টালস
    জমে নাই।
    ৭. উডি অ্যালেনের ভিকি ক্রিস্টিনা বার্সেলোনা
    চিত্রনাট্যের ব্যাপারে উডি অ্যালেন অপ্রতিদ্বন্দ্বী
    ৮. উডি অ্যালেনের মিডনাইট ইন প্যারিস
    এখন পর্যন্ত ২০১১ সালে দেখা অন্যতম সেরা মুভি

    ওয়ান্স আপন এ টাইম ইন আমেরিকা দেখছি তিন দিন ধরে…
    ডাক, ইউ সাকার মুভিটার লিংক থাকলে কাইন্ডলি দিয়েন

    • রানওয়ে নরসুন্দর একুশ একটাও দেখি নাই 🙁 কই দেখলেন এইগুলা?
      বাকীগুলার একটাও দেখি নাই। ভিকি ক্রিস্টিনা বার্সেলোনা হাতে পেয়েছিলাম, কিন্তু কোন কারণে পছন্দ হয় নাই, তাই দেখি নাই।
      কিন্তু আপনার মন্তব্য পড়ে একটু আফসোসই হচ্ছে। “চিত্রনাট্যের ব্যাপারে উডি অ্যালেন অপ্রতিদ্বন্দ্বী” – এই লাইনের বিশদ ব্যাখ্যা করলে ভালো হত। বিশেষ করে ভিকি ক্রিস্টিনা বার্সেলোনা সিনেমার প্রেক্ষাপটে। আমি ভালো চিত্রনাট্যের ব্যাপারে একটু আগ্রহ বোধ করছি ইদানিং। চায়নাটাউন সিনেমাটা সে কারণেই দেখা। দেখা শেষ, পড়েছি কিছু, এখন লিখার চিন্তা চলছে।
      এই প্রশ্নের উত্তর পাবার পর কিম কি দুক নিয়ে আলোচনা শুরু হবে ইনশাল্লাহ 🙂

    • নরসুন্দর, রানওয়ে ও একুশ দেখে এলুম। একুশ বেস্ট। সিনেমাটোগ্রাফি তাক লাগিয়ে দেয়ার মত – স্যলুট টু মিশুক মুনির।

  137. Puspita Hossain says:

    boss…owe you one.thanks for the list..:)

    let us know what u think about runway.

    • watched Runway, Noroshundor and Ekush while ago. Ekush was the best among the three. Really Exclusive.
      You better start about Runway. Then I will in my turn. Saying first is somewhat risky for me 🙂

      • Puspita Hossain says:

        আমার কাছেও একুশ বেস্ট লাগসে। এরিয়াল ভিউ গুলো ছিল অসাধারণ। হ্যাটস অফ মিশুক মুনির। ইন ফ্যাক্ট ৩ টার ই সিনেমাটোগ্রাফি অসাধারণ লাগসে।

        বাইজান তো বিপদে ফালায় দিলেন! আমার মুভি নিয়ে কিছু বলার ধৃষ্টতা নাই। তবে কয়েকটা জিনিস মনে হইসে…তাই শেয়ার করলাম।

        ১। সিনেমায় তিশার কোন প্রয়োজনীয়তা পেলাম না।
        ২। এক সাথে অনেকগুলো টপিক তুলে আনার চেষ্টা করা হইসে। এন জি ও, বিদেশে চাকরি, তার সাথে জঙ্গি এবং ইসলাম এর নামে মাথা হোয়াইট ওয়াশ সব গুলো জিনিসে ফোকাস করতে গিয়ে একটু অগোছালো লাগসে।
        ৩। সবচেয়ে বড় যে জিনিস টা একটু মনে হইসে সেটা হল গল্পটা। আমার কাছে দুর্বল লাগসে গল্প।

        ভয়ে ভয়ে পোস্ট দিতেসি…তুলকালাম না লাইগে যায়!!

        • বাংলাদেশের সিনেমায় আমি হেলিকপ্টারে করে শট নিতে দেখেছি এমন আরেকটি সিনেমা – খোজ দ্যা সার্চ। অবশ্য আমি শিওর না সেই শটটা সত্যিই নেয়া হয়েছিল নাকি স্টক ফুটেজ ব্যবহার করা হয়েছিল। কিন্তু এই সিনেমার শেষ দৃশ্যটা সত্যিই অসাধারন ছিল। শুরুর দৃশ্যটার কথাই বা বলবো না কেন। একুশ – এ ক্যামেরার কাজের জন্য মিশুক মুনীরকে একটা পদক দেয়া যেতে পারে।

          তিশার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে প্রশ্ন পেয়ে আমি খুবই অবাক হয়েছি। আমার ধারণা ছিল সবাই এই প্রসঙ্গটা ইগনোর করে যাবে। একটু আগে আমি ফেসবুকের স্ট্যাটাসটা দেয়ার সময় এই ঘটনাটাই মনে পড়ছিল। তিশার উপস্থিতির সাথে সাথে হলভর্তি মানুষের মধ্যে আমি হাসির আওয়াজ পেয়েছি, গুঞ্জন শুনেছি। আমি বুঝেছি – এরা তিশার উপস্থিতিকে দেখছে মোটাদাগে। একজন ইসলামিস্ট ব্যক্তিজীবনে প্রেম করছেন তাও আবার বোরকা পড়া মেয়ের সাথে, অথচ মুখে আল্লাহর সন্তুষ্টির কথা – এটা ভন্ডামির চিহ্ন হিসেবেই দর্শকের কাছে উপস্থাপিত। কিন্তু একটু পরেই বোঝা গেল – তিশা তার প্রেমিকা নন, স্ত্রী। তবে সে কেন?

          উত্তরটা পাওয়া যায় দুজনের সংলাপে। একটু খেয়াল করলে বোঝা যাবে এই সিনেমার প্রায় প্রত্যেকটা চরিত্রই সমাজের কোন না কোন অংশকে রিপ্রেজেন্ট করছে। আরিফ যদি উগ্রপন্থী কোন দলের রিপ্রেেজন্টিটিভ হয়, তবে তিশাও অন্য কোন অংশের। যেহেতু তাদের সংলাপটা পলিটিক্সকেন্দ্রিক – বোঝা যায় তিশা কোন একটা পলিটিক্যাল দলের সদস্য। এমন একটা দল যারা গনতন্ত্রের সাথে ইসলামের কথা বলে। নারী সদস্য আছে এরকম একটা দলই আছে বাংলাদেশে – জামাতে ইসলামী – তিশা তাদেরই রিপ্রেজেন্ট করছে। এখন প্রশ্ন হল তিশাকে উপস্থিত করা কেন? কারণ আর কিছুই নয়, ইসলাম নিয়ে যে কটা দল/মত রাজনীতি করছে তাদের একটি জামাত এবং তাদের ভূিমকা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাবে। তিশার উপস্থিতিতে সংলাপের মাধ্যমে বুঝিয়ে দেয়া হল – জামাত হল ভন্ড একটি দল যারা ইসলামের নাম দিয়ে ক্ষমতা দখল করতে চায়।

          আমি জানি না এটা তারেক মাসুেদর ইচ্ছাকৃত কিনা – তিশার উপস্থিতি এবং সংলাপের মাধ্যেম তিনি একদিক থেকে জামাতের পক্ষেও কথা বলেছেন। জামাত-শিবিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল তারাই জঙ্গীদলের মদদদাতা, পৃষ্ঠপোষক। অথচ এখানে বোঝা গেল – তা নয়। বরং আদর্শের জায়গায় এক থাকলেও উপায়ে ভিন্নতা থাকায় আরিফ সেই পথ থেকে বের হয়ে নতুন পথে হেটেছে।

          আপনার বাকীদুটো পয়েন্টের সাথে আমি দ্বিমত করবো না। তারেক মাসুদের সিনেমাগুলোর মধ্যে আমি প্রোপাগান্ডা গন্ধ পাই বেশ ভালোরকম। এই সিনেমাটাও তার ব্যতিক্রম নয় বরং প্রমাণস্বরূপ। সুতরাং তিনি অনেকগুলো বিষয়কে ফোকাস করার চেষ্টা করবেন সেটাই স্বাভাবিক। ফলে ব্যাপারটা অনেকটা মিস্টির মধ্যে ঔষধের বড়ি খাওয়ানোর মতো হয়ে যায়।

          গল্পের দুর্বলতা আমার তেমন লাগে নি। যেটা লেগেছে সেটা হল – উনি বড্ড ছোট টাইমফ্রেমে ঘটনাগুলো আটানোর চেষ্টা করেছেন। এত অল্প সময়ে একটা মানুষের ব্রেন ওয়াশ হয় না, যারা ওয়াশ করে তারাও এত বোকা না যে এত তাড়াতাড়িই তাকে ফিজিক্যাল ট্রেইনিঙ আর মিশনে পাঠাবে। এই জায়গায় গল্পটা তার জায়গা থেকে আলগা হয়ে গেছে – বাস্তবতা নিয়ে দর্শককে সংশয়ে ফেলতে পারে এই ঘটনাবলী।

          আরেকটা ব্যাপার। আরিফের উপস্থাপনটা খেয়াল করুন। তাকে দেখে কিন্তু কোথাও ভয়ঙ্কর বলে মনে হয় নি। তার চেহারা, আচরন এইসব ব্যাপারে একটা নিষ্পাপতা আছে, সে একজন ভিক্টিম বলেই হয়তো এই উপস্থাপন, কিন্তু সাধারণ দর্শকের ভেতরে যে ধারনা আছে তার সাথে এই চরিত্র খাপ খায় না। জঙ্গী শব্দটাই এমন যে কল্পনায় আমরা একটি ভয়ঙ্কর লোককে দেখি, যার মাথায় টুপি এবং যে খুনীর দৃষ্টি নিয়ে ঘুরে বেড়ায়। অন্তত: বলিউডের সিনেমা এবং দেশের মুক্তিযুদ্ধের সিনেমাগুলো এইরকম একটি চেহারা আমাদের ভেতরে আকতে সাহায্য করেছে। ফলে, চরিত্রটা খুবই বাস্তব হলেও দর্শককে কতটুকু প্রভাবিত করবে সেটা ভাবনার বিষয়।

          এই খুতগুলো ঢাকা পড়ে যায় সিনেমাটোগ্রাফি আর নতুন অভিনেতাদের চমৎকার অভিনয়ে। এছাড়াও আছে গুনি পরিচালক হিসেবে তারেক মাসুদের সুনাম। তারেকের সিনেমা হিসেবে রানওয়ে ভালো সিনেমা, তবে অনেক ভালো সিনেমা নয় 🙂

          • Puspita Hossain says:

            বাইজান কি ভাল অর্থে অবাক হইসেন নাকি আমি এরকম একটা মূর্খের মত প্রশ্ন করসি এইজন্য অবাক হইসেন? 😐

            তিশার ব্যাপার টা আমার কাছে এখনও ক্লিয়ার না। ভণ্ড রাজনীতি শুধু না…যাই হোক…খানিক টা বুঝলাম। কারণ জামাতের ব্যাপার টা আমার কাছেও কনফিউজিং। একচুয়ালি কি বুঝানোর চেষ্টা করা হইসে এটা আমি এখনও শিওর না।

            আর আরিফ কে আমার অবাস্তব লাগেনি খুব একটা…কারন আমি আমার আশে পাশে মাথা হোয়াইট ওয়াশ মানুষ দেখসি। এরা এরকম ই নিরীহ টাইপ। কয়জনের চেহারা এখন অরিজিনাল জঙ্গি র মত হবে বলেন! আর তার অভিনয় অবশ্যই ভাল হইসে…কিন্তু কতটা ভাল হইসে এটা আসলে বোঝা যাবে যদি মানুষ তাকে জঙ্গি হিসেবে মেনে নিতে পারে!

            এ ক্ষেত্রে একটা কথা মনে পড়ল..অপ্রাসঙ্গিক যদিও… .শতাব্দি ওয়াদুদ পুরো বাঙালি একটা চেহারা নিয়েও যে কি চমৎকার অভিনয় করসে গেরিলা তে বলেন!

            • পৃথিবীতে কেউই মূর্খ নয়, অশিক্ষিত নয় – নিরক্ষর বা স্বল্প শিক্ষিত হতে পারে। অবাক হয়েছি কারণ সিনেমাটা দেখার পর আমি এই বিষয়টা নিয়েই চিন্তা করছিলাম, বুেঝছিলাম – অনেকেই এই উপস্থিতিটা বুঝতে পারবে না। আপনি প্রশ্নটা তুলেছেন বলে আলোচনাটা ভালো হল। ধন্যবাদ।

              রানওয়ে নিয়ে একটা রিভিউ পাওয়া গেল – ওয়াহেদ সুজন ভাইয়ের লেখা রিভিউ। যদিও তিনি ভাষায় গুরুচন্ডালী করেছেন, তথাপি রিভিউটা খুবই বিশ্লষনাত্মক। পড়ে দেখুন – ভালো লাগবে।
              http://wahedsujan.com/2011/02/19/tareque-masud-runway/

          • sumon says:

            boss aktu kotha koilam…runway niye kisu kotha…..1.ei chobir premier ctg te hoichilo…abong tarek masuder sathe handshake korar souvaggo amar hoichilo…ami tar fan bolte paren…..2.chobir onnotomo akta important scene jokhon chobita shuru hoi…akdom ondhokar vor theke dhire dhire alo fota…sei sathe sathe char paser kaj kormer bestota dhire dhire bara…sei ak oshadharon drisso aita je kemne cinematographar korlen…awesome…3.amar khub priyo akta scene…uronto biman k lokkho kore ak chotto cheler batul marar drisso…jeno dhoni somajer proti ba khomotabander proti doridrer ba osohayder…chorom grina…..4 chobitar mul upojibboi chilo amader deser ak shason amol…ja okkhore okkhore sotti……akta scene….pordar aral theke kono montri type lok jongi der bolchen apnara barabari suru korsen apnader aktu char disi boila adalote boma fataben ate to amader loss….ai type kisu……seiram boss …tarek masud shahosi chilen bote…..runway deikhai aktu likhlam amar khub priyo akta desi cinema

            • এই সিেনমার সিেনমাটোগ্রাফি বেস্ট – এর বাইরে কোন কথা নাই 🙂

              মন্ত্রীটা কোন দলকে রিপ্রেজেন্ট করসে বলে মনে হয় বস?

            • sumon says:

              boss…montrita to bujtei partasen…kon dol jongi go shelter dei…..kon dol koi ai dashe jongi tongi kisu nai…sob mediar sristi……

  138. Puspita Hossain says:

    বাই দা ওয়ে, বাইজান…ভিকি ক্রিস্টিনা বার্সেলোনা দেখতে আমার বড়ই পেইন লাগসে। মতান্তর হইতে পারে।

    • বোধহয় সে কারণেই আমার দেখা হয়নি সিনেমাটা। উডি অ্যালেন সম্পর্কে আমার তখন খুব ধারণা ছিল না, থাকলে কষ্ট করে হলেও দেখে নিতাম – বোঝার চেষ্টা করতাম। 🙂

  139. Puspita Hossain says:

    বাইজান যে কি জিনিস দিলেন আমারে!!! বইমেলায় কেনা বই ফালায় আমি বসে বসে এক মুঠো চলচ্ছবি পুরাটা পরে ফেললাম। এখন যে পরিমান মুভি আমার নামাইতে হইব দেইখে আমার মাথা ঘুরাইতেসে। জীবনে যে কতো কম জিনিস দেখসি! :@

      • Puspita Hossain says:

        বাইজান হাইসেন না! গত ২ বইমেলার বই পড়তে এখনও বাকি আসে তার সাথে যোগ হইসে এই বইমেলার বই। এর পরিমান মুভি নামাইলে আমি কিউবি এর ফেয়ার ইউসেজ পলিসি র চক্করে পড়ুম শিওর!

  140. Puspita Hossain says:

    ফেসবুক দিসি বন্ধ কইরে…এখন ধুমায় মুভি দেখতেসি। গতকাল আর আজকে মিলায় ৪তা মুভি দেখলাম।

    ১। অগ্নিপথ – মানুষের ভূয়সী প্রশংসা শুনে দেখলাম। আমার মুভি দেখার হাতে খড়ি অবশ্য পুরনো দিনের বাংলা আর হিন্দি মাসালা মুভি দিয়েই। পুরনো অগ্নিপথ আমার খুব পছন্দের মুভি আর অমিতাভ আমার ভয়াবহ টাইপ এর পছন্দের নায়ক/ অভিনেতা। তাই খুব ই শঙ্কা নিয়ে দেখতে বসলাম। যাই হোক… সঞ্জয় দত্ত, রিশি কাপুর আর ঋত্বিক রোশান আমাকে হতাশ করেনি। তিনজনের অভিনয় ই দুর্দান্ত।

    ২। দ্যা আর্টিস্ট – এ বছরের অস্কার নমিনি সিনেমা গুলো দেখতে বসলাম। এক কথায়… অসাধারণ।

    ৩। দ্যা ম্যান ফ্রম নো হোয়ের… ধুমা মারামারি সিনেমা দেখতে মন চাইসিল আজ সকালে। এক মুঠো চলচ্ছবি থেকে এই মুভি টার নাম পেলাম। ভালই। লিওন দ্যা প্রোফেসনাল এর সাথে মিল আসে।

    ৪। দ্যা ডিসেন্ডেন্টস… জর্জ ক্লুনি এর অভিনয় অনবদ্য। ভালো লাগসে।

    • ২০১১ সালের খুব বেশী সিনেমা দেখা হয়নি। আর্টিস্ট দেখিনি, ডিসেন্ডেন্টস ও না। অগ্নিপথ নিয়ে কোন আগ্রহ নাই – সুতরাং এইটা দেখার সম্ভাবনাও কম। কোরিয়ান সিনেমাটা দেখছি।

      ঢাবিতে চলচ্চিত্র উৎসব চলছে জানেন তো? সব সিনেমা বাংলা- এপার এবঙ ওপার বাংলার। প্রতিদিন ৪টা করে সিনেমা। আমি আগামীকাল সকালে কীর্তনখোলা দেখতে যাবার নিয়ত করতেসি, পরশুদিন জাগো আর ফিরে এসো বেহুলা। আপনার দাওয়াত। টিকেট মাত্র ২০ টাকা 🙂

  141. Puspita Hossain says:

    জানতাম না তো আসলেই! ৪ মাস পড়াশোনা করে আর হল এ থেকে বিতৃষ্ণা জন্মায় গেসে ডিএমসি এর প্রতি… ওই দিকে তাই যাওয়া টা কম হচ্ছে। জাগো দেখসি। কীর্তনখোলা টা দেখতে পারলে ভালো হইত। কাল কয়টা থেকে শো? র ফিরে এসো বেহুলা র টাইম টাও জানায়েন তো বাইজান।

    • ফেসবুকে দারাশিকো’র ব্লগের ফ্যানলিস্টে আপনি আছেন? শেয়ার দিয়েছি তালিকাটা দেখে নিন। দুপুরের পরের শো গুলোর টিকেট আগে কেটে রাখা ভালো, নচেত না পাওয়ার সম্ভাবনা আছে।
      আজ কীত্তনখোলা দেখে এলাম। কাল জাগো দেখতে যাবো, টিকেট কিনেছি 🙂

  142. Puspita Hossain says:

    ২ টা মুভি দেখলাম।

    ১। extremely loud and incredibly close… ছেলে টা অসাধারণ অভিনয় করসে। আর আমার প্রিয় অভিনেতা টম হ্যাঙ্কস এর উপস্থিতি তে মুভি টার প্রতি ভালো লাগা আরো বেড়ে গেসে।

    ২। chinatown…আপনার সাজেশন এ নামালাম এবং দেখলাম। কি্ আর বলব!! সেইরাম!

  143. Puspita Hossain says:

    ওয়ার হর্স দেখলাম। কিছু কিছু জিনিস ভালো লাগসে। আর ঘোড়া এম্নিতেই আমার খুব ভালো লাগে। সুতরাং সিনেমার হিরো কে আমার খুব পছন্দ হইসে ! 🙂

  144. Puspita Hossain says:

    বস…হিউগো দেখসেন? বেশ ভালো লাগসে। আপনার মতামত জানতে আগ্রহী।

    • নাহ মিস, হুগো দেখা হয় নাই – ২০১১ সালের খুব কমই সিনেমা দেখা হইসে।
      হুগোর ট্রেলার দেখছি – লোকজন সিনেমাখোরদের আড্ডা গ্রুপে ব্যাপক আলোচনা করতেসে … অংশ নিচ্ছি না – কারণ সিনেমাটাই দেখি নাই …

      আপনার বক্তব্যটা বলে ফেলুন না – পরে দেখা হলে রিপ্লাই দিয়ে দেবোক্ষন 🙂

  145. Puspita Hossain says:

    আমার বিশেষ কোন বক্তব্য নাই। সিনেমা টা ভালো লাগসে…বেশ ভালো লাগসে। অনেকে আমাকে বলসে যে এইটা আসলে বেশি বাচ্চাদের সিনেমা। আমার বাচ্চাদের সিনেমা দেখতে বেশ ভালই লাগে। এইজন্যই আপনার বক্তব্য টা জানতে চাচ্ছিলাম। সিনেমা টা পারলে দেখেন। ভালো লাগার কথা।

    • সিনেমাটাকে কেউ বাচ্চাদের সিনেমা বলে নাই, বাচ্চাদের নিয়ে সিনেমা হতে পারে – কিন্তু ব্ক্তব্যটা সম্ভবত খুব শক্তিশালী। দেখে ফেলবো শীঘ্রই ইনশাল্লাহ 🙂

      • Puspita Hossain says:

        এইজন্যই আপনাকে দেখার অনুরোধ জানাচ্ছি… আমার কাছে বাচ্চাদের সিনেমা মনে হয়নি। কেন আমাকে বলা হল এইটা বাচ্চাদের সিনেমা বুঝলাম না! বরং মনে হইসে খুব চমৎকার একটা মেসেজ আছে।

  146. Puspita Hossain says:

    boss…can u give me a link of “the warrior”? the torrent files i have downloaded are not working though i don’t know if it is because of my stupid qubee..:S

  147. ভাইয়া,এটা বানালাম।দেখেন কেমন হলো http://open.oritro.com/wp-content/uploads/2012/03/The-Obligation.mp3

  148. sumon says:

    LAL TIP..[.swapon ahmmed] ctg te almas a choltese…kaikle dekhlam…..moter upor amar valo lagse poisa ussol type movie…..tobuo kisuta postmortem kori……chobir kisu RINATTOK dik…..1.puro cinema jure background musicer shorgol….oproyojoniyo vabe backgroud music er use chobir mul emotion er barota bajai dei…2.chobir 1st half screenplay kisuta hozoborolo….ganjam pakaya dei…3.director jeheto paris a shot korse to paris er beauty dekhanor bar bar chesta oproyojoniyo vabe….ato galo kisu negative kotha ebar kisu DHONATTOK dik….1.superb cinematography…oshadharon 2.music video gulote aktu bollywoody gondho pawa galeo camerar osthir movement,batikrom angle dhallywoody chobite notun valo lage……..3.kusum shikder commercial content a vora akta ideal package nayika…ki appeal ki ovinoy dutoi….4.choreography r costume oshadharon…..5 emon er khetreo kusumer kotha projjojyo….mudda kotha commercial cinema hisebe fdc ghoranar chobi theke onekta bariye aste shokkhom director…..so congratulation to him…..valoi banaise…

    • লাল টিপ দেখি নাই বস। এখন পর্যন্ত পজেটিভ কিছু শুনি নাই সিনেমাটা সম্পর্কে। আপনিই প্রথম পজেটিভগুলো সম্পর্কে বললেন। গুড অ্যানালাইসিস।

      আপনি কবে বাংলায় লেখা শুরু করবেন বস?

    • আপনার এই মন্তব্যটি যেন পরিচালক জানতে পারেন তাই তাকে এই মন্তব্যের লিংক দিয়েছি। আশা করছি তিনি আপনার মত একজন দর্শকের সরাসরি ফিডব্যাক তার পরবর্তী সিনেমার উন্নয়নে লাগাবেন। ধন্যবাদ সুমন 🙂

      (বিস্তারিত এবং বাংলায় কিছু লিখতে পারেন কি এই সিনেমাটা নিয়ে?)

