বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই, ২০১১

সিনেমায় ডিরেক্টরস কাট কি?

আমরা যারা ইন্টারনেট ঘেটেঘুটে সিনেমা ডাউনলোড করি, তাদের অনেকের কাছেই 'ডিরেক্টরস কাট' শব্দটা পরিচিত। শব্দটা গ্যাঞ্জাম তৈরী করে যদি 'কাট' এর মানে জানা থাকে এবং সিনেমায় এর প্রয়োগ সম্পর্কেও। ডিরেক্টর শ্যুটিং এর সময় 'কাট' বলে চিৱকার করেন, আবার এডিটিং প্যানেলে বসেও কাটা কুটি চলে। যেহেতু ডিরেক্টরই একটি সিনেমার সব কিছু, তাই ডিরেক্টরস কাটের পর কিছু থাকতে পারে সে বিষয়ে সন্দেহ জাগে বৈকি।

রবিবার, ২৪ জুলাই, ২০১১

মহামন্দায় সিনেমা, মহামন্দার সিনেমা

অর্থনৈতিক মহামন্দা - বিষয়টার সাথে পরিচয় হতে বেশী সময় লাগে না। বিশেষ করে গত একদশকে অন্তত: দুবার এই কথাটা শুনতে হয়েছে সবাইকে, দেশ এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে।  গত শতাব্দীর অন্যতম উল্লেখযোগ্য ঘটনা হলো এই অর্থনৈতিক মহামন্দা। প্রধাণত আমেরিকায় শুরু হয়ে সারা বিশ্বের প্রায় সব দেশকেই কম বেশী প্রভাবিত করেছিল। মূলত মহামন্দাই বিশ্ব অর্থনীতির দিক পরিবর্তন করে দেয়। মহামন্দার কোন নির্দিষ্ট সময়সীমা নেই, দেশ ভেদে একেক সময় প্রভাব বিস্তার করেছে। অবশ্য বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই ১৯২৯ এ শুরু হয়ে ৩০ দশকের শেষ পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। স্টকের মূল্য হঠাৎই পড়ে যায় এবং সারা বিশ্বে কি ধনী কি গরীব সব দেশেই প্রভাব ফেলে। মানুষের আয়, মুনাফা কমে যায়, প্রতিষ্ঠানগুলোতে ছাটাই চলে বেপরোয়া গতিতে। খাদ্য সংকটা এড়াতে মানুষ তার সম্পদ বিক্রি করতে শুরু করে, দিনমজুরের সংখ্যা বেড়ে যায় – কিন্তু কাজের প্রচন্ড অভাব দারিদ্রকে আরো বিপর্যস্ত করে।

বুধবার, ২০ জুলাই, ২০১১

নতুন রূপে দারাশিকো'র ব্লগ

প্রায় দুইবছর পরে দারাশিকো'র ব্লগের  থিম পাল্টালাম।

যা কিছু পরিবর্তন হলো:
১. আগে কিছু ড্রপডাউন কিছু সাইড মেনু ছিল। এখন সবই ড্রপডাউন মেনু।
২. বাংলা-ইংরেজির মিশেল ছিল, এখন আর সেটা থাকছে না। পুরোটাই বাংলা করার চেষ্টা করেছি।
৩. ব্যানারটা আগে স্ট্যাটিক ছিল, এখন রেন্ডম ব্যানার। অবশ্য থিমে যে ব্যানার দেয়া ছিল সেগুলোই ব্যবহার করছি এখনো। নতুন ব্যানার তৈরী হয়নি। আসলে আমি পারি্ও না, বন্ধু বান্ধবদের সাথে যোগাযোগ করছি যদি তারা ফ্রি-তে দুই একটা ব্যানার বানিয়ে দেয়। আপনারা কেউ সাহায্য করবেন নাকি? :P
৪. আগে ফিল্মমেকিং পাতায় পোস্ট দিতে পারতাম না, এখন সেখানেও ব্যবস্থা করা হয়েছে। আশা করছি সিনেমা নির্মান নিয়ে যা শিখছি-পড়ছি তা নিয়ে এখানে কিছু কিছু পোস্ট দেয়া যাবে।
৫. আগে পাঠকের পোস্টে রিপ্লাই দেয়ার সুযোগ ছিল না, এখন থেকে থাকছে। আশা করছি, এতে আরও ইন্টারঅ্যাকটিভ হবে সাইটটা।

