রবিবার, ২২ জুলাই, ২০১২

Incendies: যে মুভি স্তব্ধ করে দেয়

ব্লগার মুনতা একদিন ফেসবুকে আমাকে জিজ্ঞেস করল - 'Incendies দেখেছেন?' এই ধরনের প্রশ্ন অনেকেই করে, বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই যে উত্তর দিই, এবারও তাই দিলাম, 'দেখি নাই।' 'বলেন কি, এই সিনেমা অবশ্যই দেখবেন, মাথা নষ্ট করা মুভি' - আমি যেন অবশ্যই দেখি সেজন্য সে ঘেটেঘুটে দুটো লিঙ্ক বের করে আমাকে দিয়ে গেল। আমি ডাউনলোড কমান্ড দিয়ে শীতনিদ্রায় গেলাম। কয়েকদিন পরে মুনতা আবারও ফেসবুকে নক করলো - 'ভাই সিনেমাটা দেখছেন?' সিডের অভাবে সিনেমাটা ১৫ পার্সেন্ট নেমে বন্ধ হয়ে গেছে বলে ডিলিট করে দিয়েছিলাম। তারপরে প্রায় এক মাস পিসি নষ্ট ছিল। তারও প্রায় এক মাস পরে সিনেমাটা আবার খুজে বের করে ডাউনলোড করলাম। মুনতার জন্য হলেও সিনেমাটা দেখা দরকার।

বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই, ২০১২

রমজানের আহবান

১.
সবাইকে মাহে রমজানের শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ। রমজান উপলক্ষ্যে বিশেষ পরিকল্পনা গ্রহন করার উপযুক্ত সময় এখনই। নিজে নামায-রোজা সহ অন্যান্য ইবাদত পালন করুন, বন্ধুবান্ধব সহ পরিচিতদের ফরজ ইবাদতগুলো পালনের ব্যাপারে উৎসাহিত করা উচিত। মুমিন ব্যক্তির অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল তারা সৎ কাজের আদেশ দেয় এবং অসৎ কাজে নিষেধ করে।
২.
অনেকেরই আগ্রহ থাকে তাহাজ্জুদ নামাজ আদায় করার। বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় রমজান মাসে তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ার সুযোগ বেশী। সেহরী খাওয়ার আগে অথবা পড়ে আযান দেয়ার আগেই তাহাজ্জুদ পড়ে নেয়া যায়। তাহাজ্জুদ নামাজ দুই রাকাত থেকে বারো রাকাত পর্যন্ত পড়া যায়।
৩.
জাকাত আদায় করা অন্যান্য ফরজ ইবাদতের মতই ফরজ। জাকাত ক্যালকুলেশন, আদায় পদ্ধতি ও অন্যান্য যে কোন ব্যাপারে কোন প্রশ্ন থাকলে আমাকে ইনবক্স করতে পারেন। চেষ্টা করবো সহায়তা করার জন্য।
৪.
এই স্ট্যাটাস কারও বিরক্তি উৎপাদন করলে ইনবক্স করে জানিয়ে দেবেন প্লিজ। ধন্যবাদ :)

বৃহস্পতিবার, ১২ জুলাই, ২০১২

শেষ চিঠি

অনেকদিন আগে একবার এইরকম সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম - তখন তোমাকে কিচ্ছু জানাই নি। নিজের সিদ্ধান্তে নিজেই কাজ করেছি, দীর্ঘদিন তোমার সাথে যোগাযোগ হয় নি। তুমি মন্দ ছিলে না এই দীর্ঘ সময়।

অনেকদিন বাদে তোমার সাথে যোগাযোগের পরে তুমি বারবার বলেছিলে যে তুমি পাল্টেছো, কথাবার্তায় আমিও আগের সেই তোমার অনেকটা পেলাম না, কিছু ব্যাপার ঠিক রয়ে গেছে। আমি আস্বস্ত হলাম, আশংকামুক্ত হলাম।

চট্টগ্রামে গেলে তোমাদের বাসায় যাবো এমনটা ঠিক করে ফেলেছিলাম, কিন্তু চট্টগ্রামেই যাওয়া হচ্ছিল না, আর তাই তোমার বাসায়ও। তোমার বাসায় গেলে কি করবো, কি বলবো, কি খাবো ইত্যাদি নিয়ে ভাবনা চিন্তা করেছি অলস সময়ে, জানি এটা সেই বয়স নয়, বয়সের বারণ মানতেই হবে নাকি? কদিন আগে তুমি যখন সেই পুরানো কথাটা আরও একবার বললে যা বলেছিলে আরও ৯ বছর আগে, তখনই বুঝলাম - আর নয়। অনেক অল্প সময়েই তুমি সজীব হও, ৯ বছর আগেরকার সবকিছু সতেজ হয়ে উঠছে, ডালপালা মেলে ধরবার আগেই গোড়ায় পানি ঢালা বন্ধ করতে হবে। তরতাজা হবার এই সুযোগ দেয়ার নয়, দেয়া উচিত নয়।

এ যুগে মিরাকল খুব বেশী ঘটে না। তোমার আলাদা সংসার হবে, সেই সংসার যেন সুখের হয় সেটা মনে প্রানে কামনা করি। তুমি যা ভয় পাচ্ছো তার আশংকা আমিও করি, তাই সমাধানের রাস্তা হিসেবে এটাকেই বেছে নিচ্ছি। ভালো থেকো।