      • Sumon says:

        Thanx boss.likhbar to chai but shahose kulay na..knowledge to limited…tobe apni aktu sahos dile likhte pari.kailka age khata kolome likhi..gopon kotha ki janen..ami boss computer a technical e ddurbol..toy boss apni sahos dile try kori posondo hobe ki na janina

  149. Puspita Hossain says:

    ব্লু ভেলভেট দেখলাম। কিছু কিছু বিখ্যাত সিনেমা আমার ভালো লাগে না। এইটা তার একটা। এমনিতেই রোগ শোক নিয়ে কারবার…তার উপরে মুভি তেও বিকৃতি দেখতে মনে হয় ভালো লাগে না। 🙁

    • ডেভিড লিঞ্চ না? এই সিনেমাটা দেখা হয় নাই এখনো – জীবন আস্তে আস্তে কঠিন হচ্ছে 🙁

      • Puspita Hossain says:

        আমার মনে হইল আমি কেন দেখলাম। তারপরে মুভি টা নিয়ে একটু পড়াশোনা করলাম। ফিল্ম নয়র এর আরেকটা উদাহারন এই সিনেমা, এবং কাল্ট খ্যাতি প্রাপ্ত। দেখতে পারেন। অনেকেই অনেক ভালো ভালো কথা বলসে।

        বাইজান জীবন যে কি কঠিন ! এখন তো ২ মাস এর ছুটি কাটচ্ছি, জীবনের শেষ ছুটি! আবার কবে পাব কে জানে!

        • ব্লু ভেলভেট ডাউনলোড করা আছে। কিন্তু সেটা বাসায় নিয়ে আসা হচ্ছে না – এই যা। ডেভিড লিঞ্চ কালেকশন তৈরী করে একসাথে দেখতে চাই – দেখা যাক কবে হয়। ব্লু ভেলভেট খুবই বিখ্যাত সিনেমা সে জানা ছিল। এবার দেখাটা বাকী থাকুক 🙂

          আমার বেশ কটা বন্ধু, একটা বন্ধুতো বোন ডাক্তার – তাই আপনাদের জীবন সম্পর্কে কিছুটা আইডিয়া আছে 🙂 শুভকামনা পুষ্পিতা।

  150. একুশ, বাংলাদেশ,
    তারেক মাসুদকে চিনতাম, কিন্তু মিশুক মুনীর সম্পর্কে জানলাম যখন তিনি তারেকের সাথে দুর্ঘটনায় মারা গেলেন। কিন্তু তার কাজ দেখলাম এইবার। একুশ তিন মিনিটের একটা তথ্যচিত্র। একুশে ফেব্রুয়ারীর প্রস্তুতিদৃশ্যের সাথে স্ক্রলে বিিভন্ন ভাষায় ‘আমি আমার মাতৃভাষায় কথা বলতে ভালোবাসি’ লেখা। অসাধারণ সিনেমাটোগ্রাফি। একদম শুরুর দৃশ্যে যেভাবে ক্যামেরাকে ঘুরিয়েছেন – অ্যামাজিঙ। প্রায় সব দৃশ্যই ডায়নামিক – ক্যামেরা ঘুরেছে এদিক থেকে সেদিকে। আর সবশেষে রয়েছে একটা হেলিকপ্টার শট – মাই গুডনেস – বাংলাদেশী সিনেমায় আমার দেখা সেরা শট।
    রেটিঙ: ৭/৫

    নরসুন্দর, বাংলাদেশ, ২০১০
    এটা একটা শর্ট ফিল্ম। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে একজন মুক্তিযোদ্ধাকে ধরতে পাকবাহিনী হানা দিলে সে পালিয়ে একটা বিহারী সেলুনে হাজির হয়। শেভ করতে বসে, পাকিস্তানি সেনা আর বিহারীরা তার চারপাশে ঘিরে – ধারালো খুর গালে ছোয়াচ্ছে বিহারী – একটু নিচে পোচ দিলেই গলা ভাগ হয়ে যেতে পারে। টেনশন।
    তারেক মাসুদ থ্রিলার সিনেমা তৈরী করতে গেলে ভালো করতেন। এই সিনেমাটা তার প্রমাণ। মিউজিক, ফ্রেম, এডিটিঙ – দারুন টেনশন তৈরী করে। ছোট্ট সময়ের ফ্রেমে তিনি একই সাথে গোলাম আজম, মুজাহিদ এদেরকে এস্টাবলিশ করার চেষ্টা করাটা বোধহয় কিছুটা খাটো করেছে এর গুরুত্বকে। সিনেমাটোগ্রাফি যথারীতি অসাধারণ।
    রেটিঙ: ৫/৫

    রানওয়ে, বাংলাদেশ, ২০১০
    রানওয়ে নিয়ে আমি একটা কথাই বলবো – দুর্দান্ত সিনেমাটোগ্রাফি। মিশুক মুনীরকে স্যালুট। কিন্তু গল্পের বেলায় বলবো – আমার মনে হয়েছে, তারেক মাসুদ একটা চেক লিস্ট নিয়ে বসেছেন আর একটা করে দৃশ্য তৈরী করার পরে চেকলিস্টে টিক মার্ক দিয়েছেন। প্রত্যেক দৃশ্যে রূপক খুজতে গেলে দর্শককে তো পরীক্ষায় বসতে হবে – সিনেমা দেখা হবে না।
    রেটিঙ: ৪/৫

    জাগো, বাংলাদেশ, ২০০৫
    সিনেমার বিচারে খিজির হায়াত খানের এই সিনেমাটা হয়তো খুব একটা ভালো সিনেমা নয়। দুর্বল কাস্টিঙ, অপ্রয়োজনীয় বৃদ্ধি, কাচা অভিনয় ইত্যাদি দিয়ে এই সিনেমাটাকে বিশ্লেষন করা যেতে পারে। কিন্তু আমি করবো না। কারণ – এই সিনেমা দেখতে গিয়ে আমি এত জোরে চিৎকার করেছি যে পরে চা খেতে হয়েছে, এত জোরে হাত তালি দিয়েছি যে পরে ক্রিম ঘষতে হয়েছে, আর অন্তত সাতবার কান্নাকাটি করতে হয়েছে। এই সিনেমা বাংলাদেশের প্রতি ভালোবাসাকে জাগিয়ে তোলে – একটা মুক্তিযুদ্ধের সিনেমার চেয়ে একটা স্পোর্টস সিনেমা কোন অংশে কম নয়। ব্রাভো খিজির হায়াত খান।
    রেটিঙ: ৪/৫/৫

    কিত্তনখোলা, বাংলাদেশ, ২০০০
    আবু সাইয়িদের প্রথম সিনেমা। সেলিম অাল দীনের একই নামের নাটক থেকে সিনেমায় রূপান্তর। অনেকগুলো বিখ্যাত মুখ এই সিনেমায় – তারা সবাই-ই মঞ্চে কাজ করেন। হয়তো এই নামের নাটকেই করেছেন। ৪:৩ স্ক্রিনে সিনেমা দেখা, সেই সাথে ভয়াবহ সাউন্ড – সিনেমা উপভোগকে বিষ করে তুলেছিল। দ্বিতীয়ত, আমি সিনেমাটিক ট্রিটমেন্টের তুলনায় মঞ্চের দৃশ্যায়নকে দেখতে পেয়েছি এই সিনেমায়। গল্পটা দারুন।
    রেটিং: ৪/৫

    Journey of Hope, Switzerland, 1990
    সম্ভবত এই প্রথম সুইজারল্যান্ডের সিনেমা দেখলাম। তুর্কি এক পরিবােরর স্বামী-স্ত্রী এবং পাসপোর্টবিহীন এক সন্তান আরও স্বচ্ছল থাকার বাসনায় সব সম্পত্তি বিক্রি করে দিয়ে অবৈধভাবে পাহাড় পেরিয়ে সুইজারল্যান্ড যাওয়ার চেষ্টা করে। চরিত্রগুলো তুর্কি কিন্তু গল্পটা আমাদের বাংলাদেশীদেরই। হৃদয় ছুয়ে যায়।
    রেটিং: ৫/৫

    Tandoori Love, Switzerland, 2008
    পপকর্ণ সিনেমা। ভারতকে ফোকাস করা হয়েছে। একজন রাধুনী কিভাবে এক সুইস মেয়ের প্রেমে পড়ে এবং তাকে পায় তাই নিয়ে এই সিনেমা। সিনেমায় দুটো দিক বেশ ভালো হয়েছে। এক, সিনেমাটোগ্রাফী। রান্নাবান্নার দৃশ্যগুলো ক্লোজআপে নেয়ার ফলে এবং অসাধারণ ও উজ্জ্বল রং ব্যবহার কারণে ক্ষুধা লেগে যেতে বাধ্য। দুই, এই সিনেমার মিউজিক স্কোর। চমতকার। পুরো সিনেমায়ই মিউজিকের তালে তালে কাহিনী এগিয়েছে। এই সিনেমার বিগিনিঙ টাইটেল দৃশ্যটা অতুলনীয়। কাহিনীতে গভীরতা নেই, হালকাচালে দেখার জন্য বেশ উপাদেয় সিনেমা।
    রেটিঙ: ৩/৫

    • Puspita Hossain says:

      বাইজান কিন্তু একুশ রে কম দিসেন। অন্তত ৮ দেওয়া উচিত ছিল ৫ এ। 🙂

      নরসুন্দর নিয়ে বলা হয়নি। আমারো বেশ ভালো লাগসে। বিশেষ করে শেভ করতে করতে যখন নাপিত একটা হাসি দিল আর সেটাকে মুক্তিযোদ্ধার দৃষ্টি থেকে যেইভাবে দেখাইসে সেইরাম লাগসে কিন্তু!

  151. Sourav says:

    Shor in the city.

    Not a typical hindi film.

    Rating:4/5.

    Siter mobile verson banan joldi 🙁

  152. Puspita Hossain says:

    The Warrior দেখলাম। আহা! কি দেখলাম!

  153. To Kill a Mockingbird, ইউএসআ, ১৯৬৪
    গ্রেগ্ররি পেক অভিনিত সিনেমা। কোর্টরুম ড্রামা, তুলে ধরেছে বর্ণবাদ সংক্রান্ত মানবীয় আচরন-বোধ-সংস্কার ইত্যাদিকে। সিনেমাকে আনন্দময় করে তুলেছে বাচ্চাকাচ্চারা আর দর্শককে ভাবাতে সাহায্য করেছে বাবা চরিত্রে গ্রেগরি পেক। দারুন সিনেমা।
    রেটিঙ: ৫/৫

    Prison Break, Season one, ইউএসআ, ২০০৬
    এটা টিভি সিরিজ। খুবই জনপ্রিয়। নির্দোষ বড় ভাইকে মৃত্যুদন্ড থেকে বাচানোর জন্য ছোটভাই স্বেচ্ছায় কারাগারে বন্দী হয়। তারপর মুক্তির কাহিনী নিয়ে মোট ২২ পর্ব। এত বেশী শুনেছি যে না দেখে আর পারা গেল না। বাকী সিজনগুলা দেখতে চাই না 🙂
    রেটিঙ: ৪/৫ (এত লম্বা বলে এক মাইনাস )

    • Puspita Hossain says:

      হাহাহাহা… আমিও প্রথম সিজন দেখার পর এলা ক্ষ্যান্ত দিসি… 😛 … যদিও আমি অনেক টিভি সিরিজ এ রেগুলার ফলো করি।

  154. sourav says:

    Lamhaa.
    kashmirer sei narokio potovumi.Kichu kichu movie dekhle mone hoy nisthur prithibi ar osohay ami.

    Dekhen plz.Hollywoodira kashmir niye banabe na.Eta dekha chara alternate nai

    • কাশ্মির নিয়ে ভারতে সিনেমা তো অনেক হয়েছে। এইটা কি খুব নতুন কিছু?
      দেখার আগ্রহ বোধ করছি, কিন্তু কবে সেইটা বলতে পারতেসি না 🙁
      চেষ্টা থাকবে 🙂

  155. Puspita Hossain says:

    বহুদিন আগের দুইটা মুভি দেক্ষলাম, যেগুলো আরো আগেই দেখা উচিত ছিল।
    ১। রাশোমন
    ২। সেভেন সামুরাই

    আপনার মতামত জানতে চাই।

    • সেভেন সামুরাই আমার দেখা হয় নাই, এ জন্য আমার আফসোস আছে। সমস্যা হল কুরোসাওয়ার মুভি খুব সহজলভ্য না। টরেন্ট পাওয়া গেলেও সিড কম থাকে।

      রাশোমন নিয়েও বলার কিছু নাই – যখন সিনেমা দেখা বুঝতে শুরু করছি তখন সিনেমাটা দেখা – প্রায় চার বছর হয়ে গেল। এরপর বারবার কুরোসাওয়ার সিনেমার কথা এবং রশোমনের কথা শুনেছি, পড়েছি – কিন্তু দেখি নি। 🙁

      দেখবো …

      • পুষ্পিতা হোসেন says:

        তাড়াতাড়ি দেখে ফেলেন… মেলা কিছু বুঝি নাই… আপনার বিশ্লেষণ দরকার হয়ে পড়েছে ! মুভি লাগলে খবর দিয়েন । দুইটাই নামায় দেখসি কিনা! প্রিন্ট অবশ্য অত ভালো না!

  156. Hasan Kazmee says:

    Philadelphia
    Rating: 4/5

  157. sourav says:

    Bol &
    Khuda ke liye by shoaib monsur.

    Chokh khete dekhe felen.Ami geranti. 😉

    Rating both 4.5/5

    • বোল সিনেমার কথা সব্বাই বলছে – আমার রুমমেট তো ফিদা। প্রায়ই দেখি একবার গানটা দেখে …
      আমিও লিস্টে রাখছি সিনেমাটা। সমস্যা হল, লিস্ট যেভাবে বাড়ছে সে হারে সিনেমা দেখা হচ্ছে না, সুতরাং – লিস্ট বেড়েই চলছে 🙁

  158. পুষ্পিতা হোসেন says:

    ২২ শে শ্রাবণ দেখলাম। ভালো লাগসে।

    • ২২শে শ্রাবন আমিও দেখলাম গত সোমবার রাতে। মঙ্গলবার একটা রিভিউও লিখে ফেললাম – রিভিউতে আমি বেশ সন্তুষ্ট 🙂 এবার প্রকাশের অপেক্ষায় আছি 🙂

  159. পুষ্পিতা হোসেন says:

    প্রকাশ করে ফেলেন। আমার বেশ ভালো লাগসে… স্পেশালি প্রসেনজিত এর অভিনয়। আর ডায়লগ গুলো সেরাম!

  160. পুষ্পিতা হোসেন says:

    kothin banner!

  161. ২২শে শ্রাবন, ভারত, ২০১১
    অটোগ্রাফ সিনেমার পরে সৃজিত মুখার্জী এবার বানালেন ২২শে শ্রাবন। একজন সিরিয়াল কিলারকে খুজে বের করার গল্প, সেই সাথে আছে গত শতকের ষাটের দশকের কবিতা নিয়ে হাংরি আন্দোলন। প্রবল জনপ্রিয়তা প্রাপ্ত এই সিনেমা নিয়ে একটি রিভিউ লেখা হয়েছে, প্রকাশের অপেক্ষায়। বাকী কথা সেখানেই।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Counterfeiter (Die Fälscher), জার্মান, ২০০৭
    হলোকাষ্ট নিয়ে নির্মিত মুভি। মাত্র দেড় ঘন্টার এই সিনেমা একজন কাউন্টারফেইটারকে নিয়ে, জার্মান বাহিনী তাকে দিয়ে পাউন্ড এবং ডলার জাল করার কাজে নিয়োজিত করেছিল। ইহুদী নির্যাতন নতুন পদ্ধতিতে তুলে ধরা হল এখানে। সিনেমা হিসেবে বেশ ভালো, যদিও হলোকাষ্ট নিয়ে আমার আপত্তি অনেক।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Baraka, ইউ্‌এসআ, ১৯৯২
    এটা গতানুগতিক কোন সিনেমার মধ্যে পড়ে না। এই সিনেমার প্রতিটি ফ্রেম এক একটি ওয়ালপেপার। কোন চরিত্র নেই, নেই কোন সংলাপ। সিনেমাটোগ্রাফি কি জিনিস তা দেখার জন্য এই সিনেমা মাস্ট সি। সিম্পলি ড্যাজলিং মাস্টারপিস।
    রেটিং: ৫/৫

    The Shawshank Redemption, ইউএসআ, ১৯৯৪
    বছর চারেক পড়ে আবারও দেখলাম। সিনেমার চিত্রনাট্য নিয়ে একটা বই পড়ছিলাম – সেখান থেকেই নাম পেয়ে আবারও দেখা হল। এবার আরও ভালো করে, আরও বিশ্লেষন সহকারে। যথারীতি অসাধারণ সিনেমা। আইএমডিবির এক নাম্বার পজিশন থেকে এর নামতে অনেক সময় লাগবে।
    রেটিং: ৫/৫

    Secret in their Eyes, আর্জেন্টিনা, ২০০৯
    আবারও দেখলাম অস্কার পাওয়া এই সিনেমাটি। স্ক্রিপ্ট এবঙ গল্প বলার ঢংটা লক্ষ্য করাই উদ্দেশ্য ছিল। চমতকার সিনেমা। কেন এটা আর্জেন্টিনার সেরা সিনেমা হয়েছে বেশ বোঝা যাচ্ছে।
    রেটিং: ৫/৫

  162. পুষ্পিতা হোসেন says:

    Baraka ta dekhte hoy tahole! holocaust nie cinema dekhte ar bhalo lage na!:(

  163. The Last Thakur, বাংলাদেশ, ২০০৮
    ২০০৮ সালে সাদিক আহমেদ নামের এক বাংলােদশী এই সিনেমাটি নির্মান করেছিলেন। যতটুকু শুনেছিলাম এটি একটি প্রশিক্ষণ ফিল্ম। সাদিক একজন সিনেমাটোগ্রাফার এবং তিনি তার মেধাকে এই সিনেমায় ব্যবহার করেছেন। সিনেমাটা দেশে মুক্তি পায়নি কোন কারণে – পাইরেটেড কপি অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে, সেখান থেকেই দেখা।
    রেটিঙ: ৩.৫/৫

    All About Eve, USA, 1950
    আমেরিকান ড্রামা। কিভাবে এক সাধারণ মেয়ে থিয়েটারে প্রবেশ করে তারপর তার যোগ্যতা বলে শ্রেষ্ঠত্বের আসনে নিয়ে যায় তার গল্প। খুব ভালো ভাবে সিনেমাটা দেখা হয়নি, শারীরিকভাবে খুব একটা সুস্থ্য ছিলাম না সেসময়। তাই হয়তো আসল গুরুত্ব বুঝতে সক্ষম হই নি।
    রেটিঙ: ৩/৫

    Dead Poet’s Society, USA, 1989
    ছেলেদের আবাসিক এক স্কুলের বেশ কিছু ছাত্র এবং তাদের শিক্ষককে নিয়ে চমৎকার একটি সিনেমা। কিশোর ছেলেদের মাধ্যমে প্রচলিত নিয়মের ব্যতিক্রম কিন্তু সঠিক শিক্ষা প্রদানের পদ্ধতি এবং এরই মাধ্যমে সমাজের গোড়ামি এবং অন্ধত্ব ফুটে উঠেছে।
    রেটিঙ: ৪/৫

    অন্তরে অন্তরে, বাংলাদেশ, ১৯৯৪
    যেখানে দুজনে নিরজনে – গানটা নিয়ে লেখার পরে এই সিনেমার টাইটেল গান ‘অন্তরে অন্তরে’ শোনার সুযোগ হল। গানটি হৃদয় এতটাই ছুয়ে গেল যে বাধ্য হয়ে সিনেমাটা দেখতেই হল। অল্প গতির ইন্টারনেটে প্রায় সাত ঘন্টা লাগল সিনেমাটা দেখতে। সালমান শাহ ও মৌসুমী অভিনীত, শিবলী সাদিক পরিচালিত।
    রেটিঙ: ৪/৫

    জ্বী হুজুর, বাংলাদেশ, ২০১২
    জাকির হোসের রাজুর চিত্রনাট্য এবং পরিচালিত সিনেমা। এ সপ্তাহেই মুক্তিপ্রাপ্ত এই সিনেমাটি অানন্দ সিনেমা-তে দেখা হল। বাংলা সিনেমার বিচারে বেশ ভালো সিনেমা। নতুন নায়ক নায়িকা, সেই সাথে সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম নায়ক চরিত্রের চিত্রায়ন। সম্ভবত এই প্রথম মাদ্রাসার কোন ছাত্র সিনেমার প্রধান ও পজেটিভ চরিত্র হল। নতুন নায়ক হিসেবে সাইমন সাদেক বেশ স্মার্ট এবং সুদর্শন। তিনি যেন টিকে যান এবং ভালো করেন সেই শুভকামনা। সবারই দেখা উচিত সিনেমাটা।
    রেটিঙ: ৪/৫

  164. Lust, Caution, USA, 2007
    পরিচালকের নাম অ্যাঙ লি। তিনি বেশ বিখ্যাত বিশেষত স্ক্রিপ্টের জন্য। লাস্ট, কশান সিনেমাটি চায়নিজ কর্তৃক হঙকঙ দখলদারিত্বের সময়কার কাহিনী। শৌখিন মঞ্চ নাটকের কতগুলো তরুন ছেলে মেয়ে দেশের জন্য বিপজ্জনক এক মিশনে নেমে পড়ে। একজন দেশীয় বিশ্বাসঘাতককে হত্যা করতে হবে। টোপ তাদেরই এক মেয়ে বন্ধু।
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

    The Ring, USA, 2002
    খুব ঝড় বৃষ্টি হচ্ছিল, হঠাত মনে হল এই সময়ৈ একটা ভূতের সিনেমা দেখলেই ভালো। তাই এই সিনেমা নামিয়ে ঘর অন্ধকার করে কানে হেডফোন লাগিয়ে একাকী দেখতে বসলাম। সত্যি হল, আমি শুরুর সামান্য অংশই হেডফোনে দেখতে পেরেছি, বাকীটা দূরে বসে, ভলিউম কিছুটা কমিয়ে। সাহসে কুলায় নাই। রাতে ঘুমাতে বেশ সমস্যাও হয়েছিল 🙁
    রেটিঙ: ৫/৫

    Immortals, USA, 2011
    দ্য ফল দেখার পর থেকেই তারসেম সিঙ এর ভক্ত আমি। গ্রীক পুরানের কাহিনী নিয়ে নির্মিত এই সিনেমা দ্য ফলের মতই ভিজ্যুয়ালাইজেশনের জন্য সুপার্ব। সেই সাথে আছে মিউজিক এবং অ্যাকশন দৃশ্য। বেশ উপভোগ্য সিনেমা।
    রেটিঙ: ৫/৫

    • Puspita Hossain says:

      lust, caution – দেখলাম। মেকিং ভালো লাগসে। যদিও ব্রোকব্যাক মাউন্টেইন এর পর থেকে অ্যাং লি এর সিনেমা একটু ভয় (!) পাই, এবং কিছু সিন এইখানেও এক্সপ্লিসিট… কিন্তু মুভি টা ভালো লাগসে। নারী মন বোঝা আসলেই দুঃসাধ্য! এই নায়কের আরেক মুভি দেখসিলাম জি স্টুডিও তে একদিন… ইন দ্য মুড ফর লাভ। দেখতে পারেন। আমার ভালো লাগসে।

  165. কার্জন says:

    http://thepiratebay.se/torrent/5522628/Seven_Samurai_%281954%29_m720p_x264_MKV_by_RiddlerA

    http://thepiratebay.se/torrent/5844672/Rashomon_1950_720p_BRRip_x264_AAC-BeLLBoY_%28Kingdom-Release%29

    দারাশিকো ভাই, আমি টরেন্টফ্রিক। যেকোন ফাইল ডাউনলোডের জন্য টরেন্টই আমার প্রথম পছন্দ। rashomon আর seven samurai এর দুটো ভাল ডাউনলোড লিঙ্ক দিলাম, প্রিন্ট এবং সিডও দুটোই ভাল। আর এই পোস্টটাকে বুকমার্ক করলাম।

    • এবারই কি প্রথম এলেন দারাশিকো’র ব্লগে? আপনাকে স্বাগতম কার্জন এবং ধন্যবাদ 🙂

      আমিও একপ্রকার টরেন্ট ফ্রিক। কিন্তু গত তিনমাস ধরে ডাউনলোড বন্ধ আছে। উবন্টুতে টরেন্ট ডাউনলোড করে শান্তি পাচ্ছি না 🙁

  166. Puspita Hossain says:

    immortals – আপনার কথা শুনে আজকেই নামায় দেখেও ফেললাম! কি দেখলাম রে ভাই!! মাথা নষ্ট !! একে তো গ্রীক পুরাণ এর আমি ভক্ত… তার উপর কি সব সিন আর কি অ্যাকশন! বলতে নাই থিসিয়াস আর জিউস দুইজন রেই সেইরকম লাগসে!!! হেহেহে… ভিজ্যুয়ালি আর কি 😛