আপনার মন্তব্য জানান, পরামর্শ তো অবশ্যই। টেকি ভাইদের থেকে কিছু টিপসও আশা করছি।

দারাশিকো'র ব্লগ ফ্যানপেজে লাইক দিন, আপডেটিত থাকুন।


কৃতজ্ঞতা - সাইট ডেভলপার: থিঙ্কপুল. নেট

শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০১১

It's a Wonderful Life: চাই ভালো মানুষ

খুবই গুরুত্বপূর্ন এক মিটিং বসেছে উপরে। জর্জ বেইলি নামে এক ভদ্রলোক বিপদে আছেন, এমনই সে বিপদ যে মুক্তির জন্য আত্মহত্যা ছাড়া আর কোন উপায় নেই, তাকে বাচাতে হবে। সময় আছে মাত্র এক ঘন্টা। দায়িত্ব পরলো ক্লারেন্স অডবডি নামের দ্বিতীয় শ্রেনীর এক ফেরেস্তার উপর, দুইশ বছর পার করার পরেও যার একজোড়া পাখা হয়নি, তার অবসর কাটে মার্ক টোয়েনের 'দ্যা অ্যাডভেঞ্চার অব টম সয়্যার' পড়ে। সফলতার পুরস্কার হলো একজোড়া পাখাপ্রাপ্তি, কিন্তু জর্জ সম্পর্কে জানতে তো হবে, তা নাহলে চিনবে কি করে? সুতরাং, জর্জের ডোশিয়্যারটা দেখানো হলো, সেটা আবার সিনেমার পর্দার মতোই, ইচ্ছেমতো স্টপ করে দেয়া যায়। প্রশ্ন হলো, কত মানুষ মরে কতখানে, সবাইকে বাদ দিয়ে এই লোকটিকে, এই জর্জ বেইলিকে বাচাতে হবে কেন? 

বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই, ২০১১

কেন আমি ভারতীয় সিনেমা আমদানীর বিরোধিতা করি?

বাংলাদেশে ভারতীয় সিনেমা আমদানীর বিরোধিতা করে আমি এ পর্যন্ত দুটো পোস্ট দিয়েছি। ভগবান বাংলাদেশী সিনেমাকে তুমি বাচিয়ে রেখো এবং রাজনৈতিক.কমসম্পাদিত-প্রকাশিত দেশের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি ডাকাতি হয়ে যাচ্ছে
পরবর্তীতে সামুতে এবং চতুর্মাত্রিকে এই ব্লগদুটো প্রকাশিত হবার পরে নানা মন্তব্য পেয়েছি। কোন এক মন্তব্যের জবাবটাই এখন একটা পোস্ট হয়ে গেল

দুয়ার বন্ধ করে আসলেই শিল্প চর্চা হয় না যদি সেই শিল্পের ইংরেজী হয় 'আর্ট', কিন্তু শিল্পের ইংরেজি যদি হয় 'ইন্ডাস্ট্রি' তবে অবশ্যই দরজা বন্ধ করে হতে পারে - যে ভারতীয় সিনেমা আমরা আমদানী করতে যাচ্ছি সেই ভারতেই এই এক্জাম্পল ভুড়ি ভুড়ি।
অনেকেই বলছেন, বস্তাপচা সিরিয়ালগুলোকে যেখানে বন্ধ করতে পারি নি অথচ সেটাই সর্বপ্রথম উচিত কাজ, তখন সিনেমা আমদানী বন্ধ করে কি হবে? ভারতীয় বস্তাপচা সিরিয়ালগুলো আমরা বন্ধ করতে পারি নাই সত্যি, কিন্তু এটা অস্বীকার করার সুযোগ নেই যে এই টিভি চ্যানেলগুলোই এক/দেড় দশক পরে বাংলাদেশে ভারতীয় সিনেমা ঢোকার পথ করে দিল। তাছাড়া, টিভি চ্যানেল বন্ধ করতে পারিনি বলে সিনেমাকে সুযোগ করে দেয়াটা যৌক্তিক নয়, অন্তত: ঠিক এই যুক্তিতে।

রবিবার, ৩ জুলাই, ২০১১

দেশের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি ডাকাতি হয়ে যাচ্ছে

রাজনৈতিক সম্পাদিত-প্রকাশিত


ঠিক এই মুহুর্তে দেশের সবচে’ গুরুত্বপূর্ন ইস্যু বোধহয় তেল-গ্যাস রপ্তানি- কনকো ফিলিপস চুক্তির মাধ্যমে দেশের সম্পদ বিদেশে রপ্তানি করে দেয়ার মাধ্যমে কিছু কাঁচা টাকা এবং অবশ্যই ভবিষ্যত দেউলিয়াত্ব-অকল্যানের অর্জন। এই তেল-গ্যাস চুরি ঠেকাতে সচেতন যুবসমাজের এক অংশ নিজ দায়িত্বে উদ্যোগী হয়ে নিজ নিজ ক্ষমতাবলে প্রতিবাদী হয়ে উঠেছে, এবং ই-মিডিয়া বিশেষত: ব্লগ এবং ফেসবুক এই আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। এই প্রতিবাদী শক্তি নিজেদের ‘টোকাই’ নামে ডাকছে।

শুক্রবার, ১ জুলাই, ২০১১

Let’s join to TinTin

Published in The New Nation


Know TinTin? Yes, I am talking about Tintin, that very investigative young man with a round face and red hair who roams about America-Kongo-Tibet with dangerous and impossible missions, even to the moon; runs after the criminals from the hills to the deserts to the deep ocean and who solves hardest to solve mysteries in a second with his witty knowledge. Over decades, TinTin has earned the love and affection of billions of readers around the globe and it’s re-appearing once again to the fans and this time, this time in the silver screen of cinema and the men behind Tintin’s appearance are Steven Spilbergh and Peter Jackson who are very familiar for their movies Jurasik Park and King Kong respectively.