সোমবার, ২৯ আগস্ট, ২০১১

দারাশিকো ব্লগের পক্ষ থেকে সবাইকে - ঈদ মোবারক

চলে এলো ঈদ উল ফিতর।
দারাশিকো ব্লগের পাঠকদেরকে জানাই ঈদ মোবারক। প্রায় ৯ দিনের ছুটির ফাদে আটকে পড়া আপনার ছুটি কাটুক অনেক আনন্দে, প্রিয়জনের সাহচর্যে। হয়ে উঠুক সিনেমাময় ।

এই ঈদে দারাশিকো ব্লগের পক্ষ থেকে যে কটি সিনেমা দেখার অনুরোধ থাকবে -
১. জেএফকে - অলিভার স্টোন
২. কিঙডম অব হ্যাভেন - রিডলি স্কট
৩. রান্ওয়ে - তারেক মাসুদ
৪. মনের মানুষ - গৌতম ঘোষ
৫. ইটি -দ্য এক্সট্রা টেরিস্টিরিয়াল - স্টিভেন স্পিলবার্গ
৬. দ্য শাইনিঙ - স্ট্যানলি কুব্রিক (অবশ্যই রাতের বেলা হেডফোন লাগিয়ে দেখবেন)
৭. দ্য ফল - তারসেম সিঙ
এবঙ আপনার পছন্দের সিনেমাটি

ঈদ মোবারক :)

বুধবার, ২৪ আগস্ট, ২০১১

সদ্যপ্রয়াত সিনেমাব্যক্তিত্ব আখতারুজ্জামান স্যার: টুকরো স্মৃতি

১.

শুক্রবার।
দুপুরবেলা। আম্মার পাশে শুয়ে আছি। সোয়া তিনটার একটু পরে সিনেমা শুরু হলো। নাম - পোকামাকড়ের ঘরবসতি। অদ্ভুত নাম। কোন প্রেম পিরিতির নাম গন্ধ নেই। আম্মা পাশ ফিরে ঘুমুতে চাইলেন। আমি তাকে সামান্য তথ্য জুগিয়ে উৎসাহ দেয়ার চেষ্টা করলাম - এই সিনেমাটা পুরস্কার পাইছিল, ববিতা আছে। আম্মা পাত্তা না দিয়ে ঘুমুলেন। আমি দেখতে লাগলাম - ববিতার জন্য নয়, ছি ছি ছি তুমি এত খারাপ - খ্যাত খালেদ খান আর চট্টগ্রামের স্থানীয় ভাষার জন্য। কিচ্ছু হচ্ছে না ভাষার ব্যবহার। তাও দেখি।

সোমবার, ২২ আগস্ট, ২০১১

সিনেমায় যখন ক্রেনশট

শোনা গল্প।

বাংলাদেশে সিনেমার শ্যুটিং এ প্রথম নাকি ক্রেন ব্যবহার করা হয়েছিল 'পদ্মা নদীর মাঝি' সিনেমাতে। ভারত থেকে একটা ক্রেন নিয়ে আসা হয়েছে। কিন্তু সেই ক্রেন কিভাবে ব্যবহার করা হবে কেউ জানে না। নানা জনে নানা মতামত দিলো। কোনভাবেই সেই ক্রেনের ব্যবহার ঠিক করা যাচ্ছে না। পরিচালক তখন উপস্থিত ছিলেন না, দায়িত্ব কলাকুশলীদের হাতে। বেশ চিন্তাভাবনা করে সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া গেল এবং সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক সিনেমার হিরো এবং হিরোইনকে ক্রেনের উপরে তুলে দেয়া হলো !

বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট, ২০১১

সিনেমায় গুপ্তহত্যা

নিশ্চল মূর্তি।
রাশিয়ায় তৈরী ড্রাগোনভ রাইফেলের টেলিস্কোপে চোখ রেখে অপেক্ষা করছে সে। আরেকটু বাদেই এদিক দিয়ে যাবে টার্গেট। ম্যাগাজিনে দশটা লম্বা চোখা বুলেট। রিলোড করতে সময় লাগবে দুই সেকেন্ডের কম সময়। কিন্তু সুযোগ মাত্র একটাই। জায়গামত পৌছে দিতে হবে বুলেটটিকে। স্নায়ুর চাপ প্রচন্ড। কিন্তু সব কিছুকে উপেক্ষা করে সে অপেক্ষা করতে লাগল। সে একজন গুপ্তঘাতক।

শুক্রবার, ৫ আগস্ট, ২০১১

The Day of the Jackal : সত্যিকারের গুপ্তঘাতক !

আলজেরিয়াকে স্বাধীন ঘোষনা করায় ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট চার্লস দ্য গল কিছু সামরিক এবং সরকারী অফিসারের চক্ষুশূলে পরিনত হন। একদি বিদ্রোহী দল গড়ে উঠে, যার নাম 'ওএএস'। প্রেসিডেন্টকে হত্যার একটা চেষ্টা হয় বটে কিন্তু ব্যর্থ হ্ওয়ায় হামলাকারীরা এবং তাদের নেতৃবৃন্দ ফাসিকাষ্ঠে ঝুলেন। নতুন নেতৃবৃন্দের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আধ মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে একজন হিটম্যানকে নিয়োগ দেয়া হয় - কাজ একটিই - চার্লস দ্য গলকে পৃথিবী থেকে সরাতে হবে। তার আসল নাম কেউ জানে না, শুধু জানে তার নাম 'দ্য জ্যাকল'।