    তারসেম সিং এর আরো বড় ফ্যান হয়ে গেলাম।

  167. RocknRolla, USA, 2008
    গাই রিচি’র গ্যাংস্টার সিনেমা। ব্ল্যাক কমেডি। যথারীতি পাগলামী মনে হয় সিনেমাগুলোকে। ব্ল্যাক কমেডি বোঝার জন্য আমি এখনো শিশু 🙁
    রেটিঙ: ৩.৫/৫ (যেহেতু বুঝছি কম)

    Thelma & Louise, USA, 1991
    রিডলি স্কটের পরিচালিত সিনেমা। বিপ্লবী সিনেমা। দুজন নারী – তারা সম্পূর্ন ভিন্ন ধরনের, কিন্তু বন্ধু। উইকএন্ডে একজন ধর্ষনের শিকার হলে অন্যজন ধর্ষককে খুন করে ফেলে। কিন্তু তারপর ফেরারী হয়ে পালিয়ে বেড়ায় দুজন। বিভিন্ন ঘটনাগুলো তাদেরকে পাল্টে দিতে থাকে একটু একটু করে। অসাধারণ গল্প।
    রেটিঙ: ৫/৫

    গহীনে শব্দ, বাংলাদেশ, ২০১০
    জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছে সিনেমাটা। প্রচন্ড বিরক্ত হয়েছি সিনেমা দেখে। খুব কড়া একটা রিভিউ লিখেছি, নেগেটিভ। কিন্তু প্রকাশ করতে সাহস পাচ্ছি না। 🙁
    রেটিঙ: ৩/৫

    In the Mood for Love, Honk Kong, 2000
    আহ। ওং কার ওয়াই। এই ভদ্রলোক সিনেমা নির্মান করেন না, কবিতা লিখেন। সিনেমার ল্যাঙ্গুয়েজটাই পাল্টে দিচ্ছেন। দুটো পরিবার, একজনের স্বামী সবসময় বাহিরে থাকেন, অন্যজনের স্ত্রী। দুজনের মধ্যে একটা সম্পর্ক, একটা আন্ডারস্ট্যান্ডিঙ – এটা ঠিক প্রেম না, এটা যেন অন্য কিছু একটা। দারুন একটা থিম মিউজিক আছে এই সিনেমায় – পাগল করা।
    রেটিঙ: ৫/৫

    দ্য স্পিড, বাংলাদেশ, ২০১২
    অনন্ত’র তৃতীয় সিনেমা। অনন্তকে আরও পরিপক্ক হতে হবে, নিজের শরীর-চেহারা নিয়ে চিন্তা করার আগে ব্যবসা বুঝতে হবে। বাংলা সিনেমা হিসেবে খারাপ নয়, অনেক দিকে বেশ উন্নত। পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান।
    রেটিঙ: ৪/৫

    Baran, Iran, 2001
    মাজিদ মাজিদি’র সিনেমা। অনেক দেরীতে দেখা হল। ইরানে আফগান শরনার্থীদের দুরাবস্থা খুব সাধারণ একটা প্রেমময় কাহিনীর মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে। আফগান পরিবারের বাবা পা ভেঙ্গে বিছানায় শায়িত থাকায় তার বড় মেয়ে ছেলে-সাজে বাবার কন্সট্রাকশন কোম্পানিতে শ্রমিক হিসেবে কাজ শুরু করে। সেখানেই বোকা মত একটা ছেলে একদিন জেনে ফেলে তার আসল পরিচয়। কোনদিন কথা না হওয়া সেই মেয়েটার প্রতি তার অব্যক্ত ভালোবাসার জন্ম নেয়।
    রেটিঙ: ৫.৫

    Hors de Prix, France, 2006
    পিয়েরে সালভাদোর এর পরিচালনা, ইংরেজি টাইটেল প্রাইসলেস। দারুন কমেডি, আন্দ্রে তুতু অভিনয় করেছেন। তার চরিত্রটা দারুন। বিভিন্ন কোটিপতি মানুষের সাথে প্রেমের ভাব ধরে খুব হাই লাইফস্টাইল লিড করা। ঘটনাচক্রে হোটেলের ওয়েটারের সাথে জড়িয়ে যায় এই তরুনী। দারুন রোমান্টিক, দারুন কমেডি।
    রেটিঙ: ৪.৫/৫

  168. The White Balloon, Iran, 1995
    জাফর পানাহির পরিচালায় এই সিনেমার গল্প লিখেছেন আব্বাস কিয়ারোস্তামি। একটি শিশু তার মা’র কাছ থেকে টাকা নেয় অ্যাকুইরিয়ামে রঙ্গীন মাছ কিনবে বলে। দোকান পর্যন্ত সে পৌছে যায়, কিন্তু মাছ কেনার জন্য টাকাটা খুজে পায় না, কোথাও হারিয়ে গেছে। তার টাকা উদ্ধার করে দেয়ার জন্য বিভিন্ন শ্রেনীর বিভিন্ন লোক তাকে সহায়তা করে। চমৎকার গল্পের অসাধারণ একটি সিনেমা। পিচ্চি মেয়েটার অভিনয় চূড়ান্ত রকম সুন্দর। মাস্ট সি মুভি।
    রেটিং: ৫/৫

    Seabiscuit, USA, 2003
    সত্যি ঘটনার উপর নির্ভর করে নির্মিত সিনেমা। গ্যারি রসের পরিচালনায় এই সিনেমাটি রেসের ঘোড়া নিয়ে। রেস খেলার অনুপযুক্ত একটি ঘোড়া কিভাবে সেরা রেসের ঘোড়ায় পরিণত হয় এবং এই ঘোড়াটিকে কেন্দ্র করে কিভাবে আরও তিনটা মানুষের মধ্যে বিশাল পরিবর্তন ঘটে যায় সেই গল্প। হতাশাগ্রস্থ মানুষের জন্য বিশাল এক টনিক এই সিনেমা। স্পাইডারম্যান খ্যাত টবি ম্যাগুইয়েরা অভিনয় করেছেন।
    রেটিং: ৫/৫

    You’ve got Mail, USA, 1998
    আহা। ব্যাচেলর বয়সে রোমান্টিক সিনেমা দেখা উচিত নয়। সেই যুগে, যখন ইন্টারনেটে চ্যাটিং যুগ পুরোদমে শুরু হয় নি, সেই সময় এক বুকস্টোর মালিকানের সাথে মেইল চালাচালি হতো এক বিলিয়নিয়ার বুক বিজনেসম্যানের। চিঠিতে একটা রোমান্টিক সম্পর্ক তৈরী হলেও বাস্তবে তারা একে অপরের শত্রু। দারুন রোমান্টিক। টম হ্যাংকস অভিনয় করেছেন, আরও আছেন মেগ রায়ান। পরিচালনা নোরা এফরন এর।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    জীবনে তুমি মরনেও তুমি, বাংলাদেশ, ২০১২
    শ্রীমঙ্গলের রাধানাথ সিনেমাহলে দেখা হল। অপূর্ব রানার পরিচালনায় নতুন নায়ক জেফ এবং নতুন নায়িকা শ্রেয়া। প্রেমিকাকে পাওয়ার জন্য খুব দ্রুত ধনী হওয়ার আশায় জেফ জুয়া খেলতে থাকে। আন্ডারওয়ার্ল্ডের ডন তাকে দলে ভিড়িয়ে নেয়, দেশে বিদেশে খেলতে পাঠায়। কিন্তু যখন দেখঅ গেল শ্রেয়া আর কেউ নয়, ডনের মেয়ে, তখন জেফকে হত্যার জন্র খুজে বেড়ায় ডন আর তার সহযোগির লোকজন। ভারতীয় সিনেমা জান্নাতের নকল। অনেকগুলো পজেটিভ দিক পাওয়া যাবে এই সিনেমায়।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    And your mom too, Mexico, 2001
    রেটিং: ৩/৫

    কমন জেন্ডার, বাংলাদেশ, ২০১২
    নোমান রবিনের পরিচালিত ডিজিটাল সিনেমা। হিজড়াদের জীবনের একটা অংশ তুলে ধরেছে এই সিনেমায়। মোটামুটি ভালো সিনেমা। বলাকায় দেখার অভিজ্ঞতা ডিভিডিতে পাওয়া যাবে না।
    রেটিং: ৪/৫

    Sherlock Holmes: A game of shadows, USA, 2011
    গাই রিচির পরিচালনায় শার্লক হোমসকে নিয়ে এটা বোধহয় তৃতীয় সিনেমা। সবগুলোই দেখেছি এবং যথারীতি গাই রিচিকে স্যালুট জানিয়েছি। শুধু এই সিনেমার লাস্ট সিনটা বিরক্তিকর।
    রেটিং: ৫/৫

    Orphan, USA, 2009
    এইটা ভৌতিক সিনেমা। উহু, ভুল হল। হরর ভায়োলেন্ট সিনেমা। একদিন ভয় পেতে ইচ্ছে হল, তাই দেখে ফেললাম। বেশ লেগেছে, যদিও হরর সিনেমায় শেষ পর্যন্ত সিরিয়াল কিলিং এর কাহিনী বিরক্তিকর, তার উপর যে রিভিউ পরে সিনেমাটা দেখেছিলাম সেটায় কোন স্পয়লার অ্যালার্ট ছিল না – ভদ্রলোক কাহিনির পুরোটাই বলে দিয়েছিলেন।
    রেটিং: ৩.৫/৫

  169. Safayet Quadir says:

    অনেক দিন মনে হয় লিখেন না। যতগুলো পোস্ট দেখলাম সবই গত মাসের। আমি তো আপনার ব্লগ-এ নিউ। আপানাদের আড্ডায় শামিল হতে চাই।

    ধন্যবাদ।

    • প্রিয় সাফায়েত, আসলে উপরের মন্তব্যটা এক মাস আগে করেছিলাম, তারপরেও সিনেমা দেখেছি, যেমন অরফান সিনেমাটা দেখেছি গেল সপ্তাহেই, কিন্তু সেগুলো নতুন পোস্ট না দিয়ে এডিট করে বসিয়ে দিয়েছি। তারও পরে আরও তিন/চারটে দেখা হয়েছে, কিন্তু আপডেট করা হয় নি। আপনার দেখা মুভিগুলোও শেয়ার করুন – তাহলেই আড্ডা জমে উঠবে 🙂
      ভালো থাকুন সাফায়েত 🙂

  170. Incendies, Canada, 2010
    মায়ের মৃত্যুর পরে নোটারী জমজ ভাই বোনের হাতে পৃথক দুটি চিঠি ধরিয়ে দিল। বোনের দায়িত্ব বাবাকে খুজে বের করা, ভাইয়ের দায়িত্ব ভাইকে। অথচ তাদের বাবাকে তারা দেখেনি কোনদিনও, তাদের কোন ভাই আছে এমনটিও জানেনি কখনো। মায়ের দাবী পূরণ করতে পথে নামে বোনটি, পরবর্তীতে যোগ দেয় ভাই। প্রতি পদে পদে নতুনত্ব আর টুইস্ট। অসাধারণ সিনেমা। দেখা শেষে স্তব্ধ হয়ে বসে থাকতে হবে।
    রেটিং: ৫/৫

    I spy, ইউএসআ, ২০০২
    এতটাই অমনযোগের সাথে দেখেছিলাম যে কাহিনী বিন্দুমাত্র মনে নেই, আইএমডিবি থেকে দেখে নিতে হল। টাইম পাস কমেডি মুভি। এডি মারফি অভিনয় করেছে।
    রেটিং: ২.৫/৫

    অনুরণন, ভারত, ২০০৭
    এই পরিচালকের দ্বিতীয় সিনেমা অন্তহীন দেখার পর থেকেই অনুরণন দেখার প্রচন্ড আগ্রহ ছিল। মোটামুটি হতাশ। কেন এই সিনেমা নিয়া লোকজন ভালো কথা বলে জানি না। সিনেমার শুরুতেই আগ্রহ হারিয়ে গেল যখন দেখলাম পরিচালক ওয়েস্টার্ন মানি ট্রান্সফারের অ্যাড দিচ্ছে। পুরা সিনেমায় অন্তত: তিনবার। বিরক্তিকর।
    রেটিং: ২.৫/৫

    Sherlock, England, 2010
    এইটা সিনেমা না, টিভি সিরিজ। শার্লক হোমস একেবারে বর্তমান সময়ে। মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ ব্যবহার করে। ওয়াটসন ব্লগ লিখে। মাত্র তিনটা পর্ব, দেড়ঘন্টার ডিউরেশন। দারুন গতি। অসাধারণ। অসাধারণ। সেকেন্ড সিজন দেখতে পারি নাই এখনো 🙁
    রেটিং: ৫/৫

    Mother, কোরিয়া, ২০০৯
    বুদ্ধি প্রতিবন্ধী এক ছেলে খুনের দায়ে ফেসে গেল একদিন। সংসারে তার একমাত্র মা, অন্য কেউ নেই। বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ছেলেকে রক্ষার জন্য মা প্রানান্তকর চেষ্টা চালিয়ে যায়।
    দারুন এক সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

  171. Insomnia, USA, 2002
    ক্রিষ্টোফার নোলানের সিনেমা। আল পাচিনো, রবিন উইলিয়ামস, হিলারী সোয়াঙ্ক অভিনীত। ঘটনাস্থল আলাস্কা, যখন সেখানে ২৪ ঘন্টাই সূর্যের আলো বিদ্যমান। ডিটেকটিভ আল পাচিনো একটি হত্যাকান্ডের রহস্য উদ্ধার করতে যায়। ঘটনাচক্রে তার সহকারী গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়। যে খুনীকে ধরার জন্য আলাস্কায় আগমন সে যোগাযোগ করে ডিটেকটিভের সাথে।
    দারুন থ্রিলিং সিনেমা। নোলানের অন্যান্য সিনেমার চেয়ে একটু ভিন্ন। হিউম্যান সাইকলজি নিয়েই বেশী ডিল করেছে এই সিনেমা। উপভোগ্য।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The crime of Father Amaro, Mexico, 2002
    পরিচালকের নাম কার্লোস ক্যারেরা। অভিনয় করেছে গার্সিয়া বার্নেল।
    একজন তরুন পাদ্রী কিভাবে কর্মকান্ডের মাধ্যমে ধীরে ধীরে দুর্ণীতিগ্রস্থ হয়ে পড়ে তার চিত্র ফুটে উঠেছে। এই সিনেমা ধর্মপ্রাণ খ্রীষ্টান ধর্মাবলাম্বীদের জন্য সহ্য করা কষ্টকর হবে। একটা অন্যায়কে চাপা দেয়ার জন্য কতরকম অন্যায়ের সাথে মানুষ যুক্ত হতে পারে এবং এই সকল অন্যায়ের পুজি হল সাধারণ মানুষের বিশ্বাস – এই সিনেমায় দেখিয়েছে।
    রেটিং: ৫/৫

    Drive, USA, 2011
    রায়ান গুজলিং অভিনীত এই সিনেমার পরিচালক নিকোলাস উইন্ডিং রেন। একজন চুপচাপ প্রকৃতির ড্রাইভার, সে রেস খেলতে পারে, সিনেমায় স্টান্ট অভিনয় করে এবং গাড়ির মেকানিক। শর্তসাপেক্ষে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডেও জড়িত হয়। পাশের ফ্ল্যাটের আইরিনের প্রতি তার একটু দুর্বলতা তৈরী হয়। অথচ সদ্য জেল থেকে মুক্তি পাওয়া আইরিনের স্বামী এক মাফিয়া লিডারের কাছে দায়বদ্ধ। দায়মুক্তির জন্য একটি ডাকাতি করতে রাজী হয় সে, সহযোগিতা করে ড্রাইভার।
    চিত্রায়ন আর কাহিনীর কারণে এটি একটি নিও-নয়্যার সিনেমা। গল্প বলার ঢং-টা অসাধারণ। সত্যিই অসাধারণ। দেখার আগে মিক্সড রিভিউ পেয়েছিলাম। দেখার পর তৃপ্তি পেয়েছি।
    রেটিং: ৫/৫

    The Mission, Britain, 1986
    রোনাল্ড জফ পরিচালিত এই সিনেমায় রবার্ট ডি নিরো, জেরেমি আইরন, লিয়াম নিসন অভিনয় করেছেন। ১৭৫০ বা তার পরের সময়কার কাহিনী নিয়ে নির্মিত এই সিনেমা। ঘটনাস্থল দক্ষিন আমেরিকার গহীন জঙ্গল যার অধিবাসীদের খ্রীষ্টধর্মে দীক্ষিত করার কাজ নিয়ে কিছু পাদ্রী কাজ করে। কিন্তু সময়ের পরিবর্তনে জঙ্গল পর্তুগীজ এলাকাধীন হয়ে যায়, পর্তুগীজ আইনে তখনো দাসবৃত্তি প্রচলিত। জঙ্গলের বাসিন্দাদের সহায়তায় এগিয়ে আসে সেখানে কার্যরত পাদ্রিরা।
    রবার্ট ডি নিরো অভিনীত সিনেমা হলেও এই সিনেমার গল্প ডি নিরোকে খুব বেশী ভূমিকা রাখতে দেয়নি। বরং, সিনেমার লোকেশন,সিনেমাটোগ্রাফি এবং অবশ্যই এর মনমুগ্ধকর সাউন্ডট্র্যাক এই সিনেমাকে অনেক উচ্চতায় নিয়ে গেছে। মাস্ট সি ফিল্ম।
    রেটিং: ৫/৫

    Bodyguards and Assassins, Honk Kong, 2010
    হংকং এর প্রথম রাজনৈতিক হত্যাকান্ড ঘটে যাওয়ার পাচ বছর পরে ডাক্তার সান ইয়াট সেন আসছেন মাঞ্চুরিয়ার একটি এলাকায়। উদ্দেশ্য তেরোটি গোত্রের প্রতিনিধির সাথে আলোচনা করে একত্রিত করা, তবেই গনতান্ত্রিক দেশ তৈরী হবে। কিন্তু তাকে বাধা দেয়া ও হত্যার উদ্দেশ্যে লেলিয়ে দেয়া হয় গুপ্তঘাতক বাহিনীকে। আর তাকে রক্ষা করার জন্য এগিয়ে আসে বেশ কিছু মানুষ, প্রত্যেকের কারণ ভিন্ন। হংকং এর মার্শাল আর্ট কি সেটা এই সিনেমায় খুব ভালো ভাবে উপভোগ করা সম্ভব।
    রেটিং: ৫/৫

  172. Ip Man, Hong Kong, 2008
    ইপ ম্যান মুভিটা বায়োগ্রাফিক্যাল। ১৯৩০ সালের হংকং-কে তুলে ধরা হয়েছে এই সিনেমায়। ইপ ম্যান হংকং মার্শাল আর্টে মাস্টার একজন লোক। কিন্তু খুবই বিনয়ী, পরোপকারী। চায়নীজ আগ্রাসনে অবস্থার পরিবর্তন হয় কিন্তু মানসিকতার নয়। মার্শাল আর্ট দিয়েই সে চায়নীজদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলে। অ্যাকশন দৃশ্যগুলো মনে রাখার মত। অসাধারণ সিনেমা। দ্বিতীয় পর্ব দেখা হয় নাই, দেখা হলে লেখার ইচ্ছা আছে।
    রেটিং: ৫/৫

    Escape from Alcatraz, USA, 1979
    ডন সিজেলের পরিচালনায় ক্লিন্ট ইস্টউড অভিনীত বিখ্যাত সিনেমা। দুর্ভেদ্য এক জেল থেকে পালানোর কাহিনী। শশাঙ্ক রিডেমশন দেখার পর এই ধরনের সিনেমা পানসে লাগে। কিন্তু এর আগে এই সিনেমাটাই খুব বিখ্যাত ছিল।
    রেটিং: ৪/৫

    Good Will Hunting, USA, 1997
    অল্পবয়সী যুবক উইল হান্টিং এমআইটি-তে ক্লিনার হিসেবে কাজ করে। অসাধারণ মেধাবী এই যুবক খুব গোঁয়ার, অনেক জ্ঞানের অধিকারী। কিন্তু সেই জ্ঞান আর মেধা সে আর দশটা লোকের মত ব্যবহার করতে চায় না। ঘটনাচক্রে ম্যাথেমেটিক্সের এক প্রফেসরের সাথে কাজ করতে হয় তাকে। আর কাউন্সিলিং এর জন্য যেতে হয় আরেক প্রফেসরের কাছে। এদিকে হার্ভাডের এক তরুনীর সাথে তার প্রনয় জমে উঠে।
    ম্যাট ডেমন আর বেন অ্যাফ্লেকের কাহিনীতে গাস ভন সান্ত পরিচালিত এই সিনেমায় অভিনয় করেছে ম্যাট ডেমন, বেন অ্যাফ্লেক, রবিন উইলিয়ামস, মিনি ড্রাইভার। দারুন সিনেমা। মাস্ট সি।
    রেটিং: ৫/৫

    The Girl with the Dragon Tattoo, USA, 2011
    ডেভিড ফিঞ্চারের পরিচালনা, সুইডিশ সিনেমার রিমেক। চল্লিশ বছর আগে নিহত এক মেয়ের খোজ করতে গিয়ে ডিটেকটিভ সম্পর্ক খুজে পায় সিরিয়াল কিলিং এর। রিসার্চে সহায়তা করার জন্য যে মেয়েকে সহযোগী বানায় তার গায়ে ড্রাগন ট্যাট্যু আকা। এই মেয়েটা ডিফ্রেন্ট – সব ক্ষেত্রেই। এবং বিশাল হ্যাকার। মেয়েটার সহায়তায় ডিটেকটিভ খুজে পায় খুনিকে।
    দারুন সিনেমা। ড্রাগন ট্যাটুওয়ালার জন্য মন পুড়ে 🙁
    রেটিং: ৫/৫

    Memories in March, ভারত, ২০১১
    ঋতুপর্ণ ঘোষের কাহিনী ও চিত্রনাট্যে পরিচালনা করেছেন সঞ্জয় নাগ। সমকামিতাকে প্রশ্রয়মূলক সিনেমা। পশুবৃত্তিকে সমর্থন করি না।
    রেটিং: -২/৫

    Kundun, USA, 1995
    মার্টিন স্করসিজির সিনেমা। ১৪তম দালাইলামার জীবনভিত্তিক সিনেমা। দর্শককে সিনেমার মধ্যে দারুন ভাবে গিলে নেয়। অসামান্য ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর, সেই সাথে সিনেমাটোগ্রাফি। মাস্ট সি সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

  173. কাউসার রুশো says:

    ঈদের ছুটিেক রবার্ট ডি নিরোময় করে তূলতে চারটা মুভি দেকরাম। রেজিং বুল রিভিশন দিলাম।
    1. Goodfellas মার্টিন স্করসেইসি নির্মিত গ্যাংস্টারদের জীবন নিয়ে বিখ্যাত সিনেমা। সবাই দেখে ফেলছে। আমার দেখা বাকি ছিলো। অবশেষে দেখলাম। ভালো লাগছে।
    2. Casino মার্টিন স্করসেইসি নির্মিত গ্যাংস্টারদের জীবন নিয়ে আরেকটি বিখ্যাত সিনেমা। গুডফেলাসের পর এইটা দেখায় একটু বোরিং লাগছিলো। কিন্তু এইটাও অনেক ভালো মুভি। আবাক লাগে মার্টিন সাহেব এই ধরনের সিনেমা এত গভীরে গিয়ে বানাতে পারেন কীভাবে? নিশ্চয়ই প্রথম জীবনে মার্টিন স্করসেইসি গ্যাংস্টার ছিলেন
    3. Ronin মুভিটা এনজয় করছি।
    4. La-Haine অনেক আগ্রহ নিয়ে ফ্রেঞ্চ এই মুভিটা দেখতে বসছিলাম। বেশি ভালো লাগে নাই।
    5. Head-On ফাতিহ আকিনের মুভি। দুর্দান্ত
    6. The Avengers হলে দেখছি। হলে এই ধরনের মুভি দেখার মজাই আলাদা
    7. Spellbound হিচককের মাস্টারপীস
    8. Strangers on a Train হিচককের আরেকটা মাস্টারপীস
    আগামী কয়েকদিন হিচকক দেখবো।

    • গুডফেলাস, ক্যাসিনো, রোনিন, স্পেলবাউন্ড কমন পড়ছে।
      বাকীগুলা দেখা হয় নাই।

      হিচকক আবার দেখতে হবে, স্পেলবাউন্ড দেখছিলাম বছর চারেক আগে 🙁
      হেড অন নিয়া আরেকটু বলবেন?

