সিনেমায় 'সময়' অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়। দুই বা আড়াই ঘন্টায় কতসময়ের গল্প বলা হচ্ছে তার উপর নির্ভর করে সময়কে নিয়ে খেলে নির্মাতা। পাঁচ সেকেন্ডে পঞ্চাশ বছর এগিয়ে নেয়া যেতে পারে, আবার টাইম বোমা ডিঅ্যাকটিভেশন দৃশ্যে পঁচিশ সেকেন্ডকে পাঁচ মিনিট পর্যন্ত টেনে নেয়া হয়।

সময়কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য পরিচালকরা কত অদ্ভুতরকমের ট্রিটমেন্ট যে করেন তার ইয়ত্তা নেই। দৌড়াতে দৌড়াতে ছোট থেকে বড় হয়ে যাওয়া, দড়ি লাফাতে লাফাতে কিংবা দোলনায় দুলতে দুলতে অথবা হাত ধরাধরি করে এক গান গাওয়া শেষ হওয়ার আগেই কৈশোর থেকে যৌবনে পদার্পন করার দৃশ্য বাংলাদেশের সিনেমায় মোটামুটি প্রচলিত।

এই ছবিতে ক্যারেক্টার দুলতে দুলতে বড় হয়ে গেছে, কিন্তু দোলনা সেই অনুপাতে বাড়ে নি - ফলে একটু বেখাপ্পা হয়ে গেছে। ক্যারেক্টারের দোষ না, পরিচালক অদূরদর্শী 
Photo: সিনেমায় 'সময়' অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন একটি বিষয়। দুই বা আড়াই ঘন্টায় কতসময়ের গল্প বলা হচ্ছে তার উপর নির্ভর করে সময়কে নিয়ে খেলে নির্মাতা। পাঁচ সেকেন্ডে পঞ্চাশ বছর এগিয়ে নেয়া যেতে পারে, আবার টাইম বোমা ডিঅ্যাকটিভেশন দৃশ্যে পঁচিশ সেকেন্ডকে পাঁচ মিনিট পর্যন্ত টেনে নেয়া হয়।  সময়কে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য পরিচালকরা কত অদ্ভুতরকমের ট্রিটমেন্ট যে করেন তার ইয়ত্তা নেই। দৌড়াতে দৌড়াতে ছোট থেকে বড় হয়ে যাওয়া, দড়ি লাফাতে লাফাতে কিংবা দোলনায় দুলতে দুলতে অথবা হাত ধরাধরি করে এক গান গাওয়া শেষ হওয়ার আগেই কৈশোর থেকে যৌবনে পদার্পন করার দৃশ্য বাংলাদেশের সিনেমায় মোটামুটি প্রচলিত।   এই ছবিতে ক্যারেক্টার দুলতে দুলতে বড় হয়ে গেছে, কিন্তু দোলনা সেই অনুপাতে বাড়ে নি - ফলে একটু বেখাপ্পা হয়ে গেছে। ক্যারেক্টারের দোষ না, পরিচালক অদূরদর্শী :P