সোমবার, ২৮ নভেম্বর, ২০১১

এত ভালোবাসা ছিল আমাদের মাঝে !

আজকে শেষ ক্লাস এজন্য যতটা মন খারাপ তার চেয়ে আফসোসটা বেশী ছিল।


মুবিনা ম্যাডামের ক্লাস দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যাত্রা শুরু, আজকে রাফি স্যারের ক্লাস দিয়ে শেষ। শেষ সবসময়ই একটু অন্যরকম। শেষ তো শেষ নয়, অন্য কোন কিছুর শুরু। কিন্তু তারপরও নতুন কিছু শুরুর তুলনায় শেষটাই বড় হয়ে দাড়ায়। ছয়বছরের একত্রে ক্লাস-অ্যাসাইনমেন্টস-প্রেজেন্টেশনস-এক্সামস-রেজাল্টস - যবনিকা পড়লো বলে। ছ-য়-ব-ছ-র - মোটেও কম সময় নয়।

ভার্চূয়াল ভালোবাসা-বন্ধুত্বের এই যুগে দুরত্ব হাতের মুঠোয়। ফেসবুকে লগিন করেই 'হাই' বললেই দুরুত্ব নিমেষেই ফুরিয়ে যায়। কিন্তু তারপরও তো কথা থাকে - চোখেরো আড়াল হলে মনেরো আড়াল। ক্লাসের কল্যানে তিনঘন্টা একটা ফ্লোরে দাড়িয়ে প্রয়োজনীয় অপ্রয়োজনীয় আ্ড্ডাবাজি-খুনসুটি-হাসাহাসি-ছোটাছুটি হয়েছে, ফেসবুকে কিংবা মোবাইলে হাই-হ্যালো হবে, কিন্তু তোমাদেরকে ছুয়ে দেয়া কি হবে? হঠাৎ কোন রাস্তায়, কোন অফিস কিবা ফাংশনে হারিয়ে যাওয়া মুখ ডেকে তো বলবেই - বন্ধু কি খবর বল? কতদিন দেখা হয় নি ... কিন্তু তারপরেই কি বলতে হবে না - দোস্ত এখন যাইরে - মিটিং আছে, এক্ষুনি ধরতে হবে।

তুষ্ণীম একটা ডাইরী আর কলম বাড়িয়ে দিয়ে বললো - উইশবুক, কিছু লিখে দাও। আফরিন আজহারের খাতায় হয় না, কলমেও বিশ্বাস নেই - সে নিয়ে এসেছে একটা টি-শার্ট আর একটা মার্কার; কথা হয়নি কোনদিন, কিন্তু নোটবুকটা বাড়িয়ে দিলে নিঘাত বর্ষাকে কি ফিরিয়ে দেয়া যায়? উইশবুকে উইশ করে দেয়াটা কত নির্বুদ্ধিতা, তাই না? আমার জন্য তুমি বরাদ্দ করেছো একটা মাত্র সাদা পৃষ্ঠা, সময় দিয়েছো লেখার জন্য বড়জোর পাচ মিনিট - তোমার জন্য আমি দুম করে একটা উইশ লিখে দিয়েছি সত্য - কিন্তু সেটাই কি শেষ কথা, সেটাই কি সব কথা? সেই ছ'বছর আগে থেকে শুরু করে মৃত্যু পর্যন্ত এবং বিশ্বাসীদের জন্য মৃত্যুর পরের জীবনের জন্যও তোমার জন্য আমার যে শুভকামনাগুলো ছিল, আছে এবং থাকবে তার জন্য ডায়রীর একটা পৃষ্ঠা তো নিতান্তই সামান্য, ক্ষুদ্র এবং নশ্বর। তোমার জন্য হৃদয়ের উইশবুকে যা লেখা আছে তার প্রতিনিধি হলো যা লিখে দিয়েছি তোমার কাগজের উইশবুকে, আমি যা লিখেছি তার চে' ঢের বেশী উইশ আমি লিখিনি বন্ধু।