  174. পুষ্পিতা হোসেন says:

    kundun আর memories in march বাদে বাকিগুলো দেখা। good will hunting আমার অসম্ভব পছন্দের মুভি। the girl with a dragon tattoo র অরিজিনাল ডেনিশ মুভি টা বেশি রকম অস্থির। পারলে দেখেন। kundun টা দেখতে হবে।

    মাঝে অনেকদিন আসা হয়নি। আগের রিভিউ গুলো পড়লাম। you’ve got mail… মন টন খারাপ থাকলেই আমি এই মুভি টা দেখি। মন ভালো হয়ে যায়। 🙂

    • পুনরায় স্বাগতম পুস্পিতা হোসেন 🙂

      অনেকদিন ধরেই আপনারে মিসাই – পোস্টারে আবার চাঙ্গা করেন তো .. কেমন ম্যারম্যারা অবস্থা 🙁

      • পুষ্পিতা হোসেন says:

        বিরাট মিস্টেক… সুইডিশ মুভি!

        • পুষ্পিতা হোসেন says:

          রিসেন্টলি দেখলাম কিছু মুভি তার নাম দেই… কমন পড়ে কি না দেখেন…

          sneakers – robert redford আর sidney poitier আছে। বেশ মজা পাইসি দেখে… ৯০ এর দশকের কম্পিউটার দেখতে ভালই লাগল। 😛

          charade – মুভি তো ভাল… কিন্তু আমি আসলে অড্রে হেপবার্ন কে দেখতেই বেশি ব্যস্ত ছিলাম! 😛

          jeaux d’enfants(love me if u dare) – marrion cottilard কে আমার এম্নিতেই খুব ভাল লাগে… এই মুভিও তার ব্যতিক্রম না… এক্সট্রিম ভালবাসার ছবি!

          the class(entre les murs) – এক কথায় চমৎকার!

          la vie en rose- marrion cottilard সঙ্গত কারনেই এই মুভির জন্য অস্কার পেয়েছেন!

          my best friend( mon meilleur ami)- মোটামুটি ভাল লাগল দেখে…

          wrath of the titans- clash of the titans আমার ভাল লাগেনি… সেদিক থেকে এটা বেটার লাগল। সেটা অবশ্য liam neeson ralh fiennes যুগলবন্দির জন্য ও হতে পারে!

          kingdom of heaven – এটার ডিরেক্টরস কাট দেখলাম! ভাষা নাই বলার মত যে মুভিটা কি পরিমাণ ভাল লেগেছে!

          চিড়িয়াখানা – শরদিন্দুর ব্যোমকেশ আমার খুব পছন্দের চরিত্র। সত্যজিৎ রায় এর পরিচালনায় ব্যোমকেশ রুপে হাজির উত্তম কুমার। চমৎকার! সঙ্গীত পরিচালনায় ও সত্যজিৎ। কেন যে লোকটা মারা গেল! 🙁

          আবার ব্যোমকেশ- হঠাৎ করেই হাতে পেলাম। বেশ ভালো লেগেছে।

          গোরস্থানে সাবধান- ফেলুদা চরিত্রে সব্যসাচী বরাবরের মতই চমৎকার। নতুন তোপসে ও ভাল। 🙂

          infamous – truman capote কে নিয়ে করা আরেকটি মুভি। বেশি স্টার সমৃদ্ধ মুভি। interesting!

          the best exotic marigold hotel – চমৎকার চমৎকার চমৎকার একটা মুভি!

          কইসিলেন পোস্ট নাকি ম্যাড়ম্যাড়া হয়ে যাচ্ছে! এজন্য ম্যালা কথা লিখে ফেললাম। এইজন্যি কই বাঙ্গাল রে চান্স দিতে নাই… 😀

          • পুষ্পিতা হোসেন says:

            চমৎকার বলতে বলতে পচায় ফেললাম। :S

          • কিংডম অব হ্যাভেন ছাড়া আর কমন পড়লো না, তাও থিয়েটারিকাল ভার্সন দেখছি, আনকাট-টা পাই নাই 🙁

            অনেকগুলো ফ্রেঞ্চ মুভি দেখেছেন দেখছি। ঘটনা কি?

            • পুষ্পিতা হোসেন says:

              আপ্নারে ড্রপবক্স এ অ্যাড দেই… ডিরেক্টরস কাট টা না দেখলে পুরাই মিস! এইটায় সালাহ উদ্দিন কে আরো একটু বেশি দেখান হয়েছে। আর এম্নিতে আমার orlando bloom কে ভালো লাগে না বেশি… কিন্তু এখানে বাধ্য হলাম ভালো লাগাতে!

              ক্যাম্নে ক্যাম্নে জানি অনেকগুলা ফ্রেঞ্চ মুভি দেখা হল… নিজেও জানি না!

              এখন ভূতের ভবিষ্যৎ দেখি। সব্যসাচীকে দিব্যি লাগছে! (ব্যাটার কন্ঠস্বর টা মারাত্মক! )

  175. কাউসার রুশো says:

    Escape from Alcatraz, Good Will Hunting,The Girl with the Dragon Tattoo কমন পড়লো।
    The Girl with the Dragon Tattoo আমার অরিজিনালটাই (সুইডিশ) বেশি ভালো লাগছে। আর হলিউডেরটা কোরিয়ান রিমেক না সুইডিশ রিমেক যদ্দুর জানি। কোরিয়াতে এটা রিমেক হইছিলো কিনা জানা নাই

    • শুধরায়া দিসি বস। লেখার সময় সন্দেহ তৈরী হইছিল, কিন্তু চেক না করেই লিখলাম।
      অরিজিনালটা নামাইছিলাম, কিন্তু কই যে রাখছি পাইতেসি না 🙁

  176. কাউসার রুশো says:

    Head-On (2004)
    Director: Fatih Akin
    শুরু থেকেই সিনেমার চরিত্রগুলোর সঙ্গে মিশে গিয়েছিলাম। দুজন হাতাশাগ্রস্ত মানুষকে নিয়ে দর্শক হিসেবে যখন আশাবাদি হয়ে উঠছিলাম তখনই এলো ধাক্কা। ভাবলাম গত প্রায় দুই ঘন্টা যা দেখলাম তা অর্থহীন। একটু পরে বুঝতে পারলাম হতাশা আমাকেও গ্রাস করছে। না ছবিটা দেখে হতাশ হয়নি। ছবির চরিত্রগুলোর জন্য কষ্ট পেয়েছি। সিনেমা দেখা শেষ হয়ে গেলেও সিনেমাটা থেকে বের হতে পারিনি।

    এই ছবির শেষটুকুন অনেক অর্থবহ। পুরো ছবিটা উপভোগ করতে করতে শেষে এস মেলাতে পারবেননা। বিশ্বাস করতে কষ্ট হবে। কিন্তু এটাই বাস্তবতা।
    ফাতিহ আকিনের আরেকটি ছবি না দেখে থাকলে দেখবেন Im July

  177. কাউসার রুশো says:

    আরো দেখলাম-
    Dial M for Murder : ফ্যান্টাসটিক!। স্ট্রেইট ৯! হিচকক মাস্টারপীস
    The Vow : ভাল্লাগেনাই
    The Adjustment Bureau : বেশ ভালো

    • পুষ্পিতা হোসেন says:

      Dial M for murder- অস্থির রে ভাই অস্থির… পুরাই কাপাকাপি! 😀
      the vow- পুরাটুক দেখতে পারি নাই… ভালো লাগেনি :S

  178. সে আমার মন কেড়েছে, বাংলাদেশ, ২০১২
    ঈদে মুক্তি পাওয়া এই একটা সিনেমাই শেষ পর্যন্ত দেখা হয়েছে। তিন্নী অভিনয় করেছে বলে দেখার আগ্রহ ছিল। শাকিব খান আছে নায়ক চরিত্রে, পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান। রিভিউ লিখেছি, বিস্তারিত ওখানে।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Girl with the Dragon Tattoo, Sweden, 2009
    একই নামে হলিউডের একটা সিনেমা আছে। মিলেনিয়াম ট্রিলজির প্রথম পর্ব। ট্রিলজি নিয়ে লিখেছি। প্রধান চরিত্র লিসবেথ স্ল্যান্ডারকে বলেছি সুইডিশ জেসন বর্ণ।মাস্ট সি ট্রিলজি।
    রেটিং: ৫/৫

    The Girl Who Played with Fire, Sweden, 2009
    দ্বিতীয় পর্ব। এটাও মাস্ট সি 🙂
    রেটিং: ৫/৫

    The Girl Who Kicked the Hornet’s Nest, Sweden, 2009
    ট্রিলজির তৃতীয় পর্ব। যতটা না থ্রিলার তারচে বেশী কোর্টরুম ড্রামা। যেহেতু তিনটা সিনেমা মিলে একটা গল্প, সেহেতু একেও বাদ দেয়ার সুযোগ নেই। তবে বাকী পর্বগুলোর তুলনায় এটা একটু কম উদ্দীপক।
    রেটিং: ৫/৫

    Cache (Hidden), France, 2009
    ফ্রান্সের এই সিনেমাকে সম্ভবত ‘উড়াধুরা’ সিনেমা বলা যেতে পারে। কি দেখাইল, ক্যান দেখাইল বোঝা টাফ। সবশেষে প্রশ্নটা থেকেই যায় – ভিডিওটা করতো কে?
    রেটিং: ৩.৫/৫

  179. জীবন আনন্দ says:

    বান্ধবী ,
    এটা কোরিয়ান মুভি ।

  180. ঘেটুপুত্র কমলা, বাংলাদেশ, ২০১২
    নন্দিত ঔপন্যাসিক হুমায়ূন আহমেদ পরিচালিত সর্বশেষ সিনেমা। মুক্তির দ্বিতীয় দিন হলে গিয়ে দেখার সৌভাগ্য হয়েছে। যতটুকু সমালোচিত হয়েছিল মুক্তির পূর্বে ততটুকু যোগ্য নয়। আশংকা অমূলক।
    গতানুগতিকের তুলনায় ছোট দৈর্ঘ্যের সিনেমা। দ্বিতীয়ার্ধে গল্প ‘ঝুলে’ গেছে। রিভিউ লিখেছি এ নিয়ে।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Ip Man 2, Hong Kong, 2010
    ব্রুস লি’র গুরু ইপ মানকে নিয়ে নির্মিত সিনেমার দ্বিতীয় পর্ব। ডনি ইয়েন দারুন অভিনয় করেছে। প্রথম পর্বের মতই এ পর্বেও মূল বিষয় হয়ে গেছে মার্শাল আর্ট ভিত্তিক জাতীয়তাবাদ। মাস্ট সি মুভি। রিভিউ লিখেছি।
    রেটিং: ৫/৫

    The Raid Redemption, Indonesia, 2012
    ইন্দোনেশিয়ার এই মুভির মাধ্যমেই ইন্দোনেশিয়ার মুভির সাথে পরিচয় হল। ধুন্দুমার অ্যাকশন সিনেমা। আন্ডারওয়ার্ল্ড এর এক বসের আস্তানা বিশাল একটি বিল্ডিং কমপ্লেক্সে সকাল বেলায় আক্রমন করে পুলিশের একটি ফোর্স। অল্পক্ষনের মধ্যেই সব পুলিশ মৃত্যুমুখে পতিত, বেচে থাকা অল্প কয়জন কি ফিরে যেতে পারবে নিজ পরিবার, সংসারে?
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Jonah Hex, USA, 2010
    হাতের কাছে পেয়ে গেলাম বলে দেখে ফেললাম এই ওয়েস্টার্ন সিনেমাটা। জোনাহ হেক্স মূলত একটি কমিক্স চরিত্র। ফ্যান্টাসী আর ওয়েস্টার্নের রিমিক্স। খুব একটা ভালো লাগে নাই।
    রেটিং: ৩/৫

    A bittersweet life, Korea, 2005
    আন্ডা্রওয়ার্ল্ডের এক সর্দারের ডান হাত ঘটনাচক্রে পুরো দলের শত্রুতে পরিনত হল। ধীরে ধীরে কিভাবে সে প্রতিশোধ নেয় তার গল্প। এরকম গল্প নিয়ে খোদ বাংলাদেশেও সিনেমা হয়েছে। কিন্তু কোরিয়ান এই সিনেমায় ভালো লাগবে গল্প বলার স্টাইল। অনেক অ্যাকশন অনেক মারামারি নাই – কিন্তু সম্ভ্রম জাগায় অ্যাকশন দৃশ্যগুলা। অনেক বেশী মানবীয় সিনেমা।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Once Upon a Time in the West, Italy, 1968
    ধূলোমাখা এক শহরে উপস্থিত হয় একজন নাম না জানা তরুন, সে কথা বলার চেয়ে হারমনিকা বাজাতে পছন্দ করে। একই দিন দূরদর্শী এক উঠতি ব্যবসায়ী তার ছেলে মেয়েদের নিয়ে নিহত হয়ে গেলেন। সেই একই দিনে ওই ব্যক্তির স্ত্রী এসে হাজির হলেন। হারমনিকা যুবক আর শায়ান নাকে এক আউটল দলের সর্দার ব্যবসায়ীর স্বপ্ন পূরনে লেগে গেল। যুবকটা এসেছে প্রতিশোধ গ্রহনের জন্য – সেই ব্যক্তিও আছে এই শহরে।
    সার্জিও লিওনি’র টাইম ট্রিলজি নিয়ে মোট পাঁচবার লেখা শুরু করেছি, চারবার লেখা হারিয়েছি। প্রথমবার মুছে যাওয়ার পর দেড় বছর গ্যাপ ছিল। রুশো ভাই বারবার নক করেছে এই লেখার জন্য। নতুন করে লিখতে গিয়ে পুরো ট্রিলজিটাই দেখলাম। এটা তার প্রথম পর্ব। আমার দেখা সেরা ওয়েস্টার্ন সিনেমার প্রথম তিনে এর অবস্থান।
    রেটিং: ৫/৫

    Duck, you Sucker, Italy, 1971
    ট্রিলজির দ্বিতীয় পর্ব। ছোট ছোট ছেলে আর বৃদ্ধ বাবাকে নিয়ে তৈরী ডাকাত দলের সর্দার হুয়ানের সাথে পরিচয় হয়ে যায় জন নামে এক বিপ্লবীর। জনের পরিকল্পনায় অগোচরেই বিপ্লবী হয়ে যায় হুয়ান। হুয়ানের আগ্রহ ব্যাংক ডাকাতিতে, জন সহায়তা করলেই সম্ভব হবে।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Once Upon a Time in America, USA, 1984
    ট্রিলজির তৃতীয় পর্ব। প্রায় পৌনে চারঘন্টা দৈর্ঘের এই সিনেমা এক মহা উপন্যাস। যখন মদ নিষিদ্ধ ছিল সেই সময়ের কিশোর চার বন্ধু গ্যাংস্টার হয়ে উঠা থেকে শুরু করে শেষ বয়স পর্যন্ত গল্প। রবার্ট ডি নিরো’র অ্যানাদার মাস্টারপিস। লিওনি’র শেষ সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

  181. The Adventure of Tintin, USA, 2011
    স্পিলবার্গের এই সিনেমাটা দেখতে একটু দেরী করলাম ইচ্ছে করেই। যেহেতু নির্মান প্রযুক্তি এবং কাহিনী সম্পর্কে আগেই ধারনা ছিল, তাই এক্সপেক্টেশনও কম ছিল এবং, সিনেমাটা ভালো লেগেছে। দারুন এন্টারটেইনিং।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    ডুব সাতার, বাংলাদেশ, ২০১০
    নুরুল আলম আতিকের পরিচালনায় বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল সিনেমা। দরিদ্র পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী মেয়েটা যে নেশায় আশক্তদের নিয়ে কাজ করে তার সাথে প্রেম হয়ে গেল একজন শিক্ষিত সম্ভ্রান্ত স্বচ্ছল মাদকাসক্তের। সেই মাদকাসক্ত ছেলেটার সাথে প্রেম থেকে অবৈধ শারীরিক সম্পর্কের কারনে সন্তানসম্ভবা হয় মেয়েটা, অন্যদিকে দুর্ঘটনায় ছেলেটা মারা পরে। কি হবে মেয়েটার?
    সিনেমার রং দারুন, কিনউত শেকি ক্যামেরা আর ফোকাসের ক্রমাগত পরিবর্তন অনভ্যস্ত দর্শকের কাছে ভালো লাগবে না। গল্পটা ভালো লাগবে, গল্প বলার ভঙ্গিও। নুরুল আলম আতিকের পূর্বেকার কাজগুলোর মতই দারুন।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    হেমলক সোসাইটি, ভারত, ২০১২
    সৃজিত মুখার্জীর তৃতীয় সিনেমা। একটি মেয়ে আত্মহত্যা করতে গেলে তাকে সেই মুহূর্তে বাচায় একটা ছেলে, তারপর ছেলেটা পরিচালিত হেমলক সোসাইটি-র ক্রাশ কোর্সে ভর্তি করিয়ে দেয়া হয়। উদ্দেশ্য – ভালো ভাবে শিখিয়ে পড়িয়ে দেয়া যেন আত্মহত্যার চেষ্টা বিফল না হয়। পরমব্রত চট্ট্রোপাধ্যায় আর কোয়েল মল্লিক অভিনয় করেছেন। সৃজিতের বাকী দুটো সিনেমার মতই এখানেও গানগুলো চমৎকার, গল্পটাও ভালো, সামান্য মেদ আছে। তবে বাইশে শ্রাবনের তুলনায় বেশ ভালো সিনেমা।
    রেটিং: ৪/৫

    Fetih 1453, Turkey, 2012
    তুরস্কের বীর সুলতান মাহমুদ ফাতিহ এর ইস্তাম্বুল (তৎকালীন কনস্টান্টিনোপোল) জয়ের কাহিনী নিয়ে তুরস্কের নির্মিত সিনেমা। তুরস্কের সবচে ব্যয়বহুল এই সিনেমা নির্মানের উদ্যোগ নি:সন্দেহে প্রশংসনীয় কম্পিউটার গ্রাফিক্স বেশ ভালো করেছে, তবে কোথাও কোথাও কাঁচা। কাহিনী মোটামুটি ইতিহাসআশ্রিত, পাশে একটি প্রেম কাহিনীও রয়েছে। তুরস্ক সহ সারা পৃথিবীতে মুসলমানদের সাম্প্রতিক রাইজিং এ যারা উদ্দীপ্ত তাদের কাছে ভালো লাগবে।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Recipe, Korea, 2011
    রান্না নিয়ে দারুন একটি সিনেমা। দুর্ধর্ষ ফেরারী এক আসামী মৃত্যুর সময় খুব আস্তে উচ্চারন করেছিল স্যুপ জাতীয় এক খাবারের নাম। জানা গেল, তাকে ধরাও হয়েছিল এই খাবারের কারণে – খাবারে এতটাই মগ্ন ছিল যে তার আশেপাশে পুলিশ ঘিরে ফেলে রুমে ঢুকে পড়লেও খাওয়া শেষ করার আগ পর্যন্ত টের পায় নি সে। এক রিপোর্টার সেই খাবারের রেসিপি খুজে বের করার মিশন নিয়ে এগিয়ে যায় – পথে জানা যায় পেছনে আছে এক দারুন প্রেমকাহিনী।
    ভিন্নরকম স্টোরীটেলিং স্টাইল ভালো লাগবে। তবে গল্পটা অপেক্ষাকৃত স্লো গতির। হয়তো এ কারণেই সিনেমাটা উপভোগ করতে মানসিক প্রস্তুতি প্রয়োজন হবে।
    রেটিং: ৪/৫

  182. কালো পিঁপড়া says:

    দারাশিকো ভাই, আপনার লেখা সবগুলো রিভিউ আমার পড়া হয় নাই; তাই আমার ধারণা নেই যে, আপনি Shadows of Time দেখেছেন কি না বা এর উপর কোন রিভিউ লিখেছেন কি না…এটা ভাষা বাংলায় নির্মিত একটা জার্মান ছবি…না দেখে থাকলে খুব তাড়াতাড়ি দেখে ফেলেন…আর একটা রিভিউও চাই কিন্তু…

    • না ভাই, Shadows of Time দেখি নাই। সিনেমাটা সম্পর্কে শুনেছি। সম্ভবত কোলকাতাকে কেন্দ্র করে কাহিনীটা।
      মনে থাকবে মুভিটার কথা। দেখলে লিখবো ইনশাল্লাহ।
      ভালো থাকুন 🙂

  183. ইমরান says:

    12 Angry Man (1957)
    অনেকদিন ধরে মুভিটা দেখার ইচ্ছা ছিল। ২-১দিন আগে দেখলাম। দেখে এত ভালো লাগল মুভিটার কথা না লিখে পারলাম না।
    ভাইয়া, মুভিটা দেখছেন?
    দেখলে একটা review লিখে দেন।
    এমনিতেই আমি পুরানো মুভির ভক্ত; এটা দেখার পর বারবার মনে হচ্ছে, সাম্প্রতিককালে কালজয়ী মুভি নির্মাণ করার চাইতে দর্শকপ্রিয় মুভি নির্মাণ করার দিকে পরিচালকদের মনোযোগ বেশি।
    আমার রেটিং ৯/১০

    • প্রিয় ইমরান, সিনেমাটা দেখেছি। সত্যিই খুব ভালো সিনেমা। এত বস সিনেমা নিয়ে লিখার সাহস করি না 🙁
      কালজয়ী মুভি নির্মানের চেয়ে দর্শক প্রিয় সিনেমা নির্মানের দিকে আগ্রহ সত্যিই লক্ষ্যনীয় – এটা শুধু হলিউড নয়, সারা বিশ্বেই একই অবস্থা। আমাদের দেশও পিছিয়ে নেই।
      ভালো থাকুন 🙂

  184. The Gold Rush, USA, 1925
    রেটিং: ৪/৫

    Modern Times, USA, 1936
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The Great Dictator, USA, 1940
    এই ছবিতে চ্যাপলিন সবাক। একই সাথে দুই চরিত্রে অভিনয় করেছে। হিটলারের প্রতি বিদ্রুপাত্মক। ভালো লাগে নাই তেমন।
    রেটিং: ৪/৫

    The Kid, USA, 1921
    রেটিং: ৫/৫

    Exam, USA, 2009
    একটা রুম। আটজন প্রতিযোগী। অদ্ভুত সব নিয়মাবলী। পরীক্ষা শূরু হল, কিন্তু প্রশ্ন লেখা নেই কোথাও। প্রশ্নটা খুজে বের করে উত্তর দিতে পারলেই যোগ্য ব্যক্তিকে খুজে পাওয়া সম্ভব। দেড়ঘন্টায় একটা রুমের মধ্যে কাহিনী আটকে রাখার জন্য সবগুলো উপাদানই এখানে বেশ দারুন ভাবে অ্যাকটিভ। স্ক্রিপ্ট বোঝার জন্য খুব ভালো সিনেমা।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Identity, USA, 2003
    প্রচন্ড বৃষ্টিতে একটা মোটেলে ঘটনাচক্রে একত্রিত হল এগারোজন মানুষ, তাদের মধ্যে একটি আবার ৪/৫ বছরের ছেলে। একটা খুন হয়ে গেল, একই সাথে দেখা গেল দশজনের মধ্যের একজন খুনি যাকে নিয়ে যাচ্ছিল এক পুলিশ – সে পালিয়েছে। তারপর একে একে খুন হতে লাগল অন্যান্যরাও। কাহিনী টিপিক্যাল হরর মুভির মত হলেও এই সিনেমা সম্পূর্ন ভিন্ন একটি বিষয় নিয়ে ডিল করেছে। টিপিক্যাল হরর কাহিনীর বৈশিষ্ট্যাকে পুরোপুরি মুছতে পারে নি – ফলে কোথাও কোথাও বেশ বিরক্তি তৈরী করেছে। তবে, এই সিনেমা বেশ উপভোগ্য।
    রেটিং: ৪/৫

    Fracture, USA, 2007
    ব্রিলিয়ান্ট মুভি।
    অ্যান্হনি হপকিস আর রায়ান গুজলিং এর সিনেমা। কাহিনীতে দৌড়ঝাপ নাই মোটেও, দুইজন তীক্ষ্ণ বুদ্ধির মানুষের খেলা চলেছে পুরো সিনেমায়। কোর্টরুম ড্রামা।
    রেটিং: ৪.৫/৫

  185. ভূতের ভবিষ্যৎ, ভারত, ২০১২
    পুরানো এক বাড়িতে শ্যুটিং করবে বলে দেখতে এসে দারুন এক জমজমাট কাহিনী পেয়ে গেল পরিচালক। বিভিন্ন সময়ে মরে যাওয়া ভূতরা যে আস্তে আস্তে তাদের নিজ নিজ বাড়ি থেকে উচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছে এবং এ বিষয়ে কিছু একটা করা দরকার সেই কাহিনীই তাকে বলে গেল এক ভদ্রলোক। ছন্দে ছন্দে দারুন সব সংলাপ। খুবই এন্টারটেইনিং মুভি।
    রেটিং: ৪.৫/৫
     
