২০০৮ সালের ২৬ অক্টোবর সামহোয়্যারইনব্লগে একটি সিনেব্লগ লিখেছিলাম। ব্লগের বিষয়বস্তু কিছুই না - একটা সিনেমার প্রিমিয়ার সংবাদ এবং তার ট্রেলার শেয়ার করা। সিনেমাটার চিত্রায়ন হয়েছে বাংলাদেশে, পরিচালক বাংলাদেশী কিন্তু সিনেমার নির্মান হয়েছে ব্রিটেনে। সিনেমার নাম - দ্যা লাস্ট ঠাকুর, পরিচালকের নাম সাদিক আহমেদ। সিনেমার নাম প্রথমে শুনেছিলাম সিনেমাপ্রেমী বন্ধুর মুখে - পাত্তা দিই নি। কারণ, ইংরেজি নামের সিনেমাগুলোর কোনটাই সুস্থ্য নয়। বলাবাহুল্য, তখন সিনেমার নাম বাদে অন্য তথ্য জানা ছিল না। হুশ ফিরলো, পত্রিকায় নিউজ এবং ইউটিউবে ট্রেলার দেখে। তারপর তক্কে তক্কে থেকেছি, কখন মুক্তি পাবে সিনেমা এই দেশে। মুক্তি আর পেলো না, তার আগেই পাইরেটেড হয়ে ইউটিউব, টরেন্ট আর মিডিয়াফায়ারে চলে আসল। লোভ সামলানো সম্ভব হয়নি। নামিয়ে দেখে ফেললাম।

দ্য লাস্ট ঠাকুর সিনেমার গল্পটা থ্রিলার, নির্মানটা ওয়েস্টার্ন ঘরানার। কোন একদিন দৌলতপুর নামের এক জায়গায় ভোরবেলায় এক তরুন ছেলে এসে হাজির হয়, তার হাতে একটা থ্রি নট থ্রি রাইফেল। তার সাথে একটা জন্মসনদ, সেখানে তার মায়ের নাম লেখা মনোয়ারা, বাবার নাম মুছে গেছে - আছে শুধু দুটো শব্দের প্রথমাক্ষর - অ এবং র। দৌলতপুর এলাকায় তিন প্রভাবশালী ব্যক্তির মধ্যে দ্বন্দ্ব। একদিকে আছে চেয়ারম্যান, অন্যদিকে আছে ঠাকুর। আর আছে সাইফুর রহমান। মূল দ্বন্দ্বটা ঠাকুর আর চেয়ারম্যানের মধ্যে - সাইফুর রহমান সুবিধাবাদী। বন্দুক হাতে নিয়ে যে যুবকটি ত্রিশ বছর আগের মনোয়ারা নামের একটি মহিলা সম্পর্কে খোজ করছে সে কোন পক্ষের লোক, কি তার পরিচয়, কেন সে খোজ করছে - এরকমই কতগুলো প্রশ্ন নিয়ে দ্য লাস্ট ঠাকুর সিনেমা।



ঊননব্বই মিনিটের এই সিনেমায় তেরো ঘন্টার কাহিনী দেখানো হয়েছে। সকাল থেকে শুরু করে সন্ধ্যা পর্যন্ত। সিনেমার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত উত্তেজনাময়। সাদিক আহমেদ একজন সিনেমাটোগ্রাফার এবং এই সিনেমায় তিনিই ডিরেক্টর অব ফটোগ্রাফি। সে কারণেই হয়তো, সিনমার গল্পের চেয়ে সিেনমাটোগ্রাফি বেশ ভালো গুরুত্ব পেয়েছে। চিত্রায়নটা এমনই সুন্দর এবং নান্দনিক যে মনেই হয় না দেশে চিত্রায়িত। একটা ধোয়াটে ভাব পুরো সিনেমাতেই - কাহিনীর সাথে বেশ ভালোই খাপ খায় এই দৃশ্য। যতটুকু জেনেছিলাম - একে মিস্ট ফটোগ্রাফি বলা হয়েছিল। নির্মানের সময় বাংলাদেশে শীতকাল এবং নির্মাতারা প্রতিদিন ভোর থেকে সকাল দশ/এগারোটা পর্যন্ত শ্যুট করেছেন এই ধোয়াটে ভাব বজায় রাখার জন্য। আরও জেনেছিলাম, এই সিনেমার চিত্রায়ন সম্পূর্ণই এইচডিভি-তে। ২০০৭/০৮ এ এইচডিভি খুব জনপ্রিয় ছিল না। চিত্রায়নের আরেকটি গুরুত্বপূর্ন ব্যাপার হল - টেলি লেন্সের প্রয়োগ। সম্ভবত সম্পূর্ণ সিনেমাটাই টেলি লেন্সে শ্যুট করা। এতে পাবলিক প্লেসের দৃশ্যগুলো খুব বাস্তবসম্মত হয়েছে, আশে পাশের সাধারণ মানুষ কেউ ক্যামেরা বা চরিত্রের উপস্থিতিকে লক্ষ্য করে নাই। কিন্তু যে দৃশ্যগুলোতে নরমাল লেন্স ব্যবহার করলেই বেশী ভালো লাগতো, সেখানে কেন টেলি লেন্স ব্যবহার করা হয়েছে তা বোধগম্য হয় নি। হয়তো নরমাল লেন্স ব্যবহার করা হলে ওই অংশগুলো আরও ভালো হত।


