অকারণ দৈর্ঘ্য

খুবই আশ্চর্য ব্যাপার!

ভারী বর্ষণে ঢাকা শহরের বেশ কিছু এলাকা গতকাল পানির নিচে তলিয়ে গিয়েছিল বলে আমরা অসাধারণ ও 'ঐতিহাসিক' কিছু ছবি পেয়েছি এবং এই ছবিগুলো নিয়ে আমরা নানারকম ব্যঙ্গ করে যাচ্ছি যা আবারও প্রমাণ করতে পারছে জাতি হিসেবে আমরা খুবই রসিক; কিন্তু আক্ষেপের বিষয় হল এই জলাবদ্ধতা আমাদেরকে এখন পর্যন্ত উপলব্ধি করাতে পারল না যে এই জলাবদ্ধতার পিছনে রয়েছে আমার এবং আমাদের দীর্ঘদিনের 'আন্তরিক' অবদান, কারণ এই আমরাই দোকান থেকে পণ্য কিনে আনি নিষিদ্ধ পলিথিনে করে এবং আমাদের ব্যবহৃত পলিথিন-প্লাস্টিকের বর্জ্যগুলো আমরাই নির্দ্বিধায় ছুড়ে ফেলি খোলা রাস্তায়, ড্রেনে, পাশের খোলা প্লটে যা একসময় আটকে দেয় আমাদের এই দ্বিতীয় বসবাস অযোগ্য নিকৃষ্ট শহরের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা এবং জমে যাওয়া বৃষ্টির পানিতে আমাদের কোমর ডুবে যায় কিন্তু তারপরও আমাদের বোধদয় হয় না কারণ সম্ভবত আমাদের নাক এখনো পানি থেকে ঢের উচুতে এবং নাক ডুবে না যাওয়া পর্যন্ত আমাদের বোধ জাগ্রত হয় না এমনকি আমি নিজেও সেই মানুষদেরই একজন যার নাক বেঁচে থাকার কারণে স্ট্যাটাস প্রসবকরামাত্র আমিও ভুলে যাবো এবং আমার হাতের খালি বিস্কুটের প্যাকেটটি জানালা দিয়ে ফেলে দিয়ে সদ্য প্রসবকৃত স্ট্যাটাসের লাইক গুনতে গুনতে মনে মনে ভাববো - ভাগ্যিস, পানি জমেছিল, নাহয় এই দীর্ঘ বাক্যের স্ট্যাটাসটা কি প্রসব করা সম্ভব হত?

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