    The Dark Knight Rises, USA, 2012
    ক্রিস্টোফার নোলানের ব্যাটম্যান ট্রিলজির থার্ড পার্ট। দারুন এনজয়েবল সিনেমা, কিছু গাজাখুরি আছে বটে, তবে উপেক্ষা করা যায়। ডার্ক নাইটকে ছাড়িয়ে যেতে পারে নি
    রেটিং: ৪/৫

    The Bourne Legacy, USA, 2012
    বর্ণ সিরিজের চতুর্থ সিনেমা। এখানে ম্যাট ডেমন নেই, নেই বর্ণ চরিত্রটিও। মোটামুটি লাগছে।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Yol, Turkey, 1980
    এই সিনেমা যখন নির্মিত হয় তখন পরিচালক জেলে ছিলেন – এটুকুই কি সিনেমাটা দেখার জন্য আগ্রহ তৈরী করে না? জেল থেকে এক সপ্তাহের ছুটিতে বের হয় কিছু বন্দী। তারা তুরস্কের বিভিন্ন অঞ্চলে যাবে, সেখানে পরিবারের সাথে মিলবে আবার ফেরত আসতে হবে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে। প্রত্যেকেরই আছে ভিন্ন ভিন্ন গল্প। অত্যন্ত মানবিক একটা গল্প। অনেক আগের সিনেমা হলেও দেখতে মোটেও বিরক্ত লাগে নি।
    রেটিং: ৫/৫

    Pan’s Labyrinth, USA, 2006
    ইতাহাসের সাথে ফ্যান্টাসী মিলিয়ে কিভাবে দারুন এক ছবি বানাতে হয় এই ছবি তার প্রমাণ। সিনেমাটোগ্রাফি অসাধারন, স্টোরি টেলিং মাইন্ডব্লোয়িং, মেয়েটার অভিনয় নিয়ে আর কি বলবো। মাস্ট সি সিনেমা।
    রেটিং: ৫/৫

    The man who knew too much, USA,
    আলফ্রেড হিচককের মুভি। থ্রিলার। মুভি থেকেও অনেক কিছু শেখার ও জানার আছে।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Intouchables, French, 2011
    সাজিদ রিকমেন্ড করেছিল সিনেমাটা, তাই দেখা। মোটামুটি ভালো লাগছে। একটা জীবনের সমগ্র ঘটনাপ্রবাহের ট্রেলার নিঃসন্দেহে আকর্ষনীয়, যে জীবন যত দুর্বিষহই হোক না কেন।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    চোরাবালি, বাংলাদেশ, ২০১২
    রেদোয়ান রনি পরিচালিত প্রথম সিনেমা। মুক্তির প্রথম দিন হলে গিয়ে দেখার সৌভাগ্য হল। ভালো ছবি। অন্তত বানিজ্যিক সিনেমার ধারনাকে পাল্টে দিতে সাহায্য করবে এই মুভি।
    রেটিং: ৪/৫

  186. ইসতিয়াক says:

    বেশ কিছু মুভি গিল্লাম।নামগুলো লিখে ফেলি।কেমন…
    ১)Midnight in Paris(2011),usa
    প্রবীণ নির্মাতা উডি আলেন এর মুভি। একটি রোমান্টিক ফ্যান্টাসি কমেডি। অভিনয় করেছেন ওয়েন উইলসন,র‍্যাচেল ম্যাক’আডামস। বোরিং বাট ভাল। রেটিং: ৪/৫।
    ২)Seducing Mr.Prefect {Mr. Robin kkosigi (2006)} ,korea
    একটি রোমান্টিক কমেডি। ভালই। রেটিং: ৩.৫/৫ ।
    ৩)There Will Be Blood(2007),usa
    ‘গ্যাংস অফ নিউ ইয়র্ক’ দেখে নায়ক ড্যানিয়েল ডে লুইস এর বিশাল ভক্ত হয়ে গেসিলাম।এরপর আই এম ডি বি এর রেটিং দেখে এই মুভি টা দেখলাম। আ ওর্থ টু ওয়াচ মুভি। খুব চতুর এক তেল ব্যবসায়ীকে ঘিরে এই মুভির কাহিনী। রেটিং: ৫/৫।
    ৪)The Fighter(2010),usa
    সত্য ঘটনা অবলম্বনে বক্সিং এর উপর নির্মিত এ মুভিটিতে অভিনয়ের জন্য সেরা পার্শ্ব অভিনেতা হিসেবে অস্কার পেয়েছেন ক্রিশ্চিয়ান বেল। হিউমার চমৎকার ভাবে ফুটে উঠেছে এখানে।রেটিং: ৫/৫।
    ৫) ব্যোমকেশ বকশী(২০১০),ভারত
    শরদিন্দু বন্দোপধ্যায় এর গোয়েন্দা চরিত্র ব্যোমকেশ কে নিয়ে অঞ্জন দত্ত নির্মাণ করেছেন এই থ্রিলার মুভিটি। মূল গল্পের নাম ‘আদিম রিপু’, সম্প্রতি এই মুভির সিকুয়্যেলও বের হয়েছে। রেটিং: ৩.৫/৫।

  187. পিতা, বাংলাদেশ, ২০১২
    পরিচালক মাসুদ আখন্দ হুমায়ূন আহমেদের সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন বলে জেনেছি। পিতা সিনেমার কাহিনী, চিত্রনাট্য, সংলাপ তার, পরিচালনাও তার, এবং, সিনেমায় কিছুক্ষন পর পর হুমায়ূন আহমেদ এর ছাপ পাওয়া যায় – ঘটনাপ্রবাহ, সংলাপ, অভিনয়ে। সিনেমার গল্প মুক্তিযুদ্ধের সময়কার। পাকিস্তানি বাহিনির গনহত্যা থেকে নিজ সন্তানকে রক্ষা করার জন্য একজন বাবা কি করেছেন বা কি করতে পারেন তার এক অতিপ্রাকৃত গল্প দর্শকদের সামনে নিয়ে এসেছেন মাসুদ আখন্দ।
    তার সিনেমায় দশ পনেরোজন পাকিস্তানি সৈন্য একজন বাবার ছুড়ি-দা-কাচির আঘাতে মারা যান, ক্যাপ্টেন আহত হওয়ামাত্র সৈন্যরা স্বেচ্ছায় লিড দিতে শুরু করে, জীবন নিয়ে টানাটানির মুহুর্তে প্যান্ট খোলার উপক্রম হয় ধর্ষনের উদ্দেশ্য, গ্রামের মুসলমানরা হয় মুক্তিযোদ্ধা নয় রাজাকার, এবং আধা সরকারী বাহিনীর রাজাকাররা বন্দুক নয় বিশাল গরু জবাইয়ের ছুড়ি নিয়ে নির্বিচারে মানুষ জবাই করে।
    মুক্তিযুদ্ধ কোন ফ্যান্টাসি নয়, মুক্তিযুদ্ধ কোন মিথলজি নয়, এটি চরম বাস্তবতা।
    রেটিং: ২/৫

    The Social Network, USA, 2010
    ফেসবুকের নির্মাতা মার্ক জাকারবার্গের কাহিনী নিয়ে ডেভিড ফিঞ্চারের সিনেমা। মূলত কিভাবে ফেসবুকের তৈরী হল, বিস্তার ঘটল তা মার্ক এবং তার বন্ধুর বিভিন্ন ঘটনার মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে। মোটামুটি সাধারণ একটা কাহিনীকে বেশ উত্তেজনাময় হিসেবে তুলে ধরার জন্য পরিচালক ধন্যবাদ পাবেন।
    রেটিং: ৪/৫

    The Birds, USA, 1963
    স্যার আলফ্রেড হিচককের সিনেমা। সমুদ্রের তীরে একটা ছোট্ট শহরে পাখিরা হঠাৎ আক্রমন শুরু করে মানুষজনের উপর। গল্পটার কোন ফিনিশিং পাইলাম না 🙁
    সিনেমাটা দুর্দান্ত।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Lifeboat, USA, 1957
    এইটাও আলফ্রেড হিচককের সিনেমা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে আমেরিকান জাহাজ ধ্বংসের পর বেশ কিছু যাত্রী একটি লাইফবোটে একত্রিত হয়। তার মধ্যে একটি জার্মান সেনাও আছে। দারুন সিনেমা। পুরোটাই সমুদ্রে এবং বোটের মধ্যে। বুঝতে একটু কষ্টই হইছে 🙁
    রেটিং: ৩.৫/৫

  188. Frenzy, USA, 1972
    হিচকক মুভি। এক শহরে সিরিয়াল খুন হচ্ছে – পরিচিত মেয়েরা হারিয়ে যাচ্ছে, পরে উদ্ধার হচ্ছে গলায় টাই বাধা অবস্থায় – নেকটাই কিলিং। এরকম একটা খুনের দায়ে ফেসে যায় রগচটা ব্লেইনি। অথচ খুনি দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Charade, USA, 1963
    হিচকক মুভি মনে করে দেখতে বসেছিলাম, কিন্তু দেখা গেল পরিচালক স্ট্যানলি ডোনান। এই ছবিকে বলা হয় – সেরা হিচকক মুভি যেটা হিচকক বানাননি। আসলেই সেরা। এতগুলো হিচকক মুভি দেখার পর এটাই বেস্ট সিনেমা। সাসপেন্স আর থ্রিলারের মাস্টারপিস মুভি।
    রেটিং: ৭/৫

    ব্যোমকেশ বক্সী, ভারত, ২০১০
    অঞ্জন দত্ত পরিচালিত সিনেমা, শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপন্যাসের গোয়েন্দা চরিত্র। হিন্দু-মুসলমান দাঙ্গার সময়ে ঘটে যাওয়া এক হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচনের চেষ্টা চালায় ব্যোমকেশ বক্সি। ভালোই লেগেছে। কিঞ্চিত বিরক্তও হয়েছি।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Welcome to the Sticks, France, 2008
    বহুদিন পর একটা সিনেমা দেখতে দেখতে হাসলাম। দারুন কমেডি সিনেমা। ফ্রান্সের একদম উত্তরে একটা শহরে ট্রান্সফার করা হয় এক কর্মকর্তাকে। ভাষার পরিবর্তন সহ লোকাল সংস্কৃতিকে দারুন ভাবে তুলে ধরা হয়েছে সিনেমায়। মনে হচ্ছিল, সিলেটের কাউকে কক্সবাজারে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে 🙂
    রেটিং: ৪.৫/৫

  189. ইসতিয়াক says:

    অনেকগুলো মুভি দেখলাম গত ২-৩ সপ্তাহে।
    ১) Up(2009)
    চমৎকার আনিমেশন মুভি।রেটিং-৫/৫
    ২)Django Unchained(2012)
    জোস মুভি এক কথায়।ট্যারান্টিনোর মত পরিচালক আর ক্রিস্টোফার ওয়াল্টজ এর মত অভিনেতা থাকতে এ মুভি ভাল না লেগেই পারে না।রেটিং-৫/৫
    ৩)Silver Linings Playbook(2012)
    ২০১২ সালের সবচেয়ে রোমান্টিক মুভি। ব্রাডলি কুপার আর জেনিফার লরেন্স অভিনীত।রেটিং-৫/৫
    ৪)Flight(2012)
    ডেঞ্জেল ওয়াশিংটন অভিনীত। মদ্যপ এক পাইলটের কাহিনী। পরিচালক আমার খুব প্রিয় রবার্ট জেমেকিস। রেটিং-৫/৫
    ৫)Being John Malkovich(1999)
    ফ্যান্টাসি অ্যান্ড ফানি মুভি।মজা লাগসে। রেটিং-৪/৫
    ৬)The Boy In Stripped Pajamas(2008)
    মাস্ট সি। না দেখলে মিস।চোখের পানি ধরে রাখা কঠিন।রেটিং-৫/৫
    ৭)Blue Valentine(2010)
    রায়ান গস্লিং এবং মিচেল উইলিয়ামস এর রোমান্টিক মুভি।রেটিং-৪/৫
    ৮)Drive(2011)
    রায়ান গস্লিং এবং মিচেল উইলিয়ামস অভিনীত ব্যবসা সফল মুভি। রেটিং-৩.৫/৫
    ৯)The Artist(2011)
    নির্বাক চলচিত্রের বদলে সবাক চলচিত্র দর্শকপ্রিয়তা পেয়ে বসাতে দেউলিয়া হয়ে পড়েন এক অভিনেতা।বেশ উপভোগ্য কমেডি।রেটিং-৫/৫
    ১০)Due Date(2010)
    কমেডি মুভি।উপভোগ্য।রেটিং-৩.৫/৫
    ১১)অটোগ্রাফ(২০১০)
    বোরিং বাট ভাল ছবি।শ্রিজিত মুখারজীর প্রথম চলচিত্র।রেটিং-৪/৫
    ১২)The Ghost Writer(2010)
    ইদানিং কালে দেখা সবচেয়ে ভাল থ্রিলার।রোমান পোলানস্কি পরিচালিত।একটানে দেখার মত মুভি।রেটিং-৫/৫

    • বাহ। অনেক অনেক মুভি দেখা হচ্ছে দেখি। গুড। ড্রাইভ সিনেমায় রেটিং কম হবে বুঝেছিলাম, বিয়িং জন মালকোভিচেও। অনেকগুলাই এখনো দেখা হয় নাই, দেখবো ধীরে ধীরে।

      • ইসতিয়াক says:

        ভাই ‘দ্য ঘোস্ট রাইটার’ না দেখে থাকলে অবশ্যই দেখবেন। হেভি মুভি।

    • ইমরান says:

      ভাইয়া ওয়াচলিস্ট তো সাম্প্রতিক কালের মুভিতে ভরা। ২টা মুভি দেখা Up & The Artist।
      আমার সাম্প্রতিক দেখা প্রায় সব মুভিই ওল্ড।
      Andrey Hepburn এর Roman Holiday, Charade আর The Children’s Hour দেখলাম। ৩টাই ভালো লাগছে।
      আর সাম্প্রতিক মুভির মাঝে দেখলাম The Perks Of Being A Wallflower- এক টিনেজের গল্প যার উপর সেক্সুয়াল অ্যাবইউস করা হয়েছে।
      ভালো লাগছে ট্যারান্টিনোর Kill Bill এর ২টা পার্টই। এই ২টা মুভি দেখছি জানুয়ারির শুরুর দিকে। ট্যারান্টিনোর নতুন মুভি Django Unchained এখোনো হাতে পায়নি। তাই দেখাও হয়নি 🙁

  190. টেলিভিশন, বাংলাদেশ, ২০১৩
    মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর সাম্প্রতিক ছবি। প্রথমদিনই হলে গিয়ে দেখা হল। পরে লেখাও হল এই নিয়ে।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Midnight Cowboy, USA, 1969
    জন শ্লেসিঙ্গার পরিচালিত সিনেমা। রেইনম্যান খ্যাত ডাস্টিন হফম্যান এবং অ্যাঞ্জেলিনা জোলির বাবা জন ভয়েটের অভিনয় দেখার জন্য এই সিনেমা। হলিউডের ইতিহাসে এই সিনেমা বিশেষ মাইলফলক। সিনেমার গল্পে একজন কাউবয় শহরে আসে জীবিকার উদ্দেশ্য নিয়ে, পেশা হিসেবে সে প্রস্টিটিউশনকে বেছে নিতে চায়।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Tinker Tailor Soldier Spy, USA, 2011
    মাঝে মাঝে প্লাস্টিক বা রবার জাতীয় কিছু সিনেমা খাওয়া হয়ে যায়। এগুলো ভাঙ্গে না, মচকায় না, গলে না। চাবানো যায় না, কামড়ে ছেড়াও যায় না। কোৎ করে গিলে ফেলা যেতে পারে, কিন্তু হজমও হয় না। বড়ই বিব্রতকর সিনেমা।
    টিঙ্কার টেইলর সোলজার স্পাই সেরকম একটি সিনেমা। মোটা দাগে গল্প বোঝা গেলেও পুরাটা বোঝা সম্ভব হয় নি। হজমও হচ্ছে না, মনে হচ্ছে উগরে দিয়ে আবারও দেখতে হবে।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    আগন্তুক, ভারত, ১৯৯১
    সত্যজিত রায়ের চলচ্চিত্র। যৌবনে নিরুদ্দেশ হয়ে যাওয়া এক মামা হঠাৎ করে হাজির হয় তার ভাগ্নীর বাসায়। লোকটা আসল না নকল সে নিয়ে বিস্তর সন্দেহ, লোকটিও প্রচন্ড বুদ্ধিমান – সব টেকনিকই ধরে ফেলছে। শেষ পর্যন্ত কি ঘটবে সে টেনশন থেকে যায়। দারুন ছবি, শিক্ষনীয়ও বটে।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    আবার ব্যোমকেশ, ভারত, ২০১২
    অঞ্জন দত্তের পরিচালনায় এই ছবি। স্বাস্থ্য উদ্ধারে জলপাইগুড়ির দিকে কোথাও বেড়াতে গিয়েছিল ব্যোমকেশ, সেখানে ঘটনাচক্রে রহস্য বেড়িয়ে পড়ে, ঘটে যায় একটি খুনও। ছবির রং দারুন, গল্পও চমৎকার। তবে, ব্যোমকেশের সব জেনেও গোপন রাখার বিষয়টা এখানেও ভালো লাগল না, আর শেষ দৃশ্যটি বেশ প্রশ্নবিদ্ধ। চলায়বল সিনেমা।
    রেটিং: ৩/৫

    বোম্বাইয়ের বোম্বেটে, ভারত, ২০০৩
    সত্যজিত রায়ের গল্পে পুত্র সন্দীপ রায়ের পরিচালনা। দশ বছর আগে ফেলুদার বয়সও কম, তোপসে চরিত্রে শ্বাশ্বত চট্টোপাধ্যায়, তবে জটায়ু চরিত্রে বিভু চক্রবর্তী। নতুন জটায়ুকে ভালো লেগে গেল। ফেলুদার সব গল্পের মতই এই গল্পটিও দারুন। টোটাল এন্টারটেইনিং।
    রেটিং: ৪/৫

    Vizontele, Turkey, 2001
    বাংলাদেশের টেলিভিশন নাকি তুরস্কের এই টেলিভিশন থেকে নকল করা হয়েছে – এই অভিযোগ থেকে দেখা হল ভিজনটেলে।
    তুর্কি ‘টেলিভিশন’ সিনেমার প্রেক্ষাপট সত্তরের দশকে, প্রত্যন্ত একটি গ্রাম, যেখানে দৈনিক পত্রিকা আসে দুই দিন পর, বিনোদনের মাধ্যম হল রেডিও এবং সিনেমাহল। গ্রামে সিনেমাহল একটাই, সেটায় একটি সিনেমাই এতদিন ধরে চলছে যে তার প্রতিটি সংলাপ পাশের তরমুজ বিক্রেতার মুখস্ত। আছে, এমিন নামে একজন আধপাগলা রেডিও মেকানিক। সেই গ্রামে হঠাৎ সরকারের পক্ষ থেকে একটি টেলিভিশন। সেই টেলিভিশন চালানোর জন্য ডাক পরে রেডিও মেকানিক এমিনের।
    ২০০১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এই সিনেমা বাংলাদেশী সিনেমা ‘টেলিভিশন’ এর চেয়ে অনেক বেশী এন্টারটেইনিং। বাংলাদেশী সিনেমাটি ধর্মীয় সংস্কার-কেন্দ্রিক হলেও তুর্কি সিনেমায় ধর্ম স্থান পেয়েছে খুব ছোট একটি দৃশ্যে। দারুন সিনেমাটোগ্রাফি আর কমেডি উপভোগের জন্য ‘ভিজনটেলে’ দারুন একটি সিনেমা।

    Skyfall, USA, 2012
    বন্ড মুভি। আগ্রহ প্রচন্ড ছিল, ব্লুরে আসার পরপরই দেখে ফেললাম। গল্পের শুরুতেই বন্ডকে মেরে ফেলা হয়েছিল। ভিলেনকে ভালো লাগে নাই।
    যে লোকটা কম্পিউটারে বসে এক ক্লিকে লন্ডনে গ্যাস বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে, স্টক মার্কেটে গোলমাল লাগিয়ে মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানীকে পথে বসিয়ে দিতে পারে, কাবুলের স্যাটেলাইট কানেকশনে বাধা দিতে পারে , উগান্ডার নির্বাচনকে বানচাল করে দিতে পারে – সেই লোকটা কেন আরেকটা লোককে নির্জন এক এলাকায় মারার জন্য বিশটা লোককে সাথে নিয়ে মারতে যায়?
    কারণ টার্গেটের লোকটা বন্ড, আর সিনেমাটা স্কাইফল।
    রেটিং: ৪/৫

    The Conversation, USA, 1974
    দি কনভারসেশন সিনেমার কাহিনী একজন সার্ভেইল্যান্স এক্সপার্ট বা প্রাইভেট গোয়েন্দাকে ঘিরে। জনমুখর একটি এলাকায় একজোড়া মানব-মানবীর গোপন আলাপচারিতা শক্তিশালী ও আধুনিক যন্ত্রের মাধ্যমে রেকর্ড করে গোয়েন্দা হেনরী কল ও তার সহযোগীরা। তারপর সম্পাদনার মাধ্যমে তাদের কথাবার্তাগুলো সমন্বয় করে কল। ক্লায়েন্টের কাছে জমা দেয়ার আগে সে বুঝতে পারে – যে জুটির কথোপকথন রেকর্ড করেছে সে তারা মৃত্যুর ভয় করছে। হেনরী কলের অস্বস্তি শুরু হয় – কি করবে সে?
    গডফাদার ট্রিলজির খ্যাত নির্মাতা ফ্রান্সিস ফোর্ড কপোলার ১৯৭৪ সালের সিনেমা দি কনভারসেশন। সাইকলজিক্যাল থ্রিলার ঘরানার এই চলচ্চিত্রটি অপেক্ষাকৃত স্লো, তবে এর ট্রিটমেন্ট দারুন। গল্পকে কিভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়েছেন পরিচালক – সেটা উপভোগ্য। আর অবশ্যই শুরুর দিককার দৃশ্যটি। দারুন সিনেমাটোগ্রাফি।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Days of Heaven, USA, 1978
    ট্রি অব লাইফ এর পরিচালক টেরেন্স মালিক পরিচালিত সিনেমা। অ্যামিলি ছবির সিনেমাটোগ্রাফি সম্পকে পড়তে গিয়ে এই ছবির কথা পেয়েছিলাম। অসাধারণ ফটোগ্রাফি।
    দুটো দরিদ্র যুবক যুবতী ভাই বোন পরিচয়ে একত্রে থাকে, সাথে থাকে ছেলেটির ছোট একটি বোন। তিনজনে মিলে ফসল কাটার মৌসুমে এক কৃষকের অধীনে কাজ শুরু করে। সেই কৃষক পছন্দ করে ফেলে মেয়েটিকে। পার্থিব সুখের বিনিময়ে মেয়েটির বিয়ে হয়ে যায় কৃষকের সাথে, ছেলেটি রয়ে যায় ভাই হিসেবে। কিন্তু ভালোবাসা কি ভাইয়ের সম্পর্কে বেধে রাখা সম্ভব?
    দারুন গল্প। চুপচাপ এইরকম ভালোবাসার ছবি খুবই উপভোগ্য।
    রেটিং: ৫/৫

    রয়েল বেঙ্গল রহস্য, ভারত, ২০১২
    জঙ্গলে এক রাজবাড়িতে হাজির হয় ফেলুদা, তোপসে এবং জটায়ু। সেখানে হাজির হয় রহস্য। লাশ হয় যুবক কর্মচারী। ফেলুদাকে দায়িত্ব দেয়া হয় একটি ধাধা সমাধানে। বেশ জমাট গল্প, দারুন টুইস্টিং।
    রেটিং: ৫/৫

  191. ইসতিয়াক says:

    ১)টেলিভিশন(২০১৩)
    ২)Dail ‘M’ For Murder(1954)
    ৩ )Snatch(2000)
    ৪)Warrior(2011)
    ৫)The Lincoln Lawyer(2011)
    ৬)Argo(2012)
    ৭)Dead Poets Society(1989)
    ৮)Megamind(2010)