শেষ একটু বিষাদময় হবে এটাই তো জানতাম। সব্বাই দলবেধে ছবি তুলবে, আমরা উইশবুকে একটু আধটু ভারিক্কি কথাবার্তা লিখে দেবো, মেয়েরা কাদবে - এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু ডাবল বিবিএ-ডিগ্রিধারী আসিফ যখন ভ্যা করে কাদতে কাদতে বলে - 'মাফ কইরো' - তখন তো আমি বলবোই যে  'তোকে শালা মাফ করবোই না।' মাফ করলেই ভুলে যাবি, মাফ না করলে কেয়ামত পর্যন্ত মনে রাখবি। হাশরের ময়দানে মাফ চাওয়ার জন্য হলেও তুই আমাকে খুজে বেড়াবি - তথন তোকে জড়িয়ে ধরে আমি বলবো, মাফ তো কবেই করছি, কিন্তু বললে কি তুই আমাকে এইখানে খুজে বের করতিস?

ক্লাস শেষ হয়ে যাচ্ছে - এই নিয়ে আমাদের যত দু:খ, শুভ ফাহিম চৌধুরী (CFC)র দু:খ আরও বেশী। কোন এক পরীক্ষায় পাচতলার বাথরুমে বিড়ি টানতে টানতে সে বলেছিল - ইউনিভার্সিটি শেষ করলেই বিড়ি খাওয়াও শেষ। সেই বাচ্চাকালের সংগী, পলমল টেনে গলায় সমস্যা হলেও যাকে ছাড়েনি - তার সাথেও বিদায়ের সময় হয়ে এলো। শুভর দু:খ তো লাগবেই। লাগুক, কিন্তু শুভ যেনো বিড়ি খাওয়া বন্ধ করে, দৈনিক ১৪ থেকে নেমে ৪টে বিড়িতে অভ্যস্ত হওয়া তুষার যেনো ২এর বেশীতে কখনোই না যায় - এই উইশ কি আমরা শুধূ উইশবুকে লিখি, এটা আমাদের অন্তরে আছে আরও লাখো উইশের সাথেই।

বাংলাদেশে ভারতীয় সিনেমা আমদানী হবে কি হবে না - এই নিয়ে রায়হান মাহমুদের সাথে আমার ঝগড়া হবেই, আমি বিপক্ষে কথা বলবোই, কিন্তু তাই বলে এত বিশাল বপু নিয়ে সে হাউমাউ করে কাদবে? আমাদের ক্লাসের গুডবয় রিফাত সাগর, রাব্বি, আজাদ ইকবাল যদি কাদে তবে মেহেদী কেন চুপচাপ বসে কাদবে না? আর শহীদুজ্জামান ফয়েজ তো অবশ্যই তার চেয়ার থেকে উঠে দাড়াবে না, কারণ ওটাই তো তার অবলম্বন, চেয়ারটাই তো তাকে সবার সামনে হাউমাউ করে কাদতে বাধা দিচ্ছে - ফয়েজ উঠে দাড়ালে কি তার সাথে কান্নাও ভেংগে পড়বে না? তারচে' সে ওখানেই থাকুক।

এই যে উইশবুক, এই যে কান্নাভেজা চোখে হাসিমুখে ছবি তোলা, এই যে জড়িয়ে ধরে সান্তনা দেয়া, হোয়াইট বোর্ডে লিখে সাবিদের নির্লজ্জের মতো সবার বিয়ের দাওয়াত চাওয়া - অনেক বীণে তো একটাই সুর তোলে। ভালোবাসা ভালোবাসা ভালোবাসা। এত ভালোবাসা ছিল আমাদের মধ্যে? এত?