এ যুগে ডাকবিভাগের হলুদ খামের ভেতরে চিঠি পাঠানোর মানে হয় না, ইমেইল-ফেসবুকের যুগে সে রোমান্টিকতার বাড়াবাড়ি। সুতরাং, ছেলেটা তাকে ফেসবুকেই মেইলটা পাঠিয়ে দিল, তারপর মেয়েটার প্রোফাইলের সেটিংসে গিয়ে তাকে ব্লক করল। নিজের জন্য তার যতটা খারাপ লাগছিল, তার চেয়ে বেশী মেয়েটার জন্য, একটু ভয়ও হচ্ছিল - মেইলটা সে গ্রহণ করতে পারবে তো?

 

রবিবার, ৮ জুলাই, ২০১২

গহীনে শব্দ-দূষন

ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত সিনেমা 'গহীনে শব্দ'  বিভিন্ন উৎসবে প্রদর্শিত হচ্ছে - এমন সংবাদ আমরা বিভিন্ন সময়ে জেনেছি। পরিচালক খালিদ মাহমুদ মিঠুর নামও যথেষ্ঠ আগ্রহ জাগানিয়া। মিঠু নির্মিত সিনেমা দেখার মতো হবে - এমন একটা ধারণা তৈরী হয়ে গিয়েছিল। সবশেষে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১০-এ গহীনে শব্দ সেরা সিনেমা হিসেবে এবং একই সাথে ইমপ্রেস টেলিফিল্মের '১০০টি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তি' ঘোষনার মধ্যে সেই ধারণাটাই যেন পোক্ত হলো। কিন্তু আদতে সেই ধারণা কতটা প্রস্ফুটিক হয়েছিলো ‘গহীনে শব্দ’ সিনেমায়!

শনিবার, ৭ জুলাই, ২০১২

ওয়ান ম্যান আর্মি

ওয়ান ম্যান আর্মি - শব্দটা সাধারণত অ্যাকশন সিনেমায় ব্যবহৃত হয়। একজন নায়ক বিভিন্ন অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে একাই বিপক্ষ দলকে কুপোকাত করে জয় ছিনিয়ে আনে - এমন হিরো 'ওয়ান ম্যান আর্মি' নামে পরিচিত। ফেসবুক-ব্লগের কল্যানে বেশ কিছু 'ওয়ান ম্যান আর্মি'-কে চেনার সুযোগ হয়েছে (নাম বলবো না) এক একজন ব্যক্তি একাই কোন একটা নির্দিষ্ট ফিল্ডে বিপ্লব ঘটিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। গতানুগতিকের বাইরে এসে দেশ সমাজের জন্য কাজ করতে থাকা এই লোকগুলো আরও অনেক মানুষকে প্রভাবিত করে সফলতার হারকে ত্বরান্বিত করুক - শুভকামনা।

রবিবার, ১ জুলাই, ২০১২

মুভিখোর ব্লগার ইন্টারভিউঃ ব্লগার দারাশিকো

আজকের কাঠগড়ায় ব্লগার দারাশিকো। আমার এবং ব্লগের অধিকাংশ মুভিখোরদের প্রিয় ব্লগার। দারাশিকো আর ১০ টা মুভি ব্লগারদের মতো না। কি যেন একটা ধারন করে দারাশিকো, আর সিনেমা রুচি, রেকমেন্ড, তার লেখনী সব কিছুতেই কেমন যেন অন্যরকম একটা মাধুর্য। তথাকথিত বাংলা ফিল্ম নিয়ে নাক সিটকানো যেখানে একটা ধর্ম হয়ে গেছে সেখানে দারাশিকো একের পর এক বাংলা ফিল্মগুলোর পজেটিভ রিভিউ দিয়ে আমাদের ব্লগারদের হল মুখি করছে।

আমি ঠিকভাবে দারাশিকোকে কখনোই বুঝতে পারেনি, ফেসবুকে ব্যক্তিগত চ্যাটে দারাশিকোর সাথে আমার যতবার কথা হয়েছে দারাশিকো নিজেকে রহস্যময় রাখতে সক্ষম হয়েছেন। যেদিন আমাদের দেখা হয় সেদিন অনেক কথা হলেও আমি ঠিক সঠিকভাবে তার রুচিবোধটাকে আয়ত্ত্ব করতে পারিনি। একদিন বললাম, আমাকে কিছু মুভি সাগেষ্ট করুন, ভেবেছিলাম, এখান থেকেও দারাশিকোর রুচিবোধ ও চিন্তা-ভাবনা সম্বন্ধে একটা ধারনা পাব। কিন্তু সেখানেও রহস্যময় রয়ে গেল দারাশিকো। এতোগুলো কথা বলার একটাই মানে, সেটা হলো, দারাশিকোকে ভালোভাবে না বুঝতে পারার কারনে তাকে ঠিক সেভাবে প্রশ্ন করতে পারিনি। তার জন্য আমি আগে থেকেই সকলের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। যতটা ঘাটতি রয়ে গেল, তা পূরনের দ্বায়িত্ত্ব আপনাদের হাতে তুলে দিলাম।