  192. বাক্স রহস্য, ভারত, ১৯৯৬
    ফেলুদার একদম তরুন বয়সের ছবি। জটায়ূ চরিত্রে আছেন রবি ঘোষ।
    ট্রেনে বাক্স বদল হয়ে গেল। হারানো বাক্সে ছিল বহু পুরাতন একটি ট্রাভেল কাহিনীর ম্যানুস্ক্রিপ্ট। ট্রেনের কামরায় ক্লায়েন্ট ছাড়া মানুষ মাত্র তিনজন। এদের মধ্য থেকে দোষী ব্যক্তিকে খুজে বের করে ম্যানুস্ক্রিপ্ট উদ্ধারের ঘটনা বেশ উত্তেজনাময়।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    4 Months 3 Weeks 2 Days, Romania, 2007
    ছবি দেখতে গিয়ে আমি এর আগে কখনো অস্বস্তিতে পড়িনি। স সিরিজের ছবিগুলো ভালো লাগে না বলে দেখি না, এই ছবিতে সেরকম কিছু নেই। তাও ছবিটা শেষ করার জন্য মাঝে প্রায় সাতদিনের গ্যাপ ছিল। বিশ বছর আগের রোমানিয়ার পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়েছে যখন অবৈধ গর্ভপাত নিষিদ্ধ আর স্কুল ছাত্রী এক মেয়ের গর্ভপাতে সহায়তা করছে তারই রুমমেট। গল্পটা সাধারন একটি ঘটনা মাত্র। কিন্তু সময় এবং পরিস্থিতিকে বেশ ভালোভাবে তুলে ধরেছে।
    রেটিং: ৪/৫

    ডাঃ মুন্সীর ডায়রী, ভারত,
    সত্যজিত রায়ের ফেলুদা গল্প অবলম্বনে পুত্র সন্দীপ রায়ের ছবি। গতিময় ছবি।
    রেটিং: ৪/৫

    Un Prophet, France, 2009
    ছবিটির ইংরেজি নাম – দ্য প্রফেট। জেলখানার জীবন নিয়ে ছবি। একজন মুসলিম জেলে যাওয়ার পর ভিন্ন গ্রুপের ব্লকে চাকর থেকে লিডার হওয়া এবং পরবর্তীতে বাহিরের গ্রুপের কাছে গ্রহনযোগ্য হয়ে ওঠার কাহিনী। একটু লম্বা সিনেমা, তবে ভালো লাগবে। বিশেষ করে জেল জীবনের শুরুর পর্যায়টা অসাধারণ।
    রেটিং: ৪/৫

    দেবদাস, বাংলাদেশ, ২০১৩
    চাষী নজরুল ইসলামের দ্বিতীয়বারের নির্মান। এবারে শাকিব খান, মৌসুমী, অপু বিশ্বাস। বিস্তারিত রিভিউ-তে।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    দেবদাস, বাংলাদেশ, ১৯৮২
    বহু কষ্ট করে পুরানো দেবদাস ডাউনলোড করে তারপর দেখা হল। নতুন দেবদাসের তুলনায় পুরাতন দেবদাস ভালো। বিস্তারিত রিভিউ-তে।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Dial M for Murder, USA, 1954
    আলফ্রেড হিচককের মুভি। একজন সাবেক টেনিস খেলোয়ার তার স্ত্রীকে হত্যা করার জন্য দারুন এক পরিকল্পনা করেন। একদম নিখুঁত। তারপর পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ শুরু করেন। শেষ পর্যন্ত কতটা সাকসেসফুল হবেন সেটা নির্ভর করছে সে কত ভালোভাবে তার প্ল্যান এক্সিকিউট করতে পারবে। টানটান উত্তেজনার মাস্টারপিস মুভি।
    রেটিং: ৫/৫

    Trade, USA, 2007
    মেক্সিকো থেকে আমেরিকায় পাচারকৃত অন্যান্য নারী ও শিশুদের মধ্যে ছিল দুইজন। একজন ভেরোনিকা, যুবতী মেয়ে, তার একটি সন্তানও আছে যার মুখ চেয়ে ভালো আয়ের উদ্দেশ্যে সে এসেছিল আমেরিকায়। আর আছে আদ্রিয়ানা, বয়স মাত্র বারো। পাচারকৃত নারীরা হারিয়ে যায়, কিন্তু আদ্রিয়ানার ভাই যে একজন কিশোর মাত্র, পিছু ছুটে চলে বোনকে উদ্ধারের আশায়।
    অনেক ভালো হতে পারতো এই সিনেমার গল্প। কিন্তু ততটা ভালো হল না। গল্পে আরেকটু গতি রাখা যেত, আরেকটু টুইস্টিং করা যেত। যা আছে তা মোটেও মন্দ নয়।
    রেটিং: ৩.৫/৫

  193. Reefat says:

    Watched “The Wrestler” after reading your review. I am a big fan fan of wrestling specially the “Attitude Era” 80’s and early 90’s. I know its fake but still i cant live without watching it. Micky Rourke was awesome. Those guys destroy themselves for people like us and it is not only for money….deep down inside their heart they have a passion for it…

    Thanks for the suggestion.

  194. ইসতিয়াক says:

    গত তিন সপ্তাহে দেখা মুভিগুলো দিয়ে দিলাম।
    ১)Charade(1963)
    ২)The Graduate(1967)
    ৩)Elizabethtown(2005)
    ৪)Changeling(2008)
    ৫)Downfall(2004)
    ৬)Kramer vs.Kramer(1979)
    ৭)The Wrestler(2009)
    ৮)The Perks Of Being A Wallflower(2012)
    ৯)Shaun of The Dead(2008)
    ১০)The Game(1997)
    এর মধ্যে খুব বেশি ভাল লাগসে The Wrestler,Downfall,Changeling,Kramer vs.Kramer ও Charade।এছাড়া The Graduate এবং The Game অনেক ভাল মুভি।Shaun of The Dead ও ভাল লাগসে।এন্টারটেইনিং মুভি।আই এম ডি বির হাই রেটিং দেখে The Perks Of Being A Wallflower নামালাম ও দেখলাম। তেমন আহামরী কিছু লাগে নাই।Elizabethtown ভাল লাগে নাই।

  195. Cinema Paradiso, Italy, 1988
    শৈশবে টোটোর সাথে বন্ধুত্ব গড়ে উঠেছিল সিনেমা হলের প্রজেকশনিস্ট আলফ্রেডোর। বয়সের তারতম্য সত্ত্বেও টোটোর জীবনে আলফ্রেডো দারুন ভূমিকা পালন করে যায়। কাহিনীর শুরুতে আলফ্রেডোর মৃত্যু সংবাদ পেয়ে টোটো তার শৈশবের শহরে ফিরে যায়। ফ্ল্যাশব্যাকে তার শৈশব-কৈশোরের কাহিনী বলা হয়। অসাধারণ এক গল্প, আর সেই সাথে ব্রিলিয়ান্ট সিনেমাটোগ্রাফি। মাস্টারপিস মুভি, মাস্ট সি।
    রেটিং: ৫/৫

    কৈলাসে কেলেঙ্কারী, ভারত, ২০০৭
    সত্যজিত রায়ের ফেলুদা অবলম্বনে নির্মিত সিনেমা। দারুন সব লোকেশনের শ্যূটিং হয়েছে। কৈলাসে যাবার আগ্রহ তৈরী করার জন্য এই একটি সিনেমাই যথেষ্ট।
    রেটিং: ৫/৫

    Argo, USA, 2012
    ইরানে ইসলামী বিপ্লব সংগঠিত হয়ে গেছে। আমেরিকান এমবেসির ছয়জন মানুষ কানাডার এম্বেসিতে লুকিয়ে ছিলেন। তাদেরকে উদ্ধার করার জন্য একজন এজেন্ট ছদ্মবেশে ইরানে প্রবেশ করেন এবং উদ্ধার করে নিয়ে আসেন। ছবির বহুল প্রশংসা কিন্তু খুব বেশী পছন্দ করতে পারি নি। এত উত্তেজনাময় ছবি ছিল না, তবে বাস্তব ঘটনার রিপ্রেজেন্টেশনে ভালো লাগবে।
    রেটিং: ৪/৫

    গোরস্থানে সাবধান, ভারত, ২০১০
    এটাও সত্যজিত রায়ের ফেলুদা অবলম্বনে নির্মিত সিনেমা। কোলকাতার পরিত্যক্ত গোরস্থানে ঘটে যাওয়া কিছু ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে ফেলুদা রহস্যের সমাধানে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। গোরস্থানটা দেখতে যাওয়ার আগ্রহ তৈরী হয়েছে সিনেমা দেখে।
    রেটিং: ৪/৫

    Charlie Chaplin: The Circus, USA, 1928
    চার্লি চ্যাপলিনের ট্র্যাম্প চরিত্রের আরেকটি সিনেমা। ভবঘুরে চার্লি কিভাবে একটি সার্কাস দলের সদস্য হয়ে যায় এবং সেখানকার ঘটনাবলী নিয়ে সিনেমা। চার্লির আর সব সিনেমার মতই বেশ বিনোদনময়ী সিনেমা।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    সীমানাহীন, বাংলাদেশ, ২০১৩
    স্টার সিনেপ্লেক্সে সিনেমা দেখার যাত্রা শুরু হল এই সিনেমার মাধ্যমে, সিনেমা দেখিয়েছেন ওয়াহিদ সুজন ভাই, দর্শক ছিলাম মোট চারজন।
    প্রবাসী বাংলাদেশীদের দ্বারা এবং নিয়ে নির্মিত সিনেমা। হিন্দু মুসলমানের প্রেমের সম্পর্ককে কিভাবে বৈধতা দেয়া যায় তার চেষ্টা করা হয়েছে এই সিনেমার মাধ্যমে। এইসব সিনেমা ভারতে ভালো চলার কথা, কারন তারা এই ধরনের কালচার প্রমোট করছে দীর্ঘদিন। কিন্তু ইসলাম ধর্মের সাথে সাংঘর্ষিক বিষয়ে ভরপুর সিনেমা। নির্মাতা হিন্দু ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান রাখলেও ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে জ্ঞান সীমিত। ইসলামকে আচারসর্বস্ব ধর্ম জ্ঞান করে সিনেমা নির্মান করলে চলে না।
    কন্টেন্টে বিরক্ত, তাই সিনেমা সম্পর্কে লিখতে আগ্রহ পাই নি।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Magnolia, USA, 1999
    টম ক্রুজকে চিনতাম মিশন ইম্পসিবল সিরিজের জন্য। এছাড়া আছে মাইনরিটি রিপোর্ট। বলবো কোলেটারেল এবং দ্য লাস্ট সামুরাই এর কথা। রেইন ম্যান, ভালকেইরী, আইজ ওয়াইড শাট এর কথাও কেউ কেউ মনে করিয়ে দেবে নিশ্চিত। কিন্তু ম্যাগনোলিয়ার কথা কি বলবে কেউ? বোধহয় না। ম্যাগনোলিয়া (১৯৯৯) বেশ কঠিন একটি ছবি। টম ক্রুজের চরিত্রটাও অদ্ভুত। কষ্ট করে যদি কোনভাবে তিনঘন্টা সিনেমার আড়াইঘন্টা দেখে ফেলতে পারেন তাহলে টম ক্রুজের অভিনয়টা বোঝা যাবে। দীর্ঘ শটে সংলাপ বলা আর সেই সাথে এক্সপ্রেশনের ভ্যারিয়েশন – কতটা যোগ্যতা সে রাখে তা প্রকাশ করে। টম ক্রুজের মত এরকম অভিনয় আবিষ্কার করেছিলাম কেট উইন্সলেটের কাছ থেকে – রিভল্যূশনারী রোড (২০০৮) এ। ম্যাগনোলিয়া-তে অভিনয়ের জন্য বেস্ট সাপোর্টিং অ্যাক্টর ক্যাটাগরীতে অস্কারের মনোনয়ন পেয়েছিলেন ক্রজ, হেরে গিয়েছিলেন মাইকেল কেইন এর কাছে, দ্য সাইডার হাউজ রুলজ ছবির অভিনয়ের কারনে।
    রেটিং: ৩/৫

    All about my Wife, Korea, 2012
    ভালোবেসে সংসার শুরু করার পর বউ-এর ভালোবাসার অত্যাচারে অতিষ্ঠ স্বামী, চায় ডিভোর্স করে শান্তি পেতে। কিন্তু সাহসের অভাবে বেছে নিতে হয় ভিন্ন পদ্ধতি। প্রতিবেশী বিখ্যাত সিডিউসারকে দায়িত্ব দেয় তার স্ত্রীকে সিডিউস করার জন্য। কিউট রোমান্টিক ছবি। দুইজনে মিলে আরেকবার দেখতে হবে।
    রেটিং: ৪/৫

    Goal: The Dream Begins, USA, 2005
    ফুটবল নিয়ে একটা ট্রিলজি- নাম গোল ট্রিলজি – তার প্রথম পর্ব। মেক্সিকোর দরিদ্র যুবক কিভাবে ইংল্যান্ডে এসে ক্লাব পর্যায়ের ফুটবলার হয়ে উঠে সেই গল্প বলা হয়েছে এই ছবিতে। খুবই আগ্রহোদ্দীপক ছবি।
    রেটিং: ৪/৫

    Goal II: Living the Dream, USA, 2007
    গোল ট্রিলজির বোগাস ছবি। এবার আরও ভালো ক্লাবে খেলতে গিয়েছে সেই যুবক। কিন্তু পাশাপাশি আরও নানা জটিলতার কারণে খেলা আর গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেনি ছবিতে।
    রেটিং: ২.৫/৫

    14 Blades, Korea, 2010
    কোরিয়ান অ্যাকশন সিনেমা, এপিক। ডনি ইয়েন অভিনীত সিনেমা। এন্টারটেইনিইং এবং টাইম পাস মুভি।
    রেটিং: ৩.৫/৫

  196. ইসতিয়াক says:

    অনেক গুলো মুভি দেখলাম এ কয়দিনে……
    1)বাক্স বদল(১৯৭০)
    রেটিং-৪.৫/৫
    2)Falling Down (1993)
    রেটিং-৪.৫/৫
    3)Wonder Boys (2000)
    রেটিং-৩.৫/৫
    4)One Flew Over The Cuckoo’s Nest (1975)
    রেটিং-৫/৫
    5)As Good As it Gets (1997)
    রেটিং-৫/৫
    6)Life Of Pi (2012)
    রেটিং-৫/৫
    7)3-Iron (2004)
    রেটিং-৫/৫
    8)The Isle (2000)
    রেটিং-৪/৫
    9)Before Sunrise (1995)
    রেটিং-৫/৫
    10)Before Sunset (2004)
    রেটিং-৫/৫
    11)Sleepless in Seattle (1993)
    রেটিং-৪.৫/৫
    12)Leon-The Professional (1994)
    রেটিং-৪.৫/৫
    13)Lost In Translation (2003)
    রেটিং-৪.৫/৫
    14)The Insider (1999)
    রেটিং-৫/৫

  197. Hearty Paws, Korea, 2007
    এক ভাই, এক বোন আর এক কুকুর নিয়ে কাহিনী। কোরিয়ার সুখী দিকটা আমরা চলচ্চিত্রে দেখি, প্রাচুর্য দেখি, স্বচ্ছলতা দেখি। এই ছবিতে দেখতে হবে দারিদ্র্য। খুবই ইমশোনাল ছবি।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Chilling Romance, Korea, 2011
    রোমান্টিক হরর ছবি। এক স্ট্রিট ম্যাজিশিয়ান আর তার প্রেমিকার গল্প। প্রেমিকা একা থাকে কারণ সে মৃত মানুষদের দেখতে পায় – তার জীবন বিষন্নতায় ভরপুর। এই বিষন্ন জীবনের সমাপ্তি কিভাবে হল সেই গল্প। দুজনে হাত ধরাধরি করে বসে দেখার ছবি।
    রেটিং: ৫/৫

    Super 8, USA, 2010
    সায়েন্স ফিকশন ছবি, একদল আর্লি টিনেজ ছেলে মেয়ে মুভি বানাতে গিয়ে ক্যামেরায় ধারণ করে ফেলে অবিশ্বাস্য কিছু ছবি যেগুলো ফাঁস হয়ে গেলে বিপদ। এন্টারটেইনিং মুভি।
    রেটিং: ৪/৫

    Head On, Germany, 2004
    ফাতিহ আকিন সম্পর্কে আগ্রহ তৈরী হওয়ায় তার পরিচালিত ছবি দেখা শুরু করেছি। তুর্কি জার্মান ছবির পরিচালক ফাতিহ আকিন। ছবিগুলো থেকে অনেক কিছু বোঝার আছে, চিন্তা করার মত বিষয়ও আছে। ফাতিহ আকিন এবং তুর্কি জার্মান সিনেমা সম্পর্কে একটা লেখা শুরু করে আটকে গেছি। শেষ করতে পারি নাই। এই ছবিটা নিয়ে আলোচনা থাকবে সেখানে যদি শেষ করতে পারি।
    রেটিং: ৪/৫

    Soul Kitchen, Germany, 2009
    এই ছবিটা রোমান্টিক কমেডি। হেড অনের তুলনায় বেশী ভালো না যদিও ছবিটা ভালো ব্যবসা করেছিল। একটি রেস্টুরেন্টকে ঘিরে কার্যকলাপ। মন্দ নয়।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Secret, Taiwan, 2007
    সম্ভবত তাইওয়ানের প্রথম ছবি দেখলাম। রোমান্টিক ছবি। পিয়ানোকে কেন্দ্র করে নির্মিত ছবি। অভিনেতা পরিচালক ছেলেটি সত্যিকারেই একজন মিউজিশিয়ান। ফলে ছবিতে মিউজিক বেশ গুরুত্বপূর্ণভাবে এসেছে। একটা পিয়ানো কন্টেস্ট আছে – চমৎকার।
    রেটিং: ৪/৫

    You are the Apple of my Eye, Taiwan, 2011
    তাইওয়ানের দ্বিতীয় রোমান্টিক ছবি। এই ছবিটা আসলেই চমৎকার, বেশ এনজয়েবল। স্কুল জীবনে একদল ছেলে মেয়ে, একটি মেয়ের উপর কয়েকজনের ক্রাশ, বড় হয়ে যাওয়ার পর আবার সাক্ষাত – এই গল্প। প্রচুর হাস্যরস, বেশ কিছু অদ্ভুত এবং অশ্লীল অ্যাকটিভিটিস। দেখা যায়।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The Edge of Heaven, Germany, 2007
    ফাতিহ আকিনের ছবি। আমি বিউইল্ডারড এই ছবি দেখে। মাস্ট সি ফিল্ম।
    রেটিং: ৫/৫

  198. The Sniper, Korea, 2009
    রেটিং: ৩/৫

    Sharp Short Shock, Germany, 1999
    রেটিং: ৪.৫

    দেহরক্ষী, বাংলাদেশ, ২০১৩
    রেটিং: ৩/৫

    The Graduate, USA, 1967
    রেটিং: ৫/৫

    Maltese Falcon, USA, 1941
    রেটিং: ৪/৫

    Windstruck, Korea, 2004
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Jack Reacher, USA, 2012
    রেটিং: ৪/৫

    Dances with Wolves, USA, 1990
    রেটিং: ৫/৫

    যেখানে ভূতের ভয়, ভারত, ২০১৩
    সত্যজিত রায়ের দুটো গল্প এবং শরদিন্দু চট্টোপাধ্যায়ের একটি গল্পের সম্মিলনে যেখানে ভূতের ভয় সিনেমা তৈরী। খুব প্রশংসা শুনেছিলাম – ভেবেছিলাম তিনটা গল্পের সমন্বয়ে একটি নতুন গল্পের সিনেমা দেখবো। হতাশ হয়েছি – কারণ সিনেমাটি তিনটি হরর গল্পের একটি সংকলনে পরিণত হয়েছে মাত্র।
    সঙ্গীত, গল্প, সিনেমাটোগ্রাফি, গুটিকয়েক বাদে বাকী সবার অভিনয় – চমৎকার ছবি।
    রেটিং: ৩.৫/৫

  199. New World, Korea, 2013

    Anger Management

    My Wife is a Gangster

    Open Range

    Blow

    State of Play

    Hang’em High

    Architecture 101

    Never Ending Story

    The Man Who Shot Liberty Velance

    The Hunt

    ভালোবাসা আজকাল, বাংলাদেশ, ২০১৩

    অভিযান

    Now You See Me

  200. Never Ending Story, South Korea, 2012
    রোমান্টিক কমেডি, কিন্তু সিনেমার গল্পে এক চাপা কষ্ট জুড়ে আছে। দুজন তরুণ-তরুণী হঠাৎই একত্রে আবিষ্কার করে – তারা দুজনেই ব্রেইন ক্যান্সারে আক্রান্ত এবং খুব শীঘ্রই মৃত্যুবরণ করবে। মৃত্যুর আগের সময়টুকুকে নিজেদের মত করে উ্পভোগ করার জন্য এই দুজনের কর্মকান্ড নিয়ে হাস্যরসাত্মক কমেডি সিনেমা নেভার এন্ডিং স্টোরি। তৃপ্তিদায়ক সিনেমা।
    রেটিং: ৪/৫

    New World, South Korea, 2013
    কোরিয়ার আন্ডারওয়ার্ল্ডে ছদ্মবেশী পুলিশ আর ক্ষমতার কাড়াকাড়িকে কেন্দ্র করে নির্মিত নিউ ওয়ার্ল্ড দুর্দান্ত এক চলচ্চিত্র। খুবই মজবুত গল্পের গাঁথুনি, সংলাপগুলো ইন্টারেস্টিং, গতিময় এবং চমৎকার সমাপনী – নিউ ওয়ার্ল্ডকে এক অন্য উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছে।

    উইকিপিডিয়া বলছে – ছবিটির অসাধারণ ব্যবসায়িক সাফল্যে হলিউডে রিমেক নির্মানের প্রক্রিয়া চলছে। মাস্ট সি মুভি।
    রেটিং: ৫/৫

    Gangster Lover, South Korea, 2010

    Hearthbreak Library, South Korea, 2008

    Seraphim Falls, USA, 2006

    The Conjuring, USA, 2013

    ইভটিজিং, বাংলাদেশ, ২০১৩

    Confession of Murder, South Korea, 2012

    I Saw the Devil, South Korea, 2010

    The Berlin File, South Korea, 2013

  201. Donnie Brasco, USA, 1997
    পরিচয় লুকিয়ে মাফিয়ার একটি দলে ঢুকে পড়ে একজন এফবিআই এজেন্ট। মাফিয়ার একজন লিডারের সাথে তার সম্পর্ক নিয়ে এই মুভি। সত্য ঘটনার উপর নির্মিত মুভি। জনি ডেপ এবং আল পাচিনো অভিনীত চলচ্চিত্র।
    রেটিং: ৫/৫

    The Boondock Saints, USA, 1999
    টাইম পাস মুভি। দুই ভাই, পাদ্রী – অন্যায়ের মূলোৎপাটন করতে গিয়ে অস্ত্র হাতে তুলে নেয়, দলে দলে লোক মারে। আর একজন পুলিশ ডিটেকটিভ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ঘটনা বিশ্লেষন করে, তাদের খুজে বেড়ায়। দুজনই জোড়া বেরেটা ব্যবহার করে শুনে সিনেমাটা দেখা। গল্পের প্রেজেন্টেশন চমৎকার।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    Loft, Belgium, 2008
    একটা অ্যাপার্টমেন্ট (বিশেষ ধরনের অ্যাপার্টমেন্ট, Loft বলে) এর পাঁচটা চাবি পাঁচ বন্ধুর কাছে। তারা তাদের স্ত্রীকে লুকিয়ে গোপন সম্পর্ক বজায় রাখতে এই অ্যাপার্টমেন্ট ব্যবহার করে। একদিন সেই অ্যাপার্টমেন্টে একটা মেয়ে খুন হয়ে যায়। একটু একটু করে সেই খুনের কাহিনী জানা যায়। খুবই টুইস্টিং স্টোরিটেলিং। থুব সাধারণ শুরু থেকে জটিল শেষের দিকে নিয়ে যাওয়ার পদ্ধতি দেখার জন্য গুড ফিল্ম।
    রেটিং: ৫/৫

    Polytechnique, Canada, 2009
    কানাডার এক পলিটেকনিকে একজন ছাত্র অটোমেটিক মেশিনগান নিয়ে ঢুকে পড়ে, নির্বিচারে গুলি করে মারে মেয়েদের। সত্যি ঘটনার উপর নির্মিত এই ছবিতে পরিচালক একজন খুনী, একজন আক্রান্ত নারী এবং একজন পুরুষের দৃষ্টিকোন থেকে ঘটনাটি বর্ণনা করেছেন, কোন রকম পক্ষপাত ছাড়াই। চমৎকার সিনেমাটোগ্রাফি। একই ধরনের দুটো চলচ্চিত্র নিয়ে একটি ব্লগ লিখেছি।
    রেটিং: ৫/৫

    Cold Eyes, Korea, 2013
    হংকং এর সিনেমার রিমেক। এক সার্ভেইলন্যান্স টিম কর্তৃক ব্যাংক লুটেরা দলকে কুপোকাত করার গল্প। চরম উত্তেজনার গল্প, অসাধারণ ক্যামেরা মুভমেন্ট। প্রত্যেকটা মিনিট উপভোগ্য।
    রেটিং: ৫/৫

    Most People Live in China, Norway, 2002
    কিছু কিছু চলচ্চিত্র মাথার উপর দিয়ে যায় – এটি একটি। একটি ফিলিং স্টেশনকে কেন্দ্র করে অনেকগুলো টুকরো টুকরো ঘটনার সম্মিলনে এই সিনেমা। ঘটনাগুলো প্রায় সবই কমেডি, কিন্তু একের সাথে অন্যের সুতো যোগ করতে পারি নাই।
    রেটিং: যা বুঝি নাই তার রেটিং কিভাবে দেই?