যেখানেই থাকিস যেভাবেই থাকিস ভালো থাকিস বন্ধু।

বুধবার, ১৬ নভেম্বর, ২০১১

সাময়িক পোস্ট: ভ্রমনব্লগ নিয়ে ই-বুক 'হাতের মুঠোয় মেঘদল'

সিনেমার সাথে অপ্রাসংগিক, তাই এই পোস্টের স্থায়িত্ব মাত্র এক সপ্তাহ।

গেল অক্টোবরে বান্দরবানে ঘুরতে বেরিয়েছিলাম। বান্দরবান শহরে স্বর্ণমন্দির, মেঘলা, নীলাচল, শৈলপ্রপাত, চিম্বুক এবং নীলগিরি, বান্দরবানের বাহিরে রুমা, ঝিরির রাস্তায় বগালেক এবং কেওক্রাডং। পাচদিনের এই ট্যুর নিয়ে ব্লগ লিখেছিলাম চতুর্মাত্রিকে। লিখতে ভালো লাগছিল, তাই আকৃতি বড় হতে হতে আট পর্বে চলে গেল। এই আটটি পর্ব নিয়েই বানিয়ে ফেললাম একটি ই-বুক - হাতের মুঠোয় মেঘদল।

পাঠকদের জন্য ইবুকটি আপলোড করা হলো মিডিয়াফায়ারে।

ই-বুক: হাতের মুঠোয় মেঘদল (বান্দরবান ভ্রমনব্লগ)

সাইজ: ৩ মেগাবাইট

ধন্যবাদ।

 

শনিবার, ৫ নভেম্বর, ২০১১

A Separation : ভালোবাসা আর ত্যাগের দ্বান্দিক যুদ্ধ

কল্পনা করুন, আপনি একজন বিবাহিত পুরুষ। দীর্ঘ ১৪ বছরের সংসার আপনার। সংসারে রয়েছে আপনার স্ত্রী, পবিত্র ও নিষ্পাপ একটি কন্যা আর দূরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত আপনার বৃদ্ধ বাবা। অর্থের প্রাচুর্য না থাকলেও, সংসারে প্রেম ভালোবাসার কমতি নেই। কিন্তু আপনার স্ত্রী এই সংসারে থাকতে রাজি নই। একমাত্র মেয়ের সুন্দর ভবিষ্যতের চিন্তায় বিভোর আপনার স্ত্রী চায়, স্বামী আর মেয়েকে নিয়ে প্রবাসে পাড়ি জমাতে। আপনার স্ত্রী তার সিদ্ধান্তে অটল। কিন্তু আপনি বৃদ্ধ বাবাকে রেখে এক মুহূর্তের জন্যও বিদেশে যেতে প্রস্তুত নন। ফলে আপনার সবচেয়ে কাছের মানুষটি আপনাকে ডিভোর্স দেবার সিদ্ধান্ত নিল। একবার ভেবে বলুনতো, কি করবেন আপনি?

মঙ্গলবার, ১ নভেম্বর, ২০১১

স্টেডিক্যাম: নান্দনিক শটের হাতিয়ার

গুডফেলাস সিনেমাটি দেখেছেন? স্ট্যানলি কুব্রিকের দ্য শাইনিং? এ দুটো সিনেমায়ই স্টেডি ক্যামের অপূর্ব ব্যবহার দেখানো হয়েছে - মনে করতে পারছেন? হয়তো কষ্ট হচ্ছে। তাহলে ভারতীয় সিনেমা থেকে উদাহরণ দিই - এবার আপনি পারবেনই। ফারাহ খানের পরিচালনায় শাহরুখ খান অভিনীত উদ্ভট সিনেমা 'ম্যায় হু না' দেখেছেন নিশ্চয়ই? সেখানে একটি গান ছিল - চলে য্যয়সে হাওয়া । এবার নিশ্চয়ই মনে করতে পেরেছেন তাই না? গানটি অন্যরকম লেগেছিল না? শুনেছিলাম এই গানটা শ্যূট করতে টানা ২৯ দিন রিহার্সেল চলেছিল। কেন? কারণ এই গানটার একটা বড় অংশ স্টেডিক্যামে শ্যুট করা।