দ্য লাস্ট ঠাকুর সিনেমায় বন্দুকধারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন তানভীর হাসান। লম্বা চুলে, গায়ে চাদর এবং হাতে বন্দুক নিয়ে চরিত্রটা যতটা আকর্ষনীয়, ততটা গভীর নয়। অভিনয়ের কোথাও কোথাও সে চমৎকার কিন্তু কোথাও কোথাও বেশ অপটু। ঠাকুর চরিত্রে তারিক আনাম, এবং তার সহযোগী অন্ধ চরিত্রে জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায় বেশ চমৎকার অভিনয় করেছেন। একই কথা প্রযোজ্য, চেয়ারম্যান চরিত্রে আহমেদ রুবেলের জন্যও। কিন্তু চেয়ারম্যান চরিত্রটি কেন তার স্ত্রী কাছে ভেজা বেড়াল তা খুব একটা ফুটে উঠেনি। বাস্তবতার নিরিখে এই সিনেমাকে বিচার করলে অনেক প্রশ্ন জাগবেই, কিন্তু বাংলাদেশে ওয়েস্টার্ন ঘরানার সিনেমা হিসেবে দেখলে বেশ চমৎকার। সাদিক আহমেদ তার অভিনব্ত্ব শুধু সিনেমাটোগ্রাফিতেই নয়, সিনেমার ধারা বর্ণনার জন্য চায়ের দোকানের কিশোর ওয়ারিসকে বেছে নেয়াতেও প্রকাশ পায়।

১৯৭৭ সালে বাংলাদেশে জন্মগ্রহন করা সাদিক আহমেদ ব্রিটেনের ন্যাশনার ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন স্কুল থেকে পড়াশোনা করেছেন। ২০০৭ সালে তার পরিচালনা এবং চিত্রায়িত ডকুমেন্টারী 'তানজু মিয়া' বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রদর্শন এবং পুরস্কার জেতার মাধ্যমে আলোচনায় আসেন। তানজু মিয়া সিনেমাতেও ধারা বর্ননা করেছে ৬-৭ বছরের এক বালক। সম্ভবত তাকে নিয়েই গল্প আবর্তিত। (http://vimeo.com/7008239 )


Tanju Miah from Michael Ho on Vimeo.

দ্য লাস্ট ঠাকুর সিনেমাটি এখন পর্যন্ত ৮২টি দেশে প্রদর্শিত হলেও বাংলাদেশে এখনও প্রদর্শিত হয় নি। সাদিক আহমেদের এক সাক্ষাতকার থেকে জানা গেল - ইমপ্রেস টেলিফিল্ম সিেনমাটির স্বত্ব কিনে নিয়েছেন। এটা ২০১১ সালে ডিসেম্বরের কথা, এখনও দেশে প্রদর্শনের ব্যাপারে ইমপ্রেসের পক্ষ থেকে কোন বক্তব্য জানা যায়নি। তাই বলে সাদিক আহমেদ বসে নেই। শোনা যাচ্ছে তিনি তার নতুন সিনেমা নির্মানে হাত দিয়েছেন - নাম 'কিং অব মিরপুর'। সিনেমায় কোলকাতার রাহুল বোস ও কঙ্কনার অভিনয় সম্ভাবনাও রয়েছে। ইমপ্রেস টেলিফিল্ম দেশের সিনেমা হলগুলোতে দ্য লাস্ট ঠাকুর প্রদর্শনের মাধ্যমে দেশের সবাইকে একটা ভালো এবং ভিন্ন স্বাদের সিনেমা দেখার সুযোগ করে দেবেন এই আশাবাদ, সেই সাথে তার নির্মিতব্য সিনেমার জন্য শুভকামনা।

তথ্যসূত্র:
১. দ্য লাস্ট ঠাকুর - সমকাল
২. ‘দ্য লাস্ট ঠাকুর’-এর পর ‘কিং অব মিরপুর’অভিনয় করবেন কঙ্কনা ও রাহুল - বিজয়নগর
৩. আইএমডিবি