    To The Wonder, USA, 2012
    টেরেন্স মালিকের আরও দুটো ছবি দেখেছিলাম। এক, ট্রি অব লাইফ, ডেজ অব হ্যাভেন। দুটো ছবিতেই সিনেমাটোগ্রাফার ছিলেন লুবেজকি। দুজনে মিলে যে স্পিরিচুয়াল সিনেমা বানিয়েছে তা শুধু ‘এক্সপেরিয়েন্স’ করা যায়, বর্ণনা করা যায় না। দুর্দান্ত ফটোগ্রাফি।
    রেটিং: ৫/৫

    The Curious Case of Benjamin Button, USA, 2008
    একটু দেরীতেই দেখা হল। সে জন্ম নিয়েছে বৃদ্ধ অবস্থায়, তারপর প্রতিদিন একটু একটু করে যুবক হয়েছে – ঘড়ির কাটা যেন উল্টোদিকে ঘুরছে। তার জীবনের মাধ্যমে আমেরিকার ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ কিছু অধ্যায়ের চিত্রন। আনডাউটেডলি – আ ভেরী গুড পিস। ব্র্যাড পিট অভিনয় করেছে, পরিচালক ডেভিড ফিঞ্চার।
    রেটিং: ৫/৫

  202. Despicable Me, USA, 2010
    ২০১৪ সালে দেখা প্রথম চলচ্চিত্র। মন রিফ্রেশ করার জন্য দেখা ছবি। ফ্যামিলি টাইজকে মোটিভেট করে এই ছবি। আমোদিত। বেশ কয়েকবার হাসতে হয়েছে। মিনিয়নস কেন এত জনপ্রিয় বোঝা গেল। চমৎকার ছবি।
    রেটিং: ৫/৫

    The Iceman, USA, 2013
    টাইম ম্যাগাজিন বছরের সেরা দশ পারফরম্যান্সের তালিকায় এই ছবির প্রধান চরিত্র রিচার্ড কুক্লিনস্কির অভিনেতা মাইকেল শ্যাননের নাম উল্লেখ করায় ছবি দেখার আগ্রহ তৈরী হয়েছে। রিচার্ড একজন ভাড়াটে খুনী – গ্রেফতার হওয়ার আগ পর্যন্ত তার পরিবারও জানত না তার এই পেশা সম্পর্কে। বলা হয় সে প্রায় একশ খুন করেছিল। সত্যি ঘটনার উপর নির্মিত এই চলচ্চিত্রে গুরুত্ব পেয়েছে পরিবারের কাছ থেকে গোপন করে রাখার বিষয়টি – পাশাপাশি তার এই জগতে প্রবেশ এবং বের হওয়ার ঘটনাবলী। স্টোরি টেলিং ঠিক পছন্দ হয় নি। শ্যাননের এক্সপ্রেশন দারুন, কিন্তু বয়সটা ঠিক যথোপযোগী ছিল না সম্ভবত।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Lone Ranger, USA, 2013
    জনি ডেপ এবং আর্মি হ্যামার অভিনীত ওয়েস্টার্ণ ফিল্ম। ওয়াল্ট ডিজনী প্রোডাকশন। লোন রেঞ্জার একজন মাস্ক পরিহিত ওয়েস্টারর্ন ক্যারেক্টার যার সহযোগী একজন নেটিভ ইন্ডিয়ান এবং দুজনে মিলে অন্যায়ের প্রতিবাদ করে বেড়ায়। এটা একটা ফিকশনাল চরিত্র। জনি ডেপ ইন্ডিয়ান চরিত্রে অভিনয় করেছে। হালকা মুডের ছবি – জেনে শুনেই দেখতে বসেছিলাম। কিন্তু ছবিটা যে কমেডি ঘরানার সেটা জানা থাকলে হয়তো দেখতাম না। ওয়েস্টার্ণ সিনেমার ক্ষেত্রে সিরিয়াস সিনেমাই পছন্দ – কমেডি নয়। বাচ্চাদের ছবি – নিখাদ বিনোদনের জন্য দেখা যেতে পারে।
    রেটিং: ৩/৫

    Sherlock S03E01 The Empty Hearse, England, 2014
    শার্লককে ফিরিয়ে আনা হয়েছে এই পর্বে। ফিরিয়ে আনার যে প্রভাব পড়ার কথা তার যথাযথ উপস্থাপন।
    রেটিং: ৫/৫

    Sherlock S03E01 The Sign of Three, England, 2014
    জন ওয়াটসনের বিয়ে এবং বিয়ের অনুষ্ঠানে একটি কেস সলভ। তূলনামূলকভাবে বেশী কমেডি। একটু বেশীই জটিল ছবি।
    রেটিং: ৫/৫

    Sherlock S03E01 His Last Vow, England, 2014
    ব্ল্যাকমেইলিং কেসের সমাধান। সিজন ফোর যে আসছে তার ইঙ্গিত।
    রেটিং: ৫/৫

    The Hidden Face, Columbia, 2011
    কলম্বিয়ার ছবি জেনে এই ছবিটি দেখা। এর আগে কলম্বিয়ান আর কোন ছবি দেখেছি কিনা মনে করতে পারছি না। একজন স্প্যানিশ অর্কেষ্ট্রা কন্ডাকটর এর এক গার্লফ্রেন্ড চলে যাওয়া/হারিয়ে যাওয়ার পরে নতুন একজন গার্লফ্রেন্ডের সাথে রিলেশনশীপ শুরু এবং তার বাড়িতে নতুন গার্লফ্রেন্ডের অদ্ভুত সব অভিজ্ঞতাকে নিয়ে এই ছবির কাহিনী। ধাঁচটা হরর, থ্রিলার হলেও এই ছবির বিষয়বস্তু ভালোবাসাকে কেন্দ্র করে মানবমনের বিভিন্ন জটিল দিকের উপস্থাপন।
    ছবির মিউজিক বেশী ভালো লাগল অন্য দিকগুলোর তুলনায়। চরিত্রের সংখ্যা খুব কম। এবং বাজেটও বোধহয় বেশী ছিল না – খুব সিম্পল স্টাইলে নির্মান। ছবি দেখার পর জানা গেল – বলিউডে মার্ডার থ্রি এই ছবির রিমেক। মার্ডার কোনটাই দেখা নেই, তাই তুলনা করা গেল না।
    রেটিং: ৪/৫

    Rocky, USA, 1976
    এই সিনেমাটি দেখা উচিত ছিল অনেক আগেই, কিন্তু সিলভেস্টার স্ট্যালোনের সিনেমা বলেই আগ্রহ কম ছিল এবং ডাউনলোড করারও অনেকদিন পরে দেখা হল। রকি বালবোয়া নামে ফিলাডেলফিয়ার এক বক্সার চরিত্রের উত্থান নিয়ে সিনেমার গল্প। স্টোরি সিলেভস্টার স্ট্যালোনের, তিনিই প্রধান অভিনেতা। বক্সিং না, বরং একটা খুব সাধারণ দরিদ্র আমেরিকানের জীবন এবং প্রেম-পারিবারিক সম্পর্ক গুরুত্ব পেয়েছে এই ছবিতে।
    সিনেমার নির্মান ইতিহাসও দারুন। সব মিলিয়ে এক মিলিয়ন ডলারের কিছু বেশী ব্যয়ে নির্মিত এই ছবিটি ব্যবসা করেছিল ২৫৫ মিলিয়ন ডলার, তিনটে ক্যাটাগরীতে অস্কার জিতে নিয়েছিল, নমিনেশন পেয়েছিল দশ ক্যাটাগরীতে। স্ট্যালোনের প্রস্তুতি দৃশ্যের একটি ছিল ফিলাডেলফিয়া মিউজিয়াম অব আর্ট এ। পরবর্তীতে সেখানে রকি বালবোয়া’র একটি ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়। আরও বিস্তারিত জানার জন্য উইকিপিডিয়া দেখা যেতে পারে।
    রেটিং: ৫/৫

  203. The Body, Spain, 2012
    দ্যা বডি স্প্যানিশ চলচ্চিত্র। একই সিনেমার মধ্যে মিস্ট্রি, হরর, থ্রিলার, রোমান্স এর সমন্বয় ঘটানো হয়েছে বলে এই ছবিকে ঠিক কোন জনরার বলবো নিশ্চিত হতে পারি না। মিস্ট্রি বা ডিটেকটিভ স্টোরি বেশী স্যুটেবল।
    মর্গ থেকে এক মহিলার লাশ উধাও হয়ে যাওয়ায় তার স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যায় গোয়েন্দা পুলিশ। বিভিন্ন ঘটনাবলী একেক সময় একেক দিকে ইঙ্গিত করে – রহস্য ঘণীভূত হয়। টুইস্টে ভরপুর স্টোরি, তবে শেষ পর্যন্ত তা কতটুকু গ্রহণযোগ্য হবে তা দর্শকের উপর নির্ভর করবে। রোটেন টমাট্যোস এই ছবির বর্ণনায় লিখেছে – A heady mix of classic noir, blood-chilling horror and high suspense … ভুল বলে নি!
    রেটিং: ৫/৫

    দত্ত ভার্সেস দত্ত, ভারত, ২০১২
    এ বছরের প্রথম ভারতীয় চলচ্চিত্র। অঞ্জন দত্তের চলচ্চিত্রের প্রতি আলাদা পক্ষপাতিত্ব আছে। গত বছরের বেশ আলোচনা শুনেছিলাম এই ছবির। ছবির গল্প ১৯৭২ সালের। কোলকাতায় তখন নকশাল আন্দোলনের চূড়ান্ত সময় – সেই সময়ে কৈশোরের শেষ প্রান্তে পৌছানো এক দত্ত এবং তার বাবা দত্তের সম্পর্কের উছিলায় রাজনীতি, ধর্ম আর জীবন দর্শনকে তুলে ধরেছেন অঞ্জন দত্ত। গল্পের শেষটা যেভাবে টেনেছেন, তাতে দত্ত ভার্সেস দত্ত অটোবায়োগ্রাফি বলে মনে হতে পারে, আবার গল্পের বাকীটা অঞ্জন দত্তের গল্প হিসেবে গ্রহণ করতে উৎসাহিত করে না। ছবির শুরুতে যদিও ‘সকল ঘটনা-চরিত্র কাল্পনিক’ ঘোষনা দেয়া আছে, পত্র-পত্রিকা অবশ্য বলে ওই ছবিতে অঞ্জন দত্তের গল্প আছে, গল্পের মাঝে অঞ্জন দত্ত আছেন – বোধহয় এটাই অঞ্জনের সফলতা।
    অঞ্জনের বাকী সব সিনেমার মত এখানেও নীল দত্তের চমৎকার স্কোর, ১৯৭২ সালের চিত্রায়নে ফটোগ্রাফি দারুন, লোকেশন বাছাইয়ে সফলতা কিন্তু পোষাক নির্বাচন নিয়ে অন্তরে খুঁতখুতানি থেকে যায়। চমৎকার চলচ্চিত্র নিঃসন্দেহে – কেউ কেউ যদিও অঞ্জনের সেরা চলচ্চিত্র বলে দাবী করেছেন – এখনই সেই সিদ্ধান্তে পৌছাতে পারলাম না।
    রেটিং: ৫/৫

    দ্য বং কানেকশন, ভারত, ২০০৬
    এ বছর দেখা দ্বিতীয় ভারতীয় সিনেমা, এটাও অঞ্জন দত্তের পরিচালনায় সিনেমা। সিনেমার প্রেক্ষাপট বর্তমান, স্থান কোলকাতা এবং আমেরিকার বাঙ্গালি কমিউনিটি কিন্তু ভাষা ইংরেজি। সিনেমার বিষয় হল – বাঙ্গালিত্বের টানাপোড়েন। একই দিনে কোলকাতা থেকে অপু রওয়ানা হয় আমেরিকার উদ্দেশ্যে আর আমেরিকা থেকে অ্যান্ডি এসে নামে কোলকাতায়। দুজনেই তাদের স্বপ্নের বাস্তবায়নে স্থান পরিবর্তন করে – স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথের বিভিন্ন ঘটনার মাধ্যমে বাঙ্গালিত্বের বিভিন্ন দিককে তুলে ধরেছেন অঞ্জন দত্ত।
    ভেরী গুড ফিল্ম।
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Premium Rush, USA, 2012
    সারাবিশ্বের সাইক্লিস্টদের টার্গেট করে সিনেমাটা নির্মান করা হয়েছে সম্ভবত। পুরো গল্পের কেন্দ্রবিন্দুতে সাইক্লিং। হিরো সাইক্লিস্ট, হিরোইন সাইক্লিস্ট, ভিলেন অবশ্য গাড়িওয়ালা, পুলিশ সাইক্লিস্ট, অ্যান্টিহিরো সাইক্লিস্ট। উইলি নামের সাইক্লিস্ট কুরিয়ার বয়ের কাছ থেকে একটি গুরুত্বপূর্ণ ডকিউমেন্ট ছিনিয়ে নিতে চায় ববি মান্ডে। পুরো শহর জুড়ে ছুটোছুটি – চেজিং। সাইক্লিস্টরা যে অবশ্যই পছন্দ করবে কোন সন্দেহ নেই। টাইম পাস মুভি। এন্টারটেইনিং। সাইক্লিংকে প্রমোট করার জন্য এ ধরনের মুভির বিকল্প নেই।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    অগ্নি, বাংলাদেশ, ২০১৪
    থাইল্যান্ডের স্মার্ট সুদর্শন যুবক ড্রাগনের মা থাই হলেও বাবা বাংলাদেশী কিন্তু পৃথিবীতে তার একমাত্র আপনজন কাবিলা মামা একজন সিলেটি বাংলাদেশী! পরপর তিন বছর কিক বক্সিং-এ চ্যাম্পিয়ন ড্রাগনের মুষ্টিযুদ্ধ দেখা না গেলেও কয়েক দফা ট্র্যাক-রেস দেখা গেল যার সবক’টিতেই সে পরাজিত। সব ধরনের অস্ত্র পরিচালনায় প্রশিক্ষিত চৌকষ জোয়ান ড্রাগন যখন তখন তার ‘মেশিন’ বের করলেও হত্যাকারীকে তাড়া করার সময় পিস্তলের মুখ নয়, গর্জে ওঠে তার নিজের মুখ, উদগীরন করে – ‘স্টপ!’ চিৎকার।
    বহুল আলোচিত চলচ্চিত্র ‘অগ্নি’র রিভিউ পড়ুন – দারাশিকো ডট কমে

    Perfect Number, Korea, 2012
    কোরিয়ার এই ছবিটা একটু ভিন্ন ধাঁচের। মিস্ট্রি এবং ড্রামা – এই দুই জনরাভুক্ত হলেও পুরোপুরি সেই বৈশিষ্ট্যকে অনুসরণ করে নি ছবিটি, সব শেষে একে রোমান্টিক জনরাভুক্ত করার দিকেই আগ্রহ বোধ করেছি।
    একজন জিনিয়াস ম্যাথমেটিশিয়ানের পাশের ফ্ল্যাটে সুন্দরী তরুণী এবং তার ভাগ্নী থাকে। কোন এক রাতে সেই তরুণী তার বখাটে, সাবেক স্বামীকে আত্মরক্ষার্থে খুন করে ফেলে। হত্যাকান্ডকে গোপন করার জন্য প্রচন্ড অন্তর্মূখি তরুণ গনিতবিদ তাকে সাহায্য করতে থাকে। কিন্তু তদন্তের দায়িত্বে যে তরুণ পুলিশ অফিসারটি সে গনিতবিদের বন্ধু এবং খুবই চৌকষ। কিন্তু এই সকল ঘটনা মিলে ছবিতে যে গতি থাকা সম্ভব হত, তা পাওয়া যায় না, আবার টেনশনও দীর্ঘস্থায়ী হয়।
    গনিতবিদের চরিত্রটিও খুবই অনাকর্ষনীয়। সব কিছুকে ছাপিয়ে যায় সিনেমার শেষ অংশ। ভালো সিনেমা।
    রেটিং: ৪/৫

    ফুল অ্যান্ড ফাইনাল, বাংলাদেশ, ২০১৩
    ম্যাগনাম থার্টি-টু রিভলবার, আমার বন্ধু! গুলি করার পর বুলেটের খোসাগুলো ভিতরেই থাকে, বাইরে ছড়িয়ে পড়ে না। তাই হত্যাকারী শনাক্ত হওয়ার ভয় থাকে কম। যে কোন আততায়ীর জন্য সবচে গুরুত্বপূর্ণ হল তার শিকারকে ভালোভাবে জানা ও বোঝা। তারপর শিকারের জন্য অপেক্ষা করতে হবে – মাকড়সার মত!”
    রোমিও-র ডায়লগ। দুই তিনবার অ্যাটেম্পট নিয়েও গত বছরে মুক্তি পাওয়া বাংলা সিনেমা ‘ফুল অ্যান্ড ফাইনাল’ দেখতে পারি নি। পরিচালক মালেক আফসারী, শাকিব খান এবং ববি অভিনীত। কোরিয়ান সিনেমা ‘ডেইজি’র নকল জেনেই সিনেমাটা দেখার আগ্রহ ছিল। হলে দেখতে পারি নি, কিন্তু সার্ভারে ভিডিও সিনেমা পাওয়া গেল গতকালকে। দেখতে শুরু করেছি – চল্লিশ মিনিটের মত দেখা হয়েছে – ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর, লোকেশন, ডায়লগ, অ্যাকশন, গান সব মিলিয়ে – দুর্দান্ত সিনেমা!
    সিনেমার নাম ফুল অ্যান্ড ফাইনাল। ব্লগে বিস্তারিত
    রেটিং: ৪.৫/৫

    Knockin’ on Heaven’s Door, Germany, 1997
    গান্স অ্যান্ড রোজেস ব্যান্ডের নকিং অন হ্যাভেন্স ডোর গানটা প্রথম শোনা হয়। মূল গানটা বব ডিলানের, সিনেমার টাইটেলটা সেই গান থেকে নেয়া হয়েছে এবং থিমটা টাইটেলের সাথে সামঞ্জস্যশীল।
    ব্রেস্ট এবং রুডি নামে দুজন একই হাসপাতালে টেস্ট করার পর জানতে পারে – দুজনেরই ক্যান্সার, বেঁচে থাকা কেবল হাতে গোনা কয়েকদিন। মহাসাগর দেখা হয় নি রুডির, মৃত্যুর আগে দুজনে মিলে মহাসাগর দেখার জন্য হাসপাতাল থেকে পালায়। ঘটনাচক্রে, এক মাফিয়া লিডারের গাড়ি এবং টাকা তাদের মালিকানায় চলে আসে। পুলিশ, মাফিয়া ইত্যাদির বেড়াজাল থেকে ব্রেস্ট-রুডির বের হয়ে আসা নিয়ে সিনেমার গল্প।
    ক্রাইম-কমেডি ধারার সিনেমা। অল্প কটা চরিত্র – সবার কাজকর্মই মজাদার। কিন্তু হাসির মাঝেও একটা গোপন কষ্ট বেঁধে বুকে – কারণ চরিত্রদুটো মরে যাওয়ার আগে স্বপ্ন পূরণ করতে ছুটছে – শীঘ্রই মৃত্যু আসবে। দুর্দান্ত কিছু ফ্রেম আছে সিনেমায়, আর গোটা কয়েক সাউন্ডট্র্যাক। রুডি-ব্রেস্ট দুজন চরিত্রই দারুন অভিনয় করেছে।
    রেটিং: ৪/৫

  204. Out of the Furnace, USA, 2013
    আউট অব ফার্ণেস ছবিটি প্রোডিউস করেছেন দুজন বিখ্যাত মানুষ – রিডলি স্কট এবং লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও। অভিনয় করেছে আরেক বিখ্যাত অভিনেতা ক্রিশ্চিয়ান বেল, সাথে তার ভাই চরিত্রে সেজি অ্যাফ্লেক। এছাড়া আছে ড্যানিয়েল ডিফো, ফরেস্ট হুইটেকার, উডি হ্যারেলসন।
    গল্পটা দারিদ্রক্লিষ্ট একটি পরিবার বা দুই ভাইয়ের। বড় ভাই কারখানার শ্রমিক, সাধারণ জীবন যাপন করতে অভ্যস্ত। ছোট ভাই ইরাক যুদ্ধ ফেরত, জীবিকার্জনের জন্য স্ট্রিট ফাইটে অংশগ্রহন করে এবং একসময় বড় বিপদের সম্মুখীন হয়। আপাত নিরীহ বড় ভাই রাসেল (বেল) তখন সামনের দিকে এগিয়ে আসে ভিন্ন এক রূপ নিয়ে।
    গল্পটা থ্রিলার ঘরানার। গল্পের সাথে মিলিয়ে পুরো ছবি জুড়ে রয়েছে রুক্ষতার বিভিন্ন রূপ – লোকেশনে, বর্ণে, পোশাকে, চরিত্রে, সংলাপে। ফলে গল্পের সাথে মিশে গিয়ে সিনেমা উপভোগ করা সহজতর হয়। স্টোরিটেলিং এতই চমৎকার যে ক্রিশ্চিয়ান বেলের মানসিক অবস্থা অনুভব করা সম্ভব হয় – তার ক্রোধ দর্শকের ভেতরেও সংক্রমিত হয়। তবে ছবির পোস্টার দেখে এক্সপেক্টেশন তৈরী হতে পারে, সেক্ষেত্রে হতাশ হওয়ার সম্ভাবনা বেশী।
    রেটিং: ৪/৫

    The Hobbit: An Unexpected Journey, USA, 2012
    মন মেজাজ ভালো না, অস্থিরতায় অাক্রান্ত, ঠান্ডা হতে ডুব দিতে চাই, আর ডুব দেয়ার জন্য পিটার জ্যাকসনের এপিক মুভি খুব ভালো বিকল্প। লর্ড অব দ্য রিংস সিনেমার চরিত্র হবিটকে কেন্দ্র করে নতুন অভিযানের গল্প নিয়ে দ্য হবিট সিরিজ। হবিট চরিত্রে অভিনয় করেছেন শার্লক সিরিজের ওয়াটসন সাহেব।

    এই ধরনের চলচ্চিত্রগুলোয় যা থাকে – চমৎকার সব লোকেশনে শ্যুটিং, অসাধারণ ব্যকগ্রাউন্ড স্কোর, বিভৎস সব সিজি ক্যারেক্টার আর সেইরকম সব অ্যাকশন দৃশ্যাবলী – সবই আছে এই ছবিতে। খুবই এন্টারটেইন্ড।

    রেটিং: ৫/৫

    The Hobbit: The Desolation of Smaug, USA, 2013
    এই ছবিটা দেখতে শুরু করার আগেই জানতাম সিরিজের তৃতীয় পর্ব মুক্তি পায় নি এখনো, কিন্তু প্রথম পর্ব দেখার পর আর অপেক্ষা করতে আগ্রহ হল না। দ্বিতীয় পর্ব দেখে ফেললাম। বি-শা-ল এক ড্রাগনকে হত্যার জন্য হবিট সহ পুরো দলের যাত্রা। এই পর্বে ড্রাগন পর্যন্ত পৌছানো সম্ভব হয়েছে। নেক্সট পর্বে ড্রাগন হত্যা হবে, তবে সেই পর্ব কবে মুক্তি পাবে আর কবে দেখবো কে জানে।

    রেটিং: ৪.৫/৫

    300: The rise of an empire, USA, 2014
    এপিক সিনেমা দেখার রোগে পেয়েছিল, তাই থ্রি হান্ড্রেড এর সেকেন্ড পর্ব দেখে ফেললাম। থ্রি হান্ড্রেড সিনেমার যে নির্মান বৈশিষ্ট্য তা এখানেও আছে – রং, অ্যাকশন ইত্যাদিতে। বাড়তি আকর্ষন হিসেবে আছে ইভা গ্রীন। চমৎকার কালো চোখের অধিকারিনী এই মহিলা কিংডম অব হ্যাভেন ছবির মত এখানেও চমৎকার সেজেছেন – মোহিত!
    রেটিং: ৪/৫

    The Thieves, Korea, 2012
    বড় আকারে দান মারার উদ্দেশ্যে ভিন্ন ভিন্ন চোরের দল একত্রিত হয় – কিন্তু প্রায় সকলেই সকলকে চিনে বলে প্রত্যেকের পুরানো ঘটনাবলী বর্তমান সময়কে বেশ প্রভাবিত করে। একত্রিত হয়ে চুরিই শুধু নয়, একে অপরকে কিভাবে ঠকিয়ে স্বার্থলাভ করবে সেই চেষ্টাও আছে সকলের মধ্যে।

    স্টোরি টেলিং চমৎকার, গল্পটাও খুব কমপ্লেক্স। এই ছবিতে অ্যাকশন দৃশ্যে নতুনত্বের দেখা পাওয়া গেল।

    রেটিং: ৪/৫

    Wyatt Earp, USA, 1994
    ওয়াইট আর্প সিনেমাটি পাঁচটি ক্যাটাগরীতে রেজ্জি অ্যাওয়ার্ড নমিনেশন পেয়েছিল – সবচে বাজে ছবি, সবচে বাজে পরিচালক, সবচে বাজে অভিনেতা, সবচে বাজে রিমেক/সিক্যুয়েল এবং পর্দায় সবচে বাজে জুটি। পাঁচটির মধ্যে দুটি ক্যাটাগরীতে রেজি অ্যাওয়ার্ড জিতে নিয়েছে ছবিটি – সবচে বাজে অভিনেতা এবং সবচে বাজে রিমেক/সিক্যুয়েল। ব্লগ লিখেছি।
    রেটিং: ৪/৫

    Running Man, Korea, 2013
    কোরিয়ান অ্যাকশন সিনেমা। একজন খুবই সাধারণ মানুষ যে পেশায় একজন ড্রাইভার ঘটনাচক্রে একটি হত্যাকান্ডের প্রধান সন্দেহভাজন হিসেবে অভিযুক্ত হয়। তাকে ধরার জন্য বিভিন্ন দল ধাওয়া করে। অনেকটা বোকাসোকা এই লোকটির সাহায্যে এগিয়ে আসে তার একমাত্র ছেলে যে বাবার জীবন যাপন পদ্ধতি নিয়ে খুবই অসন্তুষ্ট।

    সিনেমার গল্পে গতি দুর্দান্ত। প্রায় পুরো সিনেমাটাই চেজিং – অ্যাকশন দৃশ্যগুলো চমৎকার উপস্থাপিত। এন্টারটেইনিং।

    রেটিং: ৪/৫

  205. Hero, China, 2002
    দুই হাজার বছর আগের কাহিনী, যখন বিভক্ত চীনে কিন সম্রাট অন্যান্য রাজ্যগুলো দখল করে নিয়ে অবিভক্ত চীন তৈরীর চেষ্টায় রত ছিলেন। তলোয়ার যুদ্ধে অসাধারণ নৈপুণ্যের অধিকারী এক যোদ্ধা কিন সম্রাটের কাছে সেরা তিনজন গুপ্তঘাতককে হত্যা করার গল্প বলে, আমরা দর্শকরা সেই গল্পের ভিজ্যুয়াল দেখি। ২০০২ সাল পর্যন্ত চীনের চলচ্চিত্র ইতিহাসে সবচে ব্যয়বহুল এবং সবচে উপার্জনকারী সিনেমা।

    চায়নীজ মার্শাল আর্টের সিনেমাগুলোয় তলোয়ার লড়াইয়ের দৃশ্যগুলো আমার কাছে কেমন হাস্যকর লাগে। উড়ে উড়ে যুদ্ধ করে তারা। ক্রচিং টাইগার, হিডেন ড্রাগন সিনেমায়ও একই ঘটনা। আমি জানি না, ইতিহাসে এর সত্যতা কতটুকু। সম্ভবত সে সময় যোদ্ধারা এতটাই দক্ষ ছিল এবং সাধনার বিনিময়ে নিজেদের এমন স্তরে নিয়ে গিয়েছিল যে বর্তমানে অসম্ভব ঘটনাবলীকে সে সময় সম্ভবপর করেছিল।

    হিরো সিনেমায় ফটোগ্রাফি, সেট, ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর দুর্দান্ত। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল – হিরো সিনেমায় চায়নিজ সংস্কৃতি দারুণভাবে তুলে ধরা হয়েছে – আমাদের বাংলাদেশীদের শেখার প্রয়োজন আছে।

    তলোয়ার যোদ্ধার চরিত্রে জেট লি অভিনয় করেছে। অন্যদের মধ্যে ডনি ইয়েন (মুভি: ইপ মান), টনি লিয়াং চিউ (মুভি: দ্য গ্রান্ডমাস্টার) ছিলেন। সিনেমার পরিচালকের নাম ঝ্যাং ইমো।

    আই রেকমেন্ড।
    রেটিং: ৫/৫

    A History of Violence, USA, 2005
    দুজন ডাকাত টম স্টলের রেস্টুরেন্টে ঝামেলা পাকাচ্ছিল, আত্মরক্ষার্থে তাদেরই পিস্তলের গুলিতে টম তাদেরকে মেরে ফেলে এবং হিরো বনে যায়। কিন্তু কালো চশমা পড়া একজন এসে তাকে ভিন্ন নামের এক ব্যক্তি হিসেবে দাবী করে। টম অস্বীকার করলেও তার পিছু ছাড়ে না ওরা। সত্যিটা কি?

    ছোট্ট কিন্তু দুর্দান্ত গল্পের এক সিনেমা আ হিস্ট্রি অব ভায়োলেন্স। সিনেমার পরিচালক ডেভিট ক্রোনিনবার্গ, তার পরিচালনায় আছে ইস্টার্ণ প্রমিসেস, দ্য ফ্লাই-য়ের মত চলচ্চিত্র। গল্প, বলার ঢং, অভিনয় এবং নির্মান – আমি বেশ ভালোভাবে প্রভাবিত।

    আমার দৃষ্টিতে – মাস্ট সি মুভি।

    রেটিং: ৫/৫

    The Grandmaster, Korea, 2013
    মার্শাল আর্ট গুরু ইপ মানের জীবন নিয়ে আরও একটা সিনেমা। এর আগে ডনি ইয়েন অভিনীত ইপ মান সিনেমার দুটো পর্ব দেখেছিলাম। ওগুলা জাতীয়তাবাদী সিনেমা, দেশকে অন্য দেশের তুলনায় বড় করে তুলে ধরা হয়েছে। দ্য গ্রান্ডমাস্টার সে দিক থেকে ভিন্নতর। ইপ-মানের মার্শাল আর্ট কৌশল নয়, বরং তার এক প্রেমিকার সাথে সম্পর্ককে তুলে ধরা হয়েছে, পাশাপাশি তার জীবনের সংক্ষিপ্ত চিত্রও।

    এই সিনেমার পরিচালক ওং কার ওয়াই, জেনেছি সিনেমার শেষে ক্রেডিট টাইটেলে। এ ধরনের সিনেমা তার মত পরিচালক নির্মান করবে – ব্যাপারটা আমার জন্য একটু আশ্চর্যজনক, কিন্তু ক্রেডিটে তার নাম দেখে স্পষ্ট হল সিনেমার লাইটিং-ক্যামেরা মুভমেন্ট, মিউজিক এবং অ্যাকশন ইফেক্টের বিভিন্ন দৃশ্যগুলোর মাজেজা। অ্যাকশন দৃশ্যগুলোকে অ্যাকশনের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে শৈল্পিক রূপ দিয়েছেন ওং কার ওয়াই। তার অন্যান্য সিনেমার সাথে সঙ্গতিপূর্ন ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর এবং রং – খোব জোরালোভাবেই তাকে সিনেমায় তুলে ধরেছে।

    এই সিনেমাতেও ব্রুস লি এসেছেন – একদম শেষ দিকে। তবে সিনেমার চরিত্র হিসেবে নয়, শিক্ষার্থী হিসেবে। ইপ মানকে নিয়ে আমার দেখা তিনটি সিনেমাতেই ব্রুস লি আগমনের পূর্বেই তার কাহিনীর সমাপ্তি ঘটেছে। আশা করছি ভবিষ্যতে ইপ মান এবং ব্রুস লি-র সম্পর্ক এবং ঘটনাবলী নিয়ে নির্মিত কোন সিনেমা দেখার সুযোগ হবে।

    ওং কার ওয়াই-য়ের কাজের সাথে পরিচয় থাকলে দ্য গ্রান্ডমাস্টার ভালো লাগবে, ডনি ইয়েন অভিনীত ইপ মান সিনেমার সাথে মিল খুঁজতে গেলে পছন্দ হবে না।

    রেটিং: ৫/৫

    Colombiana, USA, 2011
    কলম্বিয়ানা সিনেমা দেখার প্রধান উদ্দেশ্য হল বাংলাদেশী সিনেমা অগ্নি কি পরিমান নকল করেছে তা যাচাই করা। অগ্নি মুক্তির পর যতটুকু শুনেছিলাম সে তুলনায় হতাশ হতে হল।

    কলম্বিয়ানাও রিভেঞ্জ মুভি, ক্যাটালিয়া নামের এক মেয়ের বাবা-মা’কে হত্যা করা হয় ছোটবেলায়। বড় হয়ে সে প্রতিশোধ গ্রহণ করে – একে একে সবাইকে হত্যা করে। ছোটবেলার ঘটনাটুকু প্রায় হুবহু কপি-পেস্ট করা হয়েছে অগ্নি সিনেমায়, বাকীটুকু কোথা থেকে সে জানি না। তাছাড়া, অগ্নি সিনেমার ফর্ম নন-ন্যারেটিভ, কলম্বিয়ানা ন্যারেটিভ সিনেমা।

    অ্যাকশন দৃশ্যগুলো দারুন। অন্যান্য অ্যাকশন মুভির মত এখানেও ব্যাখ্যাতীত অনেক ঘটনা ঘটেছে। তবে নির্মান ভালো। সিনেমার স্টোরিরাইটার এবং প্রোডিউসার লুক বেসো – লিও: দ্য প্রফেশনাল সিনেমার জন্য যিনি বিখ্যাত হয়ে আছেন। ভালো টাইম পাস মুভি – এন্টারটেইনিং।

    রেটিং: ৪/৫

    The Keeper of Lost Causes, Denmark, 2013
    ডেনমার্কের সিনেমা, ক্রাইম মিস্ট্রি থ্রিলার। গোমড়ামুখী এক হোমিসাইট পুলিশ ইন্সপেক্টর কার্লকে তার ডিপার্টমেন্ট থেকে সরিয়ে বিশ বছরের পুরানো অমিমাংসীত কেসগুলোর সর্টিং এর কাজ দেয়া হয়, সহকারী মুসলিম আসাদ। সর্টিং নয়, বরং পাঁচ বছর আগে ফেরী থেকে উধাও হয়ে যাওয়া এক নারী রাজনীতিকের কেসকে জীবন্ত করে তোলে তারা।

    ছবিতে মেদ বলতে কিছু তো নেই, বরং অনেক কিছু ঢোকানোর সুযোগ থাকলেও বাদ দেয়া হয়েছে। স্টোরি টেলিং ভালো লেগেছে – গোয়েন্দাদের পাশাপাশি পরিচালকের দৃষ্টিতে একটু একটু করে পুরো ঘটনা তুলে ধরা হয়েছে। কার্লের চরিত্রটাও পছন্দ হয়েছে। এ ধরনের ডার্ক এবং আন-ইন্টারেস্টিং চরিত্র নিয়ে খুব বেশী সিনেমা দেখা হয় নি।

    রেটিং: ৪/৫

    Miracle in Cell No.7, South Korea, 2013
    মানসিকভাবে অসুস্থ্য এক বাবা এবং তার ছয় বছর বয়সী কন্যার সম্পর্ক নিয়ে দক্ষিন কোরিয়ার এই চলচ্চিত্রটি নির্মিত। বাবা লি ঘটনাচক্রে পুলিশ কমিশনারের শিশুকন্যা হত্যাকান্ডে অভিযুক্ত হয়ে জেলে গমন করে এবং নানা ঘটনাপ্রবাহে কন্যা ইয়ে সাং-ও সাত নাম্বার সেলে বাবার সাথী হয়। তাদেরকে কেন্দ্র করে সাত নাম্বার সেলে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনা উঠে এসেছে ছবিতে।

    চমৎকার চেহারার পিচ্চি মেয়ে ইয়ে সাং এর অভিনয় বেশ আকর্ষনীয়। বাবা লি-এর অভিনয় সবসময় সত্য ছিল না। কোরিয়ান সিনেমার আলাদা একটা স্টাইল আছে, কিন্তু এই ছবির মধ্যে আমি ভারতীয় উপমহাদেশের সিনেমার ‘অনর্থক লম্বা করার’ ব্যাপারটা খুঁজে পেয়েছি। শন পেন অভিনীত ‘আই অ্যাম স্যাম’ সিনেমাটি দেখে ভালো লাগলে এই ছবিটিও ভালো লাগবে আশা করি। আর হ্যা, টিস্যুবক্স সাথে নিয়ে বসার পরামর্শ দেয়া হল।

    রেটিং: ৪/৫

  206. পুষ্পিতা says:

    দ্য হিরো আর দ্য গ্রান্ডমাস্টার দেখলাম। থ্যাঙ্ক ইউ ফর দ্য রেকমেন্ডেশন্স 😀

  207. পুষ্পিতা says:

    রানিং ম্যান দেখতে দেখতে তো নিজেই দৌড়ের উপর আছি!! 😀

    ফেবু থেকে বিদায় নিয়েছেন দেখলাম। গুড ডিসিশান 🙂 😀 আমিও চেষ্টা করছি, তবে ব্যর্থ :/

    • 😀
      ঠিক বিদায় নেই নাই, কিছুদিন দূরে আছি আরকি। এ মাসের শেষে বা আগামী মাসের শুরুর দিকে আবার ফিরবো আশা করছি। তবে, ফেসবুক থেকে দূরে থেকে মন্দ লাগছে না, শান্তি আছে।
      খবর টবর সব ভালো?

  208. পুষ্পিতা says:

    ভাই, বিদেশী মুভি গুলার লিঙ্ক দিয়েন ডাউনলোডের, খুঁজে পাই না। :/

    • বেশীরভাগ বিদেশী সিনেমাই সার্ভার থেকে নামিয়ে নেই। চেষ্টা করবো এখন থেকে লিংক দেয়ার।

  209. Max Payne, USA, 2008
    ম্যাক্স পেইন আমার অন্যতম ফেবারিট কম্পিউটার গেম। দুটো পর্ব খেলেছিলাম। গেম থেকে সিনেমা নির্মিত হয়েছে জেনেছিলাম আগেই। ইচ্ছে করেই দেখা হয় নি বহুকাল। একদমই টাইম পাস করার আগ্রহে দেখলাম ছবিটি। গেমসের অনেকগুলো জায়গা সুন্দরভাবে তুলে এনেছে সিনেমায়। মনে রাখার মত কোন সিনেমা নয়, তবে দেখে সময় ভালো কাটে।
    রেটিং: ৩.৫/৫

    The Client, Korea, 2011
    বাসায় ফিরে এক ভদ্রলোক দেখলেন তার স্ত্রী যিনি খুব সম্প্রতি ডিভোর্সের আবেদন করেছেন তিনি বিছানায় এক সাগর রক্তের মধ্যে ডুবে রয়েছেন, ঘরভর্তি পুলিশ। ঘরে ফেরা মাত্র পুলিশ তাকেই গ্রেপ্তার করল। ভদ্রলোক সাহায্য চাইলেন একজন ল-ইয়ারের। ভদ্রলোককে উদ্ধার করার কাহিনী নিয়েই সিনেমার গল্প।

    এই সিনেমাকে কোর্টরুম ড্রামা বলার চেয়ে পুলিশ প্রসিডিউরাল সিনেমা হিসেবে বলা যায়। দুর্দান্ত মিষ্ট্রি সিনেমা। রেকমেন্ডেড!
    রেটিং: ৪.৫/৫

    The Silence, Germany, 2010

    • পুষ্পিতা says:

      ম্যাক্স পেইন দেখেছলাম, অত ভাল লাগেবি, হয়ত গেইমস টা খেলা নাই দেখেই।
      দ্য ক্লায়েন্ট দেখার আগ্রহ তৈরী হল। 🙂
      কুরোসাওয়ার কমপ্লিট ওয়ার্ক্স নামিয়েছি 😀

  210. Hercules Reborn, USA, 2014

    এইরকম ধরা আগে খাই নাই।

    হারকিউলিস চরিত্রে দ্য রক অভিনয় করেছে এমন একটা ছবি আসছে, সেটা মুক্তির আগেই ট্রেলার দেখেছিলাম। মাঝে মধ্যে টাইম পাস করার জন্য হালকা কিছু সিনেমা দেখা হয়, সেই উদ্দেশ্যেই এই সিনেমাটা ডাউনলোডের চেষ্টা করেছিলাম। টেকনিক্যাল কোন সমস্যার কারণে ডাউনলোড হয় নি বলে রাতের বেলা ছোটবোন সিনেমা ডাউনলোড করে রাখলো। আজ দেখলাম।

    পুরো যন্ত্রনাময় অভিজ্ঞতা। বাজে গল্প, ফালতু অভিনয়, অ্যাকশন দৃশ্যগুলোও সেরকম ফালতু। এইরকম বাজে জিনিস দেখার চেয়ে সাধারণ বাংলা সিনেমা দেখাও ভালো, তাতে এক্সপেক্টেশন বরং অনেক কম থাকে। সবচে বড় কথা – ট্রেলারের সাথে কোনই মিল পাচ্ছি না। কষ্টে মষ্টে সিনেমা দেখা শেষ করে তারপর ট্রেলার দেখলাম – আরেকটা বাংলাদেশী সিনেমা! পুরো সিনেমা আড়াই মিনিটে শেষ করেছে, সেই ট্রেলার দেখা হয়েছে ৬ লক্ষ বার।

    এইবার আইএমডিবি-তে গেলাম। রেটিং মাত্র ৪.২। এবং এই সিনেমার নাম Hercules Reborn।

    রেটিং: ২/৫

  211. The Salvation, Denmark, 2014

    ক্যাসিনো রয়্যাল নয়, ম্যাড মিকলসনকে আমার পছন্দ তার ‘দ্য হান্ট’ চলচ্চিত্রের কারণে। অন্যদিকে, ওয়েস্টার্ণ ঘরানার সিনেমা খুবই আকর্ষণ করে। ফলে, ম্যাড মিকলসনকে যখন ওয়েস্টার্ণ সিনেমা ‘দ্য স্যালভেশন’ এ পাওয়া গেল, তখন দেখার লোভ সামলানো গেল না।

    নাম যা প্রকাশ করে, এক ঘন্টা আটাশ মিনিটের রিভেঞ্জ সিনেমা দ্য স্যালভেশন ঠিক তাই। স্ত্রী পুত্রকে হত্যা করে কুখ্যাত গ্যাং লিডার ডালরু’র ভাই, ছেড়ে দেয় না জনও – খুঁজে বের করে প্রতিশোধ নেয়। কিন্তু শান্তিপ্রিয় শহরবাসী ডালরু’র ক্রোধ থেকে বাঁচতে ধরিয়ে দেয় জনকে। তারপর জন কিভাবে ডালরু’র গ্যাংকে গুড়িয়ে দেয় তার গল্প স্যালভেশন।

    কাহিনী বড্ড গতানুগতিক – ক্যানভাসটিও বড্ড ছোট। এরকম সাধারণ গল্পে মিকলসন যে কেন অভিনয় করলো বুঝে আসে না। রং এবং সিনেমাটোগ্রাফি চমৎকার, অ্যাকশন দৃশ্যগুলো দুর্দান্ত না হলেও হতাশ করবে না। ক্ষুরধার চোখের অধিকারিনী ইভা গ্রীন অভিনয় করেছেন – একটিমাত্রও সংলাপ না বলে।

    রেকমেন্ডেড নয়, তবে দেড় ঘন্টার বিনোদনের জন্য যথেষ্ট।

    রেটিং: ৪/৫

  212. Samrat & Co, India, 2014

    সালেহ তিয়াস এর রেকমেন্ডেশনে বহুদিন বাদে সাবটাইটেলে হিন্দী সিনেমা দেখা হল।

    ডিটেক্টিভ স্টোরি – সম্রাট তিলকধারি বা এসটিডি হল দুর্ধর্ষ গোয়েন্দা। নতুন এক কেস পেয়েছেন হাতে – বিশাল এক বাগানবাড়ির গাছগুলো মরে যাচ্ছে একে একে, ভূত দেখা যাচ্ছে সিসি ক্যামেরায় এবং বাড়ির মালিকও শুকিয়ে যাচ্ছেন গাছের মতই। কেস সলভ করতে গিয়ে সেই বাড়িতে পৌছানোর দিন কয়েক বাদেই জন্মদিনে মারা পড়লেন বাড়িওয়ালা, হত্যার দায়ে গ্রেফতার হলেন বখে যাওয়া ছেলে। কিন্তু সম্রাট নিশ্চিত – চোখে যা দেখা যাচ্ছে তাই সত্য নয়। সুতরাং সত্য সন্ধানে ঘটনার গভীরে ঢুকে গেল সে।

    গল্প চলনসই। ডিটেক্টিভ স্টোরিতে হরর জনরার মিশেল মন্দ হয় নি। তবে এই ধরনের গল্পে দর্শকের জন্য দেখে যাওয়া ছাড়া আর কোন কাজ থাকে না। যে ডিটেকটিভ গল্পগুলো গোয়েন্দার পাশাপাশি দর্শকের জন্যও চিন্তা করার সুযোগ করে দেয়, সেই গল্পগুলো অপেক্ষাকৃত বেশী উপভোগ্য। সম্রাট অ্যান্ড কোং এ সেই সুযোগ নেই, গল্পকারের ইচ্ছেয় কাহিনী বিভিন্ন দিকে বাঁক নিয়েছে, ফলে শেষ পর্যন্ত অপরাধী কে সেটা বোঝার জন্য ছক্কা নিক্ষেপ ছাড়া দর্শকের জন্য উপায় থাকে না।

    এই ছবির সবচে বড় দুর্বলতা হল – টিভি সিরিজ শার্লক এর শার্লক হোমসকে অনুকরনের চেষ্টা। শুরুর অংশে সম্রাটকে বেনেডিক্টের ভারতীয় সংস্করণ মনে হচ্ছিল। বক্সিং রিং এর দৃশ্য রবার্ট ডাউনি জুনিয়রের শার্লক হোমসকে মনে করিয়ে দেয়। ভালো দিক হল, ছবির পরের দিকগুলোতে সম্রাট অনেকটাই নিজ রূপে ফিরতে সক্ষম হয়েছিল।

    সবচে বাজে ভাঁড়ামো করেছে সম্রাটের ওয়াটসন সিডি। একটা সিনেমাকে নষ্ট করার জন্য এরকম একটা চরিত্র একাই একশ। ডিম্পল চরিত্রের কাজ সৌন্দর্য্য বিকিরণ ছাড়া আর কিছু ছিল না।

    শার্লকের ভক্ত দর্শকের জন্য সম্রাট খুব আহামরী গোয়েন্দা না হলেও নিরপেক্ষ বিচারে ভারতীয় শার্লক ‘সম্রাট এন্ড কোং’ বেশ ভালো চলচ্চিত্র।

    রেটিং: ৩.৫/৫

  213. J. Edgar, USA, 2011

    Rise of the Planet of the Apes, USA, 2011

  214. বহুদিন পরে আপডেট করতে এলাম। সাম্প্রতিক যে সিনেমাগুলো দেখেছি

    Jack Reacher Never Go Back, USA, 2016

    John Wick, USA, 2014

    Maigret’s Dead Man, UK

    Maigret Sets a trap, UK

    War Witch, Canada, 2012

    Bridge of Spies, USA, 2015

  1. April 12, 2014

    […] ওয়েস্টার্ণ সিনেমা – ওপেন রেঞ্জ এবং ড্যান্সেস উইথ ওলভস দেখার পর।  আর অভিনেতা কেভিন